আমরা ‘চাষাভুষা’,  চাষাভুষার সন্তান



কবির য়াহমদ
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘চাষাভুষার সন্তান, আমরা সবাই সাস্টিয়ান’ শীর্ষক এক স্লোগান ওঠেছে। বিশ্ববিদ্যালয়টির একজন শিক্ষক কর্তৃক ‘আমরা কোনো চাষাভুষা নই যে আমাদের যা খুশি তাই বলবে’—এমন এক মন্তব্যের প্রতিবাদে শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে এই প্রতিবাদী স্লোগান। সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. লায়লা আশরাফুন গতকাল সকালে শ্রেণিবৈষম্যের যে মন্তব্য করেছেন তার জবাব শিক্ষার্থীর। শিক্ষক শেকড়কে অস্বীকার করলেও শিক্ষার্থীরা শেকড়ের টান উপেক্ষা করতে পারছে না। তাই তাদের সরব প্রতিবাদ। এই প্রতিবাদে আমরাও শামিল। যদিও সাস্টিয়ান নই, তবু আমরাও এই মাটির সন্তান; চাষাভুষারা আমাদের পূর্বপুরুষ, যাদের উত্তরাধিকার আমরা বয়ে চলেছি সযত্নে।

আমি শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী নই। আমার শিক্ষাজীবনের সমাপন অন্য কোথাও। ড. লায়লা আশরাফুনের মত পিএইডি ডিগ্রিধারী না হলেও আমারও পাঠ সমাজবিজ্ঞানে। পাঠের যে বিশালতা তার বেশিরভাগই আমার বা আমাদের মত অনেকের আয়ত্বে না থাকলেও অন্তত সমাজ-পাঠের সাধারণ জ্ঞানটুকু অর্জন ও প্রতিপালনের চেষ্টা করি, যেখানে শ্রেণিবিভাজনের স্থান নেই; বরং অবারিত এখানে সাম্যের পাঠ। অধ্যয়নলব্ধ জ্ঞানের বিষয়ই কেবল নয় এটা, মানসিকতা ও প্রকাশের যা একান্তই ব্যক্তিক চিন্তার প্রতিফলন। তাই বিষয়কে কাঠগড়ায় দাঁড় না করিয়ে শুধু বলা যায় এ যে প্রকাশের অজ্ঞতা, পাঠান্তে লব্ধ জ্ঞানের সীমাবদ্ধতা। লায়লা আশরাফুন এখানে পিএইডিধারী যদিও, তবু এ সীমাবদ্ধতা কিংবা সংকীর্ণতা অতিক্রম করতে পারেননি।

ড. লায়লা আশরাফুন শিক্ষক। তার দাবি তারা ‘বুদ্ধিজীবী শ্রেণি ধারণ করেন’, তারা ‘চাষাভুষা নন যে তাদেরকে যা খুশি তাই বলা যাবে’। তার শিক্ষা, তার অবস্থান তাকে হয়ত তার দাবির বুদ্ধিজীবী শ্রেণিতে স্থান দেয়, কিন্তু কেমন বুদ্ধিজীবী তিনি যিনি শেকড়কে অস্বীকার করেন। চাষাভুষা শব্দ উল্লেখে প্রান্তিক মানুষদের অবজ্ঞা করেন প্রকাশ্যে। কেউ কি অপমান করেছে তাকে? তাকে বা তাদেরকে উদ্দেশ করে কেউ কি ‘কুরুচিপূর্ণ’মন্তব্য করেছে? তিনি সম্মানের জন্যে শিক্ষকতা পেশায় এসেছেন, সম্মানের জন্যে কাজ করেন বলে জানাচ্ছেন। সম্মাননীয় পেশা যে শিক্ষকতা যা তার মুখ থেকে বেরিয়েছে তা সর্বাংশে সত্য, সম্মানের জন্যে মানুষ শিক্ষকতা পেশায় আসে, এটাও সত্য। তবে তিনি কি সেই সম্মাননীয় পেশার সম্মানকে ধরে রাখতে পেরেছেন? পারেননি। না পারার কারণ ওই উদ্ধত, অশালীন, অসংলগ্ন এবং শেকড়কে তাচ্ছিল্য করা মন্তব্য। এমন মন্তব্য একজন শিক্ষকের কাছ থেকে আসলে আদতে শিক্ষকের মহান পেশাকে কলঙ্কিত করা হয়। ড. লায়লা আশরাফুন সেটাই করেছেন।

দেশবাসী ইতোমধ্যেই জেনে গেছে, শাবিপ্রবির এই শিক্ষার্থী-আন্দোলন রাজনৈতিক উদ্দেশ্যের নয়। এটা একান্তই বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরীণ বিষয়। শুরুতে একটি হলের প্রভোস্টের অসদাচরণের প্রতিবাদে নির্দিষ্ট ওই হলের ছাত্রীদের বিক্ষোভ। কিন্তু ব্যর্থ প্রশাসন এটাকে এমন জায়গায় নিয়ে গেছে যা এখন জাতীয় ইস্যু হয়ে ওঠার অপেক্ষায়। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী ছাত্রী হলের প্রভোস্ট সহযোগী অধ্যাপক জাফরিন আহমেদ লিজার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে সত্য কিন্তু তার আগে নিপীড়নমূলক এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে যেখানে বিনা উসকানিতে পুলিশ হামলা করেছে শিক্ষার্থীদের ওপর। এতে পুরো পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে। একটা বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে পুলিশ এসে হামলা করবে তা শিক্ষার্থীরা মেনে নেবে—এমন করুণ অবস্থা এখনও হয়নি ছাত্রসমাজের। ফলে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের জাগরণ ওঠেছে ক্যাম্পাসে। পূর্বের সব দাবি তাই এখন এক দাবিতে পরিণত হয়েছে, এবং তা উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমেদের পদত্যাগ। এরআগে পুলিশের গুলিতে আহত হয়ে অনেক শিক্ষার্থীকে হাসপাতালে যেতে হয়েছে, আইসিইউতেও। এই যে নির্যাতন, এই নির্যাতনে কি দমে যাবে শিক্ষার্থী-আন্দোলন? মনে হয় না। বরং তা অগ্নিস্ফুলিঙ্গ হয়ে দেশের অপরাপর ক্যাম্পাসে ছড়িয়ে পড়লেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না।

সপ্তাহ ধরে চলমান এই আন্দোলনে শিক্ষার্থীরা আগ্রাসী হয়নি। পুলিশ গুলি চালিয়েছে, লাঠিপেটা করেছে, মামলা দিয়েছে। শুরুর মার খাওয়ার পর প্রতিরোধ করেছে শিক্ষার্থীরা। এরপর আন্দোলনের একটা পর্যায়ে এই শিক্ষার্থীরা আবার শান্তির বার্তা ছড়াতে পুলিশের সামনে হাঁটু গেঁড়ে বসে গিয়ে বলেছে—‘পুলিশ তুমি ফুল নাও, আমার ক্যাম্পাস ছেড়ে দাও’! ক্যাম্পাসে পুলিশের আগ্রাসী ভূমিকা, অবস্থানে তারা সংক্ষুব্ধ, তবে আগ্রাসী হয়ে পুলিশকে ধাওয়া দিয়ে স্থায়ীভাবে ক্যাম্পাস-ছাড়া করতে যায়নি। এখানে তাদের প্রাপ্তমনস্কতার প্রশংসা করতে হয়। ফুল হাতে তাদের এই আহ্বানকে আন্দোলনের শিল্পিত প্রকাশ রূপেও বর্ণনা করা যায়। দেশের অন্যতম সেরা একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা মন-মনন-চিন্তা ও প্রকাশে যে উচ্চতর এরচেয়ে বড় প্রমাণ আর কী হতে পারে!

