হিটলার, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ এবং ইসলাম



ফজল হাসান

  • Font increase
  • Font Decrease

এ কথা সর্বজনস্বীকৃত যে, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ব্যর্থ নায়ক হিটলার। ভাগ্যিস, হিটলার ব্যর্থ হয়েছিলেন এবং তিনি অভিসন্ধি কামাল করতে পারেননি। নইলে তামাম দুনিয়ায় ইহুদি নিধনের পরে মুসলমানদের যে কী হতো, তা বলা মুশকিল। তবে মন্দ হওয়ার আশঙ্কাই ছিল বেশি। সে বিষয়ে আলোচনার আগে ইসলাম এবং মুসলমান সম্পর্কে হিটলারের মনোভাব এবং অভিসন্ধি কী ও কেমন ছিল, তা নিয়ে খানিকটা উল্লেখ করা প্রয়োজন।

শুরুতেই ইসলাম এবং মুসলমান সম্পর্কে হিটলারের একটা প্রচলিত মন্তব্য বিশেষভাবে উল্লেখ করছি। তিনি বলেছিলেন, ‘একমাত্র ধর্ম হিসাবে আমি ইসলামকে সম্মান করি। একমাত্র পয়গম্বর যাকে আমি শ্রদ্ধা করি এবং যার সম্পর্কে উচ্চ ধারণা পোষণ করি, তিনি নবী মোহাম্মদ’ (সাঃ)। হিটলারের এই মন্তব্যের আড়ালে তিনটি প্রশ্ন নিহিত আছে। প্রথমত হিটলারের উপরোক্ত মন্তব্য কি সত্যি? দ্বিতীয়ত তিনি যা বলেছেন (আদৌ যদি বলে থকেন), তা কি আসলেই বিশ্বাস করতেন? এবং তৃতীয়ত যুদ্ধের কৌশল এবং অধ্যুষিত দেশ থেকে, বিশেষ করে তুরস্ক, সৈন্যবাহিনীর সাহায্য ও সহযোগিতা পাওয়ার গোপন চক্রান্ত ছিল? তবে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকেই হিটলার এবং ইসলাম ও মুসলমান সম্পর্কে একটা প্রশ্ন চাউর হয়ে আছে। তা হলো—হিটলার কি ইসলাম দ্বারা প্রভাবিত ছিলেন এবং ইসলাম ও মুসলমানদের প্রতি তার মনোভাব কেমন ছিল? মুসলমানদের সঙ্গে হিটলারের আঁতাত এবং হিটলারের সঙ্গে মুসলমানদের সহযোগিতার মূল কারণ জানতে হলে এক ধাপ পেছনে ফিরে যেতে হবে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Aug/05/1533471381786.png
১৩তম এসএস ডিভিশনের এক সৈন্য ইসলাম ও ইহুদিবাদ বিষয়ক পুস্তিকা হাতে

নাৎসি বাহিনীর ‘ব্যাপক গণহত্যা’ (হল্যাকাস্ট) এবং ইসলাম ও মুসলমান প্রসঙ্গে দুটি বিষয় বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। প্রথমত ‘ব্যাপক গণহত্যা’ চলার সময় মুসলমানদের প্রতিক্রিয়া কেমন ছিল, এবং দ্বিতীয়ত যুদ্ধ পরবর্তী সময়ে, এমনকি বর্তমান সময় পর্যন্ত, ‘ব্যাপক গণহত্যা’ সম্পর্কে মুসলমানদের ধারণা কী এবং কেমন আছে।

