Alexa

সংবিধানে আল্লাহর ওপর আস্থা পুনস্থাপনের দা‌বি ওলামা লীগের

সংবিধানে আল্লাহর ওপর আস্থা পুনস্থাপনের দা‌বি ওলামা লীগের

মানববন্ধনে আওয়ামী ওলামা লীগ / ছবি: বার্তা২৪

বিগত নির্বাচন ও একাদশ নির্বাচ‌নে আওয়ামী লীগের পোস্টারে ‘আল্লাহ সর্বশ‌ক্তিমান’ কথাটি ছাপিয়ে মুসলমানের ধর্মীয় অনভূতির প্রতি সম্মান জানিয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় এবারের নির্বাচিত সরকার সংবিধানে ‘সর্বশক্তিমান আল্লাহর প্রতি পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস’ অনুচ্ছেদটি পুনরায় প্রতিস্থাপনের দাবি জানিয়েছে আওয়ামী ওলামা লীগসহ সমমনা ১৩টি ইসলামি দল।

‌সোমবার (২১ জানুয়ারি) প্রেসক্লা‌বের সাম‌নে আয়োজিত মানববন্ধন কর্মসূচিতে দলের নেতৃবৃন্দ এসব দাবি জানান।

অনুষ্ঠিত কর্মসূচির সমন্বয় করেন আওয়ামী ওলামা লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাওলানা মুহম্মদ আখতার হুসাইন বুখারী।

মানববন্ধনে বক্তব্য দেন- দলের সাধারণ সম্পাদক কাজী মাওলানা মুহম্মদ আবুল হাসান শেখ শরীয়তপুরী, সম্মিলিত ইসলামী গবেষণা পরিষদের সভাপতি হাফেজ মাওলানা মুহম্মদ আব্দুস সাত্তার, সহ সভাপতি মাওলানা মোস্তফা চৌধুরী প্রমুখ।

এ সময় নেতৃবৃন্দ ব‌লেন, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ যতবারই নির্বাচনী ইশতিহারে কুরআন, সুন্নাহ বিরোধী কোনো আইন প্রণয়ন না করার ঘোষণা দিয়েছে, ততবারই নিরঙ্কুশ বিজয় লাভ করেছে। তারপরও কতিপয় নাস্তিক আওয়ামী লীগকে অতীতেও বিভিন্ন উস্কানি দিয়েছে, এখনো দিচ্ছে বা ভবিষ্যতেও দেবে। ওলামা লীগ এসব উস্কানির বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে থাকবে।

তারা আরও ব‌লেন, ‘সংবিধানে দেশের সকল নাগরিকের সমান অধিকার দেয়া হয়েছে। আবার প্রত্যেক নাগরিকের সুরক্ষায় আইনও রয়েছে। সেখানে আলাদাভাবে ‘সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন’ করা হলে তা হবে বৈষম্যমূলক ও সাম্প্রদায়িক। বৈষম্য সৃষ্টিকারী কথিত সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন করা যাবে না। অন্যথায় মুসলিম সুরক্ষা আইন করতে হবে।

বিপিএলের নামে দেশকে জুয়াড়িদের আস্তানায় পরিণত করা হচ্ছে উল্লেখ করে ওলামা লীগের নেতৃবৃন্দ বলেন, যা সম্পূর্ণ সংবিধান বিরোধী। জুয়াড়ি তৈরির বিপিএলের মতো খেলাধুলা বন্ধ করতে হবে। বিয়ের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চালাচ্ছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন। তারা কি পতিতাবৃত্তিকে উৎসাহিত করতে চায়?

তারা বলেন, মন্ত্রীসভায় অনুমোদন পাওয়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিরুদ্ধে অপপ্রচারে ১৪ বছর কারাদণ্ডের বিধান রাখলেও ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করলে শাস্তির জন্য ১০ বছর জেলের বিধান করা হয়েছে, যা কখনোই গ্রহণযোগ্য নয়, বরং এটা সংশোধন করে মৃত্যুদণ্ডের বিধান করতে হবে।

আপনার মতামত লিখুন :