Barta24

শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯, ৫ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

দেশের সম্পদ বিক্রির রাজনীতি করি না: শেখ হাসিনা

দেশের সম্পদ বিক্রির রাজনীতি করি না: শেখ হাসিনা
ছবি: পিআইডি
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

জাতীয় সংসদ ভবন থেকে: গ্যাসের দাম বৃদ্ধির যৌক্তিকতা তুলে ধরে সংসদ নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমাদের খরচ পড়ছে প্রতি ঘণমিটার ৬১ দশমিক ১২ টাকা। আর ধরছি মাত্র প্রতি ঘণমিটার ৯ দশমিক ৮০ টাকা। আমি যখন ২০০০-০১ সালে প্রধানমন্ত্রী ছিলাম আমার ওপর প্রচণ্ড চাপ আসল যে, আমাদের গ্যাস রফতানি করতে হবে। এরপর জিমি কার্টার ঢাকায় আসলে সেখানেও বলেছিলাম, রাজনীতি করি দেশের জন্য দেশের মানুষের জন্য। দেশের সম্পদ বিক্রি করে মুচলেকা দিয়ে ক্ষমতায় আসতে হবে, এই রাজনীতি করি না।

বৃহস্পতিবার (১১ ‍জুলাই) রাতে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে একাদশ জাতীয় সংসদের তৃতীয় অধিবেশনের সমাপনী বক্তৃতায় শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, গ্যাসের চাহিদা মেটানোর জন্য আমরা এলএনজি আমদানি করছি। দেশে শিল্পায়ন হচ্ছে, শিল্পায়নের সাথে সাথে চাহিদা বাড়ছে। কিন্তু সেই পরিমাণ গ্যাস আমাদের দেশে নাই। আমরা কুপ খনন করছি। গ্যাসের জন্য পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হচ্ছে, যেটুকু পাওয়া যাচ্ছে, সেটুকু উত্তোলন করা হচ্ছে। বিশাল সমুদ্রসীমা অর্জন করেছি। সেখানেও গ্যাস উত্তলনের জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছি।

সংসদ নেতা বলেন, গ্যাসের দাম নিয়ে যে কথাগুলো আসছে যে, দাম না বাড়িয়েও উন্নয়ন করা যাবে। দাম বাড়ানোর প্রয়োজনটা কেন ছিল? গ্যাসের বর্ধিত ব্যয় নির্বাহের জন্য পেট্রোবাংলা বিভিন্ন কোম্পানিসহ ১০২ শতাংশ দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব করেছিল। এলএনজি আমদানি খুব ব্যয় সাপেক্ষ। বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন মূল্যায়ন করে দেখেছে- বর্ধিত ব্যয় নির্বাহের জন্য কমপক্ষে ৭৫ শতাংশ দাম বৃদ্ধি করার প্রয়োজন ছিল। সেখানে আমরা কতটুক দাম বৃদ্ধি করেছি? গ্রাহকদের আর্থিক চাপের বিষয়টা বিবেচনা করে কমিশন মাত্র ৩২ দশমিক ৮ শতাংশ দাম বৃদ্ধি করেছে।

‘ভোক্তা পর্যায়ে প্রাকৃতিক গ্যাসের মূল্য হার বর্তমানে প্রতি ঘণমিটার ৯ দশমিক ৮০ টাকা। ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প গ্রাহকদের জন্য কোন দাম বৃদ্ধি করা হয়নি। গণপরিবহনের বিষয়টি বিবেচনায় করে সিএনজি খাতে শুধু প্রতি ঘণমিটারে তিন টাকা বৃদ্ধি করা হয়েছে। বিভিন্ন শ্রেণীর গ্রাহকদের অভিযোগের ভিত্তিতে এখন থেকে ন্যূনতম চার্জ প্রত্যাহার করা হয়েছে। এছাড়া সব শিল্প গ্রাহকদের ইবিসি মিটার দেওয়া হবে। যাতে কে কত গ্যাস ব্যবহার করে সেটা জেন নির্দিষ্ট থাকে, যাতে বিল পরিশোধ সহজ হয়।’

