Alexa

মন্ত্রণালয়-সরকারি সংস্থার কাছে ৬৮৮২ কোটি টাকা বিদ্যুৎ বিল বকেয়া

মন্ত্রণালয়-সরকারি সংস্থার কাছে ৬৮৮২ কোটি টাকা বিদ্যুৎ বিল বকেয়া

সংসদে বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু, ছবি: সংগৃহীত

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, ঢাকা, বার্তা২৪.কম

বর্তমান সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় বা সরকারি সংস্থাগুলোর কাছে বিপুল পরিমাণ বিদ্যুৎ বিল বকেয়া পড়েছে। এ থেকে বাদ যায়নি আধা সরকারি-বেসরকারি বা ব্যক্তি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানও। সবশেষ ২০১৮ সালের অক্টোবর পর্যন্ত বাকেয়া ছিল ৬ হাজার ৮৮২ কোটি ৯৫ লাখ টাকা।

বিদ্যুৎ বিল বকেয়ায় শীর্ষে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এই মন্ত্রণালয়ে ৩২৩ কোটি ৪০ লাখ টাকা বিদ্যুৎ বিল বাকি পড়েছে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু।

সোমবার (১১ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে একাদশ জাতীয় সংসদ অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে সরকারি দলের সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবুর তারকা চিহ্নিত প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী এ তথ্য জানান।

বিদ্যুৎ বিল বকেয়ায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়। এই মন্ত্রণালয় বিদ্যুৎ বিল বাকে পড়েছে ১৪২ কোটি ৪৮ লাখ টাকা। তৃতীয় অবস্থানে খাদ্য মন্ত্রণালয়। এই মন্ত্রণালয়ে বাকি পড়েছে ১২৮ কোটি ৩ লাখ ৮৬ হাজার। এছাড়া গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ে ৭৮ কোটি ১৬ লাখ ৩ হাজার টাকা। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের বাকি ৪৮ কোটি ২২ লাখ ৬ হাজার টাকা। প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ে ২৭ কোটি ১১ লাখ ৬ হাজার টাকা। বিদ্যুৎ বিল বকেয়ার ক্ষেত্রে সর্বনিম্ন শিল্প মন্ত্রণালয়, এই মন্ত্রণালয় মাত্র ২ হাজার টাকা বিদ্যুৎ বিল বাকি পড়েছে।

মন্ত্রণালয়ের তালিকা অনুযায়ী ৪০টি মন্ত্রণালয়ের নিকট বাকি ৬৪২ কোটি ৯৮ লাখ। আর সরকারি সংস্থার কাছে বাকি ৬৪২ কোটি ৯৮ লাখ। আধা সরকারি/বেসরকারি সংস্থার কাছে ৭৬৩ কোটি ৯০ লাখ। ব্যক্তি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের কাছে ৫ হাজার ৪৭৬ কোটি ৬ হাজার টাকা। সব মিলিয়ে ৬ হাজার ৮৮২ কোটি ৯৫ লাখ টাকা।

প্রতিমন্ত্রী জানান, বকেয়া বিদ্যুৎ বিল আদায়ের লক্ষ্যে ট্রাস্কফোর্স গঠন করে ঝটিকা অভিযান পরিচালনা করা হয়। বিল খেলাপি ও অবৈধ বিদ্যুৎ ব্যবহারকারীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

তিনি জানান, সরকারি বকেয়া আদায়ের ক্ষেত্রে অর্থ বিভাগ হতে বিদ্যুৎ বিল খাতে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগকে প্রয়োজনীয় অর্থের বরাদ্দ নিশ্চিতকরণ, এছাড়া সরকারি/আধা সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানসমূহের নিকট বকেয়া পাওনা আদায়ের লক্ষ্যে আন্ত:মন্ত্রণালয় সভা করা হয়।

সংসদ এর আরও খবর