দু’খণ্ডে প্রকাশিত হিটলারের আত্মজীবনীমূলক গ্রন্থ Mein Kampf পড়লে বোঝা যায় যে, আসলে শুরু থেকেই ইসলাম এবং মুসলমানের প্রতি তাঁর মনের ভেতর অন্যরকম অভিসন্ধি ছিল। যেমন (১) হিটলারের প্রয়োজন ছিল অটোম্যান (তুর্কি) শাসকের সর্বাঙ্গীন সহযোগিতা এবং তাদের কুখ্যাত সাঁজোয়া বাহিনীর সাহায্য, (২) হিটলার দুটি বিশেষ কারণে সৌদি রাজতন্ত্রকে প্রচণ্ডভাবে ঘৃণা করতেন। এগুলো ছিল—মিত্র বাহিনীর দেশগুলো সমস্ত তেল নিত সৌদি আরব থেকে এবং সৌদি আরব ছিল মিত্র বাহিনীর হাতের পুতুল, অর্থাৎ ‘পাপেট’। এছাড়া ইসলামের শক্ত ঘাঁটি হিসাবে সৌদি আরব স্বীকৃত, (৩) ইরাকের সাহায্য ও সহযোগিতার প্রয়োজন ছিল। তার প্রধান কারণ ছিল রাশিয়ার কাছাকাছি ইরাকি সীমান্তে সামরিক ঘাঁটি নির্মাণ করা, (৪) হিটলার বিশ্বাস করতেন তিনি আর্য (ইন্দো-ইউরোপিয়ান) জাতির উত্তরসূরী, এবং (৫) হিটলারের শত্রু ছিল ইহুদি, যারা মুসলমানদেরও শত্রু। তাই এসব কারণে হয়তো তিনি তেল উৎপাদনকারী মুসলমান রাষ্ট্রের সঙ্গে সখ্য গড়ে তুলতে চেয়েছিলেন। হিটলারের এসব অভিসন্ধি বাস্তবায়নের জন্য নাৎসি বাহিনী বিভিন্ন পদক্ষেপ এবং কর্মসূচি নিয়েছিল। এখানে কিছু উদাহরণ তুলে ধরছি।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের প্রাক্কালে হিটলার তার সেনাপতিদের বলেছিলেন, ‘আমরা দূর-প্রাচ্যে (ফার ইস্ট) এবং আরবে গণ্ডগোল বাঁধিয়ে রাখব। আমরা নিজেদের মানুষ ভাবব এবং ওদেরকে মনে করব অর্ধেক উল্লুক (হাফ এপস্), যারা চাবুকের আঘাত পাওয়ার যোগ্য।’ হিটলারের এই মন্তব্যের পেছনে তাঁর নাক-উঁচু ভাব কাজ করেছে। তিনি এবং নাৎসি বাহিনীর সামরিক বাহিনীর সকল উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তারা মনে করতেন জার্মান হলো মানব বিবর্তনের শ্রেষ্ঠ জাতি। তাই তাদের নৈতিক কর্তব্য দুনিয়া থেকে অন্য ধর্মাম্বলীদের সমূলে নির্মূল করা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Aug/05/1533471588322.jpg
মুফতি হাজি মোহাম্মেদ আল-হোসেইনি (বামে)

সন্দেহ নেই, সমগ্র মুসলিম জাহানে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে প্রভাব পড়েছিল। জাপানি সৈন্যদের দক্ষিণপূর্ব এশিয়া এবং উত্তর আফ্রিকা, বলকান এলাকা এবং ক্রিমিয়া ও ককেশাস অঞ্চলে ইতালিয়ান ও জার্মান সামরিক বাহিনীর আগ্রাসী আক্রমণের জন্য মুসলমান অধ্যুষিত দেশগুলো প্রথম সারির যুদ্ধ-এলাকায় পরিণত হয়েছিল। এছাড়া একই সময়ে ব্রিটিশ, ফরাসি এবং ডাচ সাম্রাজ্য অথবা সোভিয়েত শাসিত দেশগুলোতে অগণিত মুসলমান যুদ্ধের আওতায় পড়ে। তাই দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের চূড়ান্ত পর্যায়ে বার্লিনের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তা এবং সামরিক বাহিনীর প্রধানরা উপলব্ধি করতে পেরেছিলেন যে, তাদের জন্য রাজনৈতিক এবং কৌশলগত কারণে ইসলাম, তথা মুসলমানের সাহায্য এবং সহযোগিতা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। পরবর্তীতে নাৎসি বাহিনী ব্রিটিশ রাজতন্ত্র, সোভিয়েত ইউনিয়ন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইহুদিদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে লিপ্ত হওয়ার জন্য মুসলমান অধ্যুষিত দেশের সঙ্গে আঁতাত করে। এছাড়া মুসলমানদের মন জয় করার জন্য নাৎসি জার্মানরা বিভিন্ন পন্থা অবলম্বন এবং কর্মসূচি গ্রহণ করেছিল। সেগুলোর মধ্যে বার্লিন থেকে শর্ট ওয়েভ রেডিওতে আরবি এবং ফারসি ভাষায় বিভিন্ন প্রচারণামূলক অনু্ষ্ঠান সম্প্রসারণ ছিল অন্যতম। তবে নাৎসি বাহিনীর প্রতি সহানুভূতি এবং সমর্থনের চেয়ে অধিকাংশ মুসলমানের ভেতর গড়ে উঠেছিল মূলত ব্রিটিশবিরোধী মনোভাব। যাহোক, মুসলমানদের সামরিক বাহিনীতে নিয়োগ করে নাৎসি বাহিনী দুটি আলাদা ডিভিশন তৈরি করেছিল। এগুলো ছিল আলবেনিয়ার মুসলমানদের নিয়ে স্ক্যান্ডারবার্গ ডিভিশন এবং বসনিয়ার মুসলমানদের নিয়ে হ্যানশার ডিভিশন। তবে চেচনিয়া থেকে উজবেকিস্তান পর্যন্ত বিভিন্ন দেশ থেকে অনেক মুসলমান সেনাবাহিনীতে নিয়োগ করেছিল। এসব মুসলমান সৈন্যরা স্তালিনগ্রাদ, ওয়ারশ, মিলান এবং বার্লিন রক্ষার জন্য নিয়োজিত ছিল। কিন্তু পরবর্তীতে নাৎসি বাহিনী অনুধাবন করতে পেরেছিল যে, সোভিয়েত এবং বলকান এলাকার মুসলমান সৈন্যরা সরাসরি যুদ্ধে অংশগ্রহণ করতে উৎসাহী ছিল না। পরে নাৎসি বাহিনী হ্যানশার ডিভিশন বিলুপ্ত করে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Aug/05/1533470053684.png
নাৎসি মুসলমানদের নিয়ে গঠিত হ্যানশার ডিভিশন প্রদর্শনকালে মুফতি আল-হোসেইনি

