মেয়াদ নেই যে সকল খাদ্যের

মেয়াদহীন খাদ্য উপাদান মধু। ছবি: সংগৃহীত

ফাওজিয়া ফারহাত অনীকা, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইফস্টাইল

প্রতিটি খাদ্য উপাদানেরই নির্দিষ্ট মেয়াদকাল রয়েছে।

সেই মেয়াদ পার হয়ে গেলে খাদ্যদ্রব্যটি খাওয়ার অযোগ্য হয়ে যায়। এমনটা আমরা সবাই জানি। কিন্তু যা জানি না তা হলো- হাতে গোনা কিছু খাদ্য উপাদান আছে, যার কোন মেয়াদকাল নেই। সাথে নেই মেয়াদোত্তীর্ণ হবার সম্ভবনা।

আজকের ফিচার থেকে জেনে নিন তেমনই কয়েকটি খাদ্য উপাদানের নাম।

খাঁটি মধু

মধুর চমৎকার ও বিস্ময়কর উপকারিতার জন্য অনেকসময় একে ‘ঈশ্বর প্রদত্ত ওষুধ’ বলে থাকেন। কারণ মধু প্রায় সকল ধরণের শারীরিক সমস্যা নিরাময় করতে সক্ষম এবং মধুতে কোন ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ ঘটে না। জেনে অবাক হবেন, চীনের কিছু প্রত্নতত্ত্ববীদ মিশরের প্রাগৈতিহাসিক সমাধি থেকে প্রায় ৩০০০ বছরের পুরনো মধু উদ্ধার করতে পেরেছে। যা কিনা খাওয়ার উপযোগী ছিল।

ভিনেগার

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Sep/26/1537957046668.jpg

ঘরে থাকা অ্যাপল সাইডার ভিনেগার অনেকদিন যাবত থাকার ফলে দুশ্চিন্তা করার কিছু নেই। প্রাকৃতিকভাবেই এভিসির মেয়াদ কখনোই উত্তীর্ণ হবে না। শুধু এসিভি নয়, হোয়াইট ভিনেগারের ক্ষেত্রেও একই বিষয় প্রযোজ্য। মূলত ভিনেগারের অ্যাসিডিক ধর্ম একে নষ্ট হওয়ার হাত থেকে প্রতিরোধ করে।

লবণ

বিশুদ্ধ সোডিয়াম ক্লোরাইড লক্ষ কোটি বছর ধরে পৃথিবীতে একদম ঠিকঠাকভাবে আছে। এ থেকে সহজেই বোঝা যায় যে, লবণের মেয়াদ নিয়ে দুশ্চিন্তার কিছুই নেই। আর এটা নিশ্চয় অজানা নয়, কোন খাবার সংরক্ষণ ও ব্যাকটেরিয়ার হাত থেকে নিরাপদে রাখার জন্য ব্যবহার করা হয় লবণ।

চিনি

লবণের মতো চিনিরও কোন মেয়াদ নেই। বাক্সবন্দী করে রেখে দিয়ে নিশ্চিন্তে থাকতে পারবেন চিনির বিষয়ে। সমস্যার কথা বলতে পিঁপড়ার আক্রমণ ও বর্ষাকালে স্যাঁতস্যাঁতে হয়ে যাওয়ার ভয় থাকে। সাদা চিনি, বাদামী চিনি, পাউডার চিনি বা চিনির বিকল্প মিষ্টি- সকলই একই গোত্রের।

আরও পড়ুন: খাবার অপচয় বন্ধের যন্ত্র আবিষ্কার ১১ বছর বয়সী মার্কিন শিক্ষার্থীর

কর্ণস্টার্চ

সংরক্ষণের ধরণের উপর নির্ভর করে, কর্ণস্টার্চকে সহজেই মেয়াদবিহীন খাদ্যদ্রব্যের তালিকার ভেতর ফেলে দেওয়া যায়। যতক্ষণ পর্যন্ত কর্ণস্টার্চ শুকনো থাকবে, এটা ব্যবহারের উপযোগী ও ভালো থাকবে।

চাল

যে ধরণের চালই হোক না কেন, ভালোমতো সংরক্ষণ করলে দীর্ঘদিন পর্যন্ত ভালো থাকবে চাল। লাল চাল, সাদা চাল, চিকন চাল কিংবা মোটা চাল- সকল ধরণের চালকে বায়ুনিরোধক পাত্রে রেখে দিতে পারবেন স্বাচ্ছন্দ্যে।

লাইফস্টাইল এর আরও খবর