কুষ্টিয়ার দেড়শ ইটভাটার মধ্যে ১২৪টিই নিয়ম বর্হিভূত

ছবি: বার্তা২৪

দেশসেরা উর্বরা কৃষি জমি ও উদ্বৃত্ত খাদ্য শস্য উৎপাদনের অঞ্চল খ্যাত দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জেলা কুষ্টিয়া। জেলার মোট ১লাখ ৬২হাজার হেক্টর জমির মধ্যে প্রায় ১ লাখ ১৭হাজার হেক্টর কৃষি জমি হিসেবে চিহ্নিত। এর মধ্যে অতি উর্বরা তিন বা অধিক ফসলি কৃষি জমির পরিমাণ মাত্র ৭৬ হাজার হেক্টর।

কৃষি বিভাগের তথ্যমতে, প্রতি বছর এসব কৃষি জমিতে উৎপাদিত খাদ্য শস্য জেলার প্রায় ২২ লাখ মানুষের বার্ষিক খাদ্য চাহিদা পূরণ করেও উদ্বৃত্ত খাদ্য শস্য দেশের অন্যান্য জেলায় খাদ্য সরবরাহের যোগান দিচ্ছে।

সর্বশেষ উৎপাদন বর্ষেও এই জেলা থেকে অন্তত ২লাখ ১ হাজার মে.টন উদ্বৃত্ত খাদ্য অন্যত্র সরবরাহ করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করছেন জেলার কৃষি বিভাগ। খাদ্য শস্য উৎপাদনে এমন গৌরবময় অর্জন থাকলেও জেলায় ক্রমবর্ধমান কৃষি জমি ধ্বংসের শঙ্কার কথা জানাচ্ছেন তারা।

বিশেষ করে বেপরোয়া ইটভাটা মালিকদের কৃষি জমি আগ্রাসনকে এক আত্মঘাতি ঘটনা হিসেবে দেখছেন কৃষি বিভাগ।

ইটভাটা মালিকরা তাদের কাজকে বেআইনি বলে স্বীকার করেই বলছেন, কিছুই করার নেই; কারণ এসব দেখার দায়িত্বে যারা আছেন তাদের সবাইকে আর্থিক সুবিধার বিনিময়ে ম্যানেজ করেই হচ্ছে এসব। কেউবা বলছেন, অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। কিন্তু প্রকৃত চিত্র হলো- নামকাওয়াস্তে প্রশাসনের পক্ষ থেকে দুই একটি অভিযান পরিচালিত হলেও কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না এমনই অভিযোগ ভুক্তভোগীদের।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Nov/19/1542644664759.jpg

বিধি মতে, জেলায় ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থানের জন্য জেলা প্রশাসন থেকে যথাযথ নিয়ম মেনে লাইসেন্সসহ আনুষঙ্গিক ছাড়পত্র নিতে হয়।

জেলা প্রশাসন ইটভাটা স্থাপনে চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়ার ক্ষেত্রে কৃষি বিভাগ ও পরিবেশ অধিদপ্তর কর্তৃক ইতিবাচক ছাড়পত্র আছে কি না সে বিষয়টি দেখেন। তবে কুষ্টিয়া জেলার ছয়টি উপজেলার বিস্তীর্ণ অঞ্চলের কৃষি জমিতে গড়ে উঠা কেবলমাত্র তালিকাভুক্ত প্রায় ১৫২টি ইটভাটার মালিকদের কেউই উল্লেখিত নিয়ম মেনে ভাটা স্থাপন করেননি।

এ বিষয়ে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা জোবায়ের হোসেন চৌধুরী জানান, ভূমি জোনিং এ্যাক্ট-২০১০, কৃষি জমি সুরক্ষা আইন-২০১৫, পরিবেশ সুরক্ষা আইন-১৯৯৫সহ  ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপনে আইনগত নীতিমালা-২০১৩ সবই লঙ্ঘিত হয়েছে উপজেলার সকল ইটভাটা স্থাপনের ক্ষেত্রে। সরেজমিনে অভিযানে গিয়ে তাদের কাছে ইটভাটা স্থাপনে লাইসেন্স বা ছাড়পত্র কিছুই পাওয়া যায়নি।

কয়েকটি ইটভাটা মালিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, আমরা ভ্যাট-ট্যাক্সসহ সংশ্লিষ্ট সকল দপ্তরেই নিয়মিত টাকা দিচ্ছি। আমরা যদি অবৈধ হই তাহলে আমাদের কাছ থেকে এসব টাকা কেন নেয়া হচ্ছে ? আবার কেনইবা মাসে মাসে প্রশাসন অভিযানের নামে এসে জরিমানা আদায় ও ভাটা ভাঙচুরসহ নানা ভাবে আমাদের আর্থিক ক্ষতিসাধন করছেন? আমরাও তো দেশ উন্নয়নে অবকাঠামো নির্মাণের গুরুত্বপূর্ণ উপকরণ ইট তৈরি করছি। আমরাও চাই এর একটা সঠিক সমাধান হোক।

কুষ্টিয়া জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক বিভূতিভূষণ সরকার বলেন, কৃষি নির্ভর বাংলাদেশে কৃষি ধ্বংসের একমাত্র এবং অন্যতম প্রধান কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে ইটভাটা। বিগত এক দশকে জেলার অতি উর্বর তিন ফসলি ৭৫ হাজার ৮৮০হেক্টর কৃষি জমির মধ্যে ২৮৮হেক্টর জমিতে গড়ে উঠা দেড় শতাধিক ইটভাটা প্রত্যক্ষভাবে ধ্বংস করেছে। এছাড়া এসব ইটভাটার দুষণ ও বিরূপ প্রভাবে চতুর্দিকে আরও ৪ গুণ জমি ফসলহানির শিকার হচ্ছে।

