মন্ত্রীদের নির্দেশে গণপরিবহন বন্ধ: রিজভী

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকা: কোমলমতি শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের যৌক্তিক দাবিগুলোকে অগ্রাহ্য করতেই মন্ত্রীর নির্দেশে গণপরিবহন বন্ধ রাখা হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেন, শিক্ষার্থীরা গাড়ি চলতে বাধার সৃষ্টি করেনি বরং তারা সুশৃংখলভাবে গাড়ি চলতে সহায়তা করেছে। অথচ ওবায়দুল কাদের বলেছেন, 'নিরাপত্তার জন্য পরিবহন মালিকরা বাস রাস্তায় নামাচ্ছে না।'

শুক্রবার (৩ আগস্ট) সকালে নয়াপল্টন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন রিজভী।

তিনি বলেন, শিক্ষার্থীরা গাড়ি ও গাড়ি চালকদের লাইসেন্স আছে কিনা সেটি চেক করেছে। কিন্তু আমরা দেখতে পেলাম, মন্ত্রীর গাড়ির চালকের লাইসেন্স নেই, এমপির গাড়ির কাগজপত্র নেই, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের গাড়ির কাগজপত্র নেই, গাড়ির চালকেরও লাইসেন্স নেই, এসব খবর আবার দেশি-বিদেশি গণমাধ্যমে ফলাও করে প্রচার হয়েছে। এটা জাতির জন্য কত বড় লজ্জার! তাতে অবৈধ সরকারের টনক নড়েনি।

অবিলম্বে সরকারের পদত্যাগ দাবি করে তিনি বলেন, সরকার শুধু পরিবহন সেক্টরেই ব্যর্থ নয়, দেশের সকল সেক্টরে এই অবৈধ ভোটারবিহীন সরকার ব্যর্থ। বিএনপির পক্ষ থেকে সরকারের যে পদত্যাগ দাবি করা হয়েছে তা গণদাবিতে পরিণত হয়েছে।

অবিলম্বে দেশ পরিচালনায় লাইসেন্সবিহীন সরকারের পদত্যাগ ও জবাবদিহি মূলক সরকার প্রতিষ্ঠা করতে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান তিনি।

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে নাশকতার আশঙ্কায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দেয়া বক্তব্যের তীব্র সমালোচনা করে রিজভী বলেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যের পরপরই শুরু হয়ে গেল শিক্ষার্থীদের উপর পুলিশ-ছাত্রলীগের যুবলীগের আক্রমণ। আওয়ামী সন্ত্রাসীদের ন্যক্কারজনক হামলার তীব্র নিন্দা এবং অবিলম্বে দোষীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জোর দাবি জানাচ্ছি।

বুধবার (১ আগস্ট) স্বরাষ্টমন্ত্রী বলেছেন যে, শিক্ষার্থীদের সব দাবি মেনে নিয়েছে সরকার। তারপরও শিক্ষার্থীরা মাঠে কেন? কারণ, কোমলমতি শিক্ষার্থীরাও এই সরকারকে বিশ্বাস করে না।' যোগ করেন তিনি।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান এজেডএম জাহিদ, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবুল কালাম আজাদ প্রমুখ।

 

আপনার মতামত লিখুন :