Barta24

রোববার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬

English

মাছি কতধরনের রোগ জীবাণু বহন করে

মাছি কতধরনের রোগ জীবাণু বহন করে
সেন্ট্রাল ডেস্ক ৩


  • Font increase
  • Font Decrease
মাছি আমাদের ধারণার চেয়েও অনেক বেশি রোগজীবাণু বহন করে বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। মাছির ডিএনএ বিশ্লেষণ করে মার্কিন গবেষকরা বলছেন ঘরের মাছি আর নীল মাছি মিলে ছয়শ’র বেশি বিভিন্ন ধরনের রোগজীবাণু বহন করে। এর মধ্যে অনেক জীবাণু মানুষের শরীরে সংক্রমণের জন্য দায়ী, যার মধ্যে রয়েছে পেটের অসুখের জন্য দায়ী জীবাণু, রক্তে বিষক্রিয়া ঘটায় এমন জীবাণু ও নিউমোনিয়ার জীবাণু। পরীক্ষায় দেখা গেছে মাছি এসব জীবাণু এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় ছড়ায় তাদের পা আর ডানার মাধ্যমে। গবেষকরা বলছেন মাছি তার প্রত্যেকটি পদচারণায় লাইভ জীবাণু ছড়াতে সক্ষম। পেন স্টেট ইউনিভার্সিটির গবেষক অধ্যাপক ডোনাল্ড ব্রায়ান্ট বিবিসিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন "মানুষের এমন একটা ধারণা সবসময়ই ছিল যে মাছি রোগজীবাণু ছড়ায়। কিন্তু এই ধারণার বাস্তব ভিত্তি কতটা এবং আসলেই মাছি কতটা ব্যাপকভাবে রোগজীবাণু বহন করে আর তা ছড়ায় সেটা জানা ছিল না।'' ব্রায়ান্ট এই গবেষণার সঙ্গে কাজ করছেন। এই গবেষণায় ডিএনএ বিন্যাস পদ্ধতি ব্যবহার করে ঘরের মাছি ও নীল মাছির শরীর থেকে সংগ্রহ করা আণুবীক্ষণিক জীবাণু পরীক্ষা করে দেখা হয়। দেখা যায় ঘরের মাছি যা পৃথিবীর বিভিন্ন দেশেই রয়েছে তা ৩৫১ ধরনের রোগজীবাণু বহন করে। আর নীল মাছি যা দেখা যায় মূলত গরম দেশে, তা ৩১৬ ধরনের রোগজীবাণু বহন করে। এর মধ্যে বেশিরভাগ জীবাণুই দুই ধরনের মাছি বহন করে। সায়েন্টিফিক রিপোর্ট নামে একটি সাময়িকীতে প্রকাশিত এই গবেষণায় বলা হচ্ছে রোগজীবাণু ছড়ানোর জন্য মাছি কতটা দায়ী সে বিষয়ে জনস্বাস্থ্য কর্মকর্তারা যথেষ্ট ওয়াকিবহাল নন। "আমাদের ধারণা, জীবাণু সংক্রমণে মাছির ভূমিকা জনস্বাস্থ্য কর্মকর্তারা প্রয়োজনীয় গুরুত্ব দিয়ে কখনও দেখেননি এবং কোনো রোগব্যাধি মহামারী আকার ধারণ করার ক্ষেত্রে মাছির ভূমিকা অর্থাৎ মাছি কত দ্রুত রোগজীবাণু ছড়াতে সক্ষম তা নিয়ে যথাযথ গবেষণাও হয়নি," বলেন প্রফেসর ব্রায়ান্ট। তিনি বলেন, ''খোলা জায়গায় অনেকক্ষণ পড়ে থাকা খাবারটা আপনি খাবেন কী না, এটা কিন্তু গুরুত্ব দিয়ে ভাবতে হবে।'' ঘরের মাছি অস্বাস্থ্যকর একথা নতুন নয়। তারা আবর্জনাস্তুপে উড়ে বেড়ায়। পচা খাবার, মরা জীবজন্তুর দেহ ও বর্জ্য পদার্থই তাদের চারণভূমি। মানুষের শরীরে নানাধরনের রোগব্যাধি এমনকী জীবজন্তু ও গাছের মধ্যেও নানা রোগ ছড়ানোর কারণ মাছি। মরা পশুপাখির শরীরের কাছে বেশি নীল মাছি উড়তে দেখা যায়। শহর এলাকায় নীল মাছি চোখে পড়ে বেশি। মাংসের দোকান, পশু জবাইয়ের জায়গা ও আবর্জনাস্তুপের কাছে নীল মাছির উপদ্রব বেশি।
আপনার মতামত লিখুন :

