বাঘারু: মানব ও প্রাণি প্রেমের দ্বৈরথ



কনক জ্যোতি, কন্ট্রিবিউটিং করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
বাঘারু: মানব ও প্রাণি প্রেমের দ্বৈরথ

বাঘারু: মানব ও প্রাণি প্রেমের দ্বৈরথ

  • Font increase
  • Font Decrease

তরুণ কথাশিল্পী মৌরী তানিয়া উপস্থাপন করেছেন,  মিতি ও বাঘারুর কাহিনী। মিতি দুরন্ত, সাহসী আর একরোখা। সে পড়ালেখা করতে চায়, অনেক বড় হতে চায়। কিন্তু একের পর এক বিপদ আসতে থাকে তার জীবনে। বাঘারুর সহায়তায় ভয়াবহ সব বিপদ থেকে উদ্ধার পেয়ে মিতি বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার সুযোগ পায়। কীভাবে তা সম্ভব হলো? উপন্যাসের পাতায় পাতায় লিপিবদ্ধ রয়েছে সেসব চাঞ্চল্যকর আখ্যান।

মফস্বল শহরের মিতি চলে এল ঢাকায়। বাঘারুও এল সঙ্গে। অভির সঙ্গে বিয়ে আর বুয়েট পর্বও একদিন শেষ হলো মিতির। অভি বিদেশে। মিতি কি বাঘারুকে ছেড়ে যাবে? যদি না যায়, অভি কি দেশে ফিরবে? এ সংকটের শেষ কোথায়? সেটাই উপন্যাসের মূল উপজীব্য। বাঘারু উপন্যাসকে বলা যায় মানব ও প্রাণি প্রেমের দ্বৈরথ।

মৌরী তানিয়ার গল্প বলার ক্ষমতা মুগ্ধ করার মতো। কাহিনী শেষ না করে উঠা যায় না। এমনকি, শেষ করার পরও বাঘারু, অভি আর মিতিকে ছেড়ে যেতে মন চায় না। বড় বেশি মায়া জমে উপন্যাসের চরিত্রগুলোর জন্য।

এমন কাহিনী ও চরিত্রের বিন্যাস আধুনিক বাংলা উপন্যাসে সত্যিই বিরল। বুয়েটের দুই ছাত্রছাত্রী অভি আর মিতি পরস্পরকে ভালোবাসে। সিনিয়র অভি আগে পাস করে বৃত্তি নিয়ে পিএইচডি করতে গেল বিদেশে। তার ইচ্ছা, মিতিও পাস করার পর তার কাছে চলে যাবে। কিন্তু মাঝখানে বাধা হয়ে দাঁড়াল মিতির পোষা কুকুর বাঘারু। মিতি বাঘারুকে ছেড়ে কিছুতেই যাবে না। কাকে বেশি ভালবাসে মিতি? প্রেমিককে? না পোষা কুকুরকে?   অদ্ভুত টানাপোড়েনের রুদ্ধশ্বাস এমন কাহিনী আগে লেখা হয়েছে কিনা সন্দেহ।

বাংলাদেশের উত্তরবঙ্গের জয়পুরহাট জেলার গোপীনাথপুর গ্রামে জন্ম মৌরী তানিয়ার। সেখানেই বেড়ে উঠেছেন প্রকৃতির সান্নিধ্যে। অর্থনীতিতে স্নাতকোত্তর ঢাকায়। ঢাকার বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ডিনেট এ কর্মরত ছিলেন। বর্তমানে গুণীজন ট্রাস্টে কর্মরত আছেন। তার প্রকাশিত গ্রন্থের মধ্যে রয়েছে  জীবনী 'আমাদের গৌরব- ২' -(সম্পাদনা) প্রকাশকাল ২০১৭, যুক্ত প্রকাশনি, শিশুতোষ গল্পগ্রন্থ 'যে সন্ধ্যায় আমরা জিন দেখলাম'- প্রকাশকাল ২০২০, মাওলা ব্রাদার্স আর এবার বের হলো উপন্যাস 'বাঘারু'-  প্রকাশকাল ২০২১, বাতিঘর।