Barta24

সোমবার, ২২ জুলাই ২০১৯, ৬ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

বগুড়া জেলা বিএনপি অফিসে তালা, বিক্ষোভ

বগুড়া জেলা বিএনপি অফিসে তালা, বিক্ষোভ
বিএনপির সদ্য ঘোষিত আহ্বায়ক কমিটি প্রত্যাখ্যান করে বগুড়া জেলা বিএনপি অফিসে স্বেচ্ছাসেবক দলের বিক্ষোভ, ছবি: বার্তা২৪
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
বগুড়া।


  • Font increase
  • Font Decrease

বগুড়া জেলা বিএনপির সদ্য ঘোষিত আহ্বায়ক কমিটি প্রত্যাখ্যান করে অফিসে তালা ঝুলিয়েছে স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা-কর্মীরা। অফিসের প্রধান গেটের সামনে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করছেন তারা। নতুন কমিটির আহ্বায়ক গোলাম মোহাম্মদ সিরাজকে জেলা বিএনপি অফিসে প্রবেশ করতে দেবে না বলেও ঘোষণা দিয়েছে নেতা-কর্মীরা।

বুধবার (১৫ মে) রাত ৮টার দিকে অফিসে তালা দিয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা-কর্মীরা।

জানা গেছে, জেলা বিএনপির পাল্টাপাল্টি দুইটি আহ্বায়ক কমিটি বাতিল করে সাবেক সাংসদ গোলাম মোহাম্মদ সিরাজকে আহ্বায়ক এবং অ্যাডভোকেট সাইফুল ইসলাম ও ফজলুল বারী তালুকদার বেলালকে যুগ্ম আহ্বায়ক করে বুধবার (১৫ মে) নতুন আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করা হয়।

বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-দপ্তর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু স্বাক্ষরিত আহ্বায়ক কমিটি অনুমোদনের চিঠি বগুড়ায় পৌঁছার পর দিনব্যাপী কমিটি নিয়ে আলোচনা সমালোচনা চলে। রাত ৮টার দিকে স্বেচ্ছাসেবক দলের ৫০-৬০ জন নেতা-কর্মী জেলা বিএনপি অফিসের সামনে অবস্থান নেয়। তারা অফিসের প্রধান গেটে তালা ঝুলিয়ে দেয়া ছাড়াও অফিসের সিড়িতে আগুন জ্বালিয়ে দেয়। এসময় নেতা-কর্মীরা কেন্দ্র ঘোষিত কমিটির বিরুদ্ধে শ্লোগান দেয়। গোলাম মোহাম্মদ সিরাজকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/15/1557935540282.jpgজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক শাহাবুল আলম পিপলু বার্তা ২৪.কমকে বলেন, গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ সংস্কারপন্থী নেতা। দেশে জরুরি অবস্থার সময় গোলাম মোহাম্মদ সিরাজের ভূমিকা সারাদেশের নেতা-কর্মীরা জানেন। দলের জন্য গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ এবং অপর দুই যুগ্ম আহ্বায়কের কোনো ত্যাগ নেই উল্লেখ করে তিনি বলেন, বগুড়ার তৃণমূল পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা তাদেরকে মানতে পারে না।

এরপর জেলা বিএনপি অফিসের সামনে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তব্য দেন জেলা জাসাসের সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন পশারী হিরু। তিনি বলেন, অবৈধ আহ্বায়ক কমিটি বাতিল না হওয়া পর্যন্ত অফিসে তালা থাকবে এবং তাদেরকে অফিসে প্রবেশ করতে দেয়া হবে না।

এ বিষয়ে সদ্য ঘোষিত কমিটির যুগ্ম-আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট সাইফুল ইসলাম বার্তা ২৪.কমকে বলেন, ‘শুনেছি জেলা বিএনপি অফিসের সামনে আগুন জ্বালানো হয়েছে। বিচ্ছিন্ন কিছু নেতা-কর্মী পদ না পেয়ে অফিসের সামনে হৈচৈ করেছে। এতে নতুন কমিটির কর্মকাণ্ড ব্যাহত হবে না।’

আপনার মতামত লিখুন :

রাজশাহী বিএনপির সমাবেশ ২৯ জুলাই, জোট-ফ্রন্ট ছাড়ার দাবি

রাজশাহী বিএনপির সমাবেশ ২৯ জুলাই, জোট-ফ্রন্ট ছাড়ার দাবি
২৯ জুলাই রাজশাহী বিএনপির সমাবেশ উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

২০ দলীয় জোট ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে বাদ দিয়ে এককভাবে আন্দোলনে নামার জন্য কেন্দ্রীয় বিএনপির কাছে জোর দাবি জানিয়েছেন দলটির রাজশাহীর শীর্ষ নেতারা।

