Barta24

মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০১৯, ১১ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

ফলাফলের পর সরকার গঠনও প্রত্যাখ্যান বিএনপির

ফলাফলের পর সরকার গঠনও প্রত্যাখ্যান বিএনপির
বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর / ছবি: বার্তা২৪
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

একাদশ সংসদ নির্বাচনের ফলাফল ও পার্লামেন্ট গঠনের পর এবার সরকার গঠনকে প্রত্যাখ্যান করেছে বিএনপি।

মঙ্গলবার (৮ জানুয়ারি) দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক শেষে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমরা নির্বাচনের পর ফলাফল প্রত্যাখ্যান করেছি, পার্লামেন্ট গঠন প্রত্যাখ্যান করেছি। এবার সরকার গঠন পুরোপুরিভাবে প্রত্যাখ্যান করছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘জনগণ এ নির্বাচনের ফলাফল কখনোই মেনে নেয়নি৷ সে নির্বাচনের ফলাফলের ভিত্তিতে কোনো পার্লামেন্ট গঠন বা সরকার গঠন, এটা নিয়ে মন্তব্য করা তো হাস্যকর ছাড়া কিছু না। আমরা বিশ্বাস করি এ সরকারের কোনো অধিকার নেই যে বাংলাদেশের ১৬ কোটি মানুষের ওপর তাদের রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব পালন করার৷'

বিএনপির এ মহাসচিব বলেন, ‘যে নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করেছি সে নির্বাচনের সঙ্গে জনগণের কোনো সম্পর্ক নেই। জনগণ পুরোপুরিভাবে এটাকে বর্জন করেছে বলা যেতে পারে। কারণ এটা (সরকার) কখনোই জনগণের ভোটে হয় নাই, জনগণ ভোট দিয়ে এদেরকে নির্বাচিত করে নাই।’

বিএনপি এখন কি করবে এমন প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘বিএনপি এখন যা করার তাই করবে৷ বিএনপি জনগণের দল, লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি। গণতান্ত্রিক আন্দোলন করবে, গণতান্ত্রিক সংগ্রাম করবে, জনগণের সরকারের জন্য।'

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘২০১৪ সালে এই প্রেক্ষাপটই ছিল এবং এরপরও পাঁচ বছর তারা শাসন করেছে। পাকিস্তান থাকে নাই? থাকছে তো। বিভিন্ন জায়গায় থাকছে না? জনগণের সঙ্গে সম্পর্ক নাই কিন্তু সরকার আছে। সরকার তো থাকেই, একটা কিছু না কিছু থাকতে হবে। তার সঙ্গে এটাকে মিলিয়ে লাভ নাই।'

সরকারকে উদ্দেশ্য করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আপনি (প্রধানমন্ত্রী) এটা চিন্তা করেন না কেনো যে, আপনার গোটা জাতি বঞ্চিত হয়ে গেছে। একবারও ভাবেন না, গোটা বাঙালি জাতিটাকে আজকে প্রতারণা করলেন। একবারও ভাবেন না, মনের মধ্যে আবেগ আসে না? যে আমরা ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধ করেছি‌ যে চেতনার ভিত্তিতে, সেই চেতনাকে আমি (প্রধানমন্ত্রী) ধূলিস্যাৎ করে দিয়েছি কিছু লোকের দখলদারিত্বের জন্য।'

হেয় স্বরে তিনি বলেন, ‘আপনি সরকার গঠন করেছেন দেশ পরিচালনার জন্য। আবার আপনারা রেফারেন্স টানবেন।'

আপনার মতামত লিখুন :

ভবিষ্যতে জোটের নেতৃত্ব দেবে জাতীয় পার্টি: জিএম কাদের

ভবিষ্যতে জোটের নেতৃত্ব দেবে জাতীয় পার্টি: জিএম কাদের
বক্তব্য রাখছেন জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জি এম কাদের, ছবি: সংগৃহীত

জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও সংসদ সদস্য জি এম কাদের বলেছেন, ‘ভবিষ্যতে জাতীয় পার্টি একটি জোটের নেতৃত্ব দেবে। একটি সম্ভাবনাময় দল হিসেবে জাতীয় পার্টির নেতৃত্বাধীন জোট আগামী দিনে সরকার গঠন করতে পারবে।’

