Barta24

মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯, ১ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

কর্মসূচি দিতে উপযুক্ত সময় প্রয়োজন: মওদুদ

কর্মসূচি দিতে উপযুক্ত সময় প্রয়োজন: মওদুদ
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকা: আন্দোলনের কর্মসূচিতে দিতে উপযুক্ত সময়ের প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ।

তিনি বলেন, আমাদের সমালোচনা করে নেতাকর্মীরা। বলছেন কেন আমরা কর্মসূচি দিচ্ছি না। কর্মসূচি দিতে একটা সময়ের প্রয়োজন। এমন সময় একটা কর্মসূচির দিলাম দেখা গেল, তা ব্যর্থ হলো। এখনও সরকার সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করছে দেখতে পাচ্ছেন না? উপযুক্ত সময়ে উপযুক্ত কর্মসূচি দেয়া হবে সে কর্মসূচির জন্য প্রস্তুতি নিন। 

শনিবার (১৪ জুলাই) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে জিয়া আদর্শ একাডেমি আয়োজিত প্রতিবাদ সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

মওদুদ আহমদ বলেন, একটা ফ্যাসিবাদী সরকারকে নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলন করে উৎখাত করা সম্ভব নয়। সুতরাং একমাত্র পথ হলো জাতীয় ঐক্যমত সৃষ্টি করে মাঠে নামা। আপনারা মাঠে নামার জন্য প্রস্তুত হন। মাঠে নামতে হবে যদি আপনারা গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনতে চান। যদি আপনারা দেশে আইনের শাসন ফিরিয়ে আনতে চান সংবাদপত্রের স্বাধীনতা ফিরিয়ে আনতে চান তাহলে মাঠে নামতে হবে।

বিনা চ‍্যালেঞ্জে নির্বাচন হতে দেয়া হবে না জানিয়ে তিনি বলেন, এখন সময় এসেছে অপশাসনের প্রতিবাদ জানানোর। তা হচ্ছে আগামী সাধারণ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগেই। আর মাত্র আড়াই মাস সময় আছে। আমরা চেষ্টা করছি সরকারের বাইরে যারা আছে সবাইকে নিয়ে জাতীয় ঐক্য সৃষ্টির।

মওদুদ আহমদ বলেন, খালেদা জিয়ার মুক্তি, সংসদ ভেঙে দিতে হবে, সেনা মোতায়েন করতে হবে বিচারিক ক্ষমতা দিয়ে এবং নির্বাচন কমিশন পূনর্গঠন করতে হবে। ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে শুরু করে ভারতসহ সকল বন্ধু রাষ্ট্র গুলো মনে করে বাংলাদেশে একটা অংশগ্রহণ মূলক নির্বাচন হতে হবে। সেটা হতে হবে বিএনপির অংশগ্রহণে। বিএনপিকে ছাড়া এদেশে অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হতে পারে না।

জিয়া আদর্শ একাডেমির সভাপতি মোহাম্মদ আজম খানের সভাপতিত্বে এসময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ, গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক সেলিম ভূঁইয়া, সহ-তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক কাদের গণি চৌধুরী, সব মহানগর দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার প্রমুখ।

আপনার মতামত লিখুন :

গৌরীপুরে ছাত্রলীগের কমিটি বাতিলের দাবিতে একাংশের অবস্থান

গৌরীপুরে ছাত্রলীগের কমিটি বাতিলের দাবিতে একাংশের অবস্থান
গৌরিপুর ছাত্রলীগের সাবেক কমিটির অবস্থান, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলা ও পৌরশাখা ছাত্রলীগের নতুন দুটি কমিটি বাতিলের দাবিতে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে সদ্য সাবেক হওয়া কমিটির নেতাকর্মীরা।

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) বিকালে পৌর শহরের মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিফলক বিজয় একাত্তর প্রাঙ্গণে এই কর্মসূচি পালিত হয়। কর্মসূচিতে নেতৃত্ব দেন সদ্য সাবেক উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক এসএম জিল্লুর রহমান।

এর আগে দুপুরে উপজেলা ও পৌর ছাত্রলীগের কমিটি বাতিলের দাবিতে গৌরীপুর সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সিনিয়র সহসভাপতি ওয়াসিকুল ইসলাম রবিনের নেতৃত্বে ক্যাম্পাসে পৃথক বিক্ষোভ মিছিল করে ছাত্রলীগের একাংশ।

উপজেলা ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সভাপতি মিজানুর রহমান অভিযোগ করে বলেন, 'গঠনতন্ত্র অমান্য করে বয়স্ক, বিবাহিত, ইউনিয়নের বাসিন্দাকে পৌর কমিটিতে অন্তর্ভুক্তি ও হত্যা মামলার আসামি দিয়ে ছাত্রলীগের উপজেলা ও পৌর শাখার দুটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। গত এক সপ্তাহ ধরে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের কাছে কমিটি বাতিলের দাবি জানিয়েছি। অচিরেই কমিটি বাতিল না হলে কঠোর কর্মসূচি দিতে বাধ্য হব আমরা।'

