আমরা ক‌মিশন খাওয়ার দেশ: মেনন

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
স্মরণ সভায় বক্তব্য দেন রাশেদ খান মেনন, ছবি: সংগৃহীত

স্মরণ সভায় বক্তব্য দেন রাশেদ খান মেনন, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

 

বাংলাদেশ ক‌মিশন খাওয়ার দেশ বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ও সাবেক মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন।

শ‌নিবার (৬ জুলাই) জাতীয় প্রেসক্লা‌বে উত্তর কো‌রিয়ার সা‌বেক প্রে‌সি‌ডেন্ট কিম ইল সাংয়ের স্মরণ সভায় তিনি এ মন্তব্য ক‌রেন। বাংলা‌দেশ কোরিয়া ফ্রেন্ড‌শিপ অ্যান্ড সো‌লিডা‌রি‌টি ক‌মি‌টি এ স্মরণ সভার আ‌য়োজ‌ন করে।

‌মেনন ব‌লেন, ‘উত্তর কোরিয়ার পক্ষ থে‌কে দিনাজপু‌রের মধ্যপারায় পাথর উত্তোল‌নের জন্য একটা প্র‌জেক্ট ক‌রা হ‌য়েছি‌ল। সে সময় তারা অনেক সমস্যা ও জ‌টিলতায় প‌ড়ে‌ছি‌লে। আমি এ কথাগু‌লো বিএন‌পি সরকা‌রের সা‌বেক অর্থমন্ত্রী সাইফুল ইসলামকে ব‌লে‌ছিলাম। তি‌নি হে‌সে বলে‌ছি‌লেন, ওটা একটা ফ‌কি‌রের দেশ। এ আবার আমা‌দের এখা‌নে কি ক‌রে। সেই উত্তর কোরিয়া আমা‌দের দে‌শের মা‌টির গভীর থে‌কে পাথর উত্তোলন ক‌রে‌ছে। তারা সে পাথর থে‌কে উচ্চ মা‌নের পাথর নি‌য়ে এসেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘সে পাথর‌কে ভালোভা‌বে প্র‌ক্রিয়াজাত কর‌লে আমরা বি‌দে‌শে রফতা‌নি কর‌তে পারতাম। কিন্তু আমরা‌তো সে দেশ নই। আমরা‌তো ক‌মিশন খাওয়ার দেশ। আমা‌দের না‌কি ওয়াটার বো‌টে ক‌রে বি‌দেশ থে‌কে পাথর আমদা‌নি কর‌তে হ‌বে। ইন্দোনে‌শিয়া থে‌কে, ভারত থে‌কে, না হয় অন্য কোনো দেশ থে‌কে পাথর আন‌তে হ‌বে। কারণ এই পাথর আনার মধ্যে তা‌দের ক‌মিশন থাক‌বে।’

ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ব‌লেন, ‘আমরা ব‌লে‌ছিলাম, আমা‌দের দে‌শের পাথর দি‌য়ে বাধ নির্মাণ, বন্যা নিয়ন্ত্রণসহ অনেনক কা‌জে ব্যবহার করা যা‌বে। আমা‌দের দে‌শের পাথর ইউরো‌পে রফতা‌নি ক‌রেও প্রচুর বৈ‌দে‌শিক মুদ্রা আন‌তে পারতাম। কিন্তু আমা‌দের দে‌শের পাথর স্তূপ হ‌য়ে প‌ড়ে থা‌কে। কেউ কে‌নে না। কিন‌তে গে‌লে তা‌দের ক‌মিশন চ‌লে যা‌বে।’

‌বাংলা‌দেশ কোরিয়া ফ্রেন্ড‌শিপ অ্যান্ড সো‌লিডা‌রি‌টি ক‌মি‌টির সভাপ‌তি হারুন অর র‌শিদের সভাপি‌‌ত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপ‌স্থিত ছি‌লেন- কো‌রিয়ার ডি‌পিআর রাষ্ট্রদূত পাক সং ইয়প, ঢাকা বিশ্ব‌বিদ্যালয় অধ্যপক মেসবাহ কামাল, অর্থনী‌তিবিদ ড. অশোক গুপ্ত প্রমুখ।াদেশ