রোববার (২১ জুলাই) রাজশাহী নগরীর একটি রেস্তোরাঁয় আগামী ২৯ জুলাইয়ের সমাবেশ সফল করার লক্ষ্যে প্রস্তুতি সভায় এ কথা বলেন নেতারা।

সভায় বক্তারা বলেন, 'বিএনপি কমিউনিস্ট পার্টির মতো কোনো রাজনৈতিক দল নয়। যে দলের লাখ লাখ কর্মী-সমর্থক রয়েছে, সেই দলকে আন্দোলন করতে জোট-ফ্রন্ট গঠন করতে হবে কেন? খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনে এখন আর কারো সঙ্গে জোট নয়। বিএনপি একাই রাজপথে নামবে এবং কঠোর আন্দোলন গড়ে তুলে বেগম জিয়াকে কারাগার থেকে মুক্তি করে আনবে।'

এদিকে, প্রস্তুতি সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও রাজশাহী সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র মিজানুর রহমান মিনু জানান, ২৯ জুলাই দুপুর ২টার দিকে সমাবেশ করা হবে। নগরীর সাহেব বাজার জিরো পয়েন্ট, গণকপাড়া মোড় অথবা মনি চত্বরের যেকোনো এক স্থানে সমাবেশের জন্য পুলিশের কাছে অনুমতি চাওয়া হয়েছে। যদি পুলিশ অনুমতি নাও দেয়, তবুও যেকোনো মূল্যে সমাবেশ করা হবে।

মিজানুর রহমান মিনু বলেন, 'রাজশাহী থেকে অতীতে সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনের সূচনা হয়েছে। বেগম জিয়ার মুক্তির আন্দোলনও রাজশাহীর বিভাগীয় মহাসমাবেশ থেকে শুরু করা হবে। রাজশাহীর মানুষ মাথা পেছনে করে রাখে না। তারা সব সময় সামনের দিকে এগিয়ে যায়। সরকারের যে কোনো বাধা ও ষড়যন্ত্র উপক্ষো করে রাজশাহীর মহাসমাবেশকে জনসমুদ্রে পরিণত করা হবে।'

এদিকে, প্রস্তুতি সভায় মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম মিলন নেতাকর্মীদের সমাবেশে হেলমেট পরে আসার নির্দেশ দেন। তিনি বলেন, 'বিভিন্ন সময়ে বিএনপির সমাবেশে আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসী ও পুলিশ বাহিনী আক্রমণ করে। তাদের উদ্দেশ্য থাকে সমাবেশ পণ্ড করা। তাই এবার যেকোনো মূল্যে সমাবেশ করতে হবে। প্রয়োজনে নেতাকর্মীরা হেলমেট পরে আসবে।'

বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির রাজশাহী বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ শাহীন শওকতের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রস্তুতি সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু, হাবিবুর রহমান হাবিব, রাজশাহী মহানগর বিএনপির সভাপতি মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নাদিম মোস্তফা, জেলা বিএনপির আহবায়ক আবু সাইদ চাঁদ, যুগ্ম আহ্বায়ক সাইফুল ইসলাম মার্শাল প্রমুখ।

জাতীয় ছাত্র সমাজের ১৫৩ সদস্য বিশিষ্ট সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি

জাতীয় ছাত্র সমাজের ১৫৩ সদস্য বিশিষ্ট সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি
জাতীয় ছাত্র সমাজ

 

জামাল উদ্দিন আহবায়ক ও ফয়সাল দিদার দিপুকে সদস্য সচিব করে জাতীয় ছাত্র সমাজ কেন্দ্রীয় সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় পাটির চেয়ারম্যান জিএম কাদের কাদের।

রোববার (২১ জুলাই) জাতীয় পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গার সুপারিশে ১৫৩ সদস্য বিশিষ্ট সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির অনুমোদন করা হয় বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি আগামী ৩ মাসের মধ্যে মেয়াদোত্তীর্ণ ইউনিট কমিটি গঠন করে কেন্দ্রীয় সম্মেলন আয়োজন করবে।

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের ও মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান নব গঠিত ছাত্র সমাজ নেতৃবৃন্দ।

অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, প্রেসিডিয়াম সদস্য রেজাউল ইসলাম ভূইয়া, আলমগীর সিকদার লোটন, যুগ্ম মহাসচিব গোলাম মোহাম্মদ রাজু, সাংগঠনিক সম্পাদক শাহ্-ই-আজম, নির্মল চন্দ্র দাশ, ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক সৈয়দ ইফতেখার আহসান হাসান, যুগ্ম ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান মিরু প্রমুখ।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র