ভার্চুয়াল লাইফ সম্পর্কে আমরা কতটুকু জানি?

অ্যাডভোকেট শাহ আজিজুল হক
অ্যাডভোকেট শাহ আজিজুল হক। ছবি: বার্তা২৪

অ্যাডভোকেট শাহ আজিজুল হক। ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

আমরা প্রবেশ করেছি আরেকটি নতুন জীবন বা জগতে। একবিংশ শতকের তথ্য প্রযুক্তির ভাষায় Virtual life বা 'ভার্চুয়াল জীবন' নামে ডাকা হচ্ছে বর্তমানে চলমান এই জগৎ বা জীবনকে।

সারা পৃথিবীর মানুষের মতো ভার্চুয়াল জগতের ব্যবহারিক দিক আত্মস্থ করে নিয়েছি বা নিচ্ছি বিষ্ময় ও কৌতূহলী আবেগে। এ নবতর জীবনের নানা প্রযুক্তিগত বিন্যাস ও অভিনব প্রকাশ দেখে প্রতিনিয়ত আমরা অবাক ও উৎফুল্ল হচ্ছি।

কিন্তু এ অদৃশ্যপূর্ব, অথচ নিত্য বিবাশমান জীবনের তাত্ত্বিক দিক এবং Real life-এর সঙ্গে এর আন্ত:সম্পর্ক সমন্ধে বহুলাংশে অনবহিত রয়েছি। ফলে উপকারিতার চেয়ে ক্ষতিকর প্রভাবক বেশী ভাইরাল হচ্ছে। জেনে না জেনে আমরা পা দিচ্ছি ডিজিটাল ফাঁদে। অনেকেই শিকার হচ্ছে প্রতারণার, জড়িয়ে পড়ছে সাইবার ক্রাইমে, আইনের আওতায় বন্দি হচ্ছে অনেক। এভাবে সমাজে তৈরি হচ্ছে নতুন অস্থিরতা ও ভুল প্রয়োগগত নানা সমস্যা!

অভিজ্ঞতায় দেখা যাচ্ছে, এহেন জটিল পরিস্থিতিতে অনেক সময় খোদ রাষ্ট্র পর্যন্ত বিপাকে পড়ছে, ভাঙছে সমাজ-সংসার, পারিবারিক জীবন এবং ব্যক্তিগত নিরাপত্তা। কখনো কখনো চরম অস্থির ও অসহিষ্ণুতা তৈরি হচ্ছে ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনেও।

এখানে আরেকটি বিষয় না বললেই নয় যে, সাইবার ক্রাইম আইনটি সম্পর্কেও আমাদের অনেকের জ্ঞানের অভাব যেমন রয়েছে; তেমনি জ্ঞান পাপীর সংখ্যাও কম নয়। এই আইন ও Virtual life & Real life সম্পর্কে নূন্যতম ধারনা অর্জন এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রচার প্রকাশনাও জরুরি হয়ে পড়েছে। তা না হলে চরম বিশৃঙ্খলা ও বিপদজনক পরিস্থিতির অবতারণা হওয়ার মাধ্যমে ব্যক্তিগতভাবে বার বার ঝুঁকিতে আক্রান্ত হওয়ার ভয় থাকছেই।

আমাদেরকে একটা বিষয় ভাল করে বুঝতে হবে Virtual life এর সঙ্গে Real lifeকে সাংর্ঘষিক নয় পরিপূরক করে Real lifeকে সমৃদ্ধ করাই কম্য। তা না হলে অনাড়ি নভোচারীর মতো মহাকাশ যান আকাশে উড্ডয়ন করালে যেমন দুর্ঘটনা অনিবার্য, তেমনি সঠিক গন্তব্যে না পৌঁছে মহাকাশে বিলীন হওয়াই হয় স্বাভাবিক পরিণতি। ভুল পদক্ষেপ সাইবার জগতে তেমনি বিপদ ডেকে আনতে পারে।

আসুন Vrtual life সম্পর্কে উইকিসোর্সে কি রয়েছে জানা যাক : সংজ্ঞায়য় বলা হয়েছে: A virtual world is an online community that takes the form of a computer-based simulated environment through which users can interact with one another and use and create objects.[1] The term has become largely synonymous with interactive 3D virtual environments, where the users take the form of avatars visible to others.[2] These avatars usually appear as textual, two-dimensional, or three-dimensional representations, although other forms are possible (auditory and touch sensations for example).[3][4] In general, virtual worlds allow for multiple users.

