Barta24

শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯, ৫ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

আবারও সংসদ উপনেতা হলেন সাজেদা চৌধুরী

আবারও সংসদ উপনেতা হলেন সাজেদা চৌধুরী
সাজেদা চৌধুরী
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

টানা তৃতীয়বারের মতো জাতীয় সংসদের উপনেতা নির্বাচিত হয়েছেন সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী।  সংসদ নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রস্তাব অনুসারে সোমবার ( ১১ ফেব্রুয়ারি) রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এ সংক্রান্ত  একটি ফাইলে স্বাক্ষর করেন। বর্তমানে রাষ্ট্রপতি সিঙ্গাপুরে অবস্থান করায় তিনি ই ফাইলিংয়ের মাধ্যমে সংসদ উপনেতাকে নিয়োগ দেন। পরে সংসদ সচিবালয় থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।  সোমবার সন্ধ্যায় জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খান স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপন গণমাধ্যমকে দেওয়া হয়।

ফরিদপুর-২ থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীকে জাতীয় সংসদের ডেপুটি লিডার (সংসদ উপনেতা) করার জন্য অনুরোধ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। টানা তৃতীয়বার সংসদ উপনেতা হলেন সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী ।

ভাষাসৈনিক,মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক,জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহযোগী,বিশিষ্ট রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী একাদশ জাতীয় সংসদে আবারও সংসদ উপনেতা নির্বাচিত হয়েছেন।

সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, আওয়ামী লীগের দুঃসময়ের কান্ডারি। স্বাধীন বাংলাদেশ গড়ায় তাঁর রয়েছে বিশেষ অবদান। দুঃসময়ে তিনি ভরাট কণ্ঠের স্লোগানে আওয়ামী লীগকে পুনরুজ্জীবিত করেছিলেন, তিনি অনেক চড়াই-উৎরাই এর মধ্যেও নৌকার বৈঠা ধরে আছেন। তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নীতি ও আদর্শে অবিচল।

আওয়ামী লীগ সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সাজেদা চৌধুরী ২০০৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে জাতীয় সংসদের উপনেতা নির্বাচিত হন। এর মাধ্যমে দেশে প্রথমবারের মত কোনো নারী সংসদ উপনেতা হন। তিনি পরিবেশ ও বনমন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনিই দেশের ইতিহাসে দীর্ঘ সময় ধরে জাতীয় সংসদের উপনেতার আসন অলংকৃত করছেন।

বর্ষীয়ান এই রাজনীতিবিদ ফরিদপুর-২; (নগরকান্দা, সালথা ও সদরপুর আংশিক) থেকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে বিপুল ভোটে বিজয়ী হন। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও তিনি এ অঞ্চল থেকে নির্বাচিত হন।

সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী ১৯৩৫ সালের ৮ মে মাগুরা জেলায় মামা বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন । তাঁর বাবার নাম সৈয়দ শাহ হামিদ উল্লাহ এবং মা সৈয়দা আছিয়া খাতুন। শিক্ষাজীবনে তিনি স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। তাঁর স্বামী রাজনীতিবিদ এবং সমাজকর্মী গোলাম আকবর চৌধুরী। ২০১৫ সালের ২৩ নভেম্বর আকবর চৌধুরী মৃত্যুবরণ করেন।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে পরিচয়ের মাধ্যমে ১৯৫৬ সাল থেকে এক সাধারণ তরুণী সাজেদা চৌধুরী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হন। নিজ মেধা ও যোগ্যতা বলে ১৯৬৯ থেকে ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত তিনি বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭৫ সালে জাতির পিতার হত্যাকাণ্ডের পর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১১ বছর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন তিনি।

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে কলকাতা গোবরা নার্সিং ক্যাম্পের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ছিলেন সাজেদা চৌধুরী। মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয় অংশগ্রহণের মাধ্যমে দেশের স্বাধীনতাকে ত্বরান্বিত করেছিলেন এই প্রবীন রাজনীতিবিদ। ১৯৭২-১৯৭৫ সময়কালে বাংলাদেশ নারী পুনর্বাসন বোর্ডের পরিচালক ছিলেন তিনি। ১৯৭২-১৯৭৬ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ গার্ল গাইডের ন্যাশনাল কমিশনারের দায়িত্ব পালন করেন।