ব্র্যান্ডেড স্টোরিটেলিং : ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের ভবিষ্যৎ

ব্র্যান্ডেড স্টোরিটেলিং : ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের ভবিষ্যৎ
ডিজিটাল মার্কেটিং এখন সবচেয়ে প্রয়োজনীয় এবং ইফেক্টিভ মার্কেটিং প্লাটফর্ম

“Future of Future Advertising”
প্রথমে খুব সংক্ষেপে বলে নেব কেন ডিজিটাল মার্কেটিং এখন আর কোনো অপশন বা ফিউচার নয় বরং বর্তমানের সবচেয়ে প্রয়োজনীয় এবং ইফেক্টিভ মার্কেটিং প্লাটফর্ম। তারপর আসব মূল টপিক্স, “ব্র্যান্ডেড স্টোরিটেলিং—ফিউচার অব অ্যাডভার্টাইজিং”-এ।

বিশ্বজুড়ে চলছে ইন্টারনেটের জোয়ার। দেশে শুধুমাত্র গেল এক বছরে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা বেড়েছে ১ কোটি। তাহলে ভাবুন দেশের মোট ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা কত?

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/18/1566120403964.jpg

সোর্স: https://www.slideshare.net/DataReportal/digital-2019-bangladesh-january-2019-v01 


জ্বি, প্রায় ১০ কোটির কাছাকাছি। কিভাবে হলো এই বিস্ফোরণ? সহজ চোখে দেখলে—

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/18/1566120570401.jpg


আর আরেকটু ঘেঁটে দেখলে হয়তো দেখতে পাবেন এই ইন্টারনেট জোয়ার আর অনুকূল স্রোতের হাওয়া আসছে কোন দিক থেকে।

১। বাংলাদেশকে ডিজিটালি ক্ষমতায়িত সমাজ ও অর্থনীতিতে রূপান্তর করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ সরকার ২০২১ সালের মধ্যে দেশকে “ডিজিটাল বাংলাদেশ” হিসেবে গড়ে তোলার ঘোষণা দেয়।
২। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট, সাবমেরিন কেবল, হাই টেক পার্ক ইত্যাদি অবকাঠামো দুনিয়াটাকে আক্ষরিক অর্থে হাতের মুঠোয় নিয়ে আসছে। ছোট শহর ও প্রত্যন্ত অঞ্চল পর্যন্ত পৌঁছে গেছে দ্রুতগতির ইন্টারনেট সেবা। ভিডিওটি দেখলে অবাক হবেন মাস্ট—



৩। সরকার হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করছে নতুন স্টার্টআপ-আইডিয়া, উদ্ভাবক ও উদ্যোক্তাদের ওপর। এরাই তৈরি হচ্ছে ফিউচার বিগ জায়ান্ট কোম্পানি হিসেবে। সেখানে দেখা দিচ্ছে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের প্রয়োজনীয়তা। তারা এমন লোকদের সন্ধান করছেন যারা তাদের প্রয়োজন অনুসারে ডজিটিাল মার্কেটিং কৌশল তৈরি করতে এবং প্রয়োগ করতে পারেন।

৪। ইন্টারনেট অব থিংস—ব্যক্তিগত ব্যবহারযোগ্য ডিভাইস যেমন স্মার্ট গাড়ি, স্মার্ট গৃহস্থালি সরঞ্জামাদি, স্মার্ট হোম ইত্যাদি বাংলাদেশের জন্য তুলনামূলকভাবে নতুন হলেও খুব শীঘ্রই তা প্রচলিত হবে। এ জাতীয় ডিভাইসগুলোর উত্থান ডিজিটাল মার্কেটিংকে আরো আকর্ষণীয় ও চ্যালেঞ্জিং করবে সাথে তৈরি করবে নতুন অনেক সম্ভাবনাময় পথ।

সব মিলিয়ে যদি এক কথায় বলতে চাই— “Digital Bangladesh—Smart Ecosystem for Smart Marketplace”

মানে যেখানে সরকার নিজেই তার সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে সেই সুযোগ কেন হাতছাড়া করব?

