শোয়েব আখতারকে ছুঁয়ে ফেললেন মাশরাফি



সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
মাশরাফি ও শোয়ব আখতার

মাশরাফি ও শোয়ব আখতার

  • Font increase
  • Font Decrease

স্বপ্নের মতো একটা রাত কাটলো বাংলাদেশের ক্রিকেটপ্রেমীদের। দুবাইয়ে মুশফিক-তামিমরা মিলে জন্ম দিলেন নতুন এক রূপকথার। এশিয়া কাপের উদ্বােধনী ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে অনেক ঘটনার ম্যাচে বাংলাদেশ জিতল ১৩৭ রানে। ম্যাচটিতে বল হাতে শুরুটা অবশ্য ভাল ছিল না মাশরাফি বিন মর্তুজার। প্রথম ওভারেই দেন ১৩ রান। কমেন্ট্রি বক্সে পাকিস্তানি রমিজ রাজা এনিয়ে মন্তব্যও করে বসেন। বিশেষ করে মাশরাফির ১২০ কিলোমিটার গতির বল নিয়ে অনেকটা রসিকতাই করলেন তিনি!

কিন্তু এরপরই মাশরাফি তার জবাবটা দিয়ে দেন। সেই চেনা বোলিংটাই উপহার দিলেন তিনি। লঙ্কানদের বিপক্ষে দুবাই আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে ৬ ওভারে ২ মেডেন। ২৫ রানে শিকার করলেন দুই উইকেট।

এরই পথ ধরে পাকিস্তানেরই সাবেক পেসার শোয়েব আখতারকে ছুঁয়ে ফেলেন মাশরাফি। দু'জনেরই উইকেট সংখ্যা এখন ২৪৭টি। শোয়েবের মতো গতি না থাকলেও বুদ্ধিমত্তায় ঠিকই সাফল্য আদায় করছেন ম্যাশ।

ইনজুরি আর বয়স দুটোই উড়িয়ে দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন মাশরাফি। আসছে অক্টোবরে ৩৫ ও পা দেবেন তিনি। আর এ অবস্থায় বাংলাদেশ অধিনায়কের সামনে আছেন ভারতীয় কিংবদন্তি পেসার কপিল দেব। ২২৫ ওয়ানডেতে যিনি নিয়েছেন ২৫৩ উইকেট। এই এশিয়া কাপেই হয়ত কপিলকে টপকে যেনে পারেন টাইগার ক্রিকেটের এই লিজেন্ড। মাশরাফির ১৯১ ম্যাচে তুলেছেন ২৪৭ উইকেট। আর শোয়েব ১৬৩ ম্যাচে তুলেছিলেন সমান উইকেট।

এদিকে শনিবারের জয়টা মাশরাফি উৎসর্গ করেন প্রবাসী বাঙালিদের। পুরস্কার প্রদান মঞ্চে মাশরাফি বাংলায় বলেন, ‘আপনারা যেভাবে আমাদের সমর্থন করতে আসলেন, এটা সত্যিই অবিশ্বাস্য। এই জয়টা আপনাদের জন্য। সকল প্রবাসী বাঙালিদের অনেক ধন্যবাদ। এশিয়া কাপের বাকি সময়েও এমন সমর্থন প্রয়োজন আমাদের।’

সত্যিই তাই গ্যালারিতে প্রবাসী বাংলাদেশিদের উচ্ছ্বাস ছিল চোখে পড়ার মতো। মনে হচ্ছিল দুবাইয়ের মাঠ নয় খেলা যেন হচ্ছে মিরপুরের শেরেবাংলায়!