এরশাদকে শেষ বিদায়ে জনতার ঢল

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর

ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর

  • Font increase
  • Font Decrease

হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মরদেহ রাজধানীর কাকরাইলে জাতীয় পার্টির (জাপা) কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে নেওয়া হয় সোমবার (১৫ জুলাই) দুপুর ১২টায়। তারপর থেকে প্রায় তিন ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও শেষ হতে চাইছে না মানুষের লাইন। সাবেক এই রাষ্ট্রপতিকে একবার হলেও শেষদেখা দেখছেন তারা।

৬৬ পাইওনিয়ার রোডের সেই লাইন রাজস্ব ভবনের গেটে গিয়ে ঠেকেছে। পার্টি অফিসের মূল ফটকের সামনে লাশবাহী শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত গাড়িটি রাখা হয়েছে। মরদেহের মাথার কাছে গাড়ির দরজা খুলে দেওয়া হয়েছে। আর গ্লাসের ওপর দিয়ে শেষ দর্শন করছেন সর্বস্তরের মানুষ।

Ershad

পশ্চিম দিকে লম্বা লাইন ধরে এগিয়ে এসে কেউ ফুল দিয়ে, কেউবা চোখের জল রেখে চলে যাচ্ছেন। আবার কেউ কেউ হাউমাউ করে কেঁদে আর্তনাদ করছেন। এদের অনেকেই দলের কোনো নেতা বা কর্মী নন। অনেক আমলাকে দেখা গেছে নিরবে চোখ মুছে এক পলক দর্শন করতে।

Ershad

জাপার ঢাকা মহানগরী ছাড়াও বিভিন্ন জেলা থেকে আগত অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন। এছাড়া জাসদ, বাংলাদেশ পিপলস পার্টি, জনদলসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের পক্ষ থেকে এরশাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়। ইনস্টিটিউট অব ডিপ্লোমা, ডিপিডিসি শ্রমিক ইউনিয়নসহ বেশ কিছু পেশাজীবী সংগঠন ফুল দিয়ে শেষ বিদায় জানান সাবেক এই রাষ্ট্রপ্রধানকে।

আকাশ কখনও, মেঘলা কখনও গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি, সব উপেক্ষা করেই চলছে জনতার শ্রদ্ধা নিবেদন।

Ershad

এরশাদের মরদেহ বাদ আসর নেওয়া হবে বাইতুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে। সেখানে অনুষ্ঠিত হবে তার তৃতীয় দফা এবং ঢাকার শেষ জানাজা। রাতে রাখা হবে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের মরচুয়ারিতে।

মঙ্গলবার (১৬ জুন) সকালে এরশাদের মরদেহ নেওয়া হবে তার পৈতৃক বসতি রংপুরে। বাদ জোহর সেখানে জানাজা শেষে মরদেহ ঢাকায় এনে বাদ আসর সামরিক করবস্থানে তাকে দাফন করার কথা রয়েছে।

আরও পড়ুন: কাকরাইলে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এরশাদের মরদেহ

আপনার মতামত লিখুন :