Barta24

শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯, ৪ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

বিএনপি নেতা হাসান মামুনকে গ্রেফতারের অভিযোগ

বিএনপি নেতা হাসান মামুনকে গ্রেফতারের অভিযোগ
হাসান মামুন/ ছবি: সংগৃহীত
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি হাসান মামুনকে গ্রেফতার করে নিয়ে গেছে র‍্যাব-৩। তার পরিবারের পক্ষ থেকে এ অভিযোগ করা হয়েছে।

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগে শনিবার (১৫ জুন) দিবাগত রাত আনুমানিক সোয়া ১১টায় রাজধানীর শান্তিনগরের বাসা থেকে র‍্যাব-৩ এর সদস্যরা সাদা পোশাকে তাকে আটক করে নিয়ে গেছে বলে তার স্ত্রী বার্তা২৪.কম-কে নিশ্চিত করেছেন।

শনিবার দিবাগত রাত ১২টা ৪০ মিনিটে হাসান মামুনের স্ত্রী বলেন, ‘এইমাত্র জানতে পেরেছি তাকে (হাসান মামুনকে) র‍্যাব হেড কোয়ার্টারে নেওিয়া হয়েছে। মিথ্যা অভিযোগে আমার স্বামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। জাতিকে ধ্বংস করা এই প্রশ্নফাঁসকে আমি এবং আমার স্বামী উভয়েই ঘৃণা করি। তার গ্রেফতার নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন।’

আপনার মতামত লিখুন :

সরকার বন্যার্তদের পাশে দাঁড়াচ্ছে না: ফখরুল

সরকার বন্যার্তদের পাশে দাঁড়াচ্ছে না: ফখরুল
মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

সরকার বন্যার্তদের পাশে দাঁড়াচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, দেশের বন্যা পরিস্থিতি ক্রমেই অবণতির দিকে যাচ্ছে। কিন্তু সরকার এ ব্যাপারে উদাসীন, বন্যার্তদের পাশে দাঁড়াচ্ছে না।

শুক্রবার (১৯ জুলাই) সন্ধ্যায় গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার কার্যালয়ে বিকেলে দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন মির্জা ফখরুল।

মির্জা ফখরুল বলেন, দেশের বন্যা পরিস্থিতি ক্রমেই অবণতির দিকে যাচ্ছে এবং একের পর এক জেলা বন্যা কবলিত হচ্ছে। জনগণের দুর্ভোগ বেড়েই চলেছে। দুর্ভাগ্যজনকভাবে সরকারের যে উদ্যোগ প্রয়োজন সেটা আমরা লক্ষ্য করছি না। সরকারের চরম উদাসীনতা এই বন্যার ব্যাপারে, তারা বন্যার্তদের পাশে দাঁড়াচ্ছে না। সাধারণত এরকম পরিস্থিতিতে যে উদ্যোগ-সহায়তা নেওয়ার কথা সেটা দেখা যাচ্ছে না। এখন পর্যন্ত ত্রাণমন্ত্রী কোথাও ঘুরে আসেননি। সরকারের পদক্ষেপগুলো মানুষ দেখতে চায়। সরকারের দায়িত্ব বন্যা কবলিত মানুষকে রক্ষা করা, যেটা সরকার করছে না।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠকে বন্যার্তদের সহায়তায় ২১ সদস্যের একটি ত্রাণ কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানান মির্জা ফখরুল। কমিটির আহ্বায়ক করা হয়েছে স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকুকে এবং সদস্য সচিব করা হয়েছে বিএনপির ত্রাণ বিষয়ক সম্পাদক হাজী আমিনুর রশীদ ইয়াসীনকে। ত্রাণ কমিটি খুব শিগগিরই কার্যক্রম শুরু করবে বরেও জানান ফখরুল।

ডেঙ্গু ভয়াবহ মহামারী আকার ধারণ করেছে দাবি করে বিএনপির এই নেতা বলেন, অর্থমন্ত্রী বলেছেন, তিনি ডেঙ্গুর ভয়ে অফিসে যাচ্ছেন না, মশা কামড়াতে পারে। একবার তার ডেঙ্গু হয়ে গেছে। অথচ একজন মেয়র বলেছেন যে, এখন পর্যন্ত নাকি কিছুই হয় নাই। ডেঙ্গুতে এখন পর্যন্ত ২১ জন মারা গেছেন, কয়েক হাজার মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। সবাই এখন দিনের বেলায় শিশুদের মশারির নিচে রাখছেন। বড়রা মোজা পরে থাকেন-কখন এডিস মশা কামড় দেবে সেই ভয়ে। সিটি করপোরেশনের কোন উদ্যোগ নাই। আমি নিজে উত্তরায় থাকি, এখন পর্যন্ত কোন উদ্যোগ দেখতে পাইনি, এটাই বাস্তবতা।

স্থায়ী কমিটির বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেন, দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু।

আ’লীগে বহিষ্কার-শোকজ থেকে বাঁচতে ব্যর্থ দৌড়ঝাঁপ

আ’লীগে বহিষ্কার-শোকজ থেকে বাঁচতে ব্যর্থ দৌড়ঝাঁপ
আওয়ামী লীগের দলীয় পতাকা

গত মার্চ মাস থেকে অনুষ্ঠিত পাঁচ ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নিজ দলীয় প্রতীক নৌকার বিরোধীতাকারীদের তালিকা প্রায় চূড়ান্ত। ১৪৩ উপজেলায় নৌকার হারের জন্য দলের কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় অভিযুক্ত নেতার সংখ্যা প্রায় হাজার খানেক।

আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী সিদ্ধান্ত ও দলের সভাপতি শেখ হাসিনার কঠোর মনোভাবের পর শোকজ ও বহিষ্কার থেকে পরিত্রাণ এবং পদ-পদবি রক্ষায় দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন অভিযুক্তরা। প্রতিনিয়ত তারা দলীয় সভাপতির ধানমন্ডির কার্যালয়ে ঘোরাফেরা করছেন এবং ধর্না দিচ্ছেন কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক নেতাদের কাছে। তবে তাদের সব প্রচেষ্টাই ব্যর্থ।

যদিও এর আগে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে পার যেয়ে গেছেন অনেক নেতা। তবে এ যাত্রায় রক্ষা পাচ্ছেন না বিদ্রোহী স্থানীয় নেতা ও তাদের মদতদাতা বেশ কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতা, সংসদ সদস্য এবং বর্তমান ও সাবেক মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীরা।

জানা গেছে, কেন্দ্রের নির্দেশে দেশের ৮টি বিভাগে আওয়ামী লীগের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্মসাধারণ সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদকরা এ তালিকা তৈরি করছেন। শনিবার (২০ জুলাই) আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে দলের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ধানমন্ডিস্থ রাজনৈতিক কার্যালয়ে। এ সভায় অভিযুক্তদের নামের তালিকা যাচাই-বাছাই করে চিঠি পাঠানোর দিন-তারিখ ঠিক করা হবে।

যোগাযোগ করা হলে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, ’এ বিষয়ে নতুন করে কিছু বলার নেই। অসংখ্যবার বলা হয়েছে। দলের কার্যনির্বাহী পরিষদের সবার সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশ দিয়েছেন দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে।’

দলের সিদ্ধান্ত ও সভানেত্রীর নির্দেশের বাইরে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। তবে কারা শাস্তি পাচ্ছেন বা মোট সংখ্যা কত সে ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে মুখ খুলতে রাজি হননি মাহবুব-উল-আলম হানিফ।

সূত্রমতে, হাজার খানেকের এক তালিকায় আছে আওয়ামী লীগসহ এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ইউনিয়ন পর্যায় থেকে শুরু করে কেন্দ্র পর্যন্ত সব পর্যায়ের নেতা। যারা নৌকার বিরোধিতা করে অনেক উপজেলায় স্বতন্ত্র প্রার্থীর নামে বিএনপি ও জামায়াত সংশ্লিষ্টদের পক্ষে কাজ করেছেন।

দেশের মোট ৮টি বিভাগে নৌকার বিরোধিতা করে বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছিলেন প্রায় দুই শতাধিক নেতা। এ সব বিদ্রোহীদের সমর্থন ও মদত দিয়েছেন প্রায় ৫০ থেকে ৬০ জন বর্তমান ও সাবেক মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ও সংসদ সদস্য। আর তাদের মদতে উৎসাহী হয়ে জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ের অনেক নেতা উৎসাহী হয়ে নৌকার পরাজয় ঘটান অন্তত ১৪৩টি উপজেলায়। এ ক্ষেত্রে যারা জড়িত ছিলেন সবাইকেই তালিকাভুক্ত করা হয়েছে, যার সংখ্যা হাজার ছাড়িয়ে যাবে।

জানা গেছে, বিদ্রোহী প্রার্থী ও তাদের অনুসরণকারী স্থানীয় নেতাদের দল থেকে বহিষ্কার করা হবে। তাছাড়া বিদ্রোহীদের মদতদাতা বর্তমান ও সাবেক মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ও সংসদ সদস্যদের কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠানো হবে। যাদের মধ্যে অনেকেই আগামী দিনে আওয়ামী লীগের টিকিটে নির্বাচনে করতে পারবেন না।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের দলীয় সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে শুক্রবার (১৯ জুলাই) সংবাদ সম্মেলনে এ সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘কোনও সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়ার আগে আমরা প্রথমে কারণ দর্শাতে বলি। তিন সপ্তাহের মধ্যে কারণ দর্শাতে হবে। কেন আপনার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না জানতে চাওয়া হবে অভিযুক্তদের কাছে। সহযোগীদের মধ্যে যারা বিদ্রোহে ছিল বা সহায়তা করেছেন তাদেরও সংশ্লিষ্ট সংগঠন থেকে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

দলে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে গত ১২ জুলাই আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা এবং উপদেষ্টামণ্ডলীর পৃথক দুটি সভায় উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রতীক নৌকার বিরোধীতাকারীদের বিষয়ে আলোচনা হয়। ওই সভায় সিদ্ধান্ত হয় নৌকার বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী যারা হয়েছিলেন তাদের দল থেকে বহিষ্কার করা হবে। অন্যদিকে বিদ্রোহীদের মধ্যে যেসব মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, সংসদ সদস্য, কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতা মদত যুগিয়েছেন তাদের শোকজ করা হবে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র