এক কথায় কম্পিউটার অন বা নেট হলে জীবন/ বন্ধুত্ব যেমনি সম্ভব, তেমনি শত্রুতা ও বিপদও অসম্ভব নয়।

আমার আইন পেশাগত জীবনের অভিজ্ঞতায় উপলব্ধি করেছি, জ্ঞান আহরণের চেয়ে সাইবার ক্ষেত্রে পণ্য বিপণনের মত নিজেকে বিজ্ঞাপ্তিত করার একটি উগ্র মনোভাব অনেকের মধ্যে কাজ করে। সস্তা জনপ্রিয়তা অর্জন সচেষ্ট হওয়ার একটা প্রতিযোগিতা চলে কারো কারো মধ্যে। তাছাড়া, মুর্খের ন্যায় প্রতিপক্ষকে আপত্তিকর ভাষায় আক্রমণ, যাচাই-বাছাই না করেই মিথ্যা বা বানোয়াট তথ্য গ্রহণ ও সঞ্চালন, জ্ঞানগর্ভ বা দীর্ঘ কিংবা কঠিন অনুভূত কোন বিষয় পেলে এড়িয়ে যাওয়া অথবা না বুঝে, না জেনে, না পড়ে কমেন্ট করে বসা, শেয়ার করা ইত্যাদি রকমারি কত কি(?) পদক্ষেপ অনেকেই রোমাঞ্চের কারণে নিচ্ছে প্রতিক্রিয়া ও ফলাফল সম্পর্কে কোনো ধারণা না করেই । আর এভাবেই তখন অংশগ্রহণকারী ব্যক্তির নিজের এবং সমাজ ও রাষ্ট্রের নানা রকমের বিপদ তৈরি হচ্ছে।

সাইবার জগতের সেনসিটিভ ক্ষেত্রে না জেনে বা ভুলবশত কোনো পদক্ষেপের মাশুল হয় মারাত্মক এবং বিশ্বব্যাপী। ফলে অংশগ্রহণকারীর বিপদও হয় অতীত মারাত্মক। ফলে সামাজিক মাধ্যমে বিরাজমান ভার্চুয়াল জগতে পা ফেলতে হবে ইতিবাচকভাবে এবং ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়ার কথা ভেবে। সাম্প্রতিক নানা ঘটনার অভিজ্ঞতায় সতর্কতা ও সচেতনতার শিক্ষাটি গ্রহণ করা ভার্চুয়াল জগতে বিচরণকারী সকলের জন্য জরুরি হয়ে পড়েছে।

আসুন জানার এবং শেখার চেষ্টা করি। জাগৃতির মহিমায় সমাজ, রাষ্ট্র, পরিবার ও নিজেকে সমৃদ্ধশালী করি। জোর্তিময় পৃথিবী গড়ি নতুন প্রযুক্তি ও পরিবেশকে ইতিবাচকভাবে আত্মস্থ করার মাধ্যমে। এতেই ব্যক্তিগত ও সামাজিক বিপদের হার হ্রাস পাবে এবং গঠনমূলক ও লাভজনক পরিস্থিতির সৃষ্টি হবে। প্রযুক্তিকে বাদ দিয়ে বা ভুল ব্যবহার করে নয়, সঠিক ব্যবহারের মাধ্যমে এগিয়ে চলার পথ রচনা করাই সকলের জন্য মঙ্গলজনক।

অ্যাডভোকেট শাহ আজিজুল হক, রাজনীতিক, আইনজীবি। পাবলিক প্রসিকিউটর, কিশোরগঞ্জ।

আপনার মতামত লিখুন :