Barta24

বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯, ১১ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

৭ই মার্চ উপলক্ষে কলকাতায় আলোচনা সভা

৭ই মার্চ উপলক্ষে কলকাতায় আলোচনা সভা
৭ মার্চ উপলক্ষে কলকাতায় আলোচনা সভা, ছবি: সংগৃহীত
সেন্ট্রাল ডেস্ক
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

কলকাতা বাংলাদেশের স্বাধীনতার মহান স্থপতি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের গুরুত্ব তুলে ধরে এ মিশনের সম্মেলন কক্ষে এক আলোচনা সভার আয়োজন করে।

বৃহস্পতিবার (৭ মার্চ) বাংলাদেশ উপ-হাইকমিশন এই আলোচনা সভার আয়োজন করে। 

অনুষ্ঠানে আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- উপ-হাইকমিশনের প্রথম সচিব (প্রেস) মোঃ মোফাকখারুল ইকবাল, কাউন্সিলর (কনস্যুলার) মনসুর আহমেদ, কাউন্সিলর (শিক্ষা ও ক্রীড়া) শেখ শফিউল ইমাম এবং বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ সম্মাননাপ্রাপ্ত বিশিষ্ট সাংবাদিক দিলীপ চক্রবর্তী।

সভাপতির বক্তব্যে উপ-হাইকমিশনার তৌফিক হাসান বলেন, 'ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ বাঙালি জাতিকে সংঘবদ্ধ হতে সহায়তা করেছিল, ৭ মার্চে রেসকোর্স থেকে বঙ্গবন্ধুর ঘোষণা না আসলে হয়তো এতো অল্প সময়ের মধ্যে প্রতিরোধ ও জেগে ওঠার মানসিকতা গড়ে উঠতো না। দীর্ঘ ৯ মাস মুক্তিযুদ্ধ থেকে শুরু করে গণমানুষের অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করেছে সেই মহাকাব্য। ৭ই মার্চের ১৯ মিনিটের সুমধুর ভাষণটি বিশ্বের ১২টি ভাষায় অনুদিত হয়েছে। তিনি আরও বলেন, 'ইউনেস্কো ২০১৭ সালের ৩১ অক্টোবর ঐতিহাসিক ভাষণটি ‘মেমোরি অব দ্য ওয়ার্ল্ড রেজিস্টার’ এ অন্তর্ভুক্ত করে। এটি নি:সন্দেহে সমগ্র বাঙালির জন্য একটি গর্বের বিষয়, অহংকারের বিষয়।'

প্রথম সচিব (প্রেস) মোঃ মোফাকখারুল ইকবাল ৭ই মার্চের গুরুত্ব তুলে ধরে বলেন, 'বাঙালির কৃষ্টি ও সংস্কৃতিকে সমুন্নত রেখে গেরিলা যুদ্ধের মাধ্যমে কিভাবে দেশ স্বাধীন করতে হবে বঙ্গবন্ধু ৭ই মার্চের ভাষণের মাধ্যমে এ পথ বাতলে দিয়েছিলেন। বাঙালি জাতির মুক্তির পথ স্পষ্ট করে দিয়েছিলেন অনন্তকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ৭ই মার্চের ভাষণের মাধ্যমে। এ ভাষণ আমাদের মুক্তির মন্ত্র, সংগ্রামের চেতনা, আত্মত্যাগের প্রেরণা।'

অনুষ্ঠানে কাউন্সিলর (কনস্যুলার) মনসুর আহমেদ তার বক্তৃতায় বলেন, '১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ ঐতিহাসিক রেসকোর্সে দেয়া বঙ্গবন্ধুর ভাষণটি যে কোন বিচারেই বাংলাদেশের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট তো বটেই বিংশ শতাব্দীতে সারা বিশ্বে যতগুলো রাজনৈতিক বক্তৃতা দেয়া হয়েছে তার অন্যতম ও ব্যতিক্রম। ১৯ মিনিটের এই ভাষণে একটি দেশের ইতিহাস জনগণের প্রত্যাশা ও তাদের সঙ্গে ক্ষমতাসীনদের প্রতারণা, তাদের ত্যাগ আগামী দিনের জন্য দিক নির্দেশনা সবই উঠে এসেছে।'