এবার বলি ডিজিটাল মার্কেটিং কেন সবচেয়ে বেশি ইফেক্টিভ ও প্রফিটেবল :
১। প্রেস অ্যাড অথবা টেলিভিশনে মার্কেটিংয়ে খরচের তুলনায় ডিজিটাল মার্কেটিং আরো কম ব্যয়বহুল ও সর্বোচ্চ রিটার্ন অন ইনভেস্টমেন্ট এবং কনভার্সন রেট।
২। এখানে সবকিছুর ওপর নজরদারি করা যায়। যেসব চ্যানেল বা কৌশল অকার্যকর বা কম কার্যকর দেখা দেবে সেখানে বিনিয়োগ কমিয়ে দিয়ে ফলপ্রসূ স্ট্রাটেজিতে বেশি বিনিয়োগ করা সম্ভব একমাত্র ডিজিটালেই।
৩। বিভিন্ন ওয়েবসাইট এনালাইসিস ও নানান ধরনের টেকনোলজির সুবাদে গ্রাহকের কেনাকাটার অভ্যাসগত ধরন অনুযায়ী তাকে তার কাঙ্ক্ষিত পণ্যটি ক্রয়ের ব্যাপারে মানসিকভাবে খুব সহজে ঠেলে দেওয়া যায়।
৪। গ্রাহকের ধরন অনুযায়ী মাল্টি লেয়ার স্ট্রাটেজি করে এবং ভৌগোলিক অবস্থান ধরে মার্কেটিং সম্ভব।

সহজ কথায় আরেকবার বলি। ডিজিটাল মার্কেটিং খুব কম খরচেই করা সম্ভব ব্যাপারটা এরকম না। বরং যে কোনো বাজেট দিয়ে, আপনার সামর্থ্য অনুযায়ী যে কোনো অংকের টাকা দিয়ে আপনি মার্কেটিং করতে পারবেন। মার্কেটিং শুধু বড় বড় দৈত্যদের জন্য নয়, সবার জন্য উন্মুক্ত।

জ্বি, সবকিছু যদি নতুন করে ভাববার প্রয়োজন হয় তবে তাই করেন কিন্তু ডিজিটাল বাংলাদেশের এই জোয়ারে ব্যবসার অস্তিত্বকে হারিয়ে না ফেলতে চাইলে ট্রেডিশনাল মার্কেটিংয়ের পাশাপাশি ডিজিটাল মার্কেটিংকে সিরিয়াসলি নিন।

এবার আসি মূল টপিক্স “ব্র্যান্ডেড স্টোরিটেলিং—ফিউচার অব অ্যাডভার্টাইজিং”-এ।

এখানে মার্কেটে দুটি ঘটনা পাশাপাশি ঘটেছে। একদিকে রেডিও, প্রিন্ট ও টেলিভিশন মিডিয়ার অভিজ্ঞতা, এর সংস্কৃতি, বিনোদন ধরন ও ট্র্যাডিশনাল মার্কেটিং এই সবকিছুর ওপর অবিশ্বাস, অভক্তি ও বিরক্তিকর মনোভাব তৈরি হয়েছে আর এই সুযোগেরই হাত ধরে অপরদিকে ওয়েবসিরিজ, স্ট্রিমিং চ্যানেল, ভিডিও অন ডিমান্ড, ইউটিউব চ্যানেল ও ব্র্যান্ডেড কনটেন্টের মতো নতুন বিনোদন মাধ্যম মার্কেটে জায়গা করে নিয়েছে।

সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে ৮৪% মিলেনিয়াল স্বীকার করেছে তারা ট্র্যাডিশনাল মার্কেটিং পছন্দও করেন না বিশ্বাসও করেন না। এমনকি তারা আর এসব দেখেনও না শোনেনও না। বদলে তারা লাইভ স্ট্রিমিং, নেটফ্লিক্স, অ্যানিমে, ইউটিউব এসবে সময় কাটায়। এমনকি ৮৫% মিলেনিয়াল স্বীকার করেছেন যে তারা নিয়মিত ইউটিউব দেখেন। মিলেনিয়াল বলতে বিশ্বের এক তৃতীয়াংশ জনসংখ্যার কথা বলছি যারা মূলত জেনারেশন এক্স ও জেনারেশন ওয়াই হিসেবেও পরিচিত। এক কথায় ইয়াং জেনারেশন। [সোর্স: জনপ্রিয় পত্রিকা ফোর্বস এর তথ্য অনুযায়ী।]

তাই বলে অ্যাডভারটাইজিংয়ের স্কোপ কমে যাচ্ছে না বরং প্রয়োজন শুধুমাত্র এই পরিবর্তনশীল অভ্যাসের জন্য বিজ্ঞাপনের কৌশলগত পরিবর্তন।