এত কিছু জানার পর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কৃষি জমিতে কিভাবে ভাটা স্থাপনে ছাড়পত্র দেবে? কৃষি বিভাগ থেকে কোন প্রকার ছাড়পত্র ছাড়াই কৃষি জমিতে দেদারসে ইটভাটা গড়ে উঠলেও আমাদের হাতে ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা না থাকায় কিছুই করার নেই। ইটভাটা মালিকদের ‘সবাইকে ম্যানেজ’ প্রক্রিয়ার সাথে কৃষি বিভাগ কোন ভাবেই জড়িত নয় বলে তিনি দাবি করে  জানান, এসব বিষয়ে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসন ও পরিবেশ অধিদপ্তর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

কুষ্টিয়া জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর অতিরিক্ত উপ-পরিচালক (শস্য) ড. হায়াৎ মাহমুদ জেলার কৃষি উৎপাদনের চিত্র তুলে ধরে বলেন, দিনে প্রতি একজনের মাথাপিছু খাদ্য চাহিদা ৪৮৭গ্রাম হিসেবে ধরে জেলার ২২লক্ষ মানুষের একদিনের খাদ্য যোগানে প্রয়োজন ১০৭১.৪ মে. টন এবং  বার্ষিক খাদ্য চাহিদা যোগানে প্রয়োজন ৩ লাখ ৯১ হাজার ৬১ মে.টন খাদ্যশস্য। জেলার সর্বশেষ বার্ষিক খাদ্য শস্য উৎপাদনে অর্জিত লক্ষ্যমাত্রা ছিলো- ৫লাখ ৯২ হাজার মে. টন (শুধুমাত্র চাল, গম ও ভুট্টার হিসেব ধরে) যা বার্ষিক খাদ্যের যোগান দিয়েও ২ লাখ এক হাজার মে.টন খাদ্য শস্য উদ্বৃত্ত ছিলো।

এছড়াও অন্যান্য খাদ্য শস্য যেমন চিনি, সবজি, ডাল বীজ কলা প্রভৃতিও রয়েছে। উদ্বৃত্ত খাদ্যশস্য উৎপাদনে দেশের হাতে গোনা কয়েকটি জেলার  মধ্যে কুষ্টিয়া অন্যমত। এই সফলতা অর্জনে জেলার কৃষি বিভাগ নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন। তবে এতদ্সত্ত্বেও নানাবিধ কারণে উদ্বৃত্ত খাদ্য উৎপাদনের এই ধারা অব্যাহত রাখাটা ক্রমান্বয়ে শঙ্কাগ্রস্ত হয়ে উঠছে। বিশেষ করে কৃষি জমিগুলি ক্রমবর্দ্ধমান গতিতে যেভাবে নানামুখি অকৃষিজ খাতে চলে যাচ্ছে তাতে কৃষি উৎপাদনের মূল আঁধার যে জমি তার সিংহভাগই ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Nov/19/1542644701921.jpg

এদিকে কোন প্রকার অনুমোদন ছাড়া ম্যানেজ করে ইটভাটা নির্মাণের সত্যতা পেয়েছেন বলে জানালেন দুদক কুষ্টিয়ার সহকারি পরিচালক হাফিজুল ইসলাম।

পরিবেশ অধিদপ্তর কুষ্টিয়ার সিনিয়র কেমিস্ট মিজানুর রহমান বলেন,  জেলায় প্রায় দেড় শতাধিক ইটভাটার মধ্যে মাত্র ২৬টি ইটভাটা স্থাপনে পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র নেয়া থাকলেও অন্যদের কোন ছাড়পত্র দেয়া হয়নি। তবুও কিভাবে এসব ভাটা চলছে তা সংশ্লিষ্ট প্রশাসন বলতে পারবেন। তবে এসব অবৈধ ভাটা মালিকদের সাথে পরিবেশ অধিপ্তরের কারো সাথে কোন অনৈতিক সম্পর্ক নেই বলে দাবি করেন তিনি।

কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মুহাম্মদ ওবাইদুর রহমান জানান, জেলায় ভাটা স্থাপনের ক্ষেত্রে ভাটা মালিকরা নীতিমালা লংঘন করেই এসব করছেন। তবে ব্যক্তিগতভাবে কেউ ইচ্ছে করলেই জমির শ্রেণি পরিবর্তন করতে পারবেন না। কৃষি জমিকে অকৃষিজ দেখিয়ে আইনের ব্যত্যয় ঘটেছে এমন অভিযোগ পেলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সম্প্রতি কুষ্টিয়ায় দুটি অবৈধ ইটভাটা উচ্ছেদ করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এসব ইটভাটার কারণে পরিবেশ ধ্বংস, ফসলি জমির উর্বরতা বিনষ্ট ও জীববৈচিত্র্য ক্ষতির অভিযোগ রয়েছে। দুদক এনফোর্সমেন্ট ইউনিটের প্রধান সমন্বয়ক ও মহাপরিচালক (প্রশাসন) মোহাম্মাদ মুনীর চৌধুরীর নির্দেশে এ অভিযান পরিচালিত হয়।

জাতীয় এর আরও খবর

//election count down