Alexa

প্রতিবাদ করতে না পারলে কিসের ঐক্যফ্রন্ট: আসিফ নজরুল

প্রতিবাদ করতে না পারলে কিসের ঐক্যফ্রন্ট: আসিফ নজরুল

আসিফ নজরুল, ছবি: সংগৃহীত

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. আসিফ নজরুল বলেছেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মতো একটা জঘন্যতম নির্বাচন হলো, কিন্তু পরের দিন একটা প্রতিবাদ বা হরতালও ডাকতে পারলো না জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। আজ পর্যন্ত কোনো কর্মসূচি দিতে পারলেন না। প্রতিবাদ করতে যদি না পারেন তাহলে কিসের ঐক্যফ্রন্ট?

শনিবার (২৩ মে) সুপ্রিমকোর্ট বার এসোসিয়েশনের মিলনায়তনে 'মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্ন বাস্তবায়নে, মুক্তির লড়াইয়ে ঐক্যবদ্ধ হোন, কল্যাণ রাষ্ট্র গড়ে তুলুন' শীর্ষক আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিলে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন নাগরিক ঐক্য।

আসিফ নজরুল বলেন, ‘আমরা একটা জিনিস দেখে বড় হয়েছি। দেশে যখন একটা দুইটা লোক হত্যা হতো, তখনই দেখলাম স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পদত্যাগ চাওয়া হতো। যখন একটা ইলেকশনে ব্যাপক কারচুপি হতো তখন পুরা সরকারের পদত্যাগ দাবি করা হতো। আমরা দেখতাম এরশাদের বিরুদ্ধে যা ইচ্ছে তাই লেখা যেতো। আমরা দেখতাম তারেক রহমান, কোকো'র সম্পর্কে যা ইচ্ছে লেখা যেতো। আমরা দেখতাম রাজপথে প্রতি সপ্তাহে আন্দোলন করা যেতো।

তিনি বলেন, ‘এখন এতো মানুষ হত্যা হয়, গুম হয়, কিন্তু স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পদত্যাগের দাবি করার সাহস পাচ্ছে না। এই কথাটা বলার মতো মানুষের সাহস পর্যন্ত নাই। যখন একটা দেশের নির্বাচনে আগের রাতে ভোট গুম হয়ে যায়, কিন্তু মানুষের কথা বলার সাহস নাই। এখন গুম হয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ, গুম হয়ে যাচ্ছে রাষ্ট্র।’

অনুষ্ঠানে উপস্থিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের কঠোর সমালোচনা করে এই বুদ্ধিজীবী বলেন, ‘আপনাদের কিছু কিছু জিনিস আমাদের খুব কষ্ট দেয়। এরকম একটা জঘন্যতম নির্বাচন হলো, কিন্তু আপনারা পরের দিন একটা হরতালও ডাকতে পারলেন না। আজ পর্যন্ত কোনো কর্মসূচি ডাকতে পারলেন না। আশ্চর্য লাগে এটা একটা পলিটিক্স। যার সাক্ষী বাংলাদেশের সকল জনগণ।’

তিনি বলেন, 'আমরা নির্বাচনের দিন সকালে মির্জা ফখরুলকে বলতে দেখি নির্বাচন সুষ্ঠু হচ্ছে। তাঁর লজ্জা থাকা উচিৎ। আমরা নির্বাচনের দুই তিন দিন আগে থেকে জানি নির্বাচনে কি হচ্ছে। আর উনি জানেন না ইলেকশনে কি হচ্ছে? উনি এখানে থাকলে ভাল হতো, উনাকে বলবেন তাঁর লজ্জা হওয়া উচিৎ। এরকম যদি ঐক্যফ্রন্ট হয়, বিরোধী দল হয় তাহলে আমাদের দেশের ভোটাধিকার ফিরে পাব না। সরকারের অনেক দোষ আছে, তাদের দোষ যতো থাকবে বিরোধী দলকে আরও স্মার্ট, শক্তিশালী হবে। আপনারা তা করতে না পারলে আপনাদের কাছ থেকে কিছু আশা করার নাই।'

আসিফ নজরুল বক্তব্য দেওয়ার সময় মির্জা ফখরুল উপস্থিত হতে পারেননি। পরে তিনি উপস্থিত হন।

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান নেতা ড. কামাল হোসেন, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, ঢাবি আইন বিভাগের শিক্ষক আসিফ নজরুল, রাষ্ট্রবিজ্ঞানী দিলারা চৌধুরী, বিপ্লবী ওয়ার্কার পার্টি নেতা সাইফুল হক, জে এস ডি'র নেতা আব্দুল মালেক রতন, গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক ড. রেজা কিবরিয়া, বিএনপি চেয়ারপারনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আব্দুস সালাম প্রমুখ।

আপনার মতামত লিখুন :