৮৭% ইয়াং জেনারেশনই মনে করে প্রোডাক্ট প্লেসমেন্ট এমন এক স্ট্রাটেজি যেটায় তাদের কোনো আপত্তি নেই।

প্রোডাক্ট প্লেসমেন্টের কিছু উদাহরণ দিই—

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/18/1566120991735.jpg

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/18/1566121011367.jpg
https://www.youtube.com/watch?v=NPYfjKkR5aY&list=PLAppLAFMe9-jHWwiYBsGifLtiYa1H0Ieo
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/18/1566121191343.jpg
https://www.youtube.com/watch?v=IWjYgE09GqQ&list=PLfOzdEXVHj79ME3iF1AODb5PBkkhcdiKy

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/18/1566121273929.jpg

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/18/1566121294962.jpg
এগুলো কিছু স্বনামধন্য ব্র্যান্ডের অনলাইন ওয়েবসিরিজ থেকে নেওয়া স্ক্রিনশট। পুরো সিরিজের লিংক দেওয়া আছে যা আপনি ইউটিউবে বিনামূল্যেই দেখতে পারবেন।

দেখুন আরো সহজ করে বলি, প্রি-রোল অ্যাড, স্কিপ অ্যাড বা অন্যান্য হাজারও কৌশল যেখানে বন্ধ করে দেওয়া যায়, স্কিপ করা যায় বা শব্দ বন্ধ করে দেওয়া যায় সেখানে একমাত্র প্রোডাক্ট প্লেসমেন্ট হচ্ছে বেস্ট সমাধান। যেখানে ব্র্যান্ড গল্পের অংশ হয়ে উপস্থাপিত হয় এবং দর্শকের মনে জায়গা করে নেয়।

একটা সুন্দর স্টোরিলাইন যেখানে গল্প বলার ছলে খুবই আলতোভাবে ও তুলনামূলক অনেক কম আক্রমণাত্মকভাবে প্রচারণা করা হয়, এবং ব্র্যান্ডের নৈতিক মূল্যবোধ গল্পে সংযুক্ত করা হয়, এরকম স্টোরিলাইন বা গল্প গ্রাহকের সাথে ব্র্যান্ডের একধরনের সূক্ষ্ম সম্পর্ক তৈরি করে। ওই ব্র্যান্ডের প্রতি নিজের অজান্তেই গ্রাহকের ভালোলাগা তৈরি হতে থাকে। যেটা ধীরে ধীরে সেলস্-এ রূপ নেয়।

একটা ভালো ওয়েব সিরিজ আপনার পণ্যের নতুন ও পুরাতন গ্রাহকের সাথে সম্পর্ক ভালো করবে। একবার গ্রাহক আপনার ওয়েব সিরিজের মজা পেয়ে গেলে, তারা আঠার মতো আপনার ব্র্যান্ডের সাথে লেগে থাকবে পরবর্তীতে কী হবে তা দেখার জন্য। ফেসবুক পেজ, ইউটিউব চ্যানেল, বিহাইন্ড দ্য সিন ইত্যাদি ঘাটিয়ে ওই ব্র্যান্ডেড কনটেন্টের পার্ট হবে। সেই সুবাদে গ্রাহকের ব্র্যান্ডটিকে আরো কাছে থেকে দেখার সুযোগ হবে এবং ধীরে ধীরে তৈরি হতে পারে ভালোলাগা যা আল্টিমেটলি নিয়ে যাবে ক্রমবর্ধমান সেলস্-এর দিকেই।

এভাবেই স্টোরিটেলিং আরো ইন্টারেক্টিভ হবে, দর্শক ব্র্যান্ডের সাথে নিজেকে আরো কাছ থেকে সম্পৃক্ত করতে পারবে। ব্র্যান্ডের প্রতি তৈরি হবে বিশ্বাস, ভালোবাসা ও আস্থা। ভালো মানের গল্প ও বিনোদনের মাধ্যমে জায়গা করে নেবে গ্রাহকের হৃদয়ে।

মাঝে মাঝে কোনো ওয়েব সিরিজ এতটা জনপ্রিয় ও সফল হয় যে এটা ব্র্যান্ডের ফিউচার এসেট হয়ে যায়। এবং চাহিদা তৈরি হয় আরো নতুন সিজনের।

