সরকারের ন্যূনতম সহনশীলতা নাই: মির্জা ফখরুল



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ছবি: বার্তা২৪

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সরকারকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন, যারা ভিন্নমত সহ্য করতে পারে না, যাদের মধ্যে ন্যূনতম সহনশীলতাটুকু নাই, তারা গণতন্ত্রের কথা বলবে কেন! কিম জং উনের মতো বললেই হয় যে, তারা (সরকার) এক দলীয় শাসন বিশ্বাস করে।

কবি আল মাহমুদের মৃত্যুতে শনিবার (২৩ মার্চ) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থা (জাসাস) আয়োজিত শোকসভায় তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, সারা বাংলাদেশেকে কারাগারে পরিণত করা হয়েছে। সমগ্র বাংলাদেশের মানুষের অধিকার তারা (সরকার) কেড়ে নিচ্ছে। কবি, সাহিত্যিক, শিল্পী ও সাংবাদিককে কারাগারে পাঠানো হচ্ছে। কেউ ভিন্নমত পোষণ করলে তাদের ওপর নির্যাতন নেমে আসে।

তিনি বলেন, কিছুদিন আগে পৃথিবীর বিখ্যাত সাহিত্যিক ভারতের অরুন্ধতী রায় ঢাকায় এসেছিলেন। তিনি ভিন্নমতের একজন লেখক তিনি। তার বক্তব্য দেওয়ারে জন্য যে জায়গা রাখার কথা ছিল, সেটা বন্ধ করে দিয়েছিল। এরপর যেখানে গিয়েছিল, সেখানে বন্ধ করে দেওয়ার চেষ্টা হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত কিছুটা ভয় পেয়ে বক্তব্য দিয়েছেন।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, যারা আজকে ভিন্নমত সহ্য করতে পারে না, যাদের মধ্যে নূন্যতম সহনশীলতাটুকুও নাই, তারা গণতন্ত্রের কথা বলবে কেন? সরাসরি নর্থ কোরিয়ার কিমের (উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট কিম জং উন) মতো বলা উচিৎ যে- আমি এক দলীয় শাসন বিশ্বাস করি। আমি যা বলব, সেটাই আইন, এ কথা বললেই তো হয়ে যায়। একটা ছদ্মবেশ ধারণ করে, মানুষকে বিভ্রান্ত করে, প্রতারণা করে, একদলীয় শাসন ব্যবস্থা পুরোপুরি চালু করা হয়েছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Mar/23/1553328725082.jpg

তিনি বলেন, সব সময় বলি আমরা কঠিন সময় পার করছি, সময়টা কঠিন। এটা কঠিন সময়, কিন্তু সহজ সময় হয়ে আসবে, যদি আমরা সবাই মনে করি যে, হ্যাঁ, আমরা পারব। আমরা এটা করতে পারি, আমরা এই নৈরাজ্যকে দূর করতে পারব, আমাদের বুকের উপর যে পাথর আছে সে পাথর সরাতে পারব। আমরা যদি আমৃত্যু সংগ্রাম লড়াই করতে থাকি, তাহলে আমরা অবশ্যই পারব। আমরা জয়ী হব, এই বোধ আনতে হবে। এই বোধ না আনতে পারলে আমরা সফল হতে পারব না।

নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, কখনো হতাশ হবেন না, হতাশ হওয়ার প্রশ্নই আসে না। আমরা জয়ী হবই হবে। এদেশের মানুষ জয়ী হবে।

সভায় আরও বক্তব্য দেন প্রখ্যাত গীতিকার ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা গাজী মাজহারুল আনোয়ার, নয়া-দিগন্ত পত্রিকার সম্পাদক আলমগীর মহিউদ্দিন, কবি আব্দুল হাই শিকদার, জাসাসের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবুল হোসেন প্রমুখ।