একটা জিতলাম, আরও আটটি ম্যাচ আছে: মাশরাফি



এম. এম. কায়সার, স্পোর্টস এডিটর, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

লন্ডন থেকে: এমন জয়ের পরও ভীষণ শান্ত অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। কোনো ধরনের বাড়তি উচ্ছ্বাস দেখাতে রাজি নন তিনি। সংবাদ সম্মেলনে বললেন-‘ম্যাচ জিতে অবশ্যই ভালো লাগছে। তবে একটা কথা বলতে চাই মাত্র একটা ম্যাচ জিতেছি আমরা। এখনো গ্রুপ পর্বে আমাদের আটটি ম্যাচ বাকি আছে। এই ম্যাচ যেভাবে আমরা খেলেছি, সেভাবেই খেলতে ভালোবাসি। আর হ্যাঁ, সামনের সময়টাও এভাবেই খেলবো।’

ওভালের এই ম্যাচে বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মতুর্জা মাঠে নামার আগে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ফেভারিট মেনেই খেলতে নামেন। তবে মাঠের বাইরের কাগজে-কলমের হিসেব আর মাঠের পারফরমেন্সের যে পার্থক্য অনেক তা বাংলাদেশের ২১ রানের জয়ই প্রমাণ করছে।

আরও পড়ুন: বিশ্বকাপে টাইগারদের শুভ সূচনায় প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন

ব্যাটিং-বোলিং ও ফিল্ডিং, তিন বিভাগেই এই ম্যাচে বাংলাদেশ শ্রেষ্ঠত্ব দেখিয়েছে। ব্যাটিংয়ে গড়েছে চলতি বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ ৩৩০ রান। ওয়ানডে ক্রিকেটের ইতিহাসে এটা বাংলাদেশের সেরা সঞ্চয়। শুরুতে তামিম-সৌম্যর ওপেনিং জুটি, মাঝে সাকিব ও মুশফিকের ১৪২ রান এবং শেষের দিকে মাহমুদউল্লাহ ও মোসাদ্দেক হোসেনের ফিনিশিং- সবকিছু মিলে বাংলাদেশের ব্যাটিং এই ম্যাচে যা হয়েছে তাকে বলা যায় কমপ্লিট প্যাকেজ। ম্যাচ শেষে অধিনায়ক সেই বিষয়ে বলছিলেন-‘খুবই পরিকল্পিত ব্যাটিং করেছি আমরা। কোনো বাড়তি ঝুকি নেননি ব্যাটসম্যানরা। ঠিক যখন যেভাবে খেলা উচিৎ ছিলো সেই দায়িত্ব পালন করেছে সবাই।’

ব্যাটসম্যানদের সাজানো সেই বাগানে ওভালে হেঁটে এসেছেন বোলাররাও। ম্যাচের গুরুত্বপূর্ণ সময়ে উইকেট শিকার করে বাংলাদেশ। দক্ষিণ আফ্রিকার মতো শক্তিশালী ব্যাটিং লাইনআপকে যে কায়দায় এই ম্যাচে শাসন করেছেন বাংলাদেশের বোলাররা, সেটাও কম প্রশংসনীয় নয়।

আরও পড়ুন: বাংলাদেশের জয়, বাঘের গর্জনে কাঁপলো বিশ্বকাপ!

তবে একটা ম্যাচ জিতেই শুধু প্রশংসার বৃষ্টিতে ভিজতে রাজি নন বাংলাদেশ অধিনায়ক। বললেন-‘আমরা এই ম্যাচ জিতেছি, ভালো লাগছে। তবে এখন এই জেতা নিয়ে বেশি কিছু আর ভাবছি না। ভাবছি পরের ম্যাচের কথা। পরের ম্যাচ আমাদের নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে। সেই ম্যাচ নিয়ে এখন আমাদের কম্পিউটার এনালিস্টদের সঙ্গে আমরা বসবো। পরিকল্পনা করবো।’

পরের ম্যাচের জন্য তাড়া দিচ্ছেন অধিনায়ক, কারণ সেই ম্যাচও যে এসেই গেলো বলে! ৫ জুন হবে সেই ম্যাচ। ভেন্যু সেই একই-ওভাল!

ইংল্যান্ডে তাহলে বাংলাদেশ আরেকটি লাকি গ্রাউন্ড পেয়ে গেলো!