তাছাড়া সবচেয়ে যেটা মজার বিষয় সেটা হচ্ছে মিডিয়া বায়িং বাজেট। ট্র্যাডিশনাল মার্কেটিংয়ে যেখানে বিজ্ঞাপন প্রচারে লক্ষ কোটি টাকা ঢালা লাগে সেখানে বিনা খরচে সম্প্রচার করছেন আপনার প্রোগ্রাম আর সেটা অনলাইনে থেকে যাবে আজীবন। যুগের পর যুগ, দিন দিন নতুন নতুন গ্রাহক সাক্ষী হবে এই কনটেন্টের। জীবিত থাকবে গল্প সবসময়।

ফিউচার মার্কেটিংয়ের দিকে তাকালে একটা জিনিসই দেখা যায়, সেটা হচ্ছে পরিবর্তন। নিজের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে হলে ডিজিটাল এই পরিবর্তনের সাথে অবশ্যই মানিয়ে নেওয়ার সামর্থ্য নিয়ে চলতে হবে।

টেলিভিশন যেখানে ট্র্যাডিশনের কথা বলে ওয়েব সিরিজ সেখানে পরিবর্তনের কথা বলে। সবাই আজকাল অনলাইনে। সবাই টেলিভিশনের চেয়ে অনলাইনে বেশি সময় কাটায়। টেলিভিশন থেকে দিন দিন চোখ সরে চলে যাচ্ছে অনলাইনে। বিজ্ঞাপন প্রণেতারা প্রতিটি মানুষকে একজোড়া আইবল হিসেবে গণনা করে। এবং আইবল ধরে রাখার জন্য প্রয়াজন নিত্য নতুন কৌশল।

মিলেনিয়ালদের ধরে রাখার জন্য ব্র্যান্ডিং খুবই জরুরি। যদিও বেশি দাম কিছুটা তারতম্য তৈরি করে তবে ব্র্যান্ডের প্রতি আস্থা ও বিশ্বস্ততা থাকলে অতিরিক্ত দাম খুব বেশি ব্যবধান তৈরি করতে পারে না।

সর্বশেষ কথা টাইটেল স্পনসরশিপের মাধ্যমে আপনি হয়তো প্রত্যক্ষভাবে ওয়েব সিরিজের সাথে সম্পৃক্ত হতে পারেন কিন্তু আসল সম্পৃক্ততা তৈরি হয় যখন গল্পে বা স্ক্রিপ্টে সরাসরি ব্র্যান্ডকে সম্পৃক্ত করা যায়। অন্যথা সব জোরপূর্বক প্রোডাক্ট প্লেসমেন্টের মতোই দেখাবে। আরেকটি জিনিস, আপনার গল্পের ধরন যেই ধরণারই হোক না কেন, দর্শক বা মিলেনিয়ালদের জীবনে সেটার ইতিবাচক ভূমিকা থাকতে হবে। এমন গল্প, মতাদর্শ বা ট্রিটমেন্ট থাকতে হবে যা সচরাচর টেলিভিশনে দেখা যায় না।

অনেক লেখা হয়েছে কিন্তু মূল আকর্ষণ এখনো রয়ে গেছে। কথা বলব ব্র্যান্ডেড স্টোরিটেলিং-এর আপাদমস্তক নিয়ে। এর সফলতার মূলমন্ত্র, কেইস স্টাডি, এক্সপার্টদের মতামত ইত্যাদি নিয়ে। বলব আরেকদিন আরেকটি পর্বে। সেই পর্যন্ত সবাই ভালো থাকুন, বার্তা২৪-এর সাথেই থাকুন।

শুভ জন্মদিন, মিস্টার ফিফটি

শুভ জন্মদিন, মিস্টার ফিফটি
তাঁর মাঠে নামা মানেই ছিল পঞ্চাশোর্ধ্ব স্কোরের নিশ্চয়তা

এদেশের ক্রিকেটের সোনালি অতীতে নির্ভরতার অন্যতম প্রতীক কাজী হাবিবুল বাশার সুমন আজ পা রাখলেন ৪৭ বছর বয়সে। ১৯৭২ সালের এই দিনে কুষ্টিয়ার নাগকান্দায় জন্ম নেওয়া এই ডানহাতি টাইগার গ্রেটের হাত ধরেই বহু গৌরবময় অর্জনের সাক্ষী হয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। গুরু ডেভ হোয়াটমোরের সাথে অধিনায়ক বাশারের দারুণ যুগলবন্দীতে অর্জিত হয়েছে অনেক মাইলফলক।

