জাবি উপাচার্যের পদত্যাগের দাবি, ভর্তি পরীক্ষায় অবাঞ্ছিত ঘোষণা

জাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
আন্দোলনকারী শিক্ষক-ছাত্রদের সাংবাদিকদের সঙ্গে বৈঠক, ছবি: সংগৃহীত

আন্দোলনকারী শিক্ষক-ছাত্রদের সাংবাদিকদের সঙ্গে বৈঠক, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের পদত্যাগের দাবি জানিয়েছেন দুর্নীতির বিরুদ্ধে আন্দোলনকারী শিক্ষক শিক্ষার্থীরা। এছাড়া, আসন্ন ভর্তি পরীক্ষায় কেন্দ্রে প্রবেশের ক্ষেত্রেও উপাচার্যের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন তারা।

আরও পড়ুন: জাবি উপাচার্যের কুশপুতুল দাহ, ২৪ ঘণ্টার আলটিমেটাম

বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় দীর্ঘ তিন ঘণ্টা আলোচনা শেষে এ দাবি জানান আন্দোলনকারী শিক্ষক শিক্ষার্থীরা।

আরও পড়ুন: ‘উপাচার্যের ছেলের কল লিস্টেই দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়া যাবে’

আন্দোলনকারীরা জানান, উপাচার্যের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ ওঠার পরে এই গুরুত্বপূর্ণ পদে থাকার তার নৈতিক অধিকার নেই। আগামী পহেলা অক্টোবরের মধ্যে তাকে সসম্মানে পদত্যাগ করতে হবে। নতুবা কঠোর কর্মসূচিতে যাওয়া হবে। এর মধ্যে নিয়মতান্ত্রিক কর্মসূচি চলবে।'

আরও পড়ুন: রাব্বানী-জাবি ছাত্রলীগ নেতার ফোনালাপ ফাঁস

আসন্ন ভর্তি পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামকে সকল পরীক্ষাকেন্দ্রে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেন আন্দোলনকারী শিক্ষক শিক্ষার্থীরা।

এদিকে, আন্দোলনকারীদের সাথে আলোচনা শেষে উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আন্দোলনকারীদের দাবিতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ কিংবা মহামান্য রাষ্ট্রপতি যদি নির্দেশ দেন তবে সরে যাবো। যদি আমাকে নির্দেশ না দেন তবে আন্দোলনকারীদের গালমন্দ খেয়েও থেকে যাবো। হয়তো তাদের আন্দোলন আরও দীর্ঘায়িত হবে কিন্তু নির্দেশ আসা না পর্যন্ত আমি আমার দায়িত্ব পালন করব। আন্দোলনকারীরা চাইলেইতো আর আমি পদত্যাগ করতে পারি না।’

তিনি আরও বলেন, ‘আন্দোলনকারীদের দাবি অনুযায়ী আমি ইউজিসি এবং প্রধানমন্ত্রীকে জানিয়েছি। তাছাড়া আমি কি পারি আর কি পারিনা সেটা অধ্যাদেশে বলা আছে। সেখানে নিজেই নিজের বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি গঠন করার কথা বলা নেই।’

আপনার মতামত লিখুন :