নগর অ্যাপে সমস্যার সমাধান হবে ৪৮ ঘণ্টায়



সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, ঢাকা, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীর সমস্যা সমাধানের জন্য নগর অ্যাপ তৈরি হচ্ছে। আর এই অ্যাপের মাধ্যমে অভিযোগের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে সমস্যার সমাধান করা হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র প্রার্থী বিজিএমইএ-এর সাবেক সভাপতি মো. আতিকুল ইসলাম।

মঙ্গলবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) দুপুর ১২টায় রাজধানীর রাওয়া ক্লাবে এক মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন তিনি।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের আসন্ন উপনির্বাচনের মেয়র প্রার্থী বিজিএমইএ-এর সাবেক সভাপতি মো. আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘বিএনপির সময় মোবাইল ফোনের দাম ছিল এক লাখ টাকা। এখন তা হয়েছে সর্বনিম্ন এক হাজার টাকা। সবার হাতে হাতে ফোন। নগর অ্যাপ তৈরি হচ্ছে। কোথাও কোনো সমস্যা হলে ছবি তুলে নগর অ্যাপে আপলোড করে দিন। তাহলে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে সমস্যার সমাধান করা হবে। জবাবদিহিতা শক্ত করা হবে। জবাবদিহিতা না থাকলে সুশাসন করা সম্ভব হবে না। নগর অ্যাপের মাধ্যমেই নগরীর সমস্যার সমাধান হবে।’

মতবিনিময় সভায় এফবিসিসিআই-এর সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, ‘আমাদের পোশাক শিল্পের দুটি নক্ষত্র হলো সালাম মুর্শেদী ও আতিকুল ইসলাম। বিজিএমইএতে দেখেছি তারা সর্বোচ্চ সংখ্যক ভোট পেয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর নজরে বিষয়টি এসেছে। আতিকুল ইসলাম নগর পিতা হবেন না, তিনি হবেন ঢাকা উত্তরের সেবক। যতই কর্মব্যস্ততা থাকুক না কেন ২৮ ফেব্রুয়ারি সবাই ভোট দিয়ে আতিকুল ইসলামকে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র হিসেবে নির্বাচিত করবেন।’

বিজিএমইএ এর সভাপতি মো. সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘ভোটকেন্দ্রে না গেলে কোনো লাভ হবে না। পরিবার পরিজন নিয়ে আতিকুল ইসলামকে ভোট দিতে হবে।’

বিজিএমইএ এর সাবেক সভাপতি আবদুস সালাম মুর্শেদী এমপি বলেন, ‘দেশে অর্থনৈতিক উন্নয়নে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখে ব্যবসায়ীরাই। তাই বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বও পেয়েছেন ব্যবসায়ী মহলের মানুষরাই। উত্তর সিটি করপোরেশন নিয়ে প্রয়াত মেয়র আনিসুল হক যে স্বপ্ন দেখেছেন তা বাস্তবায়ন যাতে হয় সেজন্য আতিকুল ইসলামকে ভোট দিতে হবে। আমাদেরকে কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিতে হবে। প্রধানমন্ত্রী যাকে মনোনয়ন দিয়েছেন তার জন্য আমাদের কাজ করতে হবে।’

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন বিজিএমইএ-এর সহ-সভাপতি (অর্থ) মোহাম্মদ নাসির, বিজিএমইএ-এর সহ-সভাপতি ফারুক হাসান, এফবিসিসিআইয়ের সহ-সভাপতি শেখ ফাহিম প্রমুখ।