ঈদ-উল আযহা দেশে দেশে



আহমেদ দীন রুমি, কন্ট্রিবিউটিং করেসপন্ডেন্ট
দেশভেদে ঈদ-উল আযহাকে বরণ করাতে রয়েছে পার্থক্য

দেশভেদে ঈদ-উল আযহাকে বরণ করাতে রয়েছে পার্থক্য

  • Font increase
  • Font Decrease

বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুত বর্ধনশীল এবং দ্বিতীয় বৃহত্তম জাতি মুসলিম। ৬১০ সালে ইসলামের নবী মুহম্মদ (সা.)-এর নবুয়্যত প্রাপ্তির মধ্যদিয়ে যে আদর্শ জন্মলাভ করে, আজ তা বিস্তৃত পৃথিবীর প্রত্যেকটি কোণে। শুধু আলাদা বিশ্বাসব্যবস্থা না, ইসলাম নিয়ে এসেছিল স্বতন্ত্র সংস্কৃতি, জীবনবোধ এবং ভাবধারা। আচার আনুষ্ঠানিকতার পাশাপাশি তাই দিয়েছে উৎসবের ধারণাও। মুসলিম জাতির বৃহত্তম উৎসবের দিন হিসাবে গণ্য করা হয় ঈদ-উল আযহাকে।

কুরবানির ঈদ বা পল্লীবাংলায় বড় ঈদ নামে পরিচিত ঈদ-উল আযহা। পালিত হয় হিজরি জিলহজ মাসের ১০ তারিখ। মুসলিম জাতির পথিকৃৎ ইবরাহিম (আ.) মহান আল্লাহর কাছে নিজের ইচ্ছাকে সমর্পণ করার মধ্যদিয়ে আদর্শ স্থাপন করেছেন। উদ্ধত হয়েছিলেন নিজের পুত্রকে কুরবানি করতে। মুসলিম জাতি মূলত সেদিনের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা হিসাবেই পালন করে এই দিন। গ্রহণ করে নিজেদের মতো করে উৎসাহ আর উদ্দীপনা নিয়ে।

তবে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ঈদ-উল আযহাকে বরণ করাতেও রয়েছে পার্থক্য। কিছুটা স্থানীয় সংস্কৃতির প্রভাব আর কিছুটা সময়ের বিবর্তন। নানান দেশের প্রেক্ষাপটে ঈদ-উল আযহাকে কিভাবে উদযাপন করা হয়, তা নিয়েই আজকের আয়োজন।

ইরান

প্রত্যুষে উঠে নতুন পোশাক পরিধান করে প্রস্তুত হয় ইরানের মানুষ। স্থানীয় মসজিদ কিংবা মাঠে হাজির হয়ে আদায় করে ঈদের নামাজ। ধর্মগ্রন্থ পাঠ এবং আলোচনা চলে দেশব্যাপী। পিতা ইবরাহিমের ঘটনাকে স্মরণ করে কুরবানি করা হয় বিভিন্ন ধরনের পশু। গরিব, পরিবার, বন্ধু এবং আত্মীয়দের সাথে ভাগাভাগি করা হয় খাবার। বিভিন্ন শ্রেণীর মানুষের মধ্যে সুষম বিলি-বণ্টন করা হয়। এই বিলি বা দান মূলত কুরবানির শিক্ষা। শিশু আর আত্মীয়রা পায় উপহার। যাদেরকেই কুরবানি দিতে দেখা যায়, আহবান করা হয় গরিব ও অভাবীদের জন্য এগিয়ে আসতে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/12/1565571863250.jpg
◤ ইরানে কুরবানির দৃশ্য◢


খাদ্যদ্রব্যের জন্য ইরানে ঈদ-উল আযহা নোনতা ঈদ বলেও অভিহিত হয়। কুরবানি পশুর গোশত দিয়ে নানান কিসিমের মুখরোচক খাদ্য প্রস্তুত করা হয়। বিশেষভাবে বলতে গেলে বিভিন্ন ধরনের কাবাব এবং হালিম। বাঘালির মতো স্থানীয় খাবারেরও প্রাচুর্য থাকে এই সময়।

