তারপর দিনশেষে অন্ধ অসুখের দেশে এসো

নির্ঝর নৈঃশব্দ্য
অলঙ্করণ কাব্য কারিম

অলঙ্করণ কাব্য কারিম

  • Font increase
  • Font Decrease

বৃদ্ধক্ষত্র

শাদা কাগজে শূন্যতা ও স্তব্ধতা
গুল্মের মধ্যে দূরে সরে যাচ্ছে আলো
বাতাসে সপ্রতিভ সকল সরীসৃপ
চিত্রাভ তারাটি আকাশের খাঁজে লীন
ওখানে জ্যামিতি তৈরি হয়
মধ্যে সমান্তরাল দুইটা রেখা বেঁকে যায়
উপপাদ্যের মতো দৃশ্যমান হতে চায়
বৃদ্ধক্ষত্রের কোল ভরে যায় আলোতে
আলোর আঘাতে বৃদ্ধ কেঁপে ওঠে
তার দেহের কম্পনে পৃথিবীও কাঁপে
অস্ফূট বিলাপ ও দিঘল সন্তাপে।

বনভাঙা গান

ছিল তো কিছুটা পাখিটার নামে প্রতিবেশি মায়া,
দূর রাত্রিতে নদীমাঝে একফালি আলো দেখা যায়।
বাঁশকোড়লের দিন শেষে বাঁশপাতায় লাগে হাওয়া,
কিছুটা জন্মদাগ এইখানে গাঢ়, আড়াল দিয়ে ছাওয়া।
এই পরিচয়ে নিভে গেছে কবে দুষ্মন্তের চোখ!
বনভাঙা গান বনের পাড়েই চিরদিন ঘুরে মরে।
একটি পাখির অদেখা রোদনে ঝরে আকাশের ছাই,
একদিন আসে শাদা প্রতিবেশ, আমরা কেহই নাই।

অনিরাময়ের গ্রাম

অনিরাময়ের গ্রামে প্রেম দ্বিখণ্ড হয়ে আছে।
মধ্যিখানে একটা সবুজ আয়না,
দুপিঠেই দেখা যায়—এখনো দাঁড়িয়ে।
আর আমার আকার নেই,
কেবল দেখি।
প্রেম বিচ্ছেদের ধারে খুলে রাখে প্রাকৃত দুপুর,
বটের ফল আর শূন্যতা।
পাতালেও পাখি থাকে জেনে
আনোখা কাকলি শুনে ভুলে যায় পুষ্পপকুসুম,
ভুলে যায় নাফোটা পাতার পরমায়ু।

অন্ধ অসুখের দেশ

তারপর দিনশেষে অন্ধ অসুখের দেশে এসো—
অশ্রুর ভিতর খুঁজে নাও বিষাদের মৃত্যু;
খুঁজে নাও দণ্ডিত রাখালের আর্দ্র পরিত্রাণ।
রাখালরাতের পেটে মুছে গেলে প্রান্তর
প্রান্তরের ছায়ায় মিশে থাকে চিহ্নের রূপ,
মিশে থাকে দীর্ণ আকিঞ্চন।
রৌদ্র ও ঘুমের ভিতর কেউ বেঁধে দিলে ঘর
মন খারাপের দিনে করতলে মেঘ নামে।
করতলেরও ছায়া থাকে গভীর গহন—
অমৃত বাদলে ভিজে ক্ষয় হবে কচুপাতার বন।

লালচোখ

লালচোখ রেখে গেলাম, খুলে দেখে নিও।
নাঘুম রাত্রিরা হতে পারে রূপকথার দেশ।
কখনো মাতাল ছিলাম নরম ছায়ার কাছে,
চোখশূলে দৃশ্য গোধূলি এখনো মনে আছে।
দুহাতে চোখ ঘষে দেখি তুমিও রক্তজবা—
আলগোছে ফুটে আছো জানলার ধারে,
ভাগাড়ে পড়েছিল প্রিয়তম কুকুরের শব—
আধখোলা লাল চোখে বুঝি আকাশ মাপে।
পাঞ্চালির অন্তহীন শাড়ি তার একদা শৈশব।

রাজহাঁসগুলি

রাজহাঁসগুলি পুবের বারান্দায় চরে বেড়ায়—
খুঁটে খায় লাল, খুঁটে খায় ছায়ার কঙ্কাল।

রাজহাঁসগুলি নম্রতা জানে না শস্যের,
বাতাসের তারে বেঁধে নেয় আয়তাকার বেদনা।
যা কিছু অজানা উড়ে যায়,
চাপরাশে লেগে থাকে ধূলি আর বাসনা।

রাজহাঁসগুলি কোথাকার মাঠ চিরে আসে—
মাঠচেরা সন্ধ্যার দাগ জাগে ক্লান্তিহীন,
পুবের বারান্দায় সন্ধ্যা লেগে থাকে চিরদিন।

আপনার মতামত লিখুন :