গ্যাসের ভর্তুকি তুলে ধরে তিনি বলেন, গ্রাহকদের আর্থিক চাপ যেন বেশি না পরে সেজন্য সরকার থেকে প্রতি বছর ৭ হাজার ৯৯০ কোটি টাকা আর্থিক সহায়তা বা ভর্তুকি দেওয়া হবে। তাছাড়া জ্বালানি নিরাপত্তা তহবিল থেকে ২ হাজার ৪২০ কোটি টাকা প্রদান করা হবে। আমরা পাইপ লাইন তৈরি করছি, গ্যাস সংরক্ষণ করতে হচ্ছে। পাইপ লাইনের মাধ্যমে সরবরাহ করছি, এরও একটা খরচ আছে। আমরা যদি খরচটা ধরি তাতে সম্পূরক শুল্কসহ এলএনজি আমদানির খরচ পড়ে প্রতি ঘণমিটার এলএনজি সরবরাহ ব্যয় ৬১ দশমিক ১২ টাকা। এলএনজি কনসেটেড গ্যাস। আমাদের দেশীয় গ্যাস মিশিয়ে তারপর সরবরাহ করা যায়। আমরা দাম ধরছি খুব কম। আসলে এর দাম পড়ে প্রতি ঘণমিটার ৬১ দশমিকি ১২ টাকা। আমরা নিচ্ছি মাত্র ৯ দশমিক ৮০। অর্থাৎ ৫১ দশমিক ৩২ টাকা সরকার সহায়তা দিচ্ছে।

সংসদ নেতা বলেন, অনেকেই প্রাকৃতিক গ্যাসের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদ করেছেন, সমালোচনা করছেন। আমাদের দেশে নিজস্ব কিছু প্রাকৃতিক গ্যাস আছে। কিন্তু সেটা আমাদের চাহিদার তুলনায় অপ্রতুল। চাহিদা পূরণ হচ্ছিল না। যেখানে আমাদের চাহিদা ছিল প্রায় ৩ হাজার ৭০০ এমএমসিএফডি। কিন্তু সরবরাহ করা যাচ্ছিল মাত্র ২ হাজার ৭ এমএমসিএফডি। এই ব্যাপাক চাহিদা প্রবৃদ্ধিতে আমরা সিদ্ধান্ত নিলাম- এলএনজি আমদানি করব। আমরা ২০১৮ সালের ১৮ আগস্ট ৫০০ এমএমসিএফডি এবং ৩০ এপ্রিল ২০১৯ থেকে আরও ৫০০ এমএমসিএফডি অর্থাৎ ১ হাজার এমএমসিএফডি গ্যাস আমদানি শুরু করেছি। আমাদের নিজস্ব গ্যাস সেটা উৎপাদনে খরচ হয় প্রতি ঘণমিটারে ৬০ দশমিক ৫০ টাকা। সেখানে আমদানিকৃত এলএনজির খরচ পড়ে ৩৩ দশমিক ৭৫ টাকা। প্রতি বছর ৩০ হাজার কোটি টাকা অতিরিক্ত প্রয়োজন দেখা দিয়েছে। আমাদের প্রায় ৭৫ শতাংশ বৃদ্ধির প্রয়োজন ছিল।

তিনি বলেন, আমাদের প্রতি বছরে ১৯ হাজার ৩১০ কোটি টাকা ভর্তুকি টাকা দিতে হচ্ছে। ট্যাক্স সব বাদ দিয়েছি এখনো এই টাকা ভর্তুকি দিতে হবে। প্রকৃত পক্ষে ৩০ হাজার কোটি প্রয়োজন হবে। ইআরসি ১০২ শতাংশ বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছিল সেটা দিলে দাম আরো বাড়াতে হত। প্রতিটি ক্ষেত্রে সহনশীলতা দেখিয়েছি। সরকারিভাবে আর্থিক সহায়তা দিচ্ছি আবার জ্বালানি নিরাপত্তা তহবিল থেকেও দেওয়া হচ্ছে। সরকার থেকে ৬৯০ কোটি টাকা আর্থিক সহায়তা দিচ্ছি আবার জ্বালানি নিরাপত্তা থেকে ২ হাজার ৪২০ কোটি টাকা দেওয়া হচ্ছে।

সরকারপ্রধান বলেন, মিশ্রত গ্যাসের মূল্য সহনীয় রাখার লক্ষ্যে প্রকৃতিক গ্যাসের উপর সম্পূরক শুল্ক ৯৪ শতাংশ প্রত্যাহার করে দেই। এজন্য সরকারের প্রায় ৯ হাজার ২০০ কোটি টাকা রাজস্ব আদায় বন্ধ হয়ে যায়। এই টাকা রাজস্ব আয় করতে পারেল আরও উন্নত করতে পারতাম। এলএনজি আমদানির কারণে ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে ৩ হাজার কোটি ঘাটতি ছিল। গ্যাস খাত উন্নয়নে আমরা যখন ২০০৯ সালে দায়িত্ব গ্রহণ করি তখন গ্যাসের উৎপাদন ছিল মাত্র ১ হাজার ৫০০ এমএমসি এফডি। গত দশ বছরে আরও ১ হাজার ২৫০ এমএমসিএফডি গ্যাস পাইপ লাইনে যোগ করেছি।