যুদ্ধকালীন জার্মান সরকার পূর্বাঞ্চলীয় এলাকায় বিপুল সংখ্যক মসজিদ এবং মাদ্রাসা পুনরায় নির্মাণের আদেশ জারি করে, যা সোভিয়েত সৈন্য বাহিনী ভেঙে ফেলেছিল। সেইসব এলাকার অনেক মুসলমানকে জার্মান সৈন্য বাহিনী নিজেদের দলে অন্তর্ভুক্ত করেছিল। এছাড়া মুসলমানেরা যাতে ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান সুষ্ঠুভাবে পালন করতে পারে, তার জন্য অনুকূল পরিবেশ এবং আনুষঙ্গিক ব্যবস্থা, যেমন হালাল খাবার-দাবারের আয়োজন করা, সৃষ্টি করেছিল। কোরানশরিফ এবং ইসলামের অন্যান্য ধর্মীয় গ্রন্থ থেকে বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহ করে ‘জিহাদ’ হিসাবে ব্যবহার করে। এসব সুযোগ দেওয়ার যুক্তি হিসাবে নাৎসি বাহিনীর জেনারেল হাইনরিখ হিমলার বলেছিল, ‘ইসলামের বিরুদ্ধে আমার কোনো অভিযোগ নেই। তাদেরকে সহজে বেহেশতে পাওয়ার উপায় হিসাবে আমার দল উপযুক্ত ব্যবস্থা নিয়েছে। মুসলমান সৈনিকদের জন্য এটাই হলো বাস্তব এবং উত্তম পন্থা।’ এছাড়া ১৯৪২ সালে উত্তর আফ্রিকার মরুভূমিতে লিফলেট বিতরণ করে। সেখানে লেখা ছিল, ‘ইসলামের প্রধান শত্রু ইংরেজ, আমেরিকাবাসি, ইহুদি এবং তাদের মিত্ররা। যুদ্ধে জার্মান জিতবে, ইনশাআল্লাহ্।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Aug/05/1533469901177.jpg
হিটলারের সাথে নাৎসি বাহিনীর জেনারেল হাইনরিখ হিমলার (ডানে)

