লিফট কিনতে নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিসহ নয়জনের ইউরোপ যাত্রা!

উবায়দুল হক, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, ময়মনসিংহ
নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও শিক্ষকসহ নয় জনের বিদেশ যাত্রা

নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও শিক্ষকসহ নয় জনের বিদেশ যাত্রা

  • Font increase
  • Font Decrease

বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ভবনের জন্য প্রয়োজন লিফট। কেনাকাটার সকল প্রস্তুতিও সম্পন্ন। সেই লিফট কিনতে ও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে ১০ দিনের জন্য ইউরোপের দুই দেশ সুইজারল্যান্ড ও স্পেন সফরে যাচ্ছেন জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (ভিসি) ও শিক্ষকসহ নয় জন। তবে তাদের মধ্যে সাত জনেরই নেই কারিগরি জ্ঞান। আর নয় সদস্যের মধ্যে দুজন প্রকৌশলী থাকলেও তাদেরও নেই লিফট সংক্রান্ত পূর্ব অভিজ্ঞতা।

সম্প্রতি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা এক বিজ্ঞপ্তিতে বিদেশ সফরকারীদের নামের তালিকা প্রকাশ করা হয়। সফরকারী নয়জন হলেন- ভিসি প্রফেসর ড. এ এইচ এম মুস্তাফিজুর রহমান, কোষাধ্যক্ষ প্রফেসর মো. জালাল উদ্দিন, রেজিস্ট্রার ড. মো. হুমায়ুন কবির, প্রক্টর ড. উজ্জ্বল কুমার প্রধান, পরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) ইঞ্জিনিয়ার মো. হাফিজুর রহমান, সহকারী প্রধান ইঞ্জিনিয়ার মো. মাহবুবুল ইসলাম, ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিংয়ের সহযোগী অধ্যাপক সোহেল রানা, কলা অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মো. শাহাবুদ্দিন ও ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. সুব্রত কুমার দে।

বিজ্ঞপ্তিটিতে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ড. মো. হুমায়ুন কবির সুইজারল্যান্ড অ্যাম্বাসি বরাবর সেনজেন ভিসার জন্য আটজনের নামে পৃথক একটি করে এনওসি (নো অবজেকশন সার্টিফিকেট) দেন। তবে রেজিস্ট্রারের আবেদনে স্বাক্ষর করেন ডেপুটি রেজিস্ট্রার কৃষিবিদ আনিসুর রহমান।

এতে উল্লেখ করা হয়, প্রি-শিপপেমন্ট ইন্সপেকশনের জন্য চলতি মাসের ২০ থেকে ২৯ তারিখ পর্যন্ত ওই দুই দেশে সফরে থাকবেন তারা। এসময় তাদের বিমান ভাড়া থেকে যাবতীয় খরচ মেটাবে লিফট সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান ক্রিয়েটিভ ইঞ্জিনিয়ার্স।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান ও ব্যবসা অনুষদের জন্য ১০ তলা করে দুটি ভবনসহ চলছে অন্যান্য নির্মাণ কাজ। প্রকল্পে বিভিন্ন ভবনের জন্য সব মিলিয়ে ১৫টি লিফট কেনা হচ্ছে প্রায় ১৩ কোটি টাকা ব্যয়ে। সেই লিফট সরবরাহ করছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ক্রিয়েটিভ ইঞ্জিনিয়ার্স।

তবে খোদ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরাই বলছেন, প্রাক চালান পরিদর্শন বা প্রি-শিপমেন্ট ইন্সপেকশন হিসেবে ইউরোপের দুই দেশে সফরকারীরা কেউই এই বিষয়ে অভিজ্ঞ নন। তাই এর স্বচ্ছতা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নেতারা।

নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক রফিকুল আমিন বলেন, ‘আমার প্রশ্ন হচ্ছে ইন্সপেকশন যে কমিটি সেখানে এক্সপার্ট মেম্বার আছে কিনা। লিফট এনালাইসিস করার জন্য যে এক্সপার্ট প্রয়োজন আমার জানা মতে যারা যাচ্ছেন সেখানে সেই এক্সপার্টরা নাই। তাহলে কোন উদ্দেশ্যে যাওয়া হচ্ছে। এক্সপার্ট ছাড়া যদি লিফট কিনতে যাওয়া হয় তাহলে মূল উদ্দেশ্যই অর্জন হবে না।’

এদিকে উপাচার্য জানিয়েছেন, তিনি এই সফর বাতিল করেছেন। তবে লিফট কেনার চুক্তির সময় এই বিদেশ সফরের কথা উল্লেখ ছিলো তাই ক্রয় কমিটির সদস্যরা যাচ্ছেন।

তিনি বলেন, ‘লিফটগুলো সাপ্লাই দিবে সুইজারল্যান্ড ও স্পেনের দুটি ফার্ম। তাদের চুক্তিই ছিলো উপাচার্যসহ লোকাল প্রজেক্ট ইমপ্লিম্যানটেশন কমিটির সদস্যরা দুটি লিফটের জন্য একজন করে যাবে। সাপ্লাইয়ের আগে যাচাই-বাছায়ের জন্য এ টিমকে তারা আমন্ত্রণ জানায়। এটি একদম বিধি সম্মত। কিন্তু আমার কাছে মনে হয়েছে আমি কোনো টেকনিক্যাল পার্সন নই। আমি তো লিফটের ভাল কিছু বুঝি না। শুধু দেশ ভ্রমণের জন্য যাওয়া ঠিক হবে না। তাই আমি মনে করেছি আমার না যাওয়াটাই উচিত তাই আমি যাচ্ছি না।’

তাদের টাকা দিয়ে প্রি-শিপমেন্ট ইন্সপেকশন করা কতটা যৌক্তিক এমন প্রশ্নের জবাবে উপাচার্য বলেন, ‘তাদের টাকা দিয়ে তারা যদি ইন্সপেকশন করায় এটা যৌক্তিক কিনা সেটা তারাই বুঝবে, এ নিয়ে আমি কোনো মন্তব্য করবো না। তবে আমি যতটুকু বুঝতে পারি তা হচ্ছে তাদের ফার্মকে এট্রাকটিভ করার জন্য এমন একটা প্যাকেজ তারা রাখে।’

ক্রিয়েটিভ ইঞ্জিনিয়ার্সের এরিয়া মার্কেটিং অফিসার জুবায়ের আহমেদ রিজভী কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে লিফট সরবরাহের কথা নিশ্চিত করে জানান, এই বিশ্ববিদ্যালয় ৫৫০০৩ (বাণিজ্যিক) মডেলের দুই ক্যাটাগরির লিফট কিনবে। ১০০০ কেজির একটি ক্যাটাগরির প্রতিটি লিফট সুইজারল্যান্ড থেকে আনতে খরচ পড়বে প্রায় ৫৮ লাখ টাকা। আর ১২৫০ কেজির আরেক ক্যাটাগরির জন্য খরচ হবে ৭৫ লাখের কাছাকাছি।

আপনার মতামত লিখুন :