আরব আমিরাত

ঈদ-উল আযহায় দশ দিন আগে চাঁদ দেখে দিন নির্ধারিত হয়। অর্থাৎ উৎসবের জন্য পর্যাপ্ত প্রস্তুতি নেবার সময় পান সবাই। তার জন্য ঈদের দিনের আগের মুহূর্ত পর্যন্ত সুপার মার্কেটগুলোতে ভিড় লেগে থাকে। সংযুক্ত আরব আমিরাতে ঈদ-উল আযহা উপলক্ষে কমপক্ষে তিন দিন সরকারি বন্ধ দেওয়া হয়। সবথেকে গুরুত্ব দেওয়া হয় ঠিক আগের দিন অর্থাৎ আরাফাতের দিন।

হজ্ব না করলেও মুসলমানরা এদিন ইবাদতে অংশগ্রহণ করে। আরাফাতের দিন রোজা রাখার কথা হাদিস থেকে প্রমাণিত বলে এই দিনটা বেশ আড়ম্বরের সাথে পালিত হয়।

ঈদের দিন সবাই মিলিত হয় ঈদগাহে। নামাজের পরে পরস্পর কোলাকুলি ও ঈদ মোবারক জানিয়ে পরস্পরকে অভিবাদন জানায়। এর মধ্যদিয়েই শুরু হয় তিন দিনব্যাপী উৎসব। বিনিময় ঘটে উপহারের। শিশুরা দিনটাতে নতুন কাপড় পরে প্রতিবেশিদের ঈদ বিস্কুট বিলি করে। বাড়িকে সাজানো হয় ঈদের ব্যানারে। দুধ খুরমো এবং শির খুরমো নামে সুস্বাদু খাবার তৈরি হয়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/12/1565572011736.jpg
◤ আরব আমিরাতে ঈদের রাত্রি ◢


আগের রাতে মেহেদী পড়ার সংস্কৃতি আরব আমিরাতে বেশ ভালোভাবেই আছে। ঈদ উপলক্ষে বিভিন্ন পণ্যে বিশেষ ছাড় এবং অফার দেওয়া হয়। এজন্য অনেকেই সুযোগটাকে হাতছাড়া হতে দেয় না। তাছাড়া পরিবার নিয়ে বিভিন্ন রিসোর্টে ভ্রমণ কিংবা রেস্টুরেন্টে খাবার-দাবারের দৃশ্য খুবই স্বাভাবিক। 

কানাডা

দিনটাকে উদযাপন করার জন্য কানাডার মুসলমানরা একত্রিত হয়। কানাডার মুসলিমদের সংগঠন The Muslim Association of Canada (MAC) এই দিনকে উৎসবমুখর করে তোলার জন্য সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালায়। নানা রকম রাইড, শো কিংবা টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণের ব্যবস্থা করা হয়। চলে বিভিন্ন রান্নাও। উপস্থিত থাকে সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষ। রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গও তাদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/12/1565572131932.jpg
◤ ঈদ-উল আযহার শুভেচ্ছা জানাতে ট্রুডো ◢


ঈদ-উল আযহা কানাডায় সরকারি বন্ধ হিসাবে স্বীকৃত নয়। তবে কর্মস্থলে মুসলমানদের চাপ দেওয়া হয় না। বিশেষ করে মুসলিম সংগঠনগুলো স্বেচ্ছায় এদিন বন্ধ বা কর্মবিরতি পালন করে। মসজিদ কিংবা ঈদের নামাজের স্থলে দেওয়া হয় বাড়তি নিরাপত্তা। 