নাৎসি বাহিনীর আরেক পন্থা ছিল হিটলারের সঙ্গে জেরুজালেমের (আল কুদস্) তৎকালীন মুফতি হাজি মোহাম্মেদ আল-হোসেইনির মধ্য সরাসরি সাক্ষাৎ এবং আলোচনার ব্যবস্থা করা, যা ১৯৪১ সালের ২১ নভেম্বর ঘটেছিল [প্রচ্ছদ ছবিতে সেদিনের মিটিং]। সেই আলোচনার পরে মুফতি দ্ব্যর্থহীন কণ্ঠে ঘোষণা করেছিলেন, সমগ্র আরব জাতি জার্মানির বন্ধু। বিনিময়ে হিটলার অভয় দিয়েছিলেন, জার্মান সৈনিকেরা যখন ককেশাসের দক্ষিণাঞ্চল দখল করবে, তখন ব্রিটিশদের কবল থেকে আরবরা স্বাধীনতা অর্জন করবে। উল্লেখ্য, বসনিয়ার মুসলমানদের নিয়ে গঠিত সৈন্য বাহিনী গড়ার পেছনে মুফতি আল-হোসেইনির ভূমিকা ছিল সর্বাগ্রে। তবে মুফতির প্রধান কাজ ছিল নাৎসি বাহিনীর সঙ্গে সোভিয়েত এবং বলকান এলাকায় আরব মুসলমানদের সার্বিক সহযোগিতা নিশ্চিত করা। এসব প্রচারণার জন্য তিনি নাৎসি বাহিনীর রেডিও স্টেশন ব্যবহার করার অনুমতি পেয়েছিলেন। মুফতি আল-হোসেইনি ছাড়াও আরেকজন আরব রাজনীতিবিদ নাৎসি বাহিনীর মদদ যুগিয়েছিলেন। তিনি ছিলেন অ্যাঙ্গলো-ইরাকি যুদ্ধের অন্যতম সমর নায়ক এবং পরবর্তীতে ইরাকের প্রধানমন্ত্রী রশীদ আলী আল-গিলানী। তিনি ব্রিটিশ-সমর্থিত আবদুল্লাহকে সেনা বিদ্রোহের মধ্যমে উৎখাত করে ক্ষমতা লাভ করেন। হিটলারকে পূর্ণ সমর্থন করে তিনি ১৯৪১ সালের ২৩ মে এক বিবৃতি প্রদান করেন এবং সেখনে তিনি বলেছেন, ‘ইংরেজদের বিরুদ্ধে মধ্যপ্রাচ্যে আরব স্বাধীনতা সংগ্রাম আমাদের স্বাভাবিক মৈত্রীবন্ধন।’ এসব ক্ষমতাসীন মুসলমান নেতারা নাৎসি বাহিনীর দর্শন ও রাজনৈতিক বিশ্বাসের ওপর ভরসা করে নিজেরা অলৌকিকভাবে লাভবান হয়েছিলেন। ‘বাথ পার্টি’ (কঠিনভাবে সেক্যুলার, কিন্তু উৎপত্তি হয়েছিল মুসলমান অধ্যুষিত পরিবেশে) উজ্জ্বল উদাহরণ। নাৎসিদের প্ররোচনায় এই ‘বাথ পার্টি’ আত্মপ্রকাশ করেছিল এবং কট্টর ইসলামিক মিলিট্যান্ট তৈরি করতে সক্ষম হয়েছিল।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Aug/05/1533470343029.png
হিটলারের সাথে রশীদ আলী আল-গিলানী (ডানে)

উল্টোদিকে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে উত্তর আফ্রিকা, ভারত এবং অখণ্ড সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে অনেক মুসলমান সৈনিক মিত্র শক্তির পক্ষে অংশগ্রহণ করেছিল। তারা বিভিন্ন রণক্ষেত্রে, বিশেষ করে এল-আলামিন, মন্টে ক্যাসিনো, ফ্রান্সের প্রভেন্স উপকূল এলাকা এবং স্তালিনগ্রাদে, অংশগ্রহণ করে ফ্যাসিবাদকে পরাজিত করেছিলেন। এছাড়া মুসলমানরা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে জড়িত ছিল। বিভিন্ন পরিস্থিতিতে অনেক মুসলমান নিজেদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ইহুদিদের জীবন বাঁচিয়েছিলেন। মিত্র বাহিনীকে সাহায্য এবং সহযোগিতা করার প্রসঙ্গে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় গুপ্তচর রানী হিসাবে সমগ্র বিশ্বে পরিচিত নূর ইনায়েত খানের কথা উল্লেখ না করলেই নয় । তিনি (মৃত্যু ১৩ সেপ্টেম্বর ১৯৪৪) ছিলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত এবং টিপু সুলতানের বংশধর। নূর ইনায়েত খান ব্রিটিশ সরকারের পক্ষে অধিকৃত ফ্রান্সে রেডিও অপারেটর হিসাবে নিযুক্ত ছিলেন। একসময় জার্মান গেস্টাপো তাঁকে অনুসরণ করে। সেই সময় ফরাসি সেনা কর্মকর্তারা তার সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করে। অবশেষে গুপ্তচর বৃত্তির দায়ে তিনি নাৎসি বাহিনীর হাতে ধরা পড়েন। পরবর্তীতে তাঁর ফাঁসি হয়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Aug/05/1533470548273.jpeg
টিপু সুলতানের বংশধর নূর ইনায়েত খানকে ফাঁসিকাষ্ঠে ঝোলায় নাৎসি বাহিনী

যদিও নাৎসি জার্মানির শাসনামলে (১৯৩৩-১৯৪৫) আরব বিশ্বের নেতাদের সঙ্গে নাৎসিদের সম্পর্ক ছিল অবজ্ঞা, অপপ্রচার, সহযোগিতা এবং অনেক সময় আরবদের তুলনায় নিজেদের উপরে তোলার প্রবণতা, কিন্তু এসব অম্ল-মধুর সম্পর্ক থাকার পরেও দুই মেরুর মধ্যে রাজনৈতিক এবং সামরিক সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল।  তবে অনেক পণ্ডিত এবং ইতিহাসবিদ মনে করেন, হিটলার ইসলাম ও মুসলমানদের তুরুপের তাস হিসাবে ব্যবহার করতে চেয়েছিলেন। আবার অন্যদিকে অনেকে আরেক ধাপ এগিয়ে আছে। তারা মনে করে, হিটলার পরাজিত না হলে ইহুদিদের খতম করে মুসলমানদের ধরতেন।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে হিটলার পরাজিত না হলে কী হতো, এখন তা এখন হলফ করে বলা মুশকিল। তবে বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত বিচার-বিশ্লেষণ করে মোটামুটি অনুমান করা যেতে পারে। হিটলারের অভিসন্ধির সত্যিটা কখনোই থলের বিড়াল হয়ে বেরিয়ে আসবে না। বরং অধরাই থেকে যাবে।

