Barta24

শুক্রবার, ২৩ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬

English

নেতাদের কারণেই দীর্ঘায়িত হচ্ছে খালেদার কারাবাস

নেতাদের কারণেই দীর্ঘায়িত হচ্ছে খালেদার কারাবাস
বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, ছবি: সংগৃহীত
শিহাবুল ইসলাম
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট ও জিয়া অর্ফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় মোট ১৭ বছরের সাজা মাথায় নিয়ে বিগত ১৫ মাস ধরে কারাগারে রয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

এ দুই মামলা ছাড়াও তার বিরুদ্ধে রয়েছে আরও ৩৫টি মামলা। এর মধ্যে চারটিতে জামিন পাননি সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী। ফলে মুক্তি মিলছে না তার।

বিএনপি নেতাদের সঠিক নেতৃত্বের অভাব ও কৌশল নির্ধারণ না করে পথ চলাতেই খালেদা জিয়ার কারাভোগ দীর্ঘায়িত হচ্ছে বলে মনে করেন খোদ দলের অনেক নেতা ও রাজনীতি বিশ্লেষকরা।

বিএনপির অনেক নেতা ও আইনজীবী মনে করেন, খালেদা জিয়া জামিন পাওয়ার যোগ্য। কিন্তু সরকার রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে তাকে কারাগারে আটকে রেখেছে। অপরদিকে, রাজপথে কঠোর আন্দোলন না করায় খালেদা জিয়ার জামিন বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। একই সঙ্গে নিম্ন ও উচ্চ আদালতের ওপর সরকার সরাসরি প্রভাব ফেলছে। এ অবস্থায় আন্দোলন ছাড়া খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা সম্ভব নয়, যদি সরকারের সদিচ্ছা না থাকে।

খালেদা জিয়া কারান্তরীণ হওয়ার পর জ্বালাও-পোড়াও, হরতাল, অবরোধের মতো কঠোর কোনো আন্দোলনের পথে যায়নি দলটি। মানববন্ধন, অনশন, প্রতিবাদী সমাবেশ বা জনসভার মতো শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ খালেদার মুক্তির দাবি। যা খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার জন্য যথেষ্ট নয় বলে মনে করেন বিএনপির সিনিয়র অনেক নেতাই।

মাস খানেক আগে রাজনীতির মাঠে গুঞ্জন ছিল, খালেদা জিয়ার মুক্তির সমঝোতায় বিএনপির নির্বাচিতদের সংসদে পাঠিয়েছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক এমাজউদ্দিন আহমেদ মনে করেন, সে ক্ষেত্রে সরকারের সঙ্গে দর কষাকষি করতে পারেনি বিএনপি। সংসদে যাওয়ার আগে যদি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক করে শর্ত সাপেক্ষে বিএনপি নেতারা সংসদে যেতেন, তাহলে খালেদা জিয়ার জামিনে সরকার বাধা দিত না।

রাজনীতি বিশ্লেষক ও রাষ্ট্রবিজ্ঞানী অধ্যাপক এমাজউদ্দিন আহমেদ বার্তা২৪.কমকে বলেন, খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে বিএনপিতে খুব বেশি উদ্বিগ্নতা আছে বলে আমার মনে হয় না। সংসদে যাওয়া নিয়েও তারা ঠিক মতো খেলতে পারল না। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করার পর শর্ত সাপেক্ষে সংসদে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত ছিল। কিন্তু সেটাও করা হয়নি। যেভাবে খালেদা জিয়ার প্রতি মানুষের সমর্থন রয়েছে, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে দাঁড়ালেও লোক ছুটে আসত। কারণ দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী খালেদা জিয়া। তার মুক্তির প্রশ্নে বিএনপির নেতৃত্ব আরও ডায়নামিক, শক্তিশালী ও গতিশীল হওয়া দরকার ছিল।

খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে না পারার দায় বিএনপির নেতাদেরই-এ মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। তিনি মনে করেন, খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে কোনো আন্দোলনই গড়ে তুলতে পারেনি তাদের দল। ফলে খালেদা জিয়ার কারাভোগ দীর্ঘ হচ্ছে।

তিনি বার্তা২৪.কমকে বলেন, আমাদের নেত্রীর জন্য যে মুভমেন্ট (আন্দোলন) দরকার, তা তো আমরা করিনি। তাহলে এ দায় কি বিএনপির নেতৃত্বের দিকে যায় না?

