বেরিয়ে যাওয়া-আসা থাকবেই: মির্জা ফখরুল

Kamrul Hasan
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর

ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর

  • Font increase
  • Font Decrease

জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীর বেরিয়ে যাওয়ার প্রতি ইঙ্গিত করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, মানুষকে হতাশ হতে দেবেন না, মানুষকে হতাশার কথা বলবেন না। এই দুই একটা লোক বেরিয়ে যাচ্ছে, আসছে, যাচ্ছে। বরাবরই হচ্ছে, এটা হবেই।

তিনি বলেন, সবাই একই রকম হয় না। বিভিন্ন রকম চিন্তাবোধ থাকে। কিন্তু আমরা যদি সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে দেশকে ভালোবাসি, দেশকে এগিয়ে নিতে নিয়ে যেতে চাই, মানুষের মুক্তি দেখতে চাই, তাহলে অবশ্যই ঐক্যবদ্ধ হয়ে এদেরকে পরাজিত করতে হবে।

বুধবার (১০ জুলাই) সন্ধ্যায় জাতীয় প্রেসক্লাবে মশিউর রহমান যাদু মিয়ার ৯৫তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত মুক্ত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। সভার আয়োজন করে ‘মশিউর রহমান যাদু মিয়া স্মৃতি জাতীয় কমিটি’।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মির্জা ফখরুল বলেন, 'ফ্যাসিবাদ, সমস্ত রাষ্ট্রযন্ত্রের বিরুদ্ধে লড়াই করা সহজ কথা নয়। আমরা চেষ্টা করেছি নির্বাচনের পূর্বে ২০ দলীয় জোট, ঐক্যফ্রন্ট গঠন করে দেশের সব মানুষকে সঙ্গে নিয়ে এই দানব সরকারকে পরাজিত করতে, কিন্তু আমরা পারিনি। তার মানে তো এই না যে, আমরা শেষ হয়ে গেছি, মুখ থুবড়ে পড়ে গেছি। সমস্ত মানুষদের আশা আকাঙ্ক্ষা ধ্বংস হয়ে গেছে? কখনই না। আমরা যদি আজকে একত্রিত আর ঐক্যবদ্ধ হতে পারি, তাহলে এই মানুষগুলোকে নিয়েই আমরা সামনের দিকে এগোতে পারব।'

বিএনপি নেতা বলেন, 'আমরা কোনো সিদ্ধান্তই নেইনি খালেদা জিয়ার সঙ্গে পরামর্শ না করে। প্রতিটি সিদ্ধন্ত নিয়েছি তার পরামর্শ নিয়ে। আমরা ঐক্যফ্রন্ট গঠন করেছি, নির্বাচনে গিয়েছি তার পরামর্শ নিয়ে। বাংলাদেশের যদি কোনো নেতা থাকেন তিনি হলেন বেগম খালেদা জিয়া। এখানে কেউ দ্বিমত পোষণ করবেন না, আমার মনে হয়।'

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার কারাবাস প্রসঙ্গে তিনি বলেন, 'তাকে আটকে রেখেছে কেন? ঠিক সেই সময়টাতে আটকিয়েছে যখন নির্বাচন এসে গেছে। কারণ, তিনি তখন বাইরে থাকলে স্রোতের মতো তারা (আওয়ামী লীগ) ভেসে যেতো। তাকে এখনও আটকে রেখেছে এজন্য যে, তিনি যদি এখন মুক্ত হন তাহলে তাদের অস্তিত্ব বিপন্ন হয়ে যাবে। যেখানে জামিন পাওয়াটা তার আইনগত প্রাপ্যতা, সেই জামিনটা তারা দিচ্ছে না। কারণ, তারা জানে তিনি জামিন পেলে তাদের অবৈধভাবে ক্ষমতায় টিকে থাকা সম্ভব হবে না।'

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি শামসুল হকের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও শিক্ষাবিদ মাহবুবউল্লাহ, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, মশিউর রহমান যাদু মিয়ার মেয়ে রিটা রহমান প্রমুখ।

আপনার মতামত লিখুন :