তিনি বলেন, ২০০০-০১ সাল পর্যন্ত আমি তখন প্রধানমন্ত্রী, আমার ওপর প্রচণ্ড চাপ আসল যে আমাদের গ্যাস রফতানি করতে হবে। আমেরিকার প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন ঢাকায় এসে আমার কাছে প্রস্তাব দিলেন। এরপর আমাকে দাওয়াত দিয়ে নিয়ে গেলেন সেখানেও প্রস্তাব করলেন যে, গ্যাস বিক্রি করব ভারতের কাছে। আমেরিকার কয়েকটা কোম্পানি আমাদের এখানে গ্যাস উত্তোলন করত, এখনো করে। আমি বলেছিলাম- আমাদের কত গ্যাস আছে সেটা আগে জানতে হবে। এটা আমার দেশের সম্পদ। দেশের মানুষের চাহিদা মিটিয়ে ভবিষ্যৎ বংশধরদের জন্য অন্তত ৫০ বছরের রিজার্ভ রেখে এর অতিরিক্ত গ্যাস যদি থাকে আমি বিক্রি করতে রাজি আছি, কিন্তু তার আগে না। এরপর তত্ত্বাবধায়ক সরকার আসল, তখন জিমি কার্টার এই ব্যাপারে কথা বলতে আসেন। যমুনায় ছিলেন। আমরা দল থেকে আমি এবং সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান এবং বিএনপির খালেদা জিয়াসহ তাদের সাধারণ সম্পাদককে ডাকা হল।

‘রাজনীতি করি দেশের জন্য দেশের মানুষের জন্য। দেশের সম্পদ বিক্রি করে মুচলেকা দিয়ে ক্ষমতায় আসতে হবে, এই রাজনীতি করি না। সে কথা আমি সেখানেও স্পষ্টভাবে জিমি কার্টারকে বলে এসেছিলাম। আমি বলেছিলাম- আমি যা বলি তাই বলেছি। এরপর চলে আসি। খালেদা জিয়া থেকে যান, সেখানে মুচলেকাও দিয়ে আসেন। যার ফলে ২০০১ সালে ভোট পেয়েও আমরা সরকার গঠন করতে পারিনি। এটাই হল বাস্তবতা। সেটা নিয়ে আমার আপসোস নেই। আমাদের তো গ্যাস নেই, থাকলে দেব। বলা হল দেশ গ্যাসে ভাসে, আমি তো দেখি না সেটা। উন্নয়নের জন্য করছি, উন্নয়ন এনার্জি ছাড়া হয় না।

আপনার মতামত লিখুন :

এসডিজি অর্জনে বাংলাদেশের অগ্রগতি আশাব্যঞ্জক

এসডিজি অর্জনে বাংলাদেশের অগ্রগতি আশাব্যঞ্জক
স্পিকার ড. শিরীন শারমিন, ছবি: সংগৃহীত

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, 'টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনে বাংলাদেশের অগ্রগতি আশাব্যঞ্জক। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সকল উন্নয়ন সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান আজ বেশ সুদৃঢ়।'

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) যুক্তরাষ্ট্রে জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন আয়োজিত এসডিজি’র লক্ষ্য পূরণে বাংলাদেশের বর্তমান অর্জন ও ভবিষ্যৎ করণীয় সম্পর্কিত অবহিতকরণ আলোচনা অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

বুধবার (১৭ জুলাই) সংসদ সচিবালয় থেকে পাঠানো প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় এসডিজি বাংলাদেশের অর্জন বিষয়ে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন এবং পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

স্পিকার বলেন, 'এসডিজি অর্জনে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ কার্যকর ভূমিকা রাখছে। এসডিজির সঙ্গে সংসদ সদস্যগণকে অধিক সম্পৃক্ত করতে ইতোমধ্যে বিভিন্ন কর্মশালা আয়োজন করেছে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ, যা ভবিষ্যতে অব্যাহত থাকবে।'

এসডিজি অর্জনে জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে উল্লেখ করে তিনি স্থায়ী মিশন গৃহীত পদক্ষেপসমূহে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

'২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস' সম্পর্কিত অপর এক আলোচনায় স্পিকার বলেন, 'ইতোমধ্যে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদে ২৫ মার্চকে গণহত্যা দিবস হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবসকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে স্বীকৃতি আদায়ের জন্য কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করতে জাতিসংঘ বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।'

জাতীয় সংসদের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খান, পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য (সিনিয়র সচিব) ড. শামসুল আলম জাতিসংঘ বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের অবহেলায় এজলাসে খুন

দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের অবহেলায় এজলাসে খুন
সংসদ ভবন, ছবি: সংগৃহীত

 

দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের অবহেলার কারণেই এজলাসে খুনের ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। কোন বিভাগ বা কারা এর জন্য দায়ী, তাদের দ্রুত খুঁজে বের করে তদন্ত প্রতিবেদনও দিতে বলেছে কমিটি।

বিষয়টি নিয়ে সংসদীয় কমিটিতে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়। অধিকতর গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করার জন্য মন্ত্রণালয়কে বলেছে সংসদীয় কমিটি। এদিকে রিফাত হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে এখনই মতামত প্রকাশ করার সময় আসেনি বলেও কমিটিকে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তবে তদন্ত শেষে জনসন্মুখে অপরাধীদের মুখোশ উন্মোচন করা হবে, আইনের মুখোমুখি করা হবে বলেও জানানো হয়েছে।

বুধবার (১৭ জুলাই) বিকেলে সংসদ ভবনে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এসব নিয়ে আলোচনা হয়। বৈঠক শেষে কমিটি সভাপতি শামসুল হক টুকু এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি সাংবাদিকদের বলেন, আদালতে খুনের ঘটনায় আমরা খুবই দুঃখিত। এজন্য তদন্ত কমিটি হয়েছে। তদন্ত করে দেখবে কারা দায়ী। আমি সাংঘাতিকভাবে বলেছি—অন্য জায়গায় একটি দুর্ঘটনা আর আদালতে দুর্ঘটনা একভাবে দেখলে চলবে না। এটা অধিকতর গুরুত্ব দিয়ে দেখতে হবে। কোর্টের কোনো দুর্বলতা আছে কি না, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের দুর্বলতা আছে কিনা, তদন্ত করে জাতির সামনে উপস্থাপন করতে হবে। বিষয়টি সরকার গুরুত্বের সাথে দেখছে। ভালো করে তদন্ত করে এর কারণ নিরূপণ করতে হবে। দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের অবহেলার কারণেই আদালতে খুন হয়েছে।

গত ১৫ জুলাই কুমিল্লার অতিরিক্ত দায়রা জজ ৩য় আদালতের এজলাসে বিচারকাজ চলাকালে বিচারকের সামনে এক আসামি অপর আসামিকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করেন। বিচারক বেগম ফাতেমা ফেরদৌসের সামনেই এ ঘটনা ঘটে। নিহত ও ঘাতক মামাতো-ফুফাতো ভাই এবং দুজনই একটি হত্যা মামলার আসামি। নিহত ফারুক কুমিল্লা মনোহরগঞ্জ উপজেলার অহিদ উল্লাহর ছেলে। ঘাতক হাসানের বাড়িও একই এলাকায়। ঘটনার পর হাসানকে আটক করা হয়েছে।

সম্প্রতি বরগুনায় আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যাকাণ্ডের বিষয়টিও কমিটির বৈঠকে আলোচনায় উঠে আসে। বৈঠকে এজেন্ডার বাইরে এ বিষয়ে আলোচনা করা হয়। যেহেতু হত্যা মামলার প্রধান সাক্ষী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তা নিয়ে কমিটির বৈঠকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, রিফাত হত্যার ঘটনায় তদন্ত চলছে। এখনো এ বিষয়ে মতামত দেওয়ার সময় আসেনি। অপরাধী যেই হোক তার পরিচয় জনসাধারণের সামনে উন্মুক্ত করা হবে, আইনের মুখোমুখি করা হবে।

এছাড়া মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণে সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে কমিটির পক্ষ থেকে। কেউ মাদকের বিষয়ে কোন আপস করবে না এমনটা নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন কমিটির সভাপতি। এছাড়া মাদক নির্মূলকাজে আনসার ভিডিপিকে কাজে লাগানোর জন্য মন্ত্রণালয়কে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

বৈঠকে জানানো হয়, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর কর্তৃক বাস্তবায়নের নিমিত্ত ‘মাদকাসক্ত শনাক্তকরণ ডোপ টেস্ট প্রবর্তন’ শীর্ষক প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে সরকারি চাকরিতে প্রবেশকালে বাধ্যতামূলক ডোপ টেস্ট করা হবে।

কমিটি রেললাইনের পাশে গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতেও সুপারিশ করে।

কমিটি’র সভাপতি মো. শামসুল হক টুকুর সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, মো. আফছারুল আমীন, মো. হাবিবর রহমান, সামছুল আলম দুদু, কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা, পীর ফজলুর রহমান এবং সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদ অংশ নেন।

এছাড়া জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব, সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিবসহ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র