ভারত

ভারতীয় উপমহাদেশে ঈদ-উল আযহা পরিচিত বকরি ঈদ নামে। নামটি মূলত বকরি কুরবানির ধারণা থেকেই গৃহীত। বৃষ্টি না হলে এদিনের বিশেষ নামাজ ঈদগাহেই পড়া হয়। সেখান থেকে ফিরে কুরবানি। সাম্প্রতিক সময়ে উগ্র হিন্দুত্ববাদের উত্থানে মুসলিমরা একটু কোণঠাসা হবার দরুন গরু কুরবানি বিশেষভাব ভীতিকর হয়ে পড়েছে। তাই ঈদের দিন সাধারণত ছাগল বা ভেড়ার প্রাধান্য বেড়ে যাচ্ছে দিনকে দিন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/12/1565572279972.jpg
◤ ভারতে ঈদের জামাত ◢


যারা কুরবানি করে তারা দরিদ্র এবং আত্মীয়দের দাওয়াত করে একবেলা খাওয়ানোর জন্য। ঐতিহ্যবাহী স্থাপনা-দর্শনের উদ্দেশ্যে অনেকেই বেড়িয়ে পড়ে। যেহেতু ভারতের মাটি সুদীর্ঘকাল ধরে মুসলিম সাম্রাজ্যের কেন্দ্রভূমি ছিল, তাই তা থেকে নিজেদের পূর্বপুরুষের চিহ্নে খুঁজে পায় নতুন প্রেরণা। 

পাকিস্তান

পাকিস্তানে ঈদ-উল আযহা চার দিনব্যাপী উৎসব হিসাবে পালিত হয়। বেশিরভাগ স্থানীয় দোকান এবং শপিং সেন্টারগুলো বন্ধ হয়ে যায়। নামাজের মধ্যদিয়েই শুরু হয় উৎসবের আমেজ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/12/1565572397201.jpg
◤ ঈদের দিনে পাকিস্তান ◢


সামর্থ্যবান প্রতিটি পরিবার তাদের সাধ্যমত পশু কুরবানি করে। যারা কুরবানি করতে পারেনি কিংবা যারা অক্ষম, তাদের নিমন্ত্রণ করা হয়। টিভি চ্যানেলগুলো ঈদ উপলক্ষে চালু করে নানা ধরনের অনুষ্ঠান। 

তুরস্ক

মুসলিম সংস্কৃতির অন্যতম প্রধান কেন্দ্রবিন্দু তুরস্ক। ঈদ সেখানে সবচেয়ে পুরাতন উৎসবের মধ্যে একটা। আনাতোলিয়ার তুর্কি বেলিক এবং পরবর্তীদের অটোম্যান সাম্রাজ্যের উত্থানে তুরস্কে ঈদকে অন্যরকম মর্যাদায় উন্নীত করেছে সবার মধ্যে।

পুরাতন বিশ্বাস মতে, এই দুইদিনের মধ্যে বিয়ে কিংবা নতুন কোনো ব্যবসা শুরু করা ঠিক না। প্রত্যেক বাড়ি থেকে ভোরে ফজরের নামাজ পড়ার জন্য মসজিদে যাওয়া হয়। বেলা গড়ানোর সাথে সাথে ঈদের বিশেষ নামাজের পর শুরু হয় কুরবানি। কোনো কোনো অঞ্চলে পশুকে মেহেদি এবং কাপড় দিয়ে সাজানো হয়। অন্যান্য অঞ্চলের মতোই কুরবানির গোশত বণ্টন করে আত্মীয় ও অভাবীদের মধ্যে বিলি করা হয়। পশু হিসাবে থাকে সাধারণত মেষ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/12/1565572544630.jpg
◤ তুরস্কের মাটিতে ঈদের আমেজ ◢


সাম্প্রতিক সময়ে তুরস্কে কেউ কেউ পশু কুরবানি না করে সমপরিমাণ অর্থ দরিদ্র তহবিল কিংবা মুসলিম উন্নয়ন সংস্থাতে দান করে। কেউ দরিদ্রদের বিশেষ দেখাশোনার ভারও গ্রহণ করে। ছুটির প্রথম দিনটা থাকে মূলত প্রতিবেশি ও আত্মীয়দের বাসায় বেড়াতে যাবার জন্য। বয়স্কদের হাতে চুমু দেওয়া সম্মান জানানোর নামান্তর। বন্ধ থাকে মোটামুটি চার দিন। 