বাংলাদেশ ক্রিকেটে বাশারের আবির্ভাব ১৯৮৯ সালের অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপ দলে অন্তর্ভুক্তির মধ্য দিয়ে। ছোটদের এশিয়া কাপের সেই আসরে আরো ছিলেন সৌরভ গাঙ্গুলী, অজয় জাদেজা, মারভান আত্তাপাতু ও মঈন খান। এর আগে ও পরে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের হয়ে ধারাবাহিক সাফল্যের পুরস্কার হিসেবে জাতীয় দলে ডাক পান ১৯৯৫ সালে—এবার ‘বড়দের’ এশিয়া কাপে। সেবার শারজাহতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচে অভিষেকও হয় তাঁর।

তবে শুরুতেই ইনজুরি হানা দেয় তাঁর ক্যারিয়ারে। পুরো ফিটনেস ফিরে না পাওয়া হাবিবুল বাদ পড়েন ১৯৯৭ সালের আইসিসি ট্রফির দল থেকে। সেবার চ্যাম্পিয়ন হয়ে সবাইকে তাক লাগিয়ে দেয় তরুণ টাইগার বাহিনী। তবে সেবছরের এশিয়া কাপেই দলে ফিরে আসেন বাশার। কিন্তু বিধি বাম—ইনজুরি পরবর্তী ধারাবাহিক ব্যর্থতার মাশুল হিসেবে হাবিবুল বাশার জায়গা হারান ১৯৯৯ আইসিসি বিশ্বকাপ দলে। তবে হাল ছাড়েননি বাশার, এডি বারলোর সাহচার্যে কঠোর পরিশ্রম আর ব্যাটিং টেকনিক নিয়ে বিস্তর গবেষণায় বিশ্বকাপের পরই ফিরে আসেন দলে।

আন্তর্জাতিক মঞ্চে ধারাবাহিক হতে শুরু করেন দ্রুতই। ২০০০ সালের শুরুতে বেশ কয়েকটি ম্যাচে অনবদ্য ব্যাটিংয়ে নজর কাড়েন সবার। এরপর আসে সেই মাহেন্দ্রক্ষণ—বাংলাদেশের অভিষেক টেস্ট ম্যাচ। চোখ বন্ধ করে যেটা বাশারের নিজেরও প্রথম টেস্ট হওয়ার কথা, ঠিক তখনই বেঁকে বসেন নির্বাচকেরা। আকস্মিকভাবে সেই প্রথম টেস্টের দলে ঠাঁই হয়নি বাশারের। তবে তাঁর ব্যাটের ধারাবাহিক সাফল্য কথা বলেছে তাঁর পক্ষে। ফর্মে থাকা পুরোপুরি ফিট একজনকে বাদ দেওয়ার এমন সিদ্ধান্তে বাংলাদেশি গণমাধ্যমের নিন্দার মুখে পড়া নির্বাচকেরা বাধ্য হয়ে ফের ঘোষণা করেন হাবিবুলসহ নতুন দল। ভারতের বিপক্ষে নিজের ও দেশের প্রথম টেস্ট ম্যাচে দুর্দান্ত এক ফিফটিতে হাবিবুল যেন সে সিদ্ধান্তের যথার্থতাই প্রমাণ করেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/17/1566050114840.jpg
◤ টেস্টের আঙিনায় বাংলাদেশের অভিষেকে প্রথম ফিফটি করেন হাবিবুল বাশার ◢


সেই পারফর্মেন্সের পর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি বাশারকে। ক্রিজে দ্রুতই থিতু হওয়ার সক্ষমতায় অন্যদের থেকে এগিয়ে থাকলেও অর্ধশতকের ইনিংসগুলোকে শতকে রূপান্তরের ধারাবাহিক ব্যর্থতা তাঁকে তাড়া করেছে ক্যারিয়ারজুড়েই। সব সংস্করণ মিলিয়ে নামের পাশে ২৪টি হাফ সেঞ্চুরি থাকলেও সেঞ্চুরির সংখ্যা তাই মাত্র ৩, যার প্রতিটিই আবার টেস্ট ফরম্যাটে। মজার তথ্য—তাঁর খেলা টেস্ট ম্যাচের সংখ্যাও ঠিক ৫০, যেখানে ইনিংস সংখ্যা আবার ঠিক ৯৯! একের পর এক ফিফটিতে পাকাপাকিভাবেই তাই পেয়ে যান মিস্টার ফিফটি ডাকনামটি। দলের ত্রাণকর্তা হয়ে সেট হয়ে যেতেন দ্রুতই, মাঠে নামা মানেই ছিল পঞ্চাশোর্ধ্ব স্কোরের নিশ্চয়তা। টেস্টে তাই বাংলাদেশের হয়ে ত্রিশোর্ধ্ব গড়ের অধিকারীদের তালিকায় তামিম ইকবাল, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিমের পরপরই রয়েছেন হাবিবুল বাশার সুমন।

