মনোনয়ন বিক্রির প্রথম দিনে সাড়া দেননি জাপার প্রার্থীরা

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, ঢাকা
জাতীয় পার্টির পতাকা

জাতীয় পার্টির পতাকা

  • Font increase
  • Font Decrease

এরশাদের মৃত্যূতে শূন্য হওয়া রংপুর-৩ (সদর) আসনে জাতীয় পার্টির দলীয় মনোনয়ন বিক্রির প্রথম দিনে প্রার্থীরা সাড়া দেননি। একাধিক মনোনয়নপ্রত্যাশীকে পার্টির বনানী কার্যালয়ে দেখা গেলেও বিকেল পর্যন্ত কেউই দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেননি।

মনোনয়ন ফরম বিক্রির প্রথম দিনে ফরম বিক্রি না হওয়ার বিষয় বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে নিশ্চিত করেন জাতীয় পার্টির যুগ্ম দফতর সম্পাদক এম এ রাজ্জাক খান।

মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ না করলেও রোববার (২৫ আগস্ট) বিকেল পর্যন্ত ঘোরাঘুরি করতে দেখা গেছে প্রেসিডিয়াম সদস্য শিল্পপতি এস এম ফখর-উজ-জামান জাহাঙ্গীর, রংপুর মহানগর জাতীয় পার্টির সেক্রেটারি এস এম ইয়াসির ও রংপুর জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাককে। তারা সবাই পার্টির চেয়ারম্যান ও মহাসচিবের সঙ্গে একান্তে কথা বলেছেন। ধারণা করা হচ্ছে মনোনয়ন নিশ্চিত করার জন্য নিজের উপস্থিতি জানান দিচ্ছেন। কিন্তু কেউই মনোনয়ন ফরম নেননি রোববার।

উপ-নির্বাচনের তফসিল ঘোষিত না হলেও শনিবার (২৪ আগস্ট) হঠাৎ করেই, দলীয় মনোনয়ন ফরম বিক্রির ঘোষণা দেয় জাপা। একইসঙ্গে ৮ সদস্য বিশিষ্ট পার্লামেন্টারি বোর্ডও গঠন করা হয়েছে। যদিও এ বোর্ডে সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদও তার অনুসারিদের কারোরই ঠাঁই হয়নি বোর্ডে। এরশাদ জীবিত থাকাকালে যারা বোর্ড সদস্য ছিলেন তাদের অনেকের জায়গা হয়নি বোর্ডে।

ফরমের মূল্য ধরা হয়েছে ১৫ হাজার টাকা। ঠিক কয়দিন বিতরণ করা হবে তা চূড়ান্ত করে ঘোষণা করা হয়নি। জাপা মহাসচিব জানিয়েছেন, গঠনতন্ত্র অনুযায়ী গঠিত পার্লামেন্টারি বোর্ড চূড়ান্ত করবে প্রার্থী।

এ আসনে হাফ ডজন প্রার্থী রয়েছেন জাতীয় পার্টির মনোনয়নপ্রত্যাশী। এরশাদপুত্র সাদসহ পরিবারের ৪ সদস্য রয়েছেন মনোনয়ন দৌড়ে।

একজন তো মনোনয়ন না পেলে স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দিয়ে মাঠে নেমেছেন। পরিবার থেকে মনোনয়ন দৌড়ে থাকা প্রার্থীরা হলেন এরশাদ পুত্র রাহগীর আল মাহি সাদ এরশাদ, ভাতিজা (ছোট ভাইয়ের ছেলে) সাবেক এমপি আসিফ শাহরিয়ার, ভাতিজা (মামাতো ভাইয়ের ছেলে) মেজর (অব.) খালেদ আখতার, ভাগনি (মেরিনা রহমানের মেয়ে) মেহেজেবুন্নেছা রহমান টুম্পা।

পরিবারের বাইরে থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশীরা হলেন—প্রেসিডিয়াম সদস্য শিল্পপতি এস এম ফখর-উজ-জামান ও রংপুর মহানগর জাতীয় পার্টির সেক্রেটারী এসএম ইয়াসির।

আসনটিতে মনোনয়ন পেলেই বিজয়ী হবেন এমনটা ধরে নিয়ে লবিং-তদবির বাড়িয়ে দিয়েছেন প্রার্থীরা। অনেকেই পার্টির চেয়ারম্যান, মহাসচিবসহ সিনিয়র নেতাদের কাছে ধর্না দিচ্ছেন।

মনোনয়ন দৌড়ে সবচেয়ে প্রভাবশালী অবস্থানে রয়েছেন এরশাদপুত্র সাদ। তার জন্য লবিং করছেন তার মা সংসদের বিরোধী দলীয় উপনেতা রওশন এরশাদ। বিগত নির্বাচনে কুড়িগ্রাম থেকে ছেলেকে মনোনয়ন পাইয়ে দেওয়ার জন্য চেষ্টা করেছিলেন রওশন।

আপনার মতামত লিখুন :