উপজেলা ছাত্রলীগের নতুন সভাপতি আল মুক্তাদির বলেন, 'নতুন কমিটি ঘোষণার পর দলের ৯০ ভাগ নেতাকর্মী আমাদের সাধুবাদ ও অভিনন্দন জানিয়েছেন। অথচ সাবেক কমিটির একটি পক্ষ ভিত্তিহীন অভিযোগ তুলে কমিটি নিয়ে বিশৃঙ্খলার চেষ্টা চালাচ্ছে।'

প্রসঙ্গত, গত ৯ জুলাই গৌরীপুর উপজেলা শাখা ছাত্রলীগের নতুন কমিটিতে সভাপতি পদে আল মুক্তাদির ও সাধারণ সম্পাদক পদে ইমতিয়াজ সুলতান জনি, পৌরশাখা ছাত্রলীগের নতুন কমিটিতে সভাপতি পদে আল হোসাইন ও সাধারণ সম্পাদক পদে মোফাজ্জল হোসেন মনোনীত করে কমিটি ঘোষণা করে জেলা ছাত্রলীগ।

আ’লীগ অতীতের চেয়ে বেশি ঐক্যবদ্ধ: হানিফ

আ’লীগ অতীতের চেয়ে বেশি ঐক্যবদ্ধ: হানিফ
আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

আওয়ামী লীগ অতীতের চেয়ে বেশি ঐক্যবদ্ধ বলে দাবি করেছেন দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ।

তিনি বলেছেন, ‘ওয়ান ইলেভেনের সময় আওয়ামী লীগের মধ্যে বিভক্তি ছিল। এখন দলের মধ্যে সে ধরনের কোনো সমস্যা নেই। আওয়ামী লীগ অতীতের চেয়ে যেমন বেশি ঐক্যবদ্ধ, তেমনি দলের তৃনমূলও শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে।’

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার কারান্তরীণ দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ এ আলোচনা সভার আয়োজন করে।

হানিফ ব‌লেন, ‘ষড়যন্ত্রকে মোকাবিলা করে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। দেশকে এগিয়ে নিতে হবে। তাই বিএনপি জামাত থেকে আমাদেরকে সতর্ক থাকতে হবে। তারা যতই ষড়যন্ত্র করুক না কেন, তা মোকাবিলা করার শক্তি আমাদের আছে।’

বিএনপির জন্যই দেশে ওয়ান ইলেভেন সৃষ্টি হয়েছিল দাবি করে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘কারণ তারা কোনোভাবে একবার ক্ষমতায় গেলে আর ছাড়তে চায় না।’

তিনি আরও বলেন, ‘বিএনপি ১৯৯১ সালে ক্ষমতায় এসে জোর করে ১৯৯৬ সালে ১৫ ফেব্রুয়ারি ভোটারবিহীন নির্বাচন করেছিল। কিন্তু গণ আন্দোলনের মুখে তাদের ক্ষমতা ছাড়তে হয়েছিল।

নিজেদের অপকর্মের জন্য বিএনপি থেকে জনগণ মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে উল্লেখ হানিফ ব‌লেন, ‘২০০৪ সালের নির্বাচনে জনগণ আপনাদের আস্তাকুড়ে নিক্ষেপ করেছিল। কারণ ক্ষমতায় থেকেও জনগণের কিছু করেন নাই যুদ্ধাপরাধীদের বিচার যাতে না হয় অনেক ষড়যন্ত্র করেছেন। বিচার বানচালের চেষ্টা করেছেন।’

কুমিল্লার আদালতে বিচারকের সামনে ছুরিকাঘাত করে হত্যার বিষয়ে বিএনপির নেতাদের বক্তব্যের জবাবে হানিফ বলেন, ‘এটা একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা। বিএনপির এ ধরনের মন্তব্য দেওয়ার আগে আয়নায় নিজেদের মুখ দেখা উচিত। কারণ, গাজীপুরের আদালতে বিএনপি নেতৃত্বাধীন সরকারের সময় বোমা হামলা করে এজলাসে বিচারক ও আইনজীবীদের হত্যার কথা দেশের মানুষ ভুলে যায়নি। সিলেটে ব্রিটিশ হাই কমিশনার আনোয়ার চৌধুরীর ওপর হামলার ঘটনার কথাও দেশের মানুষ জানে।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হাসনাতের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন ও কেন্দ্রীয় কার্য নির্বাহী সংসদের সদস্য অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম।

সভায় প্রধান বক্তা হিসেবে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং শিক্ষা উপ-মন্ত্রী মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল এমপি এবং বিশেষ বক্তা হিসেবে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ বক্তব্য দেন।

উল্লেখ্য, ২০০৭ সালের ১৬ জুলাই সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাকে সুধাসদন থেকে গ্রেফতার করেছিল। দিবসটিকে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা দলীয় সভাপতির কারান্তরীণ দিবস হিসেবে পালন করে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র