হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহারে যে বিষয়গুলো জানা জরুরি

ফাওজিয়া ফারহাত অনীকা, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইফস্টাইল
হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহারে থাকতে হবে সতর্ক, ছবি: সংগৃহীত

হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহারে থাকতে হবে সতর্ক, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

নিত্যদিনে স্বাচ্ছন্দ্য ও স্বস্তি আনতে প্রতিদিন যুক্ত হচ্ছে নানা ধরণের নতুন প্রযুক্তি ও পণ্য।

হেয়ার ড্রায়ার সেক্ষেত্রে খুব একটা নতুন কোন প্রযুক্তি না হলেও, এর ব্যবহারের মাঝে এখনও খুঁজে যাওয়া স্বস্তি। বিশেষ করে যাদের সময়ের ভীষণ স্বল্পতা তাদের জন্য হেয়ার ড্রায়ার দারুণ একটি অনুষঙ্গ।

গোসলের পর ঝটপট চুল শুকিয়ে নিতে চাইলে হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহারের বিকল্প নেই। কিন্তু উপকারী এই অনুষঙ্গটি ব্যবহারের অসাবধানতায় দেখা দিতে পারে বড় ধরণের দুর্ঘটনা। ঘটতে পারে জীবনহানি।

সামান্য এই হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহারে অসতর্কতাই কাল হলো রাশিয়ান ক্যাসিনো স্টার লিলিয়ান নোভিকোভার জীবনে। দুর্ঘটনাবশত হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহারের সময় বিদ্যুৎ তাড়িত হয়ে ১১ জুন মারা যান ২৬ বছর বয়সী এই তরুণী।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/17/1560769955759.jpg

খুব সামান্য ভুলের জন্যেই হয়তো মাশুল দিতে হবে অনেক বড়। তাই আগে থেকেই সাবধান হয়ে যাওয়া, নিয়ম মেনে চলা প্রয়োজন। আজকের ফিচারে আলোচনা করা হলো হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহারের ক্ষেত্রে কোন বিষয়গুলোর প্রতি খেয়াল রাখতে হবে এবং কোন নিয়মগুলো মেনে চলতে হবে।

১. হেয়ার ড্রায়ার কিনতে হবে দেখেশুনে। যেনতেন ব্র্যান্ডের কিংবা স্বল্প দামী চায়নিজ হেয়ার ড্রায়ার কেনা থেকে বিরত থাকতে হবে। এ ধরণের হেয়ার ড্রায়ার সহজেই নষ্ট হয়ে যায় এবং এগুলো থেকে বিদ্যুৎ তাড়িত হওয়ার সম্ভবনা বেশি থাকে।

ব্র্যান্ডের হেয়ার ড্রায়ারের মাঝে প্যানাসনিক, ফিলিপস, কেমেই, শাওমি, নোভা ও প্রফেশনালকে অগ্রাধিকার দিতে হবে। হেয়ার ড্রায়ার কেনার সময় ১০০০ টাকার উপরে ওয়ারেন্টি দেখে এরপর কিনতে হবে।

২. ইলেকট্রনিক পণ্যের মেয়াদ খুব লম্বা সময় থাকে না এবং নির্দিষ্ট একটি সময় পরে এই সকল পণ্যে সমস্যা দেখা দেয়। যে কারণে টিভি, ফ্রিজ কিংবা এসির মতো হেয়ার ড্রায়ারও নির্দিষ্ট সময় পর সার্ভিসিং করানো প্রয়োজন। সার্ভিসিং করানো হলে এই জিনিসটি নির্ভয়ে ব্যবহার করা যাবে।

৩. প্রতিবার হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহারের আগে এর সকেটের অংশটি এবং কানেকশনের অংশটি পরীক্ষা করে দেখতে হবে, এই সকল অংশে পোড়া দাগ রয়েছে কিনা। একইসাথে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার পরে খেয়াল করতে হবে, হেয়ার ড্রায়ার থেকে এবং সকেটের অংশ থেকে কোন ধরণের শব্দ শোনা যাচ্ছে কিনা। যদি পোড়া দাগ দেখা যায় এবং শব্দ শোনা যায় তবে দ্রুত সার্ভিসিংয়ে দিতে হবে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/17/1560769977387.jpg

৪. পানিযুক্ত স্থানের পাশেপাশে হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহার করা যাবে না। এতে করে বিদ্যুৎ তাড়িত হওয়ার সম্ভবনা বেড়ে যায় অনেকখানি। শুষ্ক স্থানে হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহার করতে হবে।

৫. চুল অতিরিক্ত ভেজা থাকলে এবং হাতে পানি থাকলে হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহার করা যাবে না। এতে করে খুব সহজেই বিদ্যুৎ তাড়িত হওয়ার সম্ভবনা থাকে এবং বিপদের সম্ভবনা থাকে।

৬. হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহারের পর বিছানা কিংবা সোফার উপরে রাখা যাবে না। ব্যবহারের পর হেয়ার ড্রায়ারের তাপমাত্রা স্বাভাবিকভাবে বেড়ে যায় অনেকখানি। উত্তপ্ত হেয়ার ড্রায়ার এই সকল নরম স্থানে রাখা হলে, গরম ভাপ বের হতে পারে না। এতে করে হেয়ার ড্রায়ারে যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দেওয়ার পাশাপাশি বিছানা কিংবা সোফায় আগুন ধরে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

৭. ব্যবহার শেষে অবশ্যই মনে করে হেয়ার ড্রায়ারের সুইচ অফ করে আন প্লাগড করতে হবে। সামান্য এই ভুল থেকে বড় ধরণের দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে।

আরও পড়ুন: বিত্তবান হতে গড়ে তুলতে হবে ‘তিন অভ্যাস’

আরও পড়ুন: যে অভ্যাসগুলো কমাবে বয়স বৃদ্ধির হার

আপনার মতামত লিখুন :