[লেখকঅস্ট্রেলিয়ার অভিবাসি এবং কেন্দ্রীয় সরকারের কর্মকর্তা]

বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার পেলেন যারা



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার-২০২১ ঘোষণা করা হয়েছে। ঘোষণা অনুযায়ী ১১ বিভাগে ১৫ জন এবার বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার পাচ্ছেন।

রোববার (২৩ জানুয়ারি) বাংলা একাডেমির সদস্য সচিব এ এইচ এ লোকমান স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে পুরস্কারপ্রাপ্তদের নাম জানানো হয়।

পুরস্কারপ্রাপ্তরা হলেন:

কবিতায় আসাদ মান্নান ও বিমল গুহ, কথা সাহিত্যে ঝর্না রহমান ও বিশ্বজিৎ চৌধুরী, প্রবন্ধ/গবেষণায় হোসেন উদ্দিন হোসেন, অনুবাদে আমিনুর রহমান, রফিক উম মুনীর চৌধুরী, নাটকে সাধনা আহমেদ, শিশুসাহিত্যে রফিকুর রশীদ, মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক গবেষণায় পান্না কায়সার, বঙ্গবন্ধু বিষয় গবেষণায় হারুন-অর-রশীদ, বিজ্ঞান/কল্পবিজ্ঞানে পরিবেশ বিজ্ঞানে শুভাগত চৌধুরী, আত্মজীবনী বা স্মৃতিকথা বা ভ্রমণকাহিনীতে সুফিয়া খাতুন, হায়দার আকবর খান রনো এবং ফোকলোর বিভাগে আমিনুর রহমান সুলতানা।

অমর একুশে বইমেলা-২০২২ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরাসরি অথবা ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেবেন বলে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়। 

;

আইএফআইসি ব্যাংক সাহিত্য পুরস্কার পেলেন আহমদ রফিক ও মাসরুর আরেফিন



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ভাষাসৈনিক আহমদ রফিক এবং কথাসাহিত্যিক মাসরুর আরেফিন

ভাষাসৈনিক আহমদ রফিক এবং কথাসাহিত্যিক মাসরুর আরেফিন

  • Font increase
  • Font Decrease

আইএফআইসি ব্যাংক সাহিত্য পুরস্কার পেলেন দুই প্রজন্মের দুই কথাসাহিত্যিক।

আইএফআইসি ব্যাংক সাহিত্য পুরস্কার-২০১৯ পেয়েছেন ভাষাসৈনিক আহমদ রফিক এবং কথাসাহিত্যিক মাসরুর আরেফিন। ‘ভাষা আন্দোলন: টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া’ প্রবন্ধের জন্য আহমদ রফিককে এই স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে। ‘আগস্ট আবছায়া’ উপন্যাসের জন্য মাসরুর আরেফিনের নামের পাশে যোগ হয়েছে পুরস্কারটি।

করোনা মহামারির কারণে এবার অনলাইনের মাধ্যমে নির্বাচিত দুই প্রজন্মের দুই কথাসাহিত্যিককে সম্মাননা জানানো হয়। গত ১৫ জানুয়ারি এই আয়োজনে প্রধান অতিথি ছিলেন বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদার। এছাড়া ছিলেন আইএফআইসি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী শাহ এ সারওয়ার।

বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে সমসাময়িক লেখকদের স্বীকৃতি দিতে আইএফআইসি ব্যাংক ২০১১ সালে চালু করে ‘আইএফআইসি ব্যাংক সাহিত্য পুরস্কার’। প্রতিবছর পুরস্কারের জন্য নির্বাচিত করা হয় সেরা দুটি বই। নির্বাচিত প্রত্যেক লেখককে পাঁচ লাখ টাকা, ক্রেস্ট ও সম্মাননাপত্র পেয়ে থাকেন।

;

ওমিক্রণে থমকে গেছে বইমেলার আয়োজন



সজিব তুষার, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
বাঁশ দিয়ে বইমেলা স্টলের কাঠামো নির্মাণের পর থেমে আছে কাজ।ছবি: বার্তা২৪.কম

বাঁশ দিয়ে বইমেলা স্টলের কাঠামো নির্মাণের পর থেমে আছে কাজ।ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

