ওড়িশার রাজ্য মন্ত্রী হলেন 'সাদামাটা মোদি'



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ওডিশার রাজ্য মন্ত্রী প্রতাপ চন্দ্র সারঙ্গি / ছবি: বার্তা২৪

ওডিশার রাজ্য মন্ত্রী প্রতাপ চন্দ্র সারঙ্গি / ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

শহুরে জীবনের চাকচিক্য, বিলাসবহুল সুবিধা থেকে তিনি অনেক দূরে। বালাসোরের এক ঝুপড়ি বাড়িই তার স্থায়ী ঠিকানা। পোশাক-আশাক ও চলাফেরাও সাধারণ। দীর্ঘদিন ধরে রাজনীতি করলেও বাহন তার একমাত্র সাইকেল। রাজ্যের মানুষ তাকে ‘ওড়িশার মোদি’ হিসেবে সম্বোধন করেন। তিনি হলেন প্রতাপ চন্দ্র সারঙ্গি।

এবার লোকসভা ভোটে ওড়িশার বালাসোর আসন থেকে বিজেপি প্রার্থী হিসেবে জিতেছেন। বালাসোরে বিজু জনতা দলের প্রার্থী রবীন্দ্র কুমার জেনাকে তিনি হারিয়েছেন ১২ হাজার ৯৫৬ ভোটে।

বৃহস্পতিবার (৩০ মে) সন্ধ্যায় নয়াদিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবনে রাইসিনা হিলসে নরেন্দ্র মোদি শপথ নেন। এরপর শপথ নিতে একে একে মঞ্চে আসেন তার মন্ত্রীরা। তাদের মধ্যেই ওড়িশার রাজ্য মন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন শ্রী প্রতাপ চন্দ্র সারঙ্গি। একেবারেই সাধারণ গোছের সাদা পাজামা-পাঞ্জাবি পরা। মাথার চুল উসকো খুসকো, হাওয়ায় উড়ছে! অনেকেই অবাক দৃষ্টিতে চেয়েছিলেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/31/1559274319502.jpg

লোকসভার সংসদ সদস্য হওয়ার আগে প্রতাপ সারঙ্গি ওড়িশার নীলগিরি বিধানসভা আসন থেকে বিধায়ক ছিলেন। একবার ২০০৪ সালে, পরে ২০০৯ সালে। গত লোকসভা ভোটে হেরে গেয়েছিলেন সামান্য ভোটের ব্যবধানে।

১৯৫৫ সালে ওড়িশার নীলগিরির গোপীনাথপুর গ্রামের এক গরীব পরিবারে জন্মেছিলেন প্রতাপ। স্থানীয় ফকির কলেজ থেকে স্নাতক পাশ করেছিলেন। ছেলেবেলা থেকে ঘাটাঘাটি করতেন আধ্যাত্মিক বিষয় নিয়ে। সেসব নিয়ে লেখালিখিও করতেন। সাধু হয়ে দেশের সেবা করার চিন্তায় চলে যান মঠে। কিন্তু তার বাবা মারা যাওয়ায় মায়ের সেবার জন্য বাড়িতে ফেরত পাঠিয়ে দেন মঠের স্যান্নাসীরা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/31/1559274337432.jpg

গণশিক্ষা মন্দির যোজনার অধীনে প্রতাপ সারঙ্গি ময়ুরভঞ্জ ও বালাসোরের আদিবাসী অধ্যুষিত এলাকায় দুঃস্থ শিশুদের জন্য অনেক স্কুলও গড়েছেন। এছাড়া এলাকার সার্বিক উন্নয়নে তার অবদান কম নয়। মায়ের মৃত্যুর পর পাড়ার ছোট ছোট ছেলেমেয়েরাই অবিবাহিত প্রতাপের অবসর সঙ্গী। সরল একটা মানুষ বলেই গ্রামের মানুষের কাছেও ঘরের লোক তিনি।

উল্লেখ্য, নরেন্দ্র মোদি ও প্রতাপ চন্দ্র সারঙ্গি এক সঙ্গেই গিয়েছিলেন রামকৃষ্ণ মিশনের সাধু হতে। কিন্তু দুজনকেই স্যান্নাসী ফিরিয়ে দিয়েছেন।