‘ভ্রমণগদ্য’ এর চলতি সংখ্যা নিয়ে প্রকাশনা আড্ডা



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

শনিবার গুলশানের বেঙ্গল ইনে আয়োজিত এক প্রকাশনা আড্ডায় মাহমুদ হাফিজ সম্পাদিত ভ্রমণসাহিত্যের  কাগজ ‘ভ্রমণগদ্য’ এর নতুন সংখ্যার মোড়ক উন্মোচন ও প্রকাশনা আড্ডা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

নতুন সংখ্যার মোড়ক উন্মোচন করেন বাংলা একাডেমী পুরস্কারপ্রাপ্ত বিশিষ্ট ভ্রমণলেখক ফারুক মঈনউদ্দীন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন কবি মারুফুল ইসলাম, কবি ফরিদ কবির, সাংবাদিক-কলামিস্ট সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা, ভ্রামণিক কামরুল হাসান, ভ্র্রামণিক রুহুল আমিন শিপার প্রমুখ।

আড্ডায় ভ্রমণসাহিত্যের গতি-প্রকৃতি নিয়ে সরস আলোচনা, বিতর্কে অংশ নিয়ে একে প্রাণবন্ত করে তোলেন কথাসাহিত্যিক ইশতিয়াক আলম, কবি আবদুর রব, ভ্রামণিক সৈয়দ রওশন কামাল, ভ্রামণিক সৈয়দ আবু জাফর, কবি রকিবুল হাসান, ভূপর্যটক আশরাফুজ্জামান উজ্জ্বল, ঐতিহ্য পরিব্রাজক এলিজা বিনতে এলাহী, পর্যটনলেখক তৌফিক রহমান, লেখক সাংবাদিক লোপা মমতাজ, স্থপতি রেজাউর রহমান, গবেষক মহুয়া রউফ, কবি তিথি আফরোজ, ভ্রামণিক মনিরুল ইসলাম প্রমুখ। আড্ডায় ভ্রমণগদ্যের চলতি সংখ্যার সম্পাদকীয় পাঠ করে শোনান লোপা মমতাজ। সম্পাদকীয়তে বলা হয়েছে, প্রযুক্তিযুগের ছোঁয়ায় ভ্রমণ আজ অন্য উচ্চতায় পৌঁছানোয় সাহিত্যে এর প্রকাশও হয়ে ব্যতিক্রমী। কিন্তু ভ্রমণসাহিত্যের পাঠরুচি আগের শতাব্দীতেই আটকে আছে। সাহিত্যের অন্যান্য শাখার মতো বাঁকবদলের বিষয়টি ক্রিটিকদের চোখ এড়িয়ে যাচ্ছে বলে আজকের ভ্রমণসাহিত্যের সঠিক মূল্যায়ণ হচ্ছে না।

তিনঘন্টা ধরে চলা প্রাতঃরাশ আড্ডায় ভ্রমণসাহিত্যের গতিপ্রকৃতি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা-বিতর্ক হয়।

ভ্রমণগদ্যের চলতি সংখ্যায় ভারতের প্রখ্যাত ভ্রামণিক, ভ্রমণ পত্রিকার প্রধান সম্পাদক অমরেন্দ্র চক্রবর্তীর বিশেষ সাক্ষাৎকারমলূক রচনা ‘সৃজনে বিজনে ভ্রমণে-অন্তরঙ্গ অমরেন্দ্র’ বিশেষ গুরুত্বে প্রকাশিত হয়েছে। ভ্রমণগদ্য টিমের মুখোমুকি অন্তরঙ্গ অমরেন্দ্র চক্রবর্তীকে সবিস্তারে তুলে এনেছেন ভ্রামণিক কামরুল হাসান। এ সংখ্যায় লিখেছেন ফারুক মঈনউদ্দীন, মঈনুস সুলতান, শাকুর মজিদ, ইশতিয়াক আলম, মাহমুদ হাফিজ, রুহুল আমিন শিপার, খায়রুল আনাম, এলিজা বিনতে এলাহী, অনন্যা পাল, চপল বাশার, তারেক অণু, টর্বজোন সি পেডের্সেন, ফারুক হাসান, নাহার ফরিদ খান, মহুয়া রউফ, অনন্যা পাল প্রমুখ।

স্থপতি রেজাউর রহমানের অনবদ্য বংশীবাদনের মধ্য দিয়ে আড্ডা সমাপ্ত হয়।