রাজস্ব আহরণ না বাড়ার দায় আমলাদের

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা, জাতীয় সংসদ ভবন থেকে
সংসদ অধিবেশন ও ফখরুল ইমাম

সংসদ অধিবেশন ও ফখরুল ইমাম

  • Font increase
  • Font Decrease

বহুদিন ধরে রাজস্ব আহরণের হার ১৩ শতাংশের মধ্যেই থাকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন সংসদের বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য ফখরুল ইমাম।

তিনি বলেছেন, এই যে রাজস্ব ১৩ শতাংশের উপরে আনা যাচ্ছে না। এরজন্য শুধু রাজনৈতিক নেতা বা রাজনৈতিক সরকারকে দায় দিলে হবে না। সরকারি আমলারা যারা একবার চাকরিতে ঢুকে ৩০ বছর থাকেন তারা কেন বলছেন না—এই সেক্টরে হাত দিতে হবে, এটা করলে রাজস্ব বাড়বে। কাজেই দায়টা তাদের ওপরই বর্তাবে।

বুধবার (২৬ জুন) বিকেলে সংসদ ভবনে একাদশ জাতীয় সংসদের তৃতীয় অধিবেশনে প্রস্তাবিত ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে এসব কথা বলেন বিরোধী দলীয় এই সংসদ সদস্য।

ফখরুল ইমাম বলেন, দেশে এখনো বৈষম্য বিরাজ করছে। এই বৈষম্য বিবেচনায় না নিলে বাজেটটি কার জন্য? অর্থমন্ত্রী স্মার্ট বাজেট দেওয়ার কথা বলেছিলেন। কিন্তু বিশ্লেষকরা বলছেন—মোটেই স্মার্ট বাজেট হয়নি, বরং পদে পদে গোঁজামিল ও শুভঙ্করের ফাঁকি। জিডিপির ১৩ শতাংশ রাজস্ব আদায় করতে পারি না। ৫ বছর পর পর রাজনৈতিক সরকার আসে। রাজনৈতিক সরকার দ্বারা এই জিনিসগুলো চিহ্নিত করা খুব সমস্যা। আমাদের সম্পদ থাকার পরেও ১৩ শতাংশের উপরে যেতে পারছি না। এটা পারে আমলারা। তারা একবার চাকরিতে ঢুকে ৩০ বছর থাকে। এই ৩০ বছরে থাকার পরেও তারা কেন পারেন রাজনৈতিক সরকারকে বলতে—এইখানে হাত দেন, এই ভোক্তাদের কাছে হাত দেন।

ফখরুল ইমাম আরো বলেন, রাজস্ব আহরণে এখনো ৬৮ শতাংশ করসীমার আওতায় আনতে পারি নাই। রাজস্ব আদায় করতে পারি নাই। এই দোষটা শুধু রাজনৈতিক নেতা বা সরকারকে দিলেই হবে না। সামগ্রিকভাবে দেশ পরিচালনার জন্য এতদিন পর্যন্ত যারা দায়িত্বে ছিল, যারা দেশ পরিচালনা করেছে তাদের ওপর মনে হয় দায়িত্বটা বর্তাবে। যতদিন পর্যন্ত জিডিপির রেশিও বাড়াতে না পারি, আমাদের নীতি ঠিক করতে হবে।

বাংলাদেশের প্রথম বাজেট ৭৮৬ কোটি থেকে বেড়ে ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকা হয়েছে, এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, পরিমাণটা বিষয় না। তাজউদ্দিন সাহেব যে বাজেট পেশ করেছিলেন, তা ছিল মাত্র ৭৮৬ কোটি টাকা। এবারের বাজেট তার থেকে প্রায় ৬৩৬ গুণ বেশি হয়েছে। পরিমাণটা বিষয় না, বিষয়টা হচ্ছে আদর্শের। তাজউদ্দিনের বাজেট আর বর্তমান বাজেটের দর্শনগত ভিত্তি বিপরীত। তাজউদ্দিনের বাজেট ছিল সমাজতন্ত্রমুখী আর গত তিন দশকের বাজেট হল পুঁজিবাদের নয়া উদারবাদী বাজেটের ধারা।

ফখরুল ইমাম বলেন, বর্তমান বাজেট ৫ লাখ কোটি টাকার বেশি হয়েছে। বাজেটের আকার বৃদ্ধি কোন চমক নয়। এটা বয়স বাড়ার মত। প্রতি বছর বাড়তেই থাকবে। নয়া উদারবাদী ধারার বাজেট। প্রশ্নটা হচ্ছে বাজেট কতটা বাস্তবায়ন করা গেল।

আপনার মতামত লিখুন :