ক‌মিশন খাওয়ার দেশ ব‌লে মন্তব্য ক‌রে‌ছেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ও সাবেক মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন।

শ‌নিবার (৬ জুলাই) জাতীয় প্রেসক্লা‌বে উত্তর কো‌রিয়ার সা‌বেক প্রে‌সি‌ডেন্ট কিম ইল সাংয়ের স্মরণ সভায় তিনি এ মন্তব্য ক‌রেন। বাংলা‌দেশ কোরিয়া ফ্রেন্ড‌শিপ অ্যান্ড সো‌লিডা‌রি‌টি ক‌মি‌টি এ স্মরণ সভার আ‌য়োজ‌ন করে।

‌মেনন ব‌লেন, ‘উত্তর কোরিয়ার পক্ষ থে‌কে দিনাজপু‌রের মধ্যপারায় পাথর উত্তোল‌নের জন্য একটা প্র‌জেক্ট ক‌রা হ‌য়েছি‌ল। সে সময় তারা অনেক সমস্যা ও জ‌টিলতায় প‌ড়ে‌ছি‌ল। আমি এ কথাগু‌লো বিএন‌পি সরকা‌রের সা‌বেক অর্থমন্ত্রী সাইফুল ইসলামকে ব‌লে‌ছিলাম। তি‌নি হে‌সে বলে‌ছি‌লেন, ওটা একটা ফ‌কি‌রের দেশ। এ আবার আমা‌দের এখা‌নে কি ক‌রে। সেই উত্তর কোরিয়া আমা‌দের দে‌শের মা‌টির গভীর থে‌কে পাথর উত্তোলন ক‌রে‌ছে। তারা সে পাথর থে‌কে উচ্চ মা‌নের পাথর নি‌য়ে এসেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘সে পাথর‌কে ভালোভা‌বে প্র‌ক্রিয়াজাত কর‌লে আমরা বি‌দে‌শে রফতা‌নি কর‌তে পারতাম। কিন্তু আমরা‌তো সে দেশ নই, ক‌মিশন খাওয়ার দেশ। আমা‌দের না‌কি ওয়াটার বো‌টে ক‌রে বি‌দেশ থে‌কে পাথর আমদা‌নি কর‌তে হ‌বে। ইন্দোনে‌শিয়া থে‌কে, ভারত থে‌কে, না হয় অন্য কোনো দেশ থে‌কে পাথর আন‌তে হ‌বে। কারণ এই পাথর আনার মধ্যে তা‌দের ক‌মিশন থাক‌বে।’

ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ব‌লেন, ‘আমরা ব‌লে‌ছিলাম, আমা‌দের দে‌শের পাথর দি‌য়ে বাধ নির্মাণ, বন্যা নিয়ন্ত্রণসহ অনেনক কা‌জে ব্যবহার করা যা‌বে। আমা‌দের দে‌শের পাথর ইউরো‌পে রফতা‌নি ক‌রেও প্রচুর বৈ‌দে‌শিক মুদ্রা আন‌তে পারতাম। কিন্তু আমা‌দের দে‌শের পাথর স্তূপ হ‌য়ে প‌ড়ে থা‌কে। কেউ কে‌নে না। কিন‌তে গে‌লে তা‌দের ক‌মিশন চ‌লে যা‌বে।’

‌বাংলা‌দেশ কোরিয়া ফ্রেন্ড‌শিপ অ্যান্ড সো‌লিডা‌রি‌টি ক‌মি‌টির সভাপ‌তি হারুন অর র‌শিদের সভাপি‌‌ত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপ‌স্থিত ছি‌লেন- কো‌রিয়ার ডি‌পিআর রাষ্ট্রদূত পাক সং ইয়প, ঢাকা বিশ্ব‌বিদ্যালয় অধ্যপক মেসবাহ কামাল, অর্থনী‌তিবিদ ড. অশোক গুপ্ত প্রমুখ।

আপনার মতামত লিখুন :

এ সম্পর্কিত আরও খবর