এবারও থমকে গেছে লেখক পাঠকের প্রাণের আসর অমর একুশে বইমেলা প্রাঙ্গণ। তুমুল উৎসাহ আর ব্যাপক উদ্দীপনা নিয়ে কাজ শুরু হলেও কোভিড- ১৯ এর ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট আতঙ্ক থামিয়ে দিয়েছে কাজ। একটা বড় অংশের কাঠামো তৈরি হয়ে গেলেও সোহরাওয়ার্দী উদ্যান প্রাঙ্গণে ছড়িয়ে ছিটিয়ে পরে আছে গর্ত আর স্তূপ স্তূপ বাঁশ।

বরাবরের মত এ বছরেও ১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়ার কথা অমর একুশে বইমেলা-২০২২। সে অনুযায়ী, কাজ শুরু করে দিয়েছিলো আয়োজক প্রতিষ্ঠান বাংলা একাডেমি। প্রায় শেষ হয়ে এসেছিলো প্রকাশনী গুলোর রেজিস্ট্রেশন ও লটারি পূর্ববর্তী কার্যক্রম। কাজ চলার মাঝেই বাঁধ সাধে বৈশ্বিক মহামারী কোভিড-১৯ নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন।

বাঁশ দিয়ে বইমেলা স্টলের কাঠামো নির্মাণের পর থেমে আছে কাজ।ছবি: বার্তা২৪.কম

গত ১৬ জানুয়ারি সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ গণমাধ্যমকে জানান, 'করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতির কারণে আপাতত দুই সপ্তাহের জন্য স্থগিত করা হয়েছে বইমেলা। মেলার পূর্ণ প্রস্তুতি রয়েছে বাংলা একাডেমির। সংক্রমণ পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকলে আগামী ১ ফেব্রুয়ারি থেকেই শুরু করা যেতো বইমেলা'। 

সরকারের এই ঘোষণার পর থমকে গেছে পুরো উদ্যমে শুরু হওয়া মেলার স্টল তৈরির কাজ। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে গিয়ে দেখা যায়, স্টল তৈরির জন্য মাঠে কাঠামোর বেশ খানিকটা তৈরি হয়ে আছে। জায়গায় জায়গায় পুঁতে রাখা রয়েছে বাঁশ। কিন্তু কাজ করতে দেখা যায়নি কোনও শ্রমিককে।

এবারের বই মেলায় প্রথম বই প্রকাশ হবে এমন এক তরুণ লেখক বায়েজিদ হোসেন বলেন, 'ফেব্রুয়ারিতে বইমেলা আমাদের রক্তে গেঁথে গেছে। বৈশ্বিক মহামারী করোনার তোপে পণ্ড হয় গতবারের মেলাও। প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানগুলো রাস্তায় বসে যাবে। এমন চলতে থাকলে খুব দ্রুতই অন্য পেশায় চলে যেতে বাধ্য হবেন তারা। এখন পর্যন্ত যেটুকু টিকে আছে সেটা নষ্ট করে ফেললে; শিল্প সংস্কৃতির আর কিছুই অবশিষ্ট থাকবে না'।

যথোপযুক্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে বইমেলা সঠিক সময়ে শুরু করার পক্ষে কথা বলেন তিনি।

বাঁশ দিয়ে বইমেলা স্টলের কাঠামো নির্মাণের পর থেমে আছে কাজ।ছবি: বার্তা২৪.কম

প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান গ্রন্থিক'র প্রকাশক রাজ্জাক রুবেল বলেন, 'গতবারের মেলার অভিজ্ঞতার পর এবছর আর রিস্ক নেব বলে মনে হচ্ছে না। সম্ভব হলে জমা দেওয়া টাকাটা ফেরত আনার ব্যবস্থা করবো'।

স্টলের রেজিস্ট্রেশন ও অন্যান্য বাবদ খরচের কথা উল্লেখ করে বলেন, 'দুটা স্টলের জন্য জমা দিতে হয়েছে আগের থেকেও বেশি। ডেকোরেশন খরচ। স্টলের লোকের খরচ। তাদের এমন সিদ্ধান্তে আমি কোনভাবেই লস আটকাতে পারবো না'।

এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষ প্রতিষ্ঠান বাংলা একাডেমিতে গেলে কেউ কিছু বলতে পারেন নি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন কর্মচারী জানান, "মহাপরিচালক- প্রকাশক ও সংশ্লিষ্টদের সাথে মিটিং করে সিদ্ধান্ত জানানো পর্যন্ত কেউ কিছু বলতে পারবো না"।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে থেকে তোলা বইমেলার প্রস্তুতিকালীন কাজের একাংশের ছবি। ছবি- বার্তা২৪.কম

 

