মাদরাসা ছাত্রীর অবস্থার উন্নতি দেখছেন না চিকিৎসকরা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, ঢাকা, বার্তা২৪.কম
বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন ওই মাদরাসা ছাত্রী, ছবি: সংগৃহীত

বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন ওই মাদরাসা ছাত্রী, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ফেনীর সোনাগাজী উপজেলায় দগ্ধ মাদরাসা ছাত্রীর শারীরিক অবস্থার কোনো উন্নতি দেখছেন না চিকিৎসকরা। চিকিৎসকদের শত প্রচেষ্টার পরেও তার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল হচ্ছে না বলেও জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

মঙ্গলবার (৯ এপ্রিল) বিকেলে ৩টায় চিকিৎসাধীন দগ্ধ মাদরাসা ছাত্রীর শারীরিক অবস্থা নিয়ে বার্তা২৪.কম-কে কথাগুলো বলেন শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইন্সটিটিউটের সমন্বয়ক অধ্যাপক ডা. সামন্ত লাল সেন।

অধ্যাপক ডা. সামন্ত লাল সেন বলেন, 'আজকে আমরা সকালে সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলেছিলাম। এই মর্মে কথা বলেছিলাম যে, ওই মাদরাসা শিক্ষার্থীকে সিঙ্গাপুরে পাঠানো যায় কিনা। কিন্তু তারা তার শারীরিক অবস্থা দেখে সিঙ্গাপুরে পাঠানোর জন্য না করেছে। কিন্তু তারা কিছু সাজেশন দিয়েছিলেন। সেই সাজেশন অনুযায়ী তার আজকে একটি অস্ত্রোপচার করা হয়।'

তিনি বলেন, 'অস্ত্রোপচারের পরও তার শারীরিক অবস্থার কোনো উন্নতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। ধীরে ধীরে তার অবস্থার অবনতি হচ্ছে। তবে আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।'

এদিকে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, অগ্নিদগ্ধ মেয়েটির বুক-পিঠ পুড়ে এমনভাবে ভেতরের দিকে ঢুকে গেছে যে ফুসফুস ওঠানামা করতে পারছে না। তাই ফুসফুস যেন ঠিক মতো কাজ করে সেই জন্য সকালে অস্ত্রোপচারটি করা হয়। কিন্তু অস্ত্রোপচারের পরও উন্নতি ঘটেনি।

এর আগে ওই মাদরাসার শিক্ষার্থীকে সিঙ্গাপুরে পাঠানো যাবে কিনা এ বিষয়ে মঙ্গলবার সকালে সিঙ্গাপুরের জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসকদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে কথা বলেন অধ্যাপক ডা. সামন্ত লাল সেন।

এ বিষয়ে সামন্ত লাল সেন বলেন, 'তার শারীরিক অবস্থার যে কন্ডিশন তাতে পাঁচ ঘণ্টা ফ্লাই করা সম্ভব নয় বলে মনে করছেন সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসকরা। তার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল হলে তখন সিঙ্গাপুরে নেওয়া যেতে পারে। এসব বিষয় আমরা তার পরিবারকে জানিয়েছি।'

তিনি বলেন, 'সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালের আইসিইউর কনসালটেন্ট আমাদের সব কাগজপত্র চেক করেছেন। তারা আমাদের বলেছেন, তোমরা এখন পাঠিও না। তারা আমাদের চিকিৎসার সঙ্গে একমত। এছাড়া তারা আরও কিছু সাজেশন দিয়েছেন।'

তিনি আরও বলেন, 'আজ (মঙ্গলবার) তাকে আমরা অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে যাব। আমরা প্রতিনিয়ত সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসা পদ্ধতির মধ্যে থাকব তার জন্য।'

এর পর সিঙ্গাপুরের চিকিৎসকদের সাজেশন অনুযায়ী ওই মাদরাসা শিক্ষার্থীর সকাল ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত অস্ত্রোপচার করা হয়।

উল্লেখ, গত শনিবার (৬ এপ্রিল) সকালে আলিম পরীক্ষা দিতে সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদরাসায় যান ঐ ছাত্রী। তার বান্ধবীকে ছাদের ওপর কেউ মারধর করছে- এমন সংবাদ পেয়ে ছাদে যান ঐ ছাত্রী।

সেখানে মুখোশ পরা চার থেকে পাঁচ জন ছাত্রী তাকে অধ্যক্ষ সিরাজ উদ-দৌলার বিরুদ্ধে মামলা ও অভিযোগ তুলে নিতে চাপ দেয়। অস্বীকৃতি জানালে তারা তার গায়ে আগুন দিয়ে পালিয়ে যায়। পরে তাকে ফেনী থেকে ঢামেকের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়।

এদিকে ঐ ছাত্রীর পরিবার সূত্রে জানা যায়, ২৭ মার্চ মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা সিরাজ উদ-দৌলা নিজ কক্ষে ডেকে নিয়ে ঐ ছাত্রীর শ্লীলতাহানি করেন। এই ঘটনায় তার মায়ের করা মামলায় অধ্যক্ষ এখন কারাগারে আছেন।