প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, আমি বা আমরা তো এ দায় থেকে মুক্ত না। সবাই মিলেই, এখানে এককভাবে কারো ওপরে দোষ চাপিয়ে লাভ নেই। আমাদের নেত্রী গণতন্ত্রের জন্য ফার্মগেট থেকে সদরঘাট পর্যন্ত মশাল হাতে মিছিল করেছেন। সেই নেত্রীর জন্য যে আন্দোলন করা দরকার, সেটা আমরা করিনি। আর আমাদের শুধু মুখের কথায় বা কান্নাকাটিতে সরকার তাকে ছেড়ে দেবে, এটা আমরা ভাবি কীভাবে? নেত্রীকে মুক্ত করার জন্য আমরা প্রতিদিনই শপথ নিচ্ছি, কিন্তু সেই শপথ আমরাই ভঙ্গ করি, রক্ষা করি না। রক্ত দেব বলি, কিন্তু কেউ রক্ত দিয়েছে?

খালেদা জিয়াকে কারাগার থেকে বের করতে না পারার দায় বিএনপির বর্তমান নেতৃত্বের ওপরই দিলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন। তিনিও ভেবেছিলেন, বিএনপি সংসদে গেলে সরকার খালেদা জিয়ার মুক্তির ব্যাপারে নমনীয় হবে। কিন্তু সেটা হয়নি। অন্যদিকে, খালেদা জিয়ার মুক্তির ব্যাপারে আন্দোলনের ডাকও দেয়নি বিএনপি। রাজপথে বিএনপির কঠোর আন্দোলন না থাকা এবং সরকারের বাধা থাকায় খালেদা জিয়া মুক্তি পাচ্ছেন বলে মনে করেন তিনি।

Khaleda Jia
আদালতে খালেদা জিয়া, ফাইল ফটো

 

খন্দকার মাহবুব হোসেন বার্তা২৪.কমকে বলেন, কেউ যদি যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত হন, তারপরও তাকে জামিন দেওয়া হয়। অথচ খালাদা জিয়ার সাত বছরের সাজায় জামিন মিলছে না। আমরা একটি মামলায় জামিন নিলে আরেকটি সামনে নিয়ে আসা হয়। আমরা জজ কোর্টে জামিন নিলে তারা (সরকার পক্ষ) হাইকোর্টে যায়, হাইকোর্ট জামিন দিলে, তারা আপিল বিভাগে যায় জামিন বাতিল করার জন্য। এভাবে খালদা জিয়ার জামিন দীর্ঘায়িত করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে যে কোনো কারণেই হোক আমাদের (বিএনপি নেতাদের) যা করণীয় ছিল, তা করতে পারিনি। রাজপথে আন্দোলন করা দরকার ছিল, সেটা করতেও বিএনপি ব্যর্থ হয়েছে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির যেসব নেতা বিজয়ী হয়েছেন তাদের সংসদে যোগ দেওয়ার মধ্য দিয়ে কোনো বার্তা ছিল কি না জানতে চাইলে সিনিয়র এই আইনজীবী বলেন, আমরা ধারণা করেছিলাম যে সমঝোতার ভিত্তিতে সংসদে যাওয়া হয়েছে। কিন্তু এখন দেখতে পাচ্ছি ভিন্ন চিত্র। সংসদে যাওয়ার পর হাইকোর্টে আমরা খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন করেছিলাম, সেটার কাগজ আনা ও আপিলের শুনানির জন্য দুই মাস পর তারিখ দেওয়া হয়েছে। এতে আমার ব্যক্তিগতভাবে মনে হয়, যারা সংসদে গিয়েছেন তারা ব্যক্তি স্বার্থে গিয়েছেন। কোনো রাজনৈতিক সমঝোতা হয়েছে বলে মনে করি না।

 

আপনার মতামত লিখুন :

