জাবিতে উপাচার্য অপসারণের আন্দোলন অব্যাহত

  জাবি উপাচার্য অপসারণ আন্দোলন

জাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
জাবিতে আন্দোলনকারীদের মানববন্ধন

জাবিতে আন্দোলনকারীদের মানববন্ধন

  • Font increase
  • Font Decrease

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (ভিসি) ফারজানা ইসলামের অপসারণের দাবিতে আন্দোলন অব্যাহত রেখেছেন আন্দোলনকারীরা।

শনিবার (৯ নভেম্বর) বিকেলে ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ ব্যানারে ৬০ গজ লম্বা কাপড়ের একটি ব্যানার নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল বের করেন তারা।

মিছিলটি কলা ও মানবিকী অনুষদ থেকে শুরু হয়ে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে যায়। সেখানে মানববন্ধন করেন আন্দোলনকারী ছাত্র-শিক্ষকরা। মানববন্ধন শেষে আবারো মিছিলটি নতুন কলা ভবনে ফিরে যায়।

পরে সেখানে সাংবাদিকের সঙ্গে কথা বলেন আন্দোলনের অন্যতম সংগঠক ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক খন্দকার হাসান মাহমুদ।

শিক্ষার্থীরা জানান, ৬০ গজ লম্বা কাপড়ে ব্যাঙ্গাত্মক চিত্রের মাধ্যমে অন্যায় ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদে প্রতিবাদের ভাষা প্রকাশ করা হয়েছে। চিত্রের মাধ্যমে উপাচার্যের দুর্নীতি, স্বেচ্ছাচারিতা, ছাত্রলীগ দ্বারা আন্দোলনকারীদের ওপর হামলাসহ সকল অনিয়ম তুলে ধরছেন তারা। একই সাথে উপাচার্যের অপসারণ চাইছেন।

মিছিল শেষে গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে আলাপকালে সহযোগী অধ্যাপক খন্দকার হাসান মাহমুদ বলেন, দুর্নীতির তদন্তের দাবিতে আমাদের চলমান কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছি। দুর্নীতির কারণে জাহাঙ্গীরনগর কলঙ্কিত হয়েছে। আমরা চাই দুর্নীতির তদন্তের মাধ্যমে জাবিকে কলঙ্কমুক্ত করতে।

‘যে প্রকল্পে টাকা দেওয়ায় হয়নি সেখানে দুর্নীতি কিভাবে হবে’ শিক্ষামন্ত্রীর এমন বক্তব্যের জবাবে খন্দকার হাসান মাহমুদ বলেন, টাকা ছাড় না হলে প্রকল্পের কাজ কিভাবে হচ্ছে? আমরা সবাই জানি কোম্পানি কাজ শেষ করে সরকারের কাছে উপস্থাপন করলে তারপর টাকা আসে। কিন্তু কোম্পানির কাছ থেকে উপাচার্যের মাধ্যমে যদি টাকা লেনদেন হয় তবে কী সেটা দুর্নীতি হবে না?

এর আগে শুক্রবার (৮ নভেম্বর) রাতে উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের বিরুদ্ধে দুর্নীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকার তথ্য-প্রমাণ শিক্ষামন্ত্রীর কাছে জমা দিয়েছেন আন্দোলনকারীরা।

শুক্রবার রাত ১১টার পর রাজধানীর বনশ্রীতে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির একান্ত সচিব ড. আব্দুল আলীম খানের বাসা ‘ক্লান্ত নিবাস’-এ গিয়ে তথ্য-প্রমাণ জমা দেন আন্দোলনকারী চার শিক্ষক।

চার শিক্ষক হলেন—বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. রেজাউল করিম তালুকদার, ইনস্টিটিউট অব ইনফরমেশন টেকনোলজির (আইআইটি) অধ্যাপক মো. ফজলুল করিম পাটোয়ারি, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. আবু সাইদ মো. মোস্তাফিজুর রহমান এবং ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক খন্দকার হাসান মাহমুদ।

আপনার মতামত লিখুন :

  জাবি উপাচার্য অপসারণ আন্দোলন