Alexa

ফরিদপুরের ৫ উপজেলায় স্বতন্ত্র প্রার্থীর জয়

ফরিদপুরের ৫ উপজেলায় স্বতন্ত্র প্রার্থীর জয়

বেসরকারিভাবে নির্বাচিত চেয়ারম্যান প্রার্থীরা / ছবি: বার্তা২৪

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, ফরিদপুর, বার্তা২৪.কম

 

পঞ্চম উপজেলা নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে ফরিদপুরের নয়টি উপজেলার মধ্যে আটটিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর মধ্যে পাঁচটি উপজেলায় স্বতন্ত্র ও তিনটিতে নৌকা মার্কার দলীয় প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। এছাড়া ফরিদপুর সদর উপজেলায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী জয়লাভ করেছেন।

সোমবার (১৮ মার্চ) সাকল ৮ টা থেকে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত ফরিদপুরের ভাঙ্গা, সদরপুর, চরভদ্রাসন, নগরকান্দা, সালথা, মধুখালী, বোয়ালমারী ও আলফাডাঙ্গা উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এরমধ্যে ভাঙ্গা, সদরপুর ও চরভদ্রাসন উপজেলা নিয়ে ফরিদপুর-৪ আসন। এই তিনটি উপজেলাতে ওই আসনের স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য মুজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সনের সমর্থন পাওয়া বা তার কর্মী হিসেবে পরিচিতরা চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন।

ভাঙ্গা উপজেলায় স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে এস এম হাবিবুর রহমান আনারস প্রতীকে ৪৫ হাজার ৫৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রদিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী এস এম জাকির হোসেন পেয়েছেন ২৪ হাজার ২৮৬ ভোট।

সদরপুর উপজেলায় স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে আনারস প্রতীকের কাজী শফিকুর রহমান ৩৬ হাজার ৫৮২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দী আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী শায়েদীদ গামাল লিপু ৩৪ হাজার ৬৩৩ ভোট পেয়েছেন।

চরভদ্রাসন উপজেলায় মোশাররফ হোসেন ভিপি মুছা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে টেলিফোন প্রতীক নিয়ে ৯ হাজার ৬৯৮ ভোট পেয়ে জয়লাভ করেছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দী আরেক স্বতন্ত্র পার্থী আনোয়ার মোল্যা আনারস প্রতীকে ৬ হাজার ১৩৮ ভোট পেয়েছেন। এই উপজেলা তৃতীয় অবস্থানে রয়েছেন আওয়ামী লীগের নৌকা মার্কার প্রার্থী মো. কাউছার। তিনি পেয়েছেন ৫ হাজার ৬২৮ ভোট।

নগরকান্দা উপজেলায় আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মনিরুজ্জামান সরদার ২৯ হাজার ৬৬৯ ভোট পেয়ে জয়লাভ করেছেন। এখানে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দী সতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে শাহ জামান বাবুল আনারস প্রতীকে ২৯ হাজার ১৭ ভোট পেয়েছেন। চরম প্রতিদ্বন্দীমূলক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে এই উপজেলায়। কিন্তু নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী জিতেলেও মূলত সংসদ উপনেতার রাজনৈতিক প্রতিনিধি তার ছেলে লাবু চৌধুরী স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে কাজ করায় দলের প্রার্থী এতটা প্রতিদ্বন্দ্বীর মধ্যে পড়তে হয়েছে। অধিকাংশ দলীয় নেতাকর্মী লাবু চৌধুরীর কারণে স্বন্তন্ত্র প্রার্থী হয়ে কাজ করেছেন।

সালথা উপজেলায় স্বতন্ত্র প্রার্থী ওয়াদুদ মাতুব্বর আনরস প্রতীকে ৩৬ হাজার ১১২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দী আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন পেয়েছেন ২৩ হাজার ২৮৫ ভোট। এই উপজেলাতেও স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেছেন সংসদ উপনেতার ছেলে লাবু চৌধুরী। মূলত দলের প্রার্থীর বিরুদ্বে সংসদ সদস্যের পুত্রের অবস্থানের কারণে হেরেছেন দলীয় প্রার্থী।

বোয়ালমারী উপজেলায় আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী এম এম মোশাররফ হোসেন মুছা ৪৭ হাজার ৪৭০ ভোট পেয়ে টানা তৃতীয় বারের মতো উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে আনরস প্রতীকে লিটন মৃধা পেয়েছেন ৪৩ হাজার ৩১২ ভোট।

মধুখালী উপজেলায় আওয়ামী লীগের মনিরুজ্জামান বাচ্চু নৌকা প্রতীকে ৪১ হাজার ৬৬৫ ভোট পেয়ে জয়লাভ করেছেন। এখানে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক গোলাম মনছুর নান্নু আনারস প্রতীকে পেয়েছেন ৩২ হাজার ৭০৫ ভোট।

আলফাডাঙ্গা উপজেলায় একেএম জাহিদুল হাসান স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে কাপ-পিরিচ পতীকে ১৩ হাজার ৬৩০ ভোট পেয়ে জয়লাভ করেছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী এস এম আকরাম হোসেন পেয়েছেন ৯ হাজার ৪৮৮ ভোট।

ফরিদপুরের সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার নওয়াবুল ইসলাম এসব ফলাফল নিশ্চিত করেছেন।

নির্বাচন এর আরও খবর