শিক্ষার্থীরা যেখানে উচ্চতর চিন্তায় সেখানে কিছু শিক্ষক কি সেটা ধারণ করতে পারছেন? অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে কেউ কেউ পারছেন না। ড. লায়লা আশরাফুন তার বড় প্রমাণ। শিক্ষার্থীদের ‘কুরুচিপূর্ণ’ মন্তব্যের অভিযোগের বিরুদ্ধে মানববন্ধনের নামে বিতর্কিত ভিসির পক্ষ নিয়ে তিনি যে দাম্ভিক মন্তব্য করেছেন তা সুরুচির পরিচয় বহন করে না। বিশ্ববিদ্যালয়ের উত্তুঙ্গু পরিস্থিতিতে তার মত একজন শিক্ষক যেখানে স্থির-চিন্তার প্রকাশ ঘটাতে পারতেন সেখানে তিনি আগুনে ঘি ঢেলেছেন। বিক্ষুব্ধ করছে শিক্ষার্থীদের, একই সঙ্গে আমরা যারা সরাসরি আন্দোলনে নেই সেই আমাদেরকেও সংক্ষুব্ধ করছেন। এটা শিক্ষক অবস্থানে থাকা কারও যথাযথ মন্তব্য হতে পারে না। কৃষক-মজুর সমাজের ঐতিহ্যিক উত্তরাধিকার হিসেবে আমরা এর প্রতিবাদ করি।

শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় পরিস্থিতি নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন। শিক্ষার্থীদের নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনে আমরা একাত্ম। শিক্ষার্থীরা উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে এখন পর্যন্ত অনড়। তারা কেবলই উপাচার্যের সংশ্লিষ্ট অন্যায়ের বিরুদ্ধে কথা বলছে। উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমেদের ভাইরাল হওয়া এক কথোপকথন নিয়ে এখন পর্যন্ত তাদের মাথাব্যথা নেই, যদিও ওটা আরেকটা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষত নারী শিক্ষার্থীদের নিয়ে চরম অপমানজনক মন্তব্য। আন্দোলনকে নানাভাবে ভাগ না করে কেবল একটা নির্দিষ্ট দাবিতে মনোনিবেশে তাদের এই দৃঢ়তা আশাব্যঞ্জক। এইধরনের মন্তব্যের বিরুদ্ধে উপর্যুক্ত কর্তৃপক্ষ তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেবেন আশা করি। অথবা সংক্ষুব্ধ কেউ এই অপমানের আইনি প্রতিবিধানের পথে গেলে যাক। তবে আমরা চাই নারী নিয়ে এইধরনের অপমানের বিচার হওয়া উচিত। 

শিক্ষক-শিক্ষার্থী পরস্পরবিরোধী সত্ত্বা নয়। বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে তাদের সম্পর্ক বন্ধুত্বপূর্ণ হওয়া আবশ্যক। সর্বোচ্চ পর্যায়ে শিক্ষা নিতে আসা শিক্ষার্থী আর সর্বোচ্চ পর্যায়ে দিকনির্দেশনা দেওয়া শিক্ষকের মধ্যকার সম্পর্ক শিক্ষাস্তরের প্রাথমিক আর মাধ্যমিক পর্যায়ের মত হওয়ার কথা নয়। এই সম্পর্ক পরস্পরের মধ্যকার সম্মানের হতে হবে। তা না হলে দ্বন্দ্ব-সংঘাতের শঙ্কা থাকবেই। এই পর্যায়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থী তাদের নিজেদের অবস্থান ভুলে গেলে সেটা হবে হতাশার। শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকশ’ শিক্ষক যে শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন এমন না, কয়েক হাজার শিক্ষার্থী যে শিক্ষকদের অপমান (যদিও অপমানের কোন প্রমাণ কেউ দেখায়নি) করছেন এমনও না। তবে যারাই অদ্যকার এই উত্তুঙ্গু পরিস্থিতিতে আগুনে ঘি ঢালবে তারা মোটেও শিক্ষাবান্ধব কেউ নয়। তাদের উচিত হবে সর্বোচ্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে নিজেদের সরিয়ে নেওয়া।

শাবিপ্রবিতে এই যখন পরিস্থিতি তখন নিয়ন্ত্রণকারী ব্যক্তিবর্গ ও প্রতিষ্ঠান রীতিমত ‘গণঘুমে’। এই ঘুম ভাঙবে কবে তাদের? এত জল ঘোলা করে যদি সবশেষে নামা হয় তবে যা কিছু বাকি তা জল নয়, উচ্ছিষ্টই! দাবি করি ‘গণঘুম’ থেকে জাগুক তারা। আচার্য, সরকার কিংবা যারাই নিয়ন্ত্রক তারা শিক্ষা ও শিক্ষার্থীবান্ধব হয়ে বাঁচিয়ে দিক দেশের অন্যতম সেরা এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটিকে।

‘বাঁচাও শাবি, সরাও ভিসি’—শিক্ষার্থীদের এমনই দাবি। শিক্ষার্থীদের এই দাবিতে যুক্তি আছে। যুক্তি থাকায় গণভিত্তিও আছে!

কবির য়াহমদ, প্রধান সম্পাদক, সিলেটটুডে টোয়েন্টিফোর, মোবাইল- ০১৬১৪ ৩৪ ৮২ ৮২, ইমেইল- [email protected]

জেট ফুয়েল প্রাইস, সরু আলোর পথটাকে রুদ্ধ করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত



মো. কামরুল ইসলাম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনা মহামারির পর সরু আলোর পথ দেখা যাচ্ছিল এভিয়েশন এন্ড ট্যুরিজম সেক্টরে। সেই পথকে অন্ধকারাচ্ছন্ন করে তুলতে যারপর নাই চেষ্টা করে যাচ্ছে জেট ফুয়েল প্রাইস। জেট ফুয়েলের প্রাইস নির্ধারণ করে থাকে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন। কখনো লোকসানকে পুষিয়ে নিতে দাম বৃদ্ধি করে থাকে, কখনো যুদ্ধের ডামাডোলে রিনঝিন পায়ে নুপুরের ছন্দের সাথে তাল মিলিয়ে জেট ফুয়েলের প্রাইস বৃদ্ধি করার প্রতিযোগিতায় লিপ্ত রয়েছে বিপিসি নিয়ন্ত্রাধীণ পদ্মা অয়েল কোম্পানী।

বাংলাদেশ এভিয়েশনের যাত্রা শুরু থেকেই বন্ধুর পথে হাঁটা একটি সেক্টর। দেশের প্রায় ১৫ মিলিয়ন জনগন বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বসবাস করছে কিংবা কাজের প্রয়োজনে অথবা ভ্রমনের উদ্দেশ্যে যাতায়াত করে থাকে আকাশ পথে। আর আকাশ পথে যাতায়াতের জন্য বৃহদাংশই বহন করছে বিদেশী বিমান সংস্থাগুলো।