এর আগে বইমেলা পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব ও বাংলা একাডেমির পরিচালক জালাল আহমেদ গণমাধ্যমকে জানান, স্বাস্থ্যবিধি মেনে পহেলা ফেব্রুয়ারি থেকেই নেওয়া হচ্ছে বইমেলা শুরুর প্রস্তুতি। তবে পরিস্থিতি বিবেচনায় সরকার যে সিদ্ধান্ত নেবে, সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গত বছরও মহামারী করোনাভাইরাসের কারণে দেড় মাস পিছিয়ে ১৮ মার্চ থেকে শুরু হয় অমর একুশে বইমেলা। আবার নির্ধারিত সময়ের দুদিন আগে ১২ এপ্রিলই টানে ইতি। সম্প্রতি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় বিধিনিষেধ আরোপ করেছে সরকার। তবে দু'সপ্তাহ পিছিয়ে দিলে আদতে বই মেলা হবে কি না এ নিয়ে সন্দিহান অনেকেই। বইমেলা মানেই হাজার মানুষের ভিড়। লেখক পাঠকের সমারোহ। তবে একের পর এক মেলায় ক্ষতিগ্রস্ত হতে থাকলে প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান গুলো মেলা করবে কি না তা নিয়েও শঙ্কায় আছেন সচেতন মহল।

স্বাস্থ্যবিধি মেনেই মেলা হোক চান বড় একটা অংশের নেটিজানরা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ নিয়ে বেশ আলোচনাও তুলছেন তারা।


উল্লেখ্য, মুক্তধারা প্রকাশনীর মালিক চিত্তরঞ্জন সাহা বাংলা একাডেমির গেইটে ১৯৭২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি ভাষা দিবসের অনুষ্ঠানে চট বিছিয়ে শুরু করেন বই বিক্রি। ১৯৭৭ সালে তার সঙ্গে যোগ দেন আরও অনেকে। ১৯৭৮ সালে এ বইমেলার সঙ্গে সম্পৃক্ত করা হয় বাংলা একাডেমিকে। তখন মহাপরিচালক ছিলেন আশরাফ সিদ্দিকী। পরের বছরই বাংলাদেশ পুস্তক বিক্রেতা ও প্রকাশক সমিতি যুক্ত হয় মেলার সঙ্গে।

মনজুরে মওলা বাংলা একাডেমির মহাপরিচালকের দায়িত্বে থাকার সময় ১৯৮৩ সালে 'অমর একুশে গ্রন্থমেলা' নামে এ মেলা আয়োজনের প্রস্তুতি নেওয়া হলেও তা আর করা যায়নি। পরের বছর বাংলা একাডেমির প্রাঙ্গণে আসর বসে 'অমর একুশে বইমেলা'র। ভাষার মাস ফেব্রুয়ারি জুড়ে কাগজের বইয়ের মুহুর্মুহু গন্ধ মাখা বইমেলাই যেন দর্শনার্থীদের মনে করিয়ে দেয় ভাষা সংগ্রামের কথা। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ঢাকার জ্যাম ঠেলেও ফেব্রুয়ারিতে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান প্রাণের গন্তব্য হয়ে দাঁড়ায় ভাষা ও বইপ্রেমী মানুষের কাছে। সবাই চায় বইমেলা ফিরে পাক তার আগের জৌলুশ। বইয়ের সাথে ভবিষ্যত প্রজন্মের এই মিল বন্ধনের পুণ্যভূমি বেঁচে থাকুক সব অশুভ ছায়া থেকে।

;

অন্বেষণ মানে তো খোঁজ, এই খোঁজ হল আত্ম-অন্বেষণ...



সুবর্ণা মোর্শেদা, চিত্রশিল্পী
সুবর্ণা মোর্শেদা

সুবর্ণা মোর্শেদা

  • Font increase
  • Font Decrease

নিজেকে খোঁজার যে তাগিদ, আমার মধ্যে সেটা সবসময়ই কাজ করে। এই তাগিদ থেকেই আমার কাজের শুরু বলা যেতে পারে। সবসময় মনে হয়, নিজেকে খোঁজার চেয়ে কঠিন কিছু নাই। গত দুই বছরে সেই খোঁজার তাগিদ আরো তীব্র হয়ে উঠেছে। এই সময়ে অন্যদের সঙ্গে যখন কথা বলেছি, তার মাঝেও নিজেকেই খোঁজার চেষ্টা চলতো। লকডাউনের বেশ আগে থেকেই নিজেকে অনেক বেশি আইসোলেশনে নিয়ে যাই আমি—একটা নিরঙ্কুশ একাকীত্বের মধ্যে চলে আত্ম-অনুসন্ধানের কাজ। সো, লকডাউন আমার জন্য খুব নতুন কিছু ছিলো না। শুধু বাবা-মায়ের সঙ্গে নতুন করে থাকাটা ছিলো একেবারে নতুন।