৭৫ এর ১৫ আগস্টের পর তিনি এবং সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দিন মিলে আওয়ামী লীগকে নতুন করে গড়ে তোলেন। দলের নানা মত পার্থক্যের মধ্যেও কন্যাতুল্য শেখ হাসিনার প্রতি নিঃশর্ত আনুগত্য রেখেছেন। জাতির পিতাকে নির্মমভাবে হত্যার পর নেত্রী শেখ হাসিনার দেশে ফিরে আসার ব্যাপারেও তিনি বিশেষ অবদান রেখেছেন।

১৯৮১ সালে শেখ হাসিনাকে আওয়ামী লীগের সভাপতি করার ক্ষেত্রে তাঁর ভূমিকা ছিল গুরুত্বপূর্ণ। এ সময় অনেক সিনিয়র নেতা ‘বয়সে ছোট’ এই বিবেচনায় আওয়ামী লীগের সভাপতিকে সম্মান দেখাতে কার্পণ্য করতো। এ সময় সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী ‘নেত্রী’ ডাকা শুরু করেন। নেত্রী তাঁকে ফুফু ডাকলেও প্রকাশ্যে নেত্রীকে নেতার মর্যাদা দেওয়ার চর্চা শুরু করেন তিনিই।

তিনি ১৯৮৬ থেকে ১৯৯২ সাল পর্যন্ত তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ১৯৯২ সাল থেকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক প্রদত্ত পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তি বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়কের দায়িত্বও তিনি পালন করেন।

সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী ১৯৭৪ সালে গ্রামীণ উন্নয়ন ও শিক্ষায় বিশেষ অবদানের জন্য ইউনেস্কো ফেলোশিপপ্রাপ্ত হন। একই সময় তিনি বাংলাদেশ গার্ল-গাইড এসোসিয়েশনের জাতীয় কমিশনার হিসেবে সর্বোচ্চ সম্মানসূচক সনদ সিলভার এলিফ্যান্ট পদক লাভ করেন। তিনি ২০০০ সালে আমেরিকান বায়োগ্রাফিক্যাল ইনস্টিটিউট কর্তৃক ওমেন অব দ্য ইয়ার নির্বাচিত হন। ২০১০ সালে বাংলাদেশ সরকার তাঁকে স্বাধীনতা পুরস্কারে ভূষিত করে।

আপনার মতামত লিখুন :

এসডিজি অর্জনে বাংলাদেশের অগ্রগতি আশাব্যঞ্জক

এসডিজি অর্জনে বাংলাদেশের অগ্রগতি আশাব্যঞ্জক
স্পিকার ড. শিরীন শারমিন, ছবি: সংগৃহীত

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, 'টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনে বাংলাদেশের অগ্রগতি আশাব্যঞ্জক। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সকল উন্নয়ন সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান আজ বেশ সুদৃঢ়।'

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) যুক্তরাষ্ট্রে জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন আয়োজিত এসডিজি’র লক্ষ্য পূরণে বাংলাদেশের বর্তমান অর্জন ও ভবিষ্যৎ করণীয় সম্পর্কিত অবহিতকরণ আলোচনা অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

বুধবার (১৭ জুলাই) সংসদ সচিবালয় থেকে পাঠানো প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় এসডিজি বাংলাদেশের অর্জন বিষয়ে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন এবং পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

স্পিকার বলেন, 'এসডিজি অর্জনে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ কার্যকর ভূমিকা রাখছে। এসডিজির সঙ্গে সংসদ সদস্যগণকে অধিক সম্পৃক্ত করতে ইতোমধ্যে বিভিন্ন কর্মশালা আয়োজন করেছে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ, যা ভবিষ্যতে অব্যাহত থাকবে।'

এসডিজি অর্জনে জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে উল্লেখ করে তিনি স্থায়ী মিশন গৃহীত পদক্ষেপসমূহে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

'২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস' সম্পর্কিত অপর এক আলোচনায় স্পিকার বলেন, 'ইতোমধ্যে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদে ২৫ মার্চকে গণহত্যা দিবস হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবসকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে স্বীকৃতি আদায়ের জন্য কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করতে জাতিসংঘ বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।'

জাতীয় সংসদের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খান, পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য (সিনিয়র সচিব) ড. শামসুল আলম জাতিসংঘ বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের অবহেলায় এজলাসে খুন

দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের অবহেলায় এজলাসে খুন
সংসদ ভবন, ছবি: সংগৃহীত

 

দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের অবহেলার কারণেই এজলাসে খুনের ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। কোন বিভাগ বা কারা এর জন্য দায়ী, তাদের দ্রুত খুঁজে বের করে তদন্ত প্রতিবেদনও দিতে বলেছে কমিটি।

বিষয়টি নিয়ে সংসদীয় কমিটিতে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়। অধিকতর গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করার জন্য মন্ত্রণালয়কে বলেছে সংসদীয় কমিটি। এদিকে রিফাত হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে এখনই মতামত প্রকাশ করার সময় আসেনি বলেও কমিটিকে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তবে তদন্ত শেষে জনসন্মুখে অপরাধীদের মুখোশ উন্মোচন করা হবে, আইনের মুখোমুখি করা হবে বলেও জানানো হয়েছে।

বুধবার (১৭ জুলাই) বিকেলে সংসদ ভবনে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এসব নিয়ে আলোচনা হয়। বৈঠক শেষে কমিটি সভাপতি শামসুল হক টুকু এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি সাংবাদিকদের বলেন, আদালতে খুনের ঘটনায় আমরা খুবই দুঃখিত। এজন্য তদন্ত কমিটি হয়েছে। তদন্ত করে দেখবে কারা দায়ী। আমি সাংঘাতিকভাবে বলেছি—অন্য জায়গায় একটি দুর্ঘটনা আর আদালতে দুর্ঘটনা একভাবে দেখলে চলবে না। এটা অধিকতর গুরুত্ব দিয়ে দেখতে হবে। কোর্টের কোনো দুর্বলতা আছে কি না, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের দুর্বলতা আছে কিনা, তদন্ত করে জাতির সামনে উপস্থাপন করতে হবে। বিষয়টি সরকার গুরুত্বের সাথে দেখছে। ভালো করে তদন্ত করে এর কারণ নিরূপণ করতে হবে। দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের অবহেলার কারণেই আদালতে খুন হয়েছে।

গত ১৫ জুলাই কুমিল্লার অতিরিক্ত দায়রা জজ ৩য় আদালতের এজলাসে বিচারকাজ চলাকালে বিচারকের সামনে এক আসামি অপর আসামিকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করেন। বিচারক বেগম ফাতেমা ফেরদৌসের সামনেই এ ঘটনা ঘটে। নিহত ও ঘাতক মামাতো-ফুফাতো ভাই এবং দুজনই একটি হত্যা মামলার আসামি। নিহত ফারুক কুমিল্লা মনোহরগঞ্জ উপজেলার অহিদ উল্লাহর ছেলে। ঘাতক হাসানের বাড়িও একই এলাকায়। ঘটনার পর হাসানকে আটক করা হয়েছে।

সম্প্রতি বরগুনায় আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যাকাণ্ডের বিষয়টিও কমিটির বৈঠকে আলোচনায় উঠে আসে। বৈঠকে এজেন্ডার বাইরে এ বিষয়ে আলোচনা করা হয়। যেহেতু হত্যা মামলার প্রধান সাক্ষী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তা নিয়ে কমিটির বৈঠকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, রিফাত হত্যার ঘটনায় তদন্ত চলছে। এখনো এ বিষয়ে মতামত দেওয়ার সময় আসেনি। অপরাধী যেই হোক তার পরিচয় জনসাধারণের সামনে উন্মুক্ত করা হবে, আইনের মুখোমুখি করা হবে।

এছাড়া মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণে সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে কমিটির পক্ষ থেকে। কেউ মাদকের বিষয়ে কোন আপস করবে না এমনটা নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন কমিটির সভাপতি। এছাড়া মাদক নির্মূলকাজে আনসার ভিডিপিকে কাজে লাগানোর জন্য মন্ত্রণালয়কে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

বৈঠকে জানানো হয়, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর কর্তৃক বাস্তবায়নের নিমিত্ত ‘মাদকাসক্ত শনাক্তকরণ ডোপ টেস্ট প্রবর্তন’ শীর্ষক প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে সরকারি চাকরিতে প্রবেশকালে বাধ্যতামূলক ডোপ টেস্ট করা হবে।

কমিটি রেললাইনের পাশে গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতেও সুপারিশ করে।

কমিটি’র সভাপতি মো. শামসুল হক টুকুর সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, মো. আফছারুল আমীন, মো. হাবিবর রহমান, সামছুল আলম দুদু, কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা, পীর ফজলুর রহমান এবং সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদ অংশ নেন।

এছাড়া জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব, সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিবসহ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র