অনুষ্ঠানের মূল আলোচক বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ সম্মাননাপ্রাপ্ত বিশিষ্ট সাংবাদিক দিলীপ চক্রবর্তী বলেন, '৭ই মার্চের ভাষণের সূচনাটি হয়েছিল ১৭৫৭ সালের পলাশীর যুদ্ধের পর থেকেই। কলকাতা শহরে ১৯৭১ সালের ২৩ মার্চ বাংলাদেশের সমর্থনে প্রথম সভা হয়। সেই সভায় মোহাম্মদ রিয়াজ, ইলামিত্রসহ বিশিষ্ট গুণী ব্যক্তিগণ বক্তৃতা করেন। ১৯০৯ সালে ভারতের আন্দামানে সেলুলার জেলে মোট বন্দী ছিল ৫৯৬ জনের মধ্যে বাঙালি ছিল ৪০৬ জন। এখান থেকেই স্বাধীনতার সূত্রপাত হয়েছিল।'

আলোচনার শুরুতে এ উপ-হাইকমিশনের দুইজন কর্মকর্তা যথাক্রমে মহামান্য রাষ্ট্রপতির বাণী এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করে শোনান। এরপর বঙ্গবন্ধুর ১৯৭১ সালের ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণের ডকুমেন্টারি প্রদর্শন করা হয়।

আপনার মতামত লিখুন :

দক্ষিণ আফ্রিকায় সন্ত্রাসীর গুলিতে নোয়াখালীর যুবক নিহত

দক্ষিণ আফ্রিকায় সন্ত্রাসীর গুলিতে নোয়াখালীর যুবক নিহত
ছবি: সংগৃহীত

দক্ষিণ আফ্রিকার নর্থওয়েস্ট প্রভিন্সের মাফিকিংয়ে কৃষ্ণাঙ্গ ডাকাতের গুলিতে নোয়াখালীর সুবর্ণচরের আলমগীর হোসেন নামের এক ব্যবসায়ী যুবক নিহত হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৫ জুন) সকাল ১০টায় দক্ষিণ আফ্রিকায় অবস্থানরত আলমগীর হোসেনের সহকর্মীরা তার মৃত্যুর বিষয়টি বার্তা২৪.কম-কে নিশ্চিত করেন।

সহকর্মীরা জানান, সোমবার (২৪ জুন) সকাল সাড়ে ১০টায় ডাকাত দল দোকানে ডাকাতি করে চলে যাওয়ার সময় আলমগীরকে লক্ষ্য করে গুলি করলে ঘটনাস্থলেই সে মারা যায়। গত মাসে একই দোকানে ডাকাতির ঘটনা ঘটলে নিহত আলমগীর বাদী হয়ে ডাকাতদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করে।

অভিযুক্ত ডাকাত গ্রেফতার হওয়ার পর আদালতের জামিনে বেরিয়ে আসে এবং গতকাল আলমগীরকে গুলি করে খুন করে।

নিহত আলমগীর হোসেনের দেশের বাড়ি নোয়াখালী জেলার সুবর্ণচর উপজেলার ১নং চরজব্বার ইউনিয়ন কাঞ্চন বাজার এলাকায়।

সৌদি বিমানবন্দরে হুতি জঙ্গির হামলায় ২ বাংলাদেশি আহত

সৌদি বিমানবন্দরে হুতি জঙ্গির হামলায় ২ বাংলাদেশি আহত
সৌদি আরবের আভা বিমানবন্দর, ছবি: সংগৃহীত

সৌদি আরবের আভা বিমানবন্দরে ইয়েমেনের বিদ্রোহী গোষ্ঠী হুতির হামলায় একজন সিরিয়ার নাগরিক নিহত হয়েছেন। এছাড়া এই ঘটনায় দুইজন বাংলাদেশিসহ মোট ২১ জন আহত হয়েছেন।

সৌদি নেতৃত্বাধীন সামরিক জোটের মুখপাত্র কর্নেল তুর্কি আল মালেকির বরাত দিয়ে স্থানীয় গণমাধ্যমগুলোর প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, রোববার (২৩ জুন) হুতি জঙ্গিদের হামলায় একজন নিহত এবং ২১ জন গুরুতর আহত হয়েছেন।

তিনি বলেন, 'আহত ২১ জনের মধ্যে ১৩ জন সৌদি নাগরিক, চারজন ভারতীয়, দুইজন মিশরীয় এবং দুইজন বাংলাদেশি। এদের মধ্যে তিনজন নারী ও দুই জন শিশু রয়েছেন। আহতদের চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে জোটের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে রোববার (২৩ মে) রাত ৯টা ১০ মিনিটে (স্থানীয় সময়) ইরান সমর্থিত হুতি জঙ্গিরা এয়ারপোর্টে নিরীহদের ওপর আক্রমণ করেন।

তবে আহত বাংলাদেশিদের পরিচয় এখনো জানা যায়নি।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র