শিশু অধিকার বিষয়ক সংসদীয় ককাস পুনর্গঠন

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
এ সভায় ককাস গঠন করেন ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া, ছবি: বার্তা২৪.কম

এ সভায় ককাস গঠন করেন ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া, ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

শিশুদের বিভিন্ন অধিকার নিয়ে কাজ করা শিশু অধিকার সংসদীয় ককাস পুনর্গঠন করা হয়েছে।

বুধবার (১৫) ডেপুটি স্পিকারের সংসদ কার্যালয়ে এক সভায় ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়াকে প্রধান উপদেষ্টা, সংসদ সদস্য শামসুল হক টুকুকে সভাপতি ও আরমা দত্তকে সহসভাপতি নির্বাচিত করে এ ককাস গঠন করা হয়।

কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন-সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল, আবুল কালাম মো. আহসানুল হক চৌধুরী, মো. আছলাম হোসেন সওদাগর, শামীম হায়দার পাটোয়ারী, সামছুল আলম দুদু, ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল, মো. ইসরাফিল আলম, মো. ফরিদুল হক খান, রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, কাজী কেরামত আলী, শেখ সারহান নাসের তন্ময়, মো. আব্দুল মজিদ খান, আনোয়ার হোসেন খান, সাইমুম সরওয়ার কমল, মো. রেজাউল করিম বাবলু, বেগম ওয়াসিকা আয়শা খান, বাসন্তী চাকমা, উম্মে ফাতেমা নাজমা, অপরাজিতা হক, রাবেয়া আলীম, তামান্না নুসরাত বুবলী, কাজী কানিজ সুলতানা, গ্লোরিয়া ঝর্ণা সরকার, খোদেজা নাসরিন আক্তার হোসেন, রওশন আরা মান্নান, নাহিদ ইজাহার খান ও মোছা. শামীমা আক্তার খানম।

এরপর জাতীয় সংসদের আইপিডি কনফারেন্স হলে বাংলাদেশ শিশু অধিকার ফোরাম আয়োজিত শিশু অধিকার সুরক্ষা ও অগ্রগতি শীর্ষক সেমিনারে নবগঠিত ককাসের সদস্যরা অংশ নেন। ককাসের সভাপতি শামসুল হক টুকুর সভাপতিত্বে সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীনে শিশু অধিকার বিষয়ে একটি শিশু অধিদফতর গঠনের জন্য আহ্বান জানান।

এসময় তিনি বলেন, শিশুদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর মমতার কারণেই সরকার বাংলাদেশে শিশু বাজেট বরাদ্দ করেছে। এর আগে কোনো সরকার এ ধরনের বাজেট বরাদ্দ দেয়নি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার শিশুদের কল্যাণে সবসময় উদারতার পরিচয় দিয়েছে এবং এখনও দিচ্ছে। আশা করি, সময়োপযোগী এ দাবিটাও প্রধানমন্ত্রীর কাছে গুরুত্বের সঙ্গে উপস্থাপন করলে তিনি তা পুরণ করবেন।

তিনি বলেন, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে শিশুদের জন্য যে বাজেট বরাদ্দ করা হয় তা সঠিকভাবে সময়মত শিশুদের কল্যাণে যাতে খরচ হয় সেজন্য মন্ত্রণালয়ের নজরদারি আরো বাড়ানো প্রয়োজন। এসময় শিশুদের কল্যাণে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোকে বাজেটের সুষম ব্যয় নিশ্চিত করতে মনিটরিং ব্যবস্থা জোরদার করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন ডেপুটি স্পিকার।

সেমিনারে ককাসের সদস্যরা, গণমাধ্যম প্রতিনিধি ও বিভিন্ন এনজিও’র প্রতিনিধিরা বক্তব্য রাখেন।

আপনার মতামত লিখুন :