নানা প্রতিবন্ধকতা আর সীমাবদ্ধতার কারনে জাতীয় বিমান সংস্থাসহ বেসরকারী বিমান সংস্থাসমূহ প্রতিযোগিতায় পেরে উঠছে না। বিদেশী এয়ারলাইন্সগুলোর সাথে সেই প্রতিযোগিতায় টিকে থাকার জন্য দেশীয় এয়ারলাইন্সগুলোর দিকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়া সরকারী বিভিন্ন সংস্থাগুলোর সহযোগিতা খুব জরুরী হয়ে পড়েছে। এর মাঝে অন্যতম হচ্ছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা সিভিল এভিয়েশন অথরিটি, বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন প্রমুখ।

কোভিডকালীন সময়  ও কোভিড পরবর্তী গত আঠারো মাসে জেট ফুয়েলের মূল্য বেড়েছে ১৩০ শতাংশ। ২০২০ সালের সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে ছিলো প্রতি লিটার জেট ফুয়েলের মূল্য ৪৬ টাকা অথচ গত আঠারো মাসে প্রায় ১৫ বার জেট ফুয়েলের মূল্য বৃদ্ধি করে বর্তমানে দাড়িয়েছে ১০৬ টাকা। যা বাংলাদেশের এভিয়েশনের ইতিহাসে জেট ফুয়েল প্রাইসের সর্বোচ্চ রেকর্ড। যে রেকর্ড একটি খাতকে ধ্বংস করে দেয়ার জন্যই যথেষ্ট। যে রেকর্ড আকাশ পথের যাত্রীদের বিপর্যস্ত করে তুলে। এর সাথে সংশ্লিষ্ট বিনিয়োগকারীদের অনিশ্চয়তার দিকে ধাবিত করে, সেই রেকর্ড কখনো প্রত্যাশিত নয়।

বাংলাদেশি এয়ারলাইন্সকে প্রতিযোগিতা করতে হয় সকল বিদেশি এয়ারলাইন্স এর সাথে। জেট ফুয়েল প্রাইস সরাসরি প্রভাব বিস্তার করে যাত্রীদের জন্য নির্ধারিত ভাড়ার উপর। সেই ভাড়া বৃদ্ধির ফলে দেশীয় এয়ারলাইন্স চরম ক্ষতির সম্মুখীন হয়। ২০০৮ সালে অর্থনৈতিক মন্দর সময়ে নব প্রতিষ্ঠিত তিনটি এয়ারলাইন্স- ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ, এভিয়ানা এয়ারওয়েজ ও বেস্ট এয়ার, জেট ফুয়েলের উর্ধ্বগতির সাথে তাল না মিলিয়ে চলতে না পারার কারনে এভিয়ানা এয়ারওয়েজ, বেস্ট এয়ার বছর ঘোরার আগেই বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয়েছিলো। যার ফলে বাংলাদেশ এভিয়েশন ক্ষতি গ্রস্ত হয়েছিলো সাথে বেসরকারী বিনিয়োগে নিরোৎসাহী হতে দেখা গিয়েছিলো এভিয়েশন খাতে।

কোভিডকালীন সময়ে এয়ারলাইন্সগুলো বিভিন্ন চার্জ বিশেষ করে এ্যারোনোটিক্যাল ও নন-এ্যারোনোটিক্যাল চার্জ মওকুফের জন্য সরকারের কাছে অনুরোধ করেছিলো এভিয়েশন সেক্টরটিকে টিকিয়ে রাখার জন্য। কিন্তু দুঃখজনক হলে সত্য চার্জ মওকুফের পরিবর্তে নতুন দু’টি চার্জ সংযুক্ত হতে দেখেছি- তা হচ্ছে বিমানবন্দর উন্নয়ন ফি এবং নিরাপত্তা ফি। যা সরাসরি যাত্রীদের ভাড়ার উপর বর্তায়।

এই সেক্টরের সাথে সংশ্লিষ্ট হাজার হাজার কর্মীবাহিনী যুক্ত আছে। যাদের ভবিষ্যতকে অন্ধকারাচ্ছন্ন না করে সেক্টরটিকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য বিভিন্ন পথ বের করে দেশের উন্নয়নে অংশীদার হতে সহায়তা করুন। বর্তমানে জিডিপি’র ৩ শতাংশ অংশীদারিত্ব রয়েছে এভিয়েশন এন্ড ট্যুরিজম সেক্টরের। সঠিক পরিচালনার মাধ্যমে এই সেক্টর থেকে ১০ শতাংশ অংশীদারিত্ব রাখা সম্ভব জিডিপি-তে।

সংশ্লিষ্ট নীতি নির্ধারকদের সিদ্ধান্তহীনতা এভিয়েশন সেক্টরকে ক্ষতিগ্রস্ত করে তুলবে, সাথে ট্যুরিজম ইন্ডাস্ট্রি, হোটেল ইন্ডাস্ট্রিসহ সকল ইন্ডাস্ট্রিই ক্ষতিগ্রস্ত হবে। সকল শিল্পের গতিশীলতা বজায় রাখতে হলে এভিয়েশনের গতিশীলতা বজায় রাখতে হবে। সংশ্লিষ্ট সকলে সেই দিকে সচেতন হলে এভিয়েশন সেক্টর বেঁচে যাবে।

জেট ফুয়েল প্রাইস সহ বিভিন্ন চার্জ নির্ধারণের সাথে সংশ্লিষ্ট সকলে দেশের এভিয়েশন ইন্ডাস্ট্রির কথা বিবেচনায় রেখে দেশের নাগরিকদেরকে অগ্রাধিকার দিয়ে সিদ্ধান্ত নিন। তাহলে দেশের উন্নয়নমূখী একটি খাত নিশ্চিত ক্ষতি হওয়ার হাত থেকে বেঁচে যাবে।    

লেখক: মোঃ কামরুল ইসলাম, মহাব্যবস্থাপক-জনসংযোগ, ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স

;

গণকমিশনের শ্বেতপত্র ও আলোচিত ১১৬!



কবির য়াহমদ
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সরকারের নানা উদ্যোগে মাঠপর্যায়ের জঙ্গি দমনে সাফল্য এসেছে। তবে রাজনৈতিক ও আদর্শিকভাবে এই মোকাবিলা করার কোন উদ্যোগ দৃশ্যমান হচ্ছে না। ফলে আইনশৃঙ্খলাকারী বাহিনীগুলোর নিয়মিত নজরদারি ও অভিযানগুলো বন্ধ হয়ে গেলে কী পরিণতি হবে সেটা নিয়ে আমরা এখনও নিঃসন্দেহ হতে পারছি না। কারণ ধর্মীয় জঙ্গিবাদ মূলত ধর্মের মোড়কে, ধর্মের নামে পরিচালিত হয়ে থাকে। দেশ-দেশে ধর্মীয় সংখ্যাগুরুদের মধ্যকার নির্দিষ্ট এবং গোপন গোষ্ঠীগুলো বেশিরভাগ মানুষের মগজধোলাই করে জঙ্গিবাদে উদ্বুব্ধ করে থাকে। বাংলাদেশও এর ব্যতিক্রম নয়।

সম্প্রতি একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি ‘শ্বেতপত্র: বাংলাদেশে মৌলবাদী সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের ২০০০ দিন’ নামের একটা প্রকাশনা উন্মোচন করেছে। গত মার্চে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান খান কামাল এই শ্বেতপত্র প্রকাশনা অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ছিলেন। একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির পক্ষ থেকে জানানো হয়, ‘মৌলবাদী ও সাম্প্রদায়িক শক্তি ২০২১ সালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ আগমনকে বিরোধিতা করে এবং তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দেশের বিভিন্ন জায়গায় সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা চালিয়ে তাদের বাড়িঘর লুটপাট, অগ্নিসংযোগ, মন্দির ও পূজামণ্ডপে হামলা করে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি করেছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে জাতীয় সংসদের আদিবাসী ও সংখ্যালঘু বিষয়ক ককাসের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে গঠিত মৌলবাদী ও সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস তদন্তে গণকমিশন তদন্ত শুরু করে। দীর্ঘ নয়মাস তদন্ত করে এর ফলাফল ও কমিশনের সুপারিশ শ্বেতপত্র আকারে প্রকাশ করেছে।’

দুইমাস আগে এই শ্বেতপত্র প্রকাশিত হলেও সম্প্রতি আলোচনায় এসেছে মূলত ১১৬ ‘ধর্মব্যবসায়ীর’ নাম গণমাধ্যমে প্রকাশের পর। এই শ্বেতপত্র তারা দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক), জাতীয় মানবাধিকার কমিশনেও জমা দিয়েছে, এবং শ্বেতপত্রে তাদের দেওয়া সুপারিশগুলো বিবেচনার অনুরোধ জানিয়েছে। দুদকের এই তালিকা দেওয়ার পর দুদক আনুষ্ঠানিক কোন বক্তব্য না দিলেও জঙ্গি অর্থায়নে যুক্ত নামগুলো এবং তাদের কার্যক্রম নজরদারির মধ্যে নিয়ে আসার কথা জানা যাচ্ছে। দুদক এই ধর্মীয় নেতাদের সম্পদের হিসাব চাইতে পারে এমন এক আলোচনা সামাজিক মাধ্যমে ইতোমধ্যেই শুরু হয়ে গেছে। কেউ কেউ আবার আগেভাগে প্রশ্নও তোলে রেখেছেন ধর্মীয় নেতাদের হিসাব চাইবে কেন দুদক? হেফাজতে ইসলাম স্বাভাবিকভাবেই এই শ্বেতপত্রের বিরোধিতা করে নির্মূল কমিটিকে ‘ভুঁইফোড়’ সংগঠন দাবি করে একে ‘ধৃষ্টতা’ বলেও আখ্যা দিয়েছে। নির্মূল কমিটি হেফাজতের এই প্রতিক্রিয়াকে আমলে নেওয়ার দাবিও জানিয়েছে। অর্থাৎ শ্বেতপত্র প্রকাশের দুইমাস পর কথিত আলেম-ওলামাদের তালিকা যখন দুদকে গেল তখনই সবাই নড়েচড়ে বসতে শুরু করেছে। 

হেফাজতের প্রতিক্রিয়া ও তালিকার ১১৬ আলেমের শুভাকাঙ্ক্ষীরা চাইছেন না উল্লিখিতজনেরা তাদের সম্পদের হিসাব দিক, অথবা দুদককে এক্ষেত্রে কোন ভূমিকায় দেখতে রাজি নন তারা। তারা তাদের অর্জিত সম্পদ নিজেদের প্রয়োজনে ব্যয় করছেন, নাকি জঙ্গি অর্থায়নের ব্যয় করছেন এনিয়েও তাদের ভাবান্তর নেই। এটাকে ‘ধর্মের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র’ বলেও অনেকের অভিযোগ। কিন্তু কেউ যদি তার সম্পদের হিসাব দেয়, কাউকে যদি তার সম্পদের হিসাব দিতে বলা হয় সেটা কি অপরাধ হয়? বরং আলোচিতজনদের সম্পদের হিসাব না দেওয়াটাই অপরাধের পর্যায়ে পড়ে। ১১৬ জন আলেমের যে তালিকা দেখছি আমরা তারা হিসাব দিলেই বরং তাদের অঘোষিত সম্পদ আর থাকে না, সবটাই শুদ্ধ ধর্মের ভাষায় যা ‘হালাল’ হয়ে যায়! হেফাজত ও ১১৬ আলেমের শুভাকাঙ্ক্ষীরা কেন তাদের শ্রদ্ধাভাজনদের সম্পদকে স্বীকৃত কিংবা ‘হালাল’ রূপে দেখতে চাইছেন না?

এটা ঠিক আমাদের দেশে যাদের সম্পদের হিসাব জনগণ দাবি করে তারা সেটা করেন না। মন্ত্রী-সাংসদদের হিসাব প্রকাশের কথা থাকলেও তারা করেন না। বরং ক্ষমতার পটপরিবর্তনে ক্ষমতা-হারা হয়ে যাওয়ার পর দুদকের পক্ষ থেকে তাদের অনেকের বিরুদ্ধে  মামলা হয়, জেলা-জরিমানাও হয়। তারাও সে পর্যন্ত অপেক্ষা করেন। গণকমিশন ১১৬ আলেমের সম্পদ ও জঙ্গি অর্থায়নে তাদের জড়িত থাকার কথা বললে অনেকেই এখন রাজনীতিবিদ, আমলা, প্রশাসন, পুলিশের লোকজন, ব্যবসায়ীসহ নানা শ্রেণিপেশার মানুষের সম্পদের হিসাব চাওয়ার কথা বলছেন। এটা মূলত গণকমিশনের দাবিকে গুরুত্বহীন করে তোলার হীন প্রচেষ্টা; অর্থাৎ কেউ সম্পদের হিসাব দেয় না, আলেমরা দেবে কেন? গণকমিশন কেন অন্যদের হিসাব না চেয়ে কেবলই আলেমদের হিসাব চাইছে, এ প্রশ্নও করছেন অনেকেই। অথচ এই কমিশনই গঠন করা হয়েছিল মৌলবাদী ও সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের দিনগুলো, এর কারণ অনুসন্ধান এবং সমস্যা থেকে উত্তরণের সুপারিশের জন্যে। বিষয় যেখানে সুনির্দিষ্ট সেখানে এর সঙ্গে যুক্ত যারা তাদের নাম-পরিচয় ও জঙ্গি অর্থায়নে তারা জড়িত কি-না এটা আসাটাই তো স্বাভাবিক!

গণকমিশনের শ্বেতপত্রে সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস ও জঙ্গি অর্থায়নের সঙ্গে যুক্ত কেবল ১১৬ ধর্মীয় বক্তার নাম আসেনি। এসেছে পুলিশ প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারীর নাম, ইউএনওর নাম, প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারীর নাম যারা সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসে, বিদ্বেষ  প্রচারে কোনো না কোনোভাবে সম্পৃক্ত ছিলেন, সহযোগিতা করেছেন। নির্মূল কমিটি এই নামগুলো পেয়েছে ঘটনার শিকার ব্যক্তিসহ এর সঙ্গে নানাভাবে যুক্ত মানুষদের সাক্ষ্যে। এখানে তাই উদ্দেশ্যমূলকভাবে ১১৬ ধর্মীয় বক্তাকে জড়ানো হয়েছে বলে যে অভিযোগ অনেকের তা সঠিক নয়। ২ হাজার ২০০ পৃষ্ঠার শ্বেতপত্র স্রেফ ১১৬ নামেই সীমাবদ্ধ নয়; এরসঙ্গে যুক্ত আছে আরও অনেক নাম, অনেক সাক্ষীর সাক্ষ্য, অনেক ঘটনার বিবরণ, সমস্যা থেকে উত্তরণের পথও।

মৌলবাদ, সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস, জঙ্গি অর্থায়নে যারা যুক্ত তাদেরকে আইনের আওতায় না আনলে এই সমস্যার সমাধান সম্ভব না। বর্তমানে দেশে জঙ্গিবাদের প্রকাশ বিস্তৃত পরিসরে দেখা না গেলেও সময়ে-সময়ে সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের ঘটনা ঘটতেই আছে। নির্মূল কমিটির শ্বেতপত্রে ধর্মীয় বক্তা, প্রশাসনের কর্মকর্তা, রাজনৈতিক নেতাসহ যাদের নাম এসেছে তারা কোনো না কোনোভাবে সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের অংশ হয়েছে বলে তাদের অনুসন্ধানে ওঠে আসা তথ্য। তালিকার সবাই যে জঙ্গি অর্থায়ন করছে এমন নাও হতে পারে, তবে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে, নারীদের অসম্মান করতে নানাভাবে ভূমিকা রেখেছে, এবং সেটা ধর্মের নামে। সামাজিক বিভক্তি, সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষ সৃষ্টির সহায়ক যারাই হয়েছেন তাদের আইনের আওতায় আনা জরুরি।

আমরা জানি না নির্মূল কমিটির শ্বেতপত্রে উল্লেখ সুপারিশগুলো সরকার গ্রহণ করবে কি-না। আমাদের বিশ্বাস ধর্মাচার ও ধর্মীয় বক্তব্য দেওয়া কোনোভাবেই অপরাধ নয়, তবে ধর্মের নামে সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষ ও বিভক্তি ছড়ানো নিশ্চিতভাবেই অপরাধ। এই অপরাধে যারা জড়িত তারা হতে পারে ‘হেভিওয়েট’ কোনো, তবু তাদের কোনোভাবেই ছাড় নয়!

কবির য়াহমদ: সাংবাদিক, কলাম লেখক।

;

তেল নিয়ে তেলেসমাতি ও মঈনুদ্দীনের সাথে কথোপকথন



মো. বজলুর রশিদ
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

মঈনুদ্দীন মিয়া একজন রিকশা চালক। আমার অফিসের সামনে প্রায়ই অপেক্ষা করে যাত্রীর জন্য। গত কয়েক বছর যাবত সে ঢাকা শহরে বসবাস করে পরিবার নিয়ে। ব্যক্তিগত কাজে কোথাও যেতে হলে মঈনুদ্দীনের রিকশাতেই যাতায়াত করি। এবারে ঈদের পরে তার রিকশায় ধানমন্ডি এলাকায় যেতে যেতে তাকে জিজ্ঞাসা করলাম, কেমন আছ মঈনুদ্দীন? দিনকাল চলছে কেমন? ঈদ কেমন কাটল? অত্যন্ত হতাশার সুরে সে জবাব দিল, গরীবের আর থাকা কি স্যার! যা ইনকাম তা দিয়ে তো আর জীবন চলে না। জিনিসপাতির যে দাম তাতে সংসার আর চলে কই? রিকশা টাইন্যা শরীর শ্যাষ; জীবনও শ্যাষ! তার কথায় আক্ষেপের সুর।

আমি আর কথা বাড়াতে পারলাম না। ঝিম ধরে রিকশায় বসে থাকার চেষ্টা করলাম। কিন্তুু পারলাম না। এক সিএনসি এসে মঈনুদ্দীনের রিকশার পিছনে বেমক্কা ধাক্কা দিল। পড়তে পড়তে বেঁচে গেলাম। মঈনুদ্দীন সিএনজি চালককে ‘হালার পুুঁত’ বলে কষে এক গালি দিল। তাতে কোনো কাজ হলো না। সিএনজি চালক নির্বিকার মুখে সিএনজির মুখ অন্যদিকে নিয়ে বেরিয়ে গেল। আমিসহ মঈনুদ্দীনের রিকশা বিশাল এক বাসের পিছনে ও ডানে-বাঁয়ে অন্যান্য যানবাহনের ফাঁকে আটকে পড়লাম। ট্রাফিকের জ্যাম। মিনিম্যাম দশ মিনিটতো লাগবেই জ্যাম ছাড়াতে। বিরক্তি নিয়ে বসে থাকলাম আর চারদিকের অবস্থা দেখতে লাগলাম। মঈনুদ্দীন তার গামছা দিয়ে কপালের ঘাম মুছতে মুছতে বলল, ঢাকা শহরের অবস্থা কী হইছে দ্যাখছেন স্যার। মানুষ ক্যামনে যে এই শহরে থাকে বুঝবার পারি না। আমি শুধু বললাম উপায় কী? জীবিকার তাগিদে তো থাকতেই হবে। তুমি যেমন আছ, আমি আছি, অন্যরাও আছে।

মঈনুদ্দীন বলল সবাই কিন্তু জীবিকার জন্য নেই স্যার । অনেকেই আছে ধান্ধাবাজি করতে। দেখছেন না ত্যাল নিয়া কী কা-টায় না চলছে। ঈদের আগে কেজি খানেক গরুর মাংস কিনছিলাম। ৭৫০ টাকা দিয়া। আমার একদিনের ইনকাম। ভাবলাম পোলাপানরা অনেকদিন গরুর মাংস খাইতে পাই নাই। আমি নিজেও তার স্বাদ ভুলতে বসছিলাম। রান্ধন করার সময় বউয়ে কইল ত্যাল নাই। দোকান থেকে ত্যাল নিয়ে আস। বোতল হাতে দিয়া ছোট পোলাটারে দোকানে পাঠাইলাম ত্যাল আনবার জন্য। পোলা খালি বোতল নিয়া ফির‌্যা কয় দোকানথো ত্যার নাই। শেষে আমি নিজেই বারাইলাম। ঘটনাতো সত্য। হালার কোনো দোকানে এক ফোটা ত্যাল নাই। শ্যাষম্যাষ ওর মায়ে কথথোন একটু ত্যাল আইনা রান্ধন সারল। আর এহন শুনি গুদাম থেইক্যা খালি ত্যাল বেরাইতেছে। ব্যবসায়ীগো দোকান। এরা তো স্যার জীবিকার তাগিদে নাই। আছে ধান্ধাবাজি কইরা মানুষরে কষ্ট দিয়া পয়সা বানাবার তালে। আমি বললাম সেকথা ঠিক। তবে তাদেরকে তো ধরারও হচ্ছে। জরিমানা করা হচ্ছে অবৈধভাবে তেল মজুদ রাখার জন্য।

মঈনুদ্দীন এবার একটু ক্ষেপে গেল মনে হয়। ঝাজের সাথে বলল জরিমানাতো স্যার এখন যারা করতাছে তাদেরই করন লাগে। এরা আগে আছিল কই। এই কাজটা যদি ঈদের আগে করত- তাহলে তো মানুষগো ত্যাল নিয়া কষ্ট হইত না। আমার পোলাপানও স্বাদ কইরা একটু গরুর মাংস খাইতে পারত। মঈনুদ্দীন আফসোস ভরা কণ্ঠে বলতে লাগল। এরা তো সবই জানে। তয় আগে থেকে অ্যাকশন লইনা ক্যান?

আমি বললাম, অ্যাকশান নিলে সমস্যা আছে মঈনুদ্দীন। যারা তেল আমদানি করে তারা আমদানি বন্ধ করে দিতে পারে। তখন আরো বেশি সমস্যা দেখা দিবে। মানুষ এখন যেটুকু পাচ্ছে তখন তাও পাবে না। সমস্যা আরো প্রকট হবে। মঈনুদ্দীন বলল এরা বন্ধ করবে কিল্লাই? সরকার আছে না? সরকার ব্যবস্থা নিব। আমি বললাম, সরকার ইচ্ছা করলেই ব্যবস্থা নিতে পারে না। কারণ মুক্তবাজার অর্থনীতি। সরকারের একার পক্ষে তেল আমদানি করা সম্ভব না। তাছাড়া যুদ্ধের জন্য এখন অনেক দেশ তেল রপ্তানি বন্ধ করে দিয়েছে। সামনে অবস্থা আরো খারাপ হবে বলে সবাই বলাবলি করছে। মঈনুদ্দীন এতো কিছু বুঝল কিনা জানি না। হঠাৎ জ্যাম ছুটে যাওয়ায় সে রিকশা চালাতে শুরু করল।

রিকশা চালাতে চালাতেই সে আবার জিজ্ঞাসা করল স্যার হুনছিতো আমাগো দ্যাশ থেইকা অনেক গার্মেন্টস-এর কাপড় বিদেশ যায়। তয় আমাগো দ্যাশ যদি কাপড় দেওন বন্ধ কইরা দেয় তয় ওইসব দেশের কী হইব? পিন্দনের কাপড় পাইব কই? শরমে পড়বতো? মঈনুদ্দীনের এই কথায় আমি একটু অবাক হলেও স্বাভাবিকভাবেই বললাম- মঈনুদ্দীন অনেক দেশ আছে যেখানে আমাদের দেশ থেকে কাপড় না নিলেও সমস্যা নেই। কারণ শীতকাল বাদে গরমের দিনে তাদের কাপড় চোপড় খুব একটা প্রয়োজন হয় না। একটা গেঞ্জি ও হাফ প্যাণ্ট হলেই তাদের চলে যায়। মঈনুদ্দীন বলল মাইয়ারাও কি তাই পরে? আমি বললাম- হ্যাঁ, মেয়েরাও প্রায় একই ড্রেস পরে। সে শুধু বলল- তাজ্জব দেশ! আমি বললাম তাছাড়া আমরা কাপড় না দিলেও তারা অন্য দেশ থেকে নিবে। তাদের সমস্যা হবে না।

মঈনুদ্দীনকে জিজ্ঞাসা করলাম তোমার কাছে কী মনে হয়- আমাদের দেশটা চলছে কেমন? আমাদের প্রধানমন্ত্রী দেশ কেমন চালাচ্ছে? জবাবে সে বলল প্রধানমন্ত্রীতো দেশটা ভালই চালাইতেছে। দেশের অনেক উন্নতি করছে। আমার এক বোনে তার দেওয়া ঘর পাইছে। কিন্তু হের লগে আর যারা সরকার চালাইতেছে তাদের মধ্যে দেশের প্রতি মহব্বত কম। দেশের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর মতো মায়া এদের মধ্যে নাই। মায়া থাকলে ত্যাল নিয়া সমস্যা হয়ত না। ত্যালের মতো আরো অনেক সমস্যা হইত না। এতো সমস্যা প্রধানমন্ত্রী একা কিভাবে সামলাইব। সবাই যদি প্রধানমন্ত্রীর মতো হইত- মঈনুদ্দীনের গলায় আক্ষেপ উথলে ওঠে। রিকশা চলতে থাকে।

মো. বজলুর রশিদ, সহকারী অধ্যাপক, সমাজবিজ্ঞান বিভাগ, তেজগাঁও কলেজ, ঢাকা

 

 

;

শেখ হাসিনার দেশে ফেরা: বাংলাদেশের অগ্রযাত্রার সূচনা



প্রফেসর ড. সৈয়দ সামসুদ্দিন আহমেদ
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

১৯৮১ সালের ১৭ মে জননেত্রী শেখ হাসিনার দেশে ফেরার মাধ্যমে বাংলাদেশের ইতিহাসের পুনর্নির্মাণ শুরু হয়। পঁচাত্তরের পর বাঙালির জীবনে যে অন্ধকার নেমে এসেছিলো, তার ফেরার মধ্য দিয়ে তা কেটে আলোর বিচ্ছুরণ ঘটে। বাংলার মানুষ নতুন করে স্বপ্ন দেখে।

বঙ্গবন্ধুকন্যা তাদের (জনগণ) সঙ্গে নিয়ে মানব—স্বপ্ন বাস্তবায়ন করে চলেছেন। তার নেতৃত্বে বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের মহাসড়কে। মহামারি করোনা থেকে শুরু করে মানবসৃষ্ট নানা সংকট-বেশ বুদ্ধিমত্তা ও দক্ষতার সঙ্গে মোকাবিলা করছেন।

সম্প্রতি বৈশ্বিক অস্থিরতার কারণে দেশে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির লাগাম টেনে সমন্বয়ের বিষয়েও তার পদক্ষেপ চলমান। বাঙালির স্বপ্নপূরণের সারথি হিসেবে উন্নত দেশ গড়ে তোলার কাজ করে চলেছেন তিনি।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্মম হত্যাকাণ্ডের পর প্রায় ছয় বছর নির্বাসিত জীবন কাটাতে হয় তার দুই কন্যা— শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানাকে। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট যেদিন বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করা হয়, শেখ হাসিনা তখন তার ছোট বোন শেখ রেহানা, স্বামী ও দুই সন্তানসহ তৎকালীন পশ্চিম জার্মানিতে অবস্থান করছিলেন। ফলে প্রাণে বেঁচে যান তারা।

পশ্চিম জার্মানি থেকেই স্ত্রী শেখ হাসিনা, তার ছোটবোন শেখ রেহানা এবং শিশু পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয় ও শিশু কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুলের ব্যক্তিগত নিরাপত্তা এবং প্রাণ রক্ষার জন্য ভারত সরকারের কাছে রাজনৈতিক আশ্রয় প্রার্থনা করেন প্রখ্যাত পরমাণু বিজ্ঞানী এম এ ওয়াজেদ মিয়া।

সেই কঠিন সময়ে তাদের হাতে যথেষ্ট টাকা-পয়সা ছিলো না। জাতির পিতার কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানার জার্মানি যাওয়ার সময় তাদের সঙ্গে ছিলো মাত্র ২৫ ডলার।

২৪ আগস্ট সকালে ভারতীয় দূতাবাসের একজন কর্মকর্তা তাদের ফ্রাঙ্কফুর্ট বিমানবন্দরে নিয়ে যান। তবে যাত্রার এ বিষয়টি সে সময় গোপন রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়েছিলো।

এয়ার ইন্ডিয়ার একটি ফ্লাইটে ২৫ আগস্ট সকালে দিল্লি পৌঁছান শেখ হাসিনা, শেখ রেহানা, ওয়াজেদ মিয়া এবং তাদের দুই সন্তান।

বিমানবন্দর থেকে তাদের নিয়ে যাওয়া হয় নয়াদিল্লির ডিফেন্স কলোনির একটি বাসায়। প্রয়াত পরমাণু বিজ্ঞানী এম এ ওয়াজেদ মিয়া লিখেছেন,'... বাসায় ছিল একটি ড্রইং-কাম-ডাইনিং রুম এবং দুটো শয়নকক্ষ।

'ওই বাড়ির বাইরে না যাওয়া, সেখানকার কারো কাছে পরিচয় না দেওয়া এবং দিল্লির কারো সঙ্গে যোগাযোগ না রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল তাদের।

জানা যায়, পঁচাত্তরের ওই সময়টায় ভারতে জরুরি অবস্থা চলছিল। বাংলাদেশ সম্পর্কে তেমন কোনো খবরাখবর ভারতের পত্রিকায় ছাপা হতো না। কাজেই তখনকার বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি সম্পর্কে এক রকম অন্ধকারে ছিলেন বঙ্গবন্ধুর দুই মেয়ে।

দিল্লিতে পৌঁছানোর দুই সপ্তাহ পর ওয়াজেদ মিয়া এবং শেখ হাসিনা ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর বাসায় যান। সেখানেই শেখ হাসিনা ১৫ আগস্ট ঘটে যাওয়া ভয়াবহ ঘটনার বিস্তারিত জানতে পারেন।

এরপর শেখ হাসিনাকে ইন্ডিয়া গেটের কাছে পান্ডারা পার্কের ‘সি' ব্লকে একটি ফ্ল্যাট দেওয়া হয়। বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তার জন্য দেওয়া হয় দুজন নিরাপত্তারক্ষীও।

ওয়াজেদ মিয়াকে ১৯৭৫ সালের ১ অক্টোবর ভারতের পরমাণু শক্তি বিভাগে ফেলোশিপ প্রদান করা হয়। ১৯৭৬ সালের ২৪ জুলাই শেখ রেহানার বিয়ে হয় লন্ডনপ্রবাসী শফিক সিদ্দিকের সঙ্গে। কিন্তু শেখ হাসিনা এবং তার স্বামী বিয়ের ওই অনুষ্ঠানে যোগ দিতে পারেননি।

১৯৭৯ ও ১৯৮০ সালে আওয়ামী লীগের কয়েকজন সিনিয়র নেতা বিভিন্ন সময় দিল্লি যান তাদের খোঁজ-খবর নিতে।

সূত্রমতে, আওয়ামী লীগ নেতা প্রয়াত আব্দুর রাজ্জাক কাবুল যাওয়ার সময় এবং সেখান থেকে ফেরার সময় তাদের সাথে দেখা করেন।

আওয়ামী লীগ নেতা জিল্লুর রহমান, আব্দুস সামাদ আজাদ, তৎকালীন যুবলীগ নেতা আমির হোসেন আমু, আওয়ামী লীগের তৎকালীন যুগ্ম সম্পাদক সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীও দিল্লিতে যান।

এম ওয়াজেদ মিয়া এ বিষয়ে লিখেছেন, তাদের সফরের অন্যতম উদ্দেশ্য ছিল শেখ হাসিনাকে আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব নিতে রাজি করানো।

১৯৮০ সালের ৪ এপ্রিল শেখ হাসিনা নিজের সন্তানদের নিয়ে লন্ডনে যান রেহানার সঙ্গে দেখা করতে। পরের বছর ১৬ ফেব্রুয়ারি দিল্লিতে থাকা অবস্থায় তিনি খবর পান, ১৩ থেকে ১৫ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের কাউন্সিলে তাকে সভাপতি নির্বাচিত করা হয়েছে। এর এক সপ্তাহ পরে আওয়ামী লীগের সেই সময়ের শীর্ষ নেতারা দিল্লি যান। সেখানে কয়েকটি বৈঠকও করেন তারা।

এরপর জননেত্রী শেখ হাসিনার ঢাকা ফেরার তারিখ চূড়ান্ত হয়। ১৬ মে শেখ হাসিনা দিল্লি থেকে একটি ফ্লাইটে কলকাতা পৌঁছান। ১৭ মে বিকেলে কলকাতা থেকে ফেরেন ঢাকায়। তাদের সঙ্গে ছিলেন আব্দুস সামাদ আজাদ ও এম কোরবান আলী। (তথ্যসূত্র: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে ঘিরে কিছু ঘটনা ও বাংলাদেশ; এম এ ওয়াজেদ মিয়া)

১৯৮১ সালের ১৭ মে ছিল দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া। প্রচণ্ড ঝড়-বৃষ্টি উপেক্ষা করে জনতার ঢল নেমেছিল তেজগাঁও বিমানবন্দরে। জননেত্রীকে অভ্যর্থনা জানাতে আসেন বিভিন্ন বয়সী নারী-পুরুষ, যুবা-ছাত্র।

শেখ হাসিনাকে শুভেচ্ছা জানিয়ে তাদের ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু’ স্লোগানে প্রকম্পিত হয় তেজগাঁও বিমানবন্দর এলাকা। এছাড়া ‘হাসিনা তোমায় কথা দিলাম পিতৃ হত্যার বদলা নেব, বলেও স্লোগান দেওয়া হয়।

এরপর মানিক মিয়া এভিনিউয়ে আয়োজিত লাখো জনতার উপস্থিতিতে এক সমাবেশের আয়োজন করা হয়। সেখানে শেখ হাসিনা বাষ্পরুদ্ধ কণ্ঠে বলেছিলেন, 'সব হারিয়ে আমি আপনাদের মাঝে এসেছি। বঙ্গবন্ধুর নির্দেশিত পথে তার আদর্শ বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে জাতির জনকের হত্যার প্রতিশোধ গ্রহণে আমি জীবন উৎসর্গ করতে চাই।

ওই সময় দেশে সামরিক শাসন চলছিল। এর মাঝে শেখ হাসিনার স্বদেশে ফেরা ছিল একটি সাহসী সিদ্ধান্ত। তৎকালীন সরকারের পক্ষ থেকে নানা প্রতিবন্ধকতাও সৃষ্টি করা হয়। এমনকি ১৯৮১ সালে ‘শেখ হাসিনা আগমন প্রতিরোধ কমিটি’ পর্যন্ত করানো হয়েছিল। তবে দেশের মানুষ কখনই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে ভোলেনি। তিনি যেমন আজীন মানুষকে ভালোবেসেছেন, মানুষও তাকে বুকে ধারণ করে তার আদর্শকে উজ্জ্বীবিত করে চলেছে।

