নিউজিল্যান্ডের বাড়তি সতর্কতা



এম. এম. কায়সার, স্পোর্টস এডিটর, বার্তা২৪.কম, ওভাল স্টেডিয়াম, লন্ডন থেকে
সাকিবকে নিয়ে আলাদা করে ভাবছে নিউজিল্যান্ড দল

সাকিবকে নিয়ে আলাদা করে ভাবছে নিউজিল্যান্ড দল

  • Font increase
  • Font Decrease

শেষ বিকালে ওভালে বাংলাদেশ দলের অনুশীলনে স্বাগত জানালো গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি। মাঠের বেশিরভাগ অংশ তখন কাভারে ঢাকা। ওপেন ফিল্ডে অনুশীলনের কোনো সুযোগ নেই। পুরো দল চলে গেলো স্টেডিয়ামের ইনডোরে। দিনের আলো লন্ডনে অনেক দেরিতে ফুরায়। কিন্তু আকাশে কালো মেঘ, তাই সন্ধ্যায় দিনের আলো থাকতেই ওভালের ফ্লাডলাইট জ্বলে উঠলো। কে জানি, সেই আলোকে স্বাগত জানাতেই সন্ধ্যার সেই সময়টায় বৃষ্টি ধরে এলো। তখনো মাঠ পরিচর্যার কাজ চলছে। কাভারের ওপর থেকে পানি সরানো হচ্ছে। প্রেসবক্সের উল্টো পাশ থেকে ধীর পায়ে একজন মাঠে ঢুকছেন। হেঁটে হেঁটে উইকেটের পাশে এসে দাড়ালেন। দুই প্রান্তের উইকেটের গুডলেন্থ পরীক্ষা করলেন ক্রিকেটীয় দৃষ্টি দিয়ে। বহু বিশ্বস্ত সেই অনুসন্ধিৎষ্ণু চোখ সাকিবকে জানালো-এই উইকেট আজ কার হবে!

পিচ পরিচর্যার কাছে জড়িত মাঠ কর্মীর সঙ্গে খানিকক্ষণ কথাবার্তা বললেন। তারপর মন দিলেন ফিটনেস চর্চায়।

সন্ধ্যা শেষে তখন ওভালের ঘড়িতে রাত আটটা। মাঠের বেশিরভাগ অংশই কাভারে ঢাকা। দুর কর্নারের একটা খালি জায়গায় বাংলাদেশ দল রানিং এবং ফিল্ডিং অনুশীলন সারছে। আরেকটু দুর প্রান্তে বাউন্ডারি লাইনের পাশে নেট লাগিয়ে প্যাড ছাড়া ব্যাটিং প্রাকটিস করছেন সাকিব। একের পর এক শর্ট বল আসছে, আর কোমরের উচ্চতায় আসা সেই বলকে পুল শটে নেটে পাঠাচ্ছেন সাকিব।

বোঝাই যাচ্ছে আজ নিউজিল্যান্ডের ফাস্ট বোলারদের কাছ থেকে এমন অনেক শর্ট বলের ‘উপহার’ আসছে। সাকিব তারই প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। প্রায় ঠিক একই রকম প্রস্তুতি সেরেছে নিউজিল্যান্ডও। বাংলাদেশ ম্যাচকে ঘিরে তাদের ড্রইংবোর্ডে একটা আলাদা নাম এবং সেশন ছিলো, যার নাম-সাকিব আল হাসান!

এই ম্যাচ উইনার যে একা হাতেই ব্যাটে-বলে ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দিতে পারেন, সেটা বেশ ভালোই জানা নিউজিল্যান্ডের। প্রতিপক্ষ হিসেবেও নিউজিল্যান্ডকে সাকিবের বেশ পছন্দ। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে বাংলাদেশের ম্যাচ বিশ্লেষণের পর এখন সাকিবকে নিয়েই নিউজিল্যান্ডের বাড়তি পরিকল্পনা। সেই পরিকল্পনার অংশ হিসেবে অনুশীলন নেটে বাঁহাতি আয়াজ প্যাটেল নামের একজন বাঁহাতি স্পিনারকে ডাকে। লম্বা সময় ধরে নেটে আয়াজ প্যাটেল নিউজিল্যান্ডের ব্যাটসম্যানদের বোলিং করেন।

সাকিবকে খেলার আগে ‘সাকিবের বোলিং’ বুঝে নেয়ার চেষ্টা আর কি!

এই সত্যতা লুকানোর কোনো চেষ্টাই করলেন না নিউজিল্যান্ডের উইকেটকিপার কাম ব্যাটসম্যান টম ল্যাথাম-‘লম্বা সময় ধরে বিশ্ব ক্রিকেটে সাকিব সাফল্য দেখিয়ে চলেছে। শেষ আমরা বাংলাদেশের বিপক্ষে যে সিরিজ খেলেছি, তাতে সাকিব ছিলেন না। তাই তাকে মোকাবেলার জন্য আমরা বাঁহাতি বোলারের স্পিন বোলিংয়ে নিজেদের ঝালিয়ে নিচ্ছি। সাকিবকে মোকাবেলা করার চ্যালেঞ্জটা আমরা নিয়েছি।’

নিউজিল্যান্ড তাদের ম্যাচ পরিকল্পনার চিন্তার কেন্দ্রবিন্দুতে সাকিব আল হাসানকে রেখেছে। কিন্তু এই বাংলাদেশ দলে যে আরো অনেক ম্যাচ উইনার আছে- সেটা কি তাদের জানা?
একটু মনে করিয়ে দেই, এই ইংল্যান্ডের মাটিতেই নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সর্বশেষ ম্যাচে বাংলাদেশ জিতেছিলো ৫ উইকেটে। সেই ম্যাচে সাকিব সেঞ্চুরি করেছিলেন। সঙ্গে আরেকজনের সেঞ্চুরি ছিলো-মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ! বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের প্রথম সেঞ্চুরিও তারই। ওয়ানডে ক্যারিয়ারের তিন সেঞ্চুরির দুটোই তার নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে। প্রতিপক্ষ হিসেবে নিউজিল্যান্ডও মাহমুদউল্লাহর বেশ পছন্দের একটি নাম।

ওয়ানডেতে বাংলাদেশের হয়ে সবচেয়ে বেশি ১১টি সেঞ্চুরি তামিম ইকবালের। কিন্তু নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডেতে তার কোনো সেঞ্চুরি নেই। ওভালে আজ ঘুঁচে যাক সেই শূন্যতাও!