প্রথাগত টেস্ট ব্যাটিংয়ের জন্য মানানসই প্রায় সব স্ট্রোকের নিদর্শন পাওয়া যেত মোহাম্মদ আজহারউদ্দিনের ভক্ত বাশারের ইনিংসগুলোয়। তাঁর ক্যারিয়ারের বেশিরভাগ রানই এসেছে মিডউইকেট বরাবর খেলা নান্দনিক ড্রাইভ শটে। অন্যদিকে, সবচেয়ে বেশিবার আউট হয়েছেন হুক শট চেষ্টা করতে গিয়ে। ভারতের বিপক্ষে সেই অভিষেক টেস্টের আগে বাশার একরকম প্রতিশ্রুতিই দেন যে এই হুকের নেশা দ্রুতই ত্যাগ করবেন। বলা বাহুল্য, ৭১ ও ৩০ রানের ইনিংস দুটি খেলার পথে ঠিকই দু-দুবার সফলতার সাথে হুকের লক্ষ্যে ব্যাট চালিয়েছেন নাছোড়বান্দা হাবিবুল।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/17/1566050277732.jpg
◤ প্রায় সব স্ট্রোকের নিদর্শন পাওয়া যেত বাশারের ইনিংসগুলোয় ◢


কারো কারো মতে, বাংলাদেশের সফলতম অধিনায়কও তিনি। যদিও পরিসংখ্যানের দিক দিয়ে তাঁকে ছাড়িয়ে এগিয়ে আছেন মাশরাফি বিন মর্তুজা, তবু সময় ও পরিস্থিতির বিচারে অধিনায়ক হাবিবুলের অবদান অনস্বীকার্য। ২০০৪ সালের জানুয়ারিতে দলের অধিনায়কত্ব লাভ করার পরপরই বাশার ব্যাট হাতে হয়ে ওঠেন দুর্ধর্ষ। তৎকালীন টাইগার কোচ ডেভ হোয়াটমোরকে নিয়ে হাবিবুল শুরু করেন দলের ব্যাটিং মেরুদণ্ডের পুনর্গঠন। এছাড়া শূন্য অভিজ্ঞতার তরুণদের সাথে খালেদ মাসুদ পাইলট, খালেদ মাহমুদ, মোহাম্মদ রফিকদের মতো অভিজ্ঞদের দারুণ ভারসাম্যপূর্ণ এক মেলবন্ধন সৃষ্টি করেন তিনি। নিজের স্মরণীয় ইনিংসটিরও দেখা পান অধিনায়ক হবার বছরেই। সেন্ট লুসিয়ায় নিজের তৃতীয় ও সর্বশেষ সেঞ্চুরিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে নিশ্চিত করেন দারুণ এক ড্র। ১১৩ রানের সেই কাব্যিক ইনিংস ছিল তাঁর ক্যারিয়ার-সেরা স্কোর।

তবে বাংলাদেশের অনেক ‘প্রথম’-এর সাক্ষী হাবিবুলের হাত ধরে সেরা সাফল্য আসে ঠিক তার পরের বছরই। ২০০৫ সালে সফরকারী জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তাঁর নেতৃত্বেই বাংলাদেশ দল দেখা পায় প্রথম টেস্ট ম্যাচ ও সিরিজ জয়ের। শুধু তাই নয়, সেবার জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ জয়টিও ছিল দেশের ইতিহাসে প্রথম। সব মিলিয়ে মোট ১৮টি টেস্টে দেশকে নেতৃত্ব দিয়েছেন হাবিবুল বাশার, চারটি ড্রয়ের পাশে যেখানে জয় শুধু সেই একটিই।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/17/1566050398915.jpg
◤ দেশের প্রথম টেস্ট ও সিরিজ জয়ের উদযাপন 