শুভ শক্তির উত্থান ঘটাতে হবে: ফখরুল

শুভ শক্তির উত্থান ঘটাতে হবে: ফখরুল
মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, পুরনো ছবি

জন্মাষ্টমী উপলক্ষে হিন্দু ধর্মের সকল মানুষকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেছেন, ‘ভগবান শ্রীকৃষ্ণ পৃথিবীতে আবির্ভূত হয়ে জনসমাজে বিরাজমান অন্যায়কে পরাস্ত করে শান্তি ও কল্যাণ স্থাপন করেন। বাংলাদেশেও অশুভ শক্তিকে পরাভূত করে গণতন্ত্রের শুভ শক্তির উত্থান ঘটাতে হবে।’

বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বাণীতে তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষদের আরাধ্য ভগবান শ্রীকৃষ্ণের জন্মদিন, শুভ জন্মাষ্টমী অন্যতম প্রধান ধর্মীয় উৎসব। সকল ধর্মাবলম্বীদের ধর্মীয় উৎসবের মূলবাণী, মানুষে-মানুষে সম্প্রীতি, সৌহার্দ্য ও শুভেচ্ছাবোধ। সকল কালে, যুগে বিভিন্ন ধর্মের প্রবক্তাগণ মানুষকে সত্য, ন্যায় ও কল্যানের পথে চালিত হওয়ার উপদেশ দিয়েছেন। ভগবান শ্রীকৃষ্ণও একই উদ্দেশ্যে পৃথিবীতে আবির্ভূত হয়ে জনসমাজে বিরাজমান অন্যায়কে পরাস্ত করে শান্তি ও কল্যাণ স্থাপন করেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশ ঐতিহ্যগতভাবে ধর্মীয় সম্প্রীতির দেশ হিসেবে সকল ধর্মের মানুষের সঙ্গে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক স্থাপনে বিশ্বাসী।’

‘আরও অনেক বিচারপতি দুর্নীতিতে জড়িত’

‘আরও অনেক বিচারপতি দুর্নীতিতে জড়িত’
ব্যারিস্টার এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন, ছবি: সংগৃহীত

কেবল তিন বিচারপতিই নন, আরও অনেক বিচারপতির বিরুদ্ধেও দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ও বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন।

তিনি বলেছেন, ‘সুপ্রিম কোর্টের কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধেও দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে। যা বিষয়টি প্রধান বিচারপতিকে অবহিত করেছি।’

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির শহীদ সফিউর রহমান মিলনায়তনে বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

আরও পড়ুন: ছুটিতে তিন বিচারপতি

মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেন, ‘সুপ্রিম কোর্টের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা প্রকাশ্যে দুর্নীতি করেন। আইনজীবীরা তাদের কাছে প্রতিদিন হয়রানির শিকার হচ্ছেন। বিচারপ্রার্থীদের ন্যায়বিচার নিশ্চিত ও বিচার বিভাগের ভাবমূর্তি রক্ষায় পদক্ষেপ গ্রহণ জরুরি।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের তিন বিচারপতির বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্ত করার বিষয়টিকে স্বাগত জানাই। তবে এ তদন্ত কারা করছে, তা স্পষ্ট করারও দাবি জানাচ্ছি।’

আরও পড়ুন: হাইকোর্টের ৩ বিচারপতিকে বেঞ্চ দেওয়া হয়নি

বিচারপতিদের অসদাচারণের অভিযোগ তদন্তে সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিল আবারও পুনরুজ্জীবিত হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়ের পর সুপ্রিম জুডিসিয়াল কাউন্সিল আবারও পুনরুজ্জীবিত হয়েছে। এখন এটির কার্যক্রম কি অবস্থায় রয়েছে আমরা জানি না। তাই এটি স্পষ্ট করা দরকার।’

নবম সংসদ বহাল থাকা অবস্থায় দশম সংসদের সদস্যদের শপথের বৈধতা রিটের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমরা এ বিষয়ে একটি রিট করেছিলাম। কিন্তু হাইকোর্ট রিটটি সরাসরি খারিজ করে দিয়েছেন। এখন হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করেছি। আর আপিলে ন্যায়বিচার পাওয়ার বিষয়ে আশা প্রকাশ করছি।’

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র