মরক্কো

ঈদ-উল আযহা মরক্কোতে ঈদ-উল কাবির নামে স্বীকৃত। সাধারণত অন্যান্য দেশের মতোই দিনটা শুরু হলেও স্থানীয় সংস্কৃতির আমেজ দেখা যায়। ঈদের নামাজের পর পশু কুরবানিকে গণ্য করা হয় আল্লাহর উদ্দেশ্যে ত্যাগ। পশু গরু, ছাগল কিংবা ভেড়া থাকে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/12/1565572690748.jpg
◤ মরক্কোতে ঈদ পালিত হয় উৎসাহ ও উদ্দীপনার সাথে ◢


মরক্কো একসময় মুসলিম সাম্রাজ্যের অন্যতম বিচরণভূমি থাকায় ইসলামী প্রাচীন নিদর্শন রয়েছে। ঈদের দিন তারা স্থানীয় মসজিদ ও স্থাপত্য পর্যবেক্ষণে সময় দিতে পছন্দ করে। তাছাড়া কুরবানির পশু এবং তাজিনের মতো স্থানীয় খাবার আত্মীয় ও দরিদ্রদের সাথে ভাগাভাগি করা হয়। 

মিশর

“ক্বুল সানা ওয়া ইনতা তায়েব” বলে মিশরীয়রা একে অপরকে অভিনন্দন জানায় পবিত্র ঈদ-উল আযহায়। ঈদকে ঘিরে আয়োজন করা হয় হরেক কিসিমের খাবারের। প্রতিবেশি এবং আত্মীয়দের মধ্যে দরিদ্রদের সাথে ভাগ করা হয় ঈদের আনন্দ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/12/1565573155325.jpg
◤ মিশর ঈদ উদযাপনে পিছিয়ে নেই ◢


শহরব্যাপী অভাবীরা দিনটার জন্য অপেক্ষায় থাকে। ধনী কিংবা মুসলিম সংস্থাগুলো থেকে যেন পর্যাপ্ত সাহায্য সহযোগিতা পায়। 

যুক্তরাজ্য

কয়েকটি ব্রিটিশ শহরে ঈদ-উল আযহা বেশ উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে পালিত হয়। কিছু কিছু মসজিদে ইসলাম এবং ইসলামের ইতিহাস নিয়ে লেকচারের আয়োজন করা হয়। সাধারণত হিথ পার্ক ব্রিটিশ মুসলমানদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ স্থান বলে বিবেচ্য।

২০১৭ সালে ইউরোপের সবচেয়ে বড় জমায়েত হয়েছে বার্মিংহামে। ১০৬০০০ জন মুসলিম ২৫ জুন একসাথে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে। জ্যামের কথা মাথায় রেখে জনতাকে সাড়ে সাতটার ভেতরে হাজির হতে নির্দেশনা দেওয়া হয়। যদিও নামাজ শুরুর কথা থাকে সাড়ে আটটার দিকে। তবে আবহাওয়া যদি বিরূপ হয়, তবে নামাজ স্থানীয় মসজিদেই আদায় করা হয়। এই দিক মাথায় রেখে গ্রিন লেন মসজিদে নামাজের সময় দেওয়া হয়েছে সাড়ে আটটা, সাড়ে নয়টা এবং সাড়ে দশটা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/12/1565573289817.jpg
◤ ইউরোপের মাটিতে বৃহত্তম জমায়েত হয় যুক্তরাজ্যে ◢


গোটা যুক্তরাজ্যে অবস্থানরত মুসলমানদের জীবনযাপনের মান আরো উন্নত করার দিকটা তাদের কাছে প্রাধান্য পায়। তাছাড়া পশু কুরবানি, প্রতিবেশিদের সাথে ভাব বিনিময় এবং বিশেষ স্থানসমূহে ঘুরতে যাওয়ার প্রবণতা দেখা যায়। 

