ভারতে ভয়ঙ্কর রূপে আসছে ফোনি, প্রস্তুত তিন রাজ্য



কলকাতা করেসপন্ডেন্ট,বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ঘূর্ণিঝড় ফণী’র আতঙ্কে কাঁপছে ভারতের তিন রাজ্য। তীব্র ঝড় ও ভারী বৃষ্টির কথা মাথায় রেখে ওড়িশা, অন্ধ্রপ্রদেশ ও পশ্চিমবঙ্গে জারি করা হয়েছে লাল সতর্কতা। ইতোমধ্যে ১০৩টি ট্রেনের যাত্রা বাতিল করা হয়েছে। এছাড়া বৃহস্পতিবারই  দুইটি ট্রেনকে অন্য রুটে ঘুরিয়ে দেওয়া হয়েছে। ভারতের কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস অনুযায়ী, ওড়িশার ১৯জেলাসহ অন্ধ্রপ্রদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের উপকূলবর্তী বেশ কয়েকটি জেলায় আঘাত হানতে পারে ঘূর্ণিঝড় ফণী।

এখন পর্যন্ত পাওয়া খবর অনুযায়ী, ওড়িশা রাজ্যের পুরীর সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৫০০ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করঠে ঘূর্ণিঝড় ফণী। সেটি ক্রমে অগ্রসর হচ্ছে। ওই রাজ্যের প্রশাসনের তরফে পর্যটকদের পুরী ছাড়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। শুক্রবার দুপুর নাগাদ পুরীতে আছড়ে পড়বে ফণী। সেই মুহুর্তে ঝড়ের গতি হতে পারে ২০০ কিলোমিটারের কাছাকাছি। এর প্রভাবে প্রবল বৃষ্টি হবে ওড়িশার ১৯ জেলায়। তবে ওই রাজ্যে গজপতি, গঞ্জাম, পুরী, কেন্দ্রপাড়া, কোরাপুট, রায়গাড়া, কান্দামাল জেলায় বৃহস্পতিবার থেকে বৃষ্টি সম্ভাবনা রয়েছে।

ত্রাণ ও উদ্ধারকার্যের কথা মাথায় রেখে প্রস্তুত রয়েছে নৌসেনা ও উপকূলরক্ষী বাহিনী। এছাড়াও ইতোমধ্যে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে ভারতের জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা দল।

অপরদিকে, বিপর্যয়ের আশঙ্কায় ১০৩টি ট্রেন যাত্রা বাতিল করেছে রেল কর্তৃপক্ষ। তারমধ্যে আছে পশ্চিমবঙ্গের ৩২টি ট্রেন। কলকাতার হাওড়া ও শিয়ালদহ স্টেশনের বাতিল ট্রেনের মধ্যে রয়েছে করমণ্ডল এক্সপ্রেস, পাটনা-এরনাকুলাম এক্সপ্রেস, নয়াদিল্লি-ভুবনেশ্বর রাজধানী এক্সপ্রেস, হাওড়া-হায়দরাবাদ, ইস্ট কোস্ট এক্সপ্রেস, ভুবনেশ্বর-রামেশ্বরম এক্সপ্রেস, যশোবন্তপুর এক্সপ্রেস, যশোবন্তপুর দুরন্ত, চেন্নাই মেল, ইস্ট-কোস্ট, ফলকনুমা এক্সপ্রেসের মত গুরুত্বপুর্ন ট্রেনগুলো। 

রেলের তরফ থেকে বলা হয়েছে, বাতিল ট্রেনের টিকিটের পুরো অর্থ ফেরত দেওয়া হবে যাত্রীদের। পাশাপাশি কলকাতা বিমানবন্দরের খবর অনুযায়ী, এখন অব্দী স্বাভাবিক থাকলেও শুক্রবার থেকে পরিবর্তন বা বাতিল হতে পারে বিমান চলাচল।

কলকাতা আলিপুর আবহাওয়া দফতরের অধিকর্তা গণেশকুমার দাস জানান, মঙ্গলবার গভীর রাতেই মারাত্মক হয়ে উঠেছে  ফণী। রাজ্যের মেদিনীপুর জেলার দিঘা সমুদ্র থেকে ৭০০ এবং ওড়িশার পুরীর সমুদ্র ৫০০ কিলোমিটার দূরে ফোনি অবস্থান করছে। ফোনির দাপটে শুক্রবার থেকেই কলকাতাসহ গোটা পশ্চিমবঙ্গে ১২০ থেকে ১৩৬ কিলোমিটার বেগে ঝড় ও বৃষ্টি শুরু হতে পারে। তবে তার দাপট বাড়বে শনিবার। তবে রাজ্যের মেদিনীপুর ও দুই ২৪ পরগনায় এর প্রভাব বেশী পড়বে। আবহাওয়া দফতরের কথানুযায়ী বাংলাদেশে এর প্রভাব পড়বে রবিবার। 

তবে ফণী’র মোকাবিলায় পশ্চিমবঙ্গসহ সংশ্লিষ্ট সব রাজ্যেই প্রস্তুতি চলছে পুরোদমে।  ইতোমধ্যে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে তিন রাজ্য মিলিয়ে ১১০০ কোটি রুপির ত্রাণ বাবদ অর্থ মঞ্জুর করা হয়েছে।  রাজ্যগুলোও প্রস্তুত আছে। এখন অপেক্ষা, কতটা ভয়ঙ্কর হতে পারে ফণীর ফনার ছোবল!