ভারতকে সুবিধা দিতে নিয়ম বদল, মাশরাফির ক্ষোভ



সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
মাশরাফি বিন মর্তুজা

মাশরাফি বিন মর্তুজা

  • Font increase
  • Font Decrease

ভারতকে সুবিধা দিতে অনিয়ম করতেও পিছপা হল না এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল (এসিসি)! আর সেই অনিয়মে এশিয়া কাপে সবচেয়ে বড় ক্ষতিটা হল বাংলাদেশের। বৃহস্পতিবার আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচটা জিতলেও গ্রুপ রানার্স আপই থাকবে টাইগাররা। সত্যিই বিস্ময়কর! এই ম্যাচটাকে গুরুত্বহীন করে দিয়ে গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচের আগেই গ্রুপের এক, দুই নম্বর দল ঠিক করে নতুন সূচি দিয়েছে এসিসি!

আর এমন কাণ্ডে ক্ষোভে ফুঁসছেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। বাংলাদেশ অধিনায়ক কিছুতেই এমন সিদ্ধান্ত মানতে পারছেন না। মাশরাফি বুধবার গণমাধ্যমে বলছিলেন, ‘এমন সিদ্ধান্ত অবশ্যই হতাশার। প্রথম থেকেই আমাদের পরিকল্পনায় ছিল যে আমরা যদি শ্রীলঙ্কাকে প্রথম ম্যাচে হারাতে পারি হয়ত গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পথে এগিয়ে যাব। তারপর গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হলে গ্রুপ ‘এ’ রানার্স আপ দলের সঙ্গে সুপার ফোরে প্রথম ম্যাচ খেলবো। কিন্তু বুধবার সকাল থেকে জানতে পারছি, আমরা আফগানিস্তানের বিপক্ষে জিতি আর হারি, আমরা ‘বি ২’ হয়ে গেছি। এটা অবশ্যই হতাশার এক খবর।’

এটা এসিসি করেছে ভারতকে সুবিধা দিতেই। ক্রিকেটের এই মোড়ল দেশটি নতুন সূচিতে সব ম্যাচই খেলবে দুবাইয়ে। আগে থেকেই ভারতীয় দল আবুধাবিতে খেলা নিয়ে আপত্তি তুলেছিল। এসিসি তাদের ইচ্ছেকে মূল্য দিয়ে নতুন বিতর্কের জন্ম দিয়েছে।

আগের সূচিতে ‘এ’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হলেই সব ম্যাচ দুবাইতে খেলার সুযোগ পেত রোহিত শর্মার দল। এ অবস্থায় বুধবার পাকিস্তানের কাছে হারলেও তাদের গ্রুপের এ-১ ধরে খেলা রাখা হল দুবাইতে। বাংলাদেশকে বি-২ ধরে করা হল সূচি। বি-২ এর আগের সূচি অনুযায়ী সুপার ফোরের প্রথম ম্যাচ দুবাইতে। পরের দুই ম্যাচ ২৩ আর ২৬ সেপ্টেম্বর আবুধাবিতে বি-২ হিসেবে খেলবে টাইগাররা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Sep/19/1537360268112.jpg

মাশরাফি আফগান ম্যাচের আগে এমন ঘটনা হতাশ। বলছিলেন, ‘দেখুন, আফগানিস্তানের সঙ্গে ম্যাচটি অবশ্যই আন্তর্জাতিক ম্যাচের মূল্য আছে। কিন্তু গ্রুপ ম্যাচ বলেন বা যাই বলেন, একটা নিয়ম থাকে টুর্নামেন্টের। সেই নিয়মের বাইরে চলে যাচ্ছি আমরা। এটাই আমাদের জন্য হতাশার।’

২০ তারিখ আফগানিস্তানের বিপক্ষে দিবারাত্রির ম্যাচটিতে খেলতে আবুধাবি যাবে টাইগাররা। খেলা শেষ হতেই বিশ্রামের সুযোগ নেই। দ্রুত হোটেলে ফিরতে মাঝরাতেই আবুধাবী আসতে হবে। কিংবা পররের দিন সকালে। কারণ সেদিনই সুপার ফোরের ম্যাচে প্রতিপক্ষ ভারত। নতুন সূচিতে এমনই ঝামেলায় পড়ল দল। মাশরাফি বলছিলেন, ‘২০ তারিখে ম্যাচ এরপর সুপার ফোরের প্রথম ম্যাচটা পরের দিন। আমাদের ১০ ঘণ্টাও রিকোভারির টাইম থাকছে না। ভাবছিলাম-গ্রুপ পর্বে চ্যাম্পিয়ন হলে দেখা যাক কোন প্রতিপক্ষকে পাই। এই হিসাব-নিকাশের কোন সুযোগ নাই। খারাপ জিনিসটাই আমাদের দিকে এসেছে। আসলে এই সিদ্ধান্তটা মানসিকভাবে কতটা প্রভাব ফেলছে এটা নিয়েই আমাদের কাজ করতে হবে।’

সন্দেহ নেই ভারতের পক্ষ নিয়ে এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের এমন পক্ষপাতদুষ্ট কাণ্ডে বড় ক্ষতি হয়ে গেল বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের।