বিশৃঙ্খলার উস্কানিদাতা আমির খসরু-মিলন-মান্নাকে গ্রেপ্তারের দাবি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির ‘উস্কানিদাতা’ বিএনপি নেতা আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরীসহ কয়েকজনকে গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ।

সোমবার (৬ আগস্ট) দুপুর ১২টার দিকে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে স্বাধীনতা পরিষদ আয়োজিত এক প্রতিবাদ সমাবেশে তিনি এ দাবি জানান।

তিনি বলেন, আন্দোলনের হ্যাঙলা পাতলা মহিলা সিগারেট হাতে কোমলমতি শিক্ষার্থী; ২৫-৩০ বছরের যুবক দাঁড়িওয়ালা উনিও কোমলমতি শিক্ষার্থী।তো আমরা কোমলমতি শিক্ষার্থীদের মধ্যে দেখতে পেলাম ৪৬ বছরে মহিলাও এখন শিক্ষার্থী সেজেগেছে স্কুলে ড্রেস পড়ে। ২৫-৩০ বছরের শিবিরে ক্যাডারাও কোমলমতি শিক্ষার্থী।

তিনি বলেন, ‘এমন দেখতে পেলাম বিএনপি নেতা আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, তারপর নাগরিক আন্দোলনের মাহমুদুর রহমান মান্না, বিএনপি নেতা ফজলুল হক মিলনের ফোনালাপ সামাজিক মাধ্যমে ইতোমধ্যে বেরিয়েছে। উস্কানি দিচ্ছে।

শিক্ষার্থীরা আওয়ামী লীগের অফিসে হামলা করে নাই জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এদের(শিক্ষার্থী) মধ্যে অনুপ্রবেশ ঘটিয়ে দেশে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করার অপচেষ্টা চালানো হচ্ছে। অর্থ্যাৎ ধানমন্ডির আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার রাজনীতিক অফিসে হামলা করা হয়েছে। এই হামলা শিক্ষার্থীরা পরিচালনা করে নাই।

উস্কানিদাতাদের খবর সংবাদপত্রে না আসাকে দুঃখজনক বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘কয়েকটি কাগজ এইগুলো ছাপা হয় নাই। দেখলাম মহিলা এমনভাবে হাঁপিয়ে হাঁপিয়ে, ফেসবুক লাইভে এসেছিলেন। উনি এখনেই ধাওয়া খেয়ে লাইভে এসেছে; তাকে যখন গ্রেপ্তার করা হল; তখন উনি বললেন- উনি ‘শুনে’ এরকম করেছেন। তবে কেন শুনে হাঁপালেন। এরপর আবার বের হয়ে আসল- ‘উনি পঞ্চাশ হাজার টাকার বিনিময়ের’ এই কাজ করেছেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘এরকম আরও অনেকে দেখেছি সরকার তাদেরকে চিহ্নিত করেছে। তাদের অনেক গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আমির খসরু মাহমুদেকে যে ফোন করেছিল তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আমি সরকারের কাছে প্রশ্ন রাখি- এখনও আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী,বিএনপি নেতা ফজলুল হক মিলন ও মাহমুদুর রহমান মান্নাকে কেন গ্রেপ্তার করা হয়নি।যারা উস্কানি দিয়েছে; তাদের গ্রেপ্তারের জোর দাবি জানাচ্ছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘গতকাল দেখলাম শিক্ষার্থীরা প্রধানমন্ত্রী আহ্বান ঘরে ফিরে যাচ্ছে; তখন এই আন্দোলনকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে চেয়েছিল তারা ভেবেছিলেন তাদের খেলা শেষ হয়ে যাচ্ছে। শিক্ষার্থীরা যখন ঘরে ফিরে গেল; তখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী, ঢাকাসহ সারাদেশের ক্যাডারদের এনে; যুবকদের গায়ে শিক্ষার্থীর ড্রেস পরিয়ে সমাবেশ করলেন।

আপনার মতামত লিখুন :