২০১৯-এর একটা সময় আমি খুব অন্ধকারে ডুবে যাই। স্বভাবগত দিক থেকে রঙিন মানুষ হয়েও একটা গভীর ব্যক্তিগত কারণে আমার জীবন হয়ে পড়ে সম্পূর্ণ সাদা-কালো। আর এ সময়টাতেই নিভৃতে অনেকগুলো কাজ করে ফেলি। কখনো লিথোগ্রাফ, কখনো পেন্সিল স্কেচ আর কাগজে সেলাই করে করা এ-কাজগুলোই আমাকে সেই গভীর অন্ধকারেও বেঁচে থাকার প্রেরণা যুগিয়েছে। কাগজে সেলাই করে শিল্পকর্ম নির্মাণের একটা আলাদা আনন্দ আছে। সেটা হলো স্পর্শের আনন্দ।


এই স্পর্শকে কেমন করে দেখাবো! সেলাইয়ের উঁচু-নিচু অংশগুলোকে আমি বলি স্পর্শের প্রতীক। এর মধ্য দিয়ে স্পর্শের অনুভূতিকে অন্যের মনে সঞ্চার করা যায়। বড় হওয়ার পর, জীবনে এই প্রথম আমি মায়ের সাথে বাবার সাথে এতো দীর্ঘ সময় আমি কাটানোর অবকাশ পেয়েছি। আমার মায়ের গাছ লাগানোর শখ অনেক আগে থেকেই। সেই শখ লকডাউনে আরো তীব্র হলো।

তাঁর লাগানো গাছগুলো যতো বড় হচ্ছিলো, আর তাঁর বয়স যেন ততোই কমছিলো। গাছে ফল ধরা, ফুল ধরা দেখে তাঁর কী যে এক আনন্দ! সব মিলে যেন এক অপার্থিব অনুভূতি! তো, আমি তাঁকে একজন সফল চাষী হিসেবে ঘোষণা করলাম। দীর্ঘদিন ধরে আমি গন্ধ, স্পর্শ নিয়ে কাজ করি। এবার মায়ের গন্ধের সঙ্গে যোগ হলো মায়ের বাগানের গন্ধ-স্পর্শ।


গাছগুলোর পাতা যখন ঝরে পড়ে, সে-পাতার রং, শেইপকে আমার কাজের সঙ্গে সংযুক্ত করা আর স্পর্শগুলোকে ধরার জন্যই আমার কাগজে সেলাই করার কাজ। আমার ঘুমের সমস্যা আছে। রাতে ঘুম হয় না বা হতো না সেই অন্ধকার সময়গুলোতে। ঘুম না হওয়ার কারণে যে সকালে খারাপ লাগতো তা-ও না। সকালের গন্ধ আমার খুব প্রিয়।


এরমধ্যেই হলো মায়ের করোনা। দীর্ঘ ১ মাস ধরে মায়ের সিরিয়াস কন্ডিশন । আমি বুঝতে পারতাম, গাছগুলোও মাকে খুব মিস করছে। এদিকে মা তো হসপিটালে অক্সিজেন নিতে ব্যস্ত! ২৪ ঘন্টাই মায়ের সঙ্গে থাকি। তাঁর অক্সিজেন স্যাচুরেশন কমে যাওয়া-- কখনও ভালো, কখনও মন্দ। অবশেষে মায়ের জয়ী হয়ে ঘরে ফেরা। তাঁর সঙ্গে আবার তাঁর গাছেদের সেই নিবিড় সম্পর্ক--গভীর বন্ধুত্ব!

পুরো সময়টাই যেন কবিতার মত, প্রেমের কবিতা! আমার সাদা-কালো ক্যানভাসে ছড়িয়ে দেওয়া রঙের মত! অন্ধকারে অপরূপ আলোর মত। আমার ছবিগুলো যেন জীবনের মত! আমার জীবন যেন আমার ছবির মতো!

সকলকে আমন্ত্রণ!


চিত্রকর্ম প্রদর্শনী: ‘অন্বেষণ’
শিল্পী: সুবর্ণা মোর্শেদা (তৃতীয় একক প্রদর্শনী)
স্থান: ইএমকে সেন্টার
প্রদর্শনী উদ্বোধন করেন: অধ্যাপক জামাল আহমেদ, অধ্যাপক আনিসুজ্জামান, তাওহিদা শিরোপা।
মাধ্যম: লিথোগ্রাফ, সায়ানোটাইপ, পেন্সিল স্কেচ, জলরংসহ বিভিন্ন মাধ্যম
সংখ্যা: মোট ৪২টি শিল্পকর্ম
চলবে: ১৫-৩০ জানুয়ারি
শো কিউরেটর: রেজাউর রহমান

;