মঙ্গলবার (২৫ জুন) রাজধানীর এজিবি কলোনি কমিউনিটি সেন্টারে রংপুর ও রাজশাহী বিভাগীয় সাংগঠনিক সভায় বক্তৃতাকালে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘জোটবদ্ধ হয়ে নির্বাচন না করলে বাংলাদেশে ভালো ফলাফল করা যাচ্ছে না। প্রতিটি দলই জোটবদ্ধ হয়ে নির্বাচন করছে। কিন্তু বড় দলগুলোর সঙ্গে জোটবদ্ধ হলে ছোট দলগুলো অস্তিত্ব সঙ্কটে পড়ে। তাই জাতীয় পার্টিকে আরো শক্তিশালী করতে পারলে আমরা আমাদের স্বকীয়তা নিয়ে রাজনীতিতে একটি জোটের নেতৃত্ব দিতে পারব। রাষ্ট্র ক্ষমতা গ্রহণে জাতীয় পার্টি নিয়ামক শক্তি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত আছে। আগামীতে জাতীয় পার্টি সাধারণ মানুষের সমর্থন নিয়ে রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণ করতে পারবে।’

‘দীর্ঘ ২৯ বছরে জাতীয় পার্টি ক্ষমতার বাইরে থেকে ঘাত-প্রতিঘাত ও চাড়াই-উৎরাই পেরিয়ে, সব প্রতিকূল পরিবেশ মোকাবেলা করে একটি শক্তিশালী রাজনৈতিক শক্তিতে পরিণত হয়েছে। পার্টি চলবে গঠনতন্ত্রের নির্দেশনায়। তৃণমূল নেতাকর্মীদের মতামত, পরামর্শ এবং শক্তিতে জাতীয় পার্টি পরিচালিত হবে। আমি পারিবারিক পরিচয়ে নেতৃত্ব দিতে চাই না। পার্টির সাধারণ কর্মীদের সমর্থন ও আস্থা নিয়ে জাতীয় পার্টিকে এগিয়ে নিতে চাই,’ যোগ করেন জিএম কাদের।

তিনি বলেন, ‘সবাইকে নিয়েই রাজনীতি করতে চাই আমরা। জামিদারি বা কর্তৃত্ব করতে রাজনীতি করি না। তৃণমূলে যারা জাতীয় পার্টিকে শক্তিশালী করবে, তারাই সম্মান ও মর্যাদা নিয়ে রাজনীতি করবে আমাদের সঙ্গে।’

জাতীয় পার্টির মহাসচিব ও সংসদ সদস্য মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, ‘আওয়ামী লীগে পাঁচ ভাগ, বিএনপিতে চার ভাগ, কিন্তু জাতীয় পার্টি এক ভাগ। জাতীয় পার্টিতে কোনো কোন্দল বা দ্বন্দ্ব নেই। কোনো বিভেদ নেই জাতীয় পার্টিতে। হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের নির্দেশে আমরা গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদেরের নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ।’

তিনি বলেন, ‘পার্টিকে আরো শক্তিশালী করতে হবে। জাতীয় পার্টি শক্তিশালী ছিল বলেই আওয়ামী লীগ জাতীয় পার্টির সঙ্গে হাত মিলিয়েছে। জাতীয় পার্টি কখনোই লোভের কাছে মাথা নত করেনি, তাই জাতীয় পার্টিকে দালাল বলা যাবে না। বরং আওয়ামী লীগই দালাল হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। জাতীয় পার্টির ৫৭টি আসনে মাত্র ২২টি আসনে ছাড় দিয়েছে।’

‘রংপুর-রাজশাহী বিভাগে জাতীয় পার্টির ব্যাপক সমর্থন রয়েছে। এখন শুধু জাতীয় পার্টির সমর্থকদের সংগঠনের অধীনে সংঘবদ্ধ করতে হবে। অনেকেই দল ছেড়ে চলে গেছেন, অনেকে নিষ্কৃয় অবস্থায় আছেন। সবাইকে নিয়ে শক্তিশালী জাতীয় পার্টি গড়ে তুলতে হবে,’ যোগ করেন রাঙ্গা।

এ সভায় প্রতিটি জেলা, মহানগর, উপজেলা ও পৌরসভা কমিটির নেতৃবৃন্দ বক্তব্য দেন। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য মো. হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী এমপি, অ্যাডভোকেট রেজাউল ইসলাম ভূইয়া, ফখরুজ্জামান জাহাঙ্গীর, আলমগীর সিরকার লোটন প্রমুখ।

আ'লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভা বুধবার

আ'লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভা বুধবার
ছবি: সংগৃহীত

আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভা বুধবার (২৬ জুন) অনুষ্ঠিত হবে। মঙ্গলবার (২৫ জুন) দলের দফতর থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তি এ তথ্য জানানো হয়।

বুধবার সকাল ১১টায় গণভবনে দলের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে ওই সভা অনুষ্ঠিত হবে। তিনি আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভাপতি।

সভায় সবাইকে যথাসময়ে উপস্থিত থাকার জন্য বিনীত অনুরোধ জানিয়েছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র