বিএনপি পুনর্গঠনের উদ্যোক্তা নাসিমও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সংলাপে বসতে চান

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
বিএনপি পুনর্গঠনের উদ্যোক্তা কামরুল হাসান নাসিম, ছবি: সংগৃহীত

বিএনপি পুনর্গঠনের উদ্যোক্তা কামরুল হাসান নাসিম, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

জাতীয় নির্বাচনকে ঘিরে ফলপ্রসূ সংলাপে বসার অনুরোধ জানিয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে চিঠি পাঠিয়েছেন বিএনপি পুনর্গঠনের উদ্যোক্তা কামরুল হাসান নাসিম।

বুধবার (৩১ অক্টোবর) দুপুরে ধানমণ্ডি আওয়ামী লীগের সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের সংকটকালীন দুই সদস্য জহির উদ্দীন ও কবি মেহরাব পিয়াস নাসিমের পক্ষ হতে এই চিঠি তুলে দেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের হাতে।

নাসিম তার চিঠিতে লিখেছেন, আমরা দেশবাসী অবগত যে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। তবে সবার মতো এই নির্বাচন নিয়ে আমার মনে শংকা নেই। দু’টি বিশেষ দলের সাংঘর্ষিক রাজনৈতিক প্রেক্ষিতকে পুঁজি করে যারা বিদেদিদের খুশি করে ক্ষমতার মসনদে বসার অভিনব আদলে মৌসুমি পাখি হয়ে বাংলার আকাশে উড়ছে তাদেরকে প্রতিহত করতে, দেশের অন্যতম জনপ্রিয় দল বিএনপির নেতৃত্ব ইস্যুতে সু-পরামর্শ চেয়ে , নির্বাচনমুখী বিএনপি নেতৃবৃন্দের পাশে দাঁড়াতে, নির্বাচন কমিশন ইস্যু প্রশ্নে, নতুন প্রজন্মের জন্য করণীয় ভূমিকা প্রশ্নে, জাতীয়তা- সংবিধান-অর্থনীতি- পররাষ্ট্রনীতি- ডিফেন্স ডক্ট্রিন ইস্যুগুলোতে রাজনৈতিক ঐক্য প্রশ্নে এবং কত বছরের মধ্যে দেশের মানুষগুলোকে রাজনৈতিক এডুকেশন দেওয়ার সামর্থ্যে যাবো সেই প্রসঙ্গে বিএনপি পুনর্গঠনের উদ্যোক্তা হিসাবে বিএনপির পক্ষ থেকে জাতীয় নির্বাচন ঘিরে ফলপ্রসূ সংলাপ আয়োজনের বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি।

কামরুল হাসান নাসিম প্রধানমন্ত্রীকে দেওয়া তার চিঠির শেষভাগে লিখেছেন, বিএনপি পুনর্গঠন করতে যেয়ে আমি বলতে চাই, দলের ৬০ শতাংশ নেতৃবৃন্দ আমার সঙ্গে রয়েছেন। তবে সময় ও পারিপার্শ্বিকতা বুঝে তাদেরকে সামনে আনতে চাই। কাজেই আপনার মূল্যবান সময় এই অতি সাধারণের জন্য বরাদ্দ হলে আমি এককভাবেই আপনার সঙ্গে সংলাপে যেতে স্বস্তিতে থাকবো। সংকট উত্তরণে একমাত্র সমাধান হবে সংলাপের আয়োজন করা। আপনি ইতোমধ্যে তেমন উদারতায় বসবাস করে গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের পরিচয় দিয়ে সম্প্রীতি, সহযোগিতা, সহমর্মিতার রাজনীতির ভিত্তির উন্মোচনে গিয়েছেন। যা আপনার ব্যক্তিত্বকে আরও বড় ইমেজে দেখার অবকাশে গিয়েছে।

‘একটা দর্শন কিংবা মত রেখেই ইতি টানি। আমার রচিত 'নেতৃত্ব' বইটির দুই নং মতবাদের শেষ লাইনটি হলো- ‘তুমি (জনগণ) রাজনৈতিক শিক্ষিত হওয়ার পরেও রায় যদি পড়ে অপশক্তির বাক্সে, তবে রাজনৈতিক সৎ নেতৃত্বের উচিত হবে তাদের সঙ্গে দ্রুত রাজনৈতিক ও সামাজিক সম্পৃক্ততায় পৌঁছানো।’

আপনার মতামত লিখুন :

এ সম্পর্কিত আরও খবর