যুক্তরাষ্ট্র

যুক্তরাষ্ট্রের অভিবাসী মুসলিমরা সাধারণত বিক্ষিপ্ত। ঈদ তাদের জন্য একত্রিত হবার সুযোগ করে দেয়। বিশেষ করে শিকাগো এবং ফ্লোরিডাতে ভিড় জমে মধ্যপ্রাচ্য, ভারতীয় উপমহাদেশ এবং আফ্রিকা থেকে আসা মানুষের। নিজ ঐতিহ্যের পোশাক এবং খাবার দিয়ে তার ঈদকে বৈচিত্র্য দান করে।

২০১৬ সালের ঈদ-উল আযহাতে নিউ ইয়র্কের সরকারি স্কুলগুলি বন্ধ ছিল। টেক্সাসে ঈদের সালাতের আয়োজন হয় জর্জ আর ব্রাউন কনভেনশন সেন্টারে। আয়োজন করেছিল Islamic Society of greater Houston (ISGH)।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/12/1565573468503.jpg
◤ আমেরিকান মুসলিমদের জন্য ঈদ অন্যমাত্রা নিয়ে আসে ◢


কেউ আবার নিজ দেশে টাকা প্রেরণ করে কুরবানি করার জন্য। কেউবা অভাবীদের সহযোগিতার আশায়। ঈদ-উল আযহা তিন দিন স্থায়ী হয়। 

তিউনিশিয়া

অন্যান্য মুসলিম দেশগুলোর মতো ঈদ-উল আযহা তিউনিশিয়াতে সরকারি ছুটি হিসাবে গণ্য হয়। ঈদের দিন পুরুষেরা সকাল সকাল ঈদগাহের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। নারীরা বাসায় অবস্থান করে প্রস্তুত করেন খাবার-দাবার। 

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/12/1565573633894.jpg
◤ ঈদ পুরনো সংস্কৃতিতে পরিণত হয়েছে তিউনিশিয়ায় ◢


পুরুষেরা ফিরে এলেই কুরবানি পর্ব শুরু। তিনভাগের একভাগ পরিবারের জন্য, একভাগ আত্মীয় এবং একভাগ গরিবদের জন্য রাখা হয়। ঈদের জন্য বিশেষ ধরনের পিঠা ও বিস্কুট তৈরি হয় তিউনিশিয়ায়। তাছাড়া শিশুদের জন্য থাকে মিষ্টি এবং খাবার।

বাংলাদেশ

বাংলাদেশে ঈদ-উল আযহা কুরবানির ঈদ বা বকরি ঈদ নামে পরিচিত। ধর্মীয় এবং রাষ্ট্রীয় দুইভাবেই পালন করা হয় এখানে। প্রায় একমাস আগে থেকে সারা পড়ে যায়। দোকান কিংবা সুপার মার্কেটগুলো জমজমাট হয়ে পড়ে ক্রেতার ভিড়।

কুরবানির পশু ক্রয়ের জন্যও চলে প্রায় পনের দিন আগে থেকেই তোড়জোড়। কেউ কেউ বাইরে থেকে উট আনলেও গরু, ছাগল এবং মহিষই এখানে বেশি মাত্রায় কুরবানি দেওয়া হয়। সপ্তাহব্যাপী চলে টিভি চ্যানেলের অনুষ্ঠান। পার্ক এবং দর্শনীয় স্থানগুলোতে থাকে উপচে পড়া ভিড়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/12/1565573823933.jpg
◤ বাংলাদেশের শোলাকিয়াতে ঈদের জামাত ◢


গ্রাম বাংলায় বাহারি ধরনের পিঠা, সেমাই, ফিরনি এবং পায়েশ রান্না হয়। আত্ময় স্বজনদের বাড়ি ঘুরতে যাওয়া কিংবা দাওয়াত করে বাসায় এনে একসাথে উপভোগ করা হয় ঈদের আনন্দ। দরিদ্র ও অভাবীদের পাশে সাধ্য অনুযায়ী এগিয়ে আসেন সামর্থ্যবানেরা। 

আরো পড়ুন ➥ উপমহাদেশের প্রসিদ্ধ যত ঈদগাহ