সীমিত ওভারের ক্রিকেটেও অধিনায়ক হিসেবে দারুণ সফল ছিলেন হাবিবুল। মোট ৬৯টি ওয়ানডেতে বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দেন তিনি, আর জয়লাভ করেন ২৯টি ম্যাচে। জিম্বাবুয়ে বা কেনিয়ার মতো দুর্বল প্রতিপক্ষদের অনায়াসে হারাতে থাকা বাংলাদেশ তাঁর অধিনায়কত্বেই ‘জায়ান্ট কিলার’-এর তকমা পায়। প্রথম টেস্ট সিরিজ জয়ের বছর অর্থাৎ ২০০৫ সালের জুনে কার্ডিফে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়াকে হারানোর অনির্বচনীয় স্বাদ লাভ করে টাইগাররা।

পরবর্তীতে ২০০৭ ওয়ানডে বিশ্বকাপে অধিনায়ক হিসেবে পা রাখেন হাবিবুল, যেটি ২০১৫-এর আগ পর্যন্ত ছিল দেশের শ্রেষ্ঠতম বিশ্বকাপ আসর। সেবার ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে দুর্দান্ত জয়ে বাংলাদেশ দল প্রথমবারের মতো নিশ্চিত করে সুপার এইট পর্ব। ১৩.১২ গড়ে সর্বোচ্চ ৩২ রান করে ব্যক্তিগতভাবে চরম ব্যর্থ হাবিবুল অধিনায়কত্ব পালন করেছেন যথাযথভাবেই। তবে ব্যাটসম্যান বাশারের সেই অধঃপতনের ধারা বজায় থাকে পরবর্তী সিরিজগুলোতেও। বিশ্বকাপের পরপরই ভারতের বিপক্ষে সিরিজ হেরে নিজে থেকেই ইস্তফা দেন ওয়ানডে অধিনায়কত্ব। ব্যাটিংয়ে আরেকটু মনোযোগী হয়ে থাকতে চেয়েছিলেন ওয়ানডে দলের অংশ হিসেবে, ছাড়তে চাননি টেস্ট ক্রিকেটও। ১৯ ইনিংসে হাফ সেঞ্চুরি ছুঁতে না পারার ফলশ্রুতিতে দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজের প্রথম টেস্টের পরই জায়গা হারান দলে। এমন নড়বড়ে অবস্থায় বোর্ড বাতিল করে তাঁর টেস্ট অধিনায়কত্ব, দুই সংস্করণেই সেই জায়গায় আসেন মোহাম্মদ আশরাফুল। এর পরপরই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানান দেশের ক্রিকেটের হার না মানা এক নাবিক হাবিবুল। 

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/17/1566050500823.jpg
◤ তাঁর হাত ধরেই বাংলাদেশ দেখা পায় প্রথম টেস্ট ম্যাচ ও সিরিজ জয়ের ◢


২০০৮ সালে নিষিদ্ধ ও স্বীকৃতিহীন তৎকালীন ইন্ডিয়ান ক্রিকেট লীগ—আইসিএলের দ্বিতীয় আসরে দেশের মোট ১৩ জন খেলোয়াড় নিয়ে যোগ দেন হাবিবুল। ঢাকা ওয়ারিয়র্স নামের দলটিকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেন, লাভ করেন টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ ব্যবধানের জয়। তবে এই আইসিএলে খেলার বিদ্রোহী সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানায়নি বিসিবি। সব ধরনের ক্রিকেট থেকে ১০ বছরের জন্য নিষিদ্ধ ঘোষিত হন বাশারসহ ঢাকা ওয়ারিয়র্সের সব সদস্য। পরে তা প্রত্যাহার করা হলেও ঘরোয়া ক্রিকেটসহ সব ফরম্যাট থেকেই ২০০৯ সালে নিজেকে গুটিয়ে নেন বাশার। ইউনিসেফের শুভেচ্ছাদূত হিসেবে কাজ করা দুই পুত্রসন্তানের জনক হাবিবুল বাশার সুমন বর্তমানে যুক্ত আছেন বিসিবির অন্যতম নির্বাচক ও অনূর্ধ্ব-১৯ দলের পরামর্শক হিসেবে।

বাংলাদেশ দলকে নিয়েও যে বাজি ধরা যায়, তাঁর হাত ধরেই সেটা জেনেছে গোটা ক্রিকেট বিশ্ব। হাঁটি হাঁটি পায়ের অনেক স্মরণীয় বিজয় উল্লাসের উপলক্ষ এনে দেওয়া মিস্টার ডিপেন্ডেবল হাবিবুল বাশারের প্রতি রইলো জন্মদিনের শুভেচ্ছা!

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র