এমন অবস্থায় পিছু হঁটতে বাধ্য হয় কুচক্রীমহল। এমন প্রেক্ষাপটে ১৯৮১ সালের ১৭ মে সকল পত্রিকায় খবর ছাপা হয়েছিল– ‘শেখ হাসিনা আগমন প্রতিরোধ কমিটি আপাতত তাদের কর্মসূচি স্থগিত করেছে’। (সূত্র: শেখ হাসিনার স্বদেশপ্রত্যাবর্তন: তার চেয়ে জ্যেষ্ঠ রাজনীতিবিদ আর কয়জন আছেন!; সুভাষ সিংহ রায়)।

১৫ আগস্টের শোকাবহ ঘটনা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জীবনে অনেক বড় বেদনাদায়ক ঘটনা, এক গভীরতম ট্রাজেডি। এই শোক তাকে দেশ ও মানুষের জন্য কাজ করে যেতে শক্তি দিয়েছে, করে তুলেছে আরও দায়িত্বশীল।

শেখ হাসিনা একজন আত্মপ্রত্যয়ী, মানবতাবাদী ও দূরদর্শী নেতৃত্বের অধিকারী। যার প্রকাশ ঘটেছিল সেই ছাত্রজীবনে। তবে তারুণ্যের সেই দিনগুলো থেকে আজকের শেখ হাসিনা অভিজ্ঞতায় অনেক সমৃদ্ধ।

দক্ষতা ও অভিজ্ঞতার আলোকে তিনি খুবই ঋদ্ধ। বুদ্ধিমত্তা আগের মতই প্রখর, সহনশীলতা ও দৃঢ়তা, ধৈর্য, যেন তাঁর চরিত্রগত ধর্ম।

ভালোবাসায় ও সহমর্মিতায় তিনি সবার কাছে প্রিয় এবং বাঙলার মানুষের অতি আপনজন। তাই আজ আমাদের কাছে গর্বের বিষয় শেখ হাসিনা বাংলাদেশের প্রতীক হিসেবে জনগণের কাছে নন্দিত। তিনি জনমানুষের নেতা। সেখান থেকে এখন বিশ্বনেতায় পরিণত হয়েছেন। তার যোগ্য নেতৃত্বে দেশ যেমন এগিয়ে চলছে, তেমনি বৈশ্বিক নেতাদের বাহবাও পেয়েছন তিনি। যা বাঙালি হিসেবে আমাদের গর্বিত করে।

বাঙলার মানুষের উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী একটা কথা প্রায়ই বলে থাকেন— 'আমার আর হারাবার কিছুই নেই। পিতা-মাতা, শিশু ছোটভাই রাসেলসহ সকলকে হারিয়ে আমি আপনাদের কাছে এসেছি। আমি আপনাদের মাঝেই তাদের ফিরে পেতে চাই।'

তাইতো দিন রাত এক করে বাঙলার মানুষের কল্যাণে কাজ করে চলেছেন। দেশকে এনে দিয়েছেন উন্নয়নশীল রাষ্ট্রের তকমা। তার দেখানো পথেই উন্নত ও সমৃদ্ধ তথা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলার দিকে অপ্রতিরোধ্য গতিতে ছুটছে বাংলাদেশ।

নারীর ক্ষমতায়ন, স্বাস্থ্য, শিশুমৃত্যুর হার, পরিবেশ, শিল্পায়ন, বিনিয়োগ ইত্যাদিতে বাংলাদেশ আজ বিশ্বে একটি অনুকরণীয় রাষ্ট্র। মানুষের প্রতি তার মমত্ববোধ আর ভালবাসার কারণে আজ পৃথিবীতে বাংলাদেশ একটি কার্যকর কল্যাণমুখী রাষ্ট্র। প্রধানমন্ত্রী প্রবর্তিত সোশ্যাল সেফটি নেট বা সামাজিক নিরাপত্তা বলয় গোটা উন্নয়নশীল বিশ্বে এক অনন্য ঘটনা।

বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথ ধরে দেশি-বিদেশি সকল বিশেষজ্ঞ ও গবেষকের হাইপোথিসিসকে ভুল প্রমাণ করে বাংলাদেশ মিয়ানমার ও ভারতের দাবির বিপক্ষে বিশাল সমুদ্রসীমা জয় করেছে। এটা সম্ভব হয়েছে কেবল প্রধানমন্ত্রীর সুদক্ষ ও সাহসী নেতৃত্বে এবং সফল এনার্জি ডিপ্লোমেসির কারণে।

আন্তর্জাতিক সমুদ্র আইন প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকে পৃথিবীর খুব কম দেশই এত সফলভাবে সমুদ্রের উপর তাদের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছে। এই কৃতিত্ব কেবলই প্রধানমন্ত্রীর।

পাকিস্তানের ২৪ বছরে, জিয়া-এরশাদ ও খালেদা জিয়ার মোট ৩১ বছর শাসনামলে যেখানে ভারতের সাথে স্থল সীমান্ত সমস্যার সমাধান হয়নি, সেখানে তার কার্যকর কূটনীতির মাধ্যমে বাংলাদেশের ৫১টি ছিটমহল ভারত গ্রহণ করেছে, যার মোট আয়তন ৭ হাজার ১১০ একর ভূমি।

অন্যদিকে, ভারতের ১১১টি ছিটমহল বাংলাদেশ পেয়েছে, যার মোট আয়তন ১৭ হাজার ১৬০ একর ভূমি। ফলে বাংলাদেশ ভারতের কাছ থেকে ১০ হাজার ৫০ একর বা ৪০.৬৭ বর্গ কিলোমিটার ভূমি পেয়েছে।

একটি স্বল্পোন্নত দেশ হওয়া সত্ত্বেও ১৩ হাজার ৫০০ এর মতো কমিউনিটি ক্লিনিক স্থাপনের মাধ্যমে স্বাস্থ্যসেবাকে জনগণের দোরগোঁড়ায় পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। আরও ৪ হাজার ৫০০ কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণাধীন। যুগান্তকারী এই ব্যবস্থাও প্রধানমন্ত্রীর চিন্তার ফসল। ঘরহীনদের দিয়েছেন জায়গাসহ পাকা ঘর।

করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে তার নেতৃত্বে গোটা রাষ্ট্রযন্ত্র দিন রাত কাজ করে যাচ্ছে। দেশের কৃষক, শ্রমিক, দিনমজুর, খেটে খাওয়া তথা স্বল্প আয়ের মানুষের খাদ্য নিরাপত্তার বিষয়টিও গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে। মানুষকে বাঁচাতে ও অর্থনীতিকে রক্ষা করতে লক্ষ লক্ষ কোটি টাকার অনুদান ও প্রণোদনা দেওয়া হচ্ছে, যা খুব প্রশংসনীয়।

নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মাসেতু বাস্তবায়ন তার আরেকটি সাহসী সিদ্ধান্ত। যা বাঙালিকে আত্মবিশ্বাসী করে তুলেছে। চলতি বছরের জুনের মাঝে এ সেতু খুলে দেওয়া হবে। এতে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নের সঙ্গে অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হবে বাংলাদেশ।

বঙ্গবন্ধুর পর বাঙালির মুক্তি সংগ্রাম আর মুক্তিযুদ্ধের আদর্শের আলোকবর্তিকা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একাত্তরে বঙ্গবন্ধু আমাদের স্বাধীনতা দিয়েছেন। যা বাঙালির শ্রেষ্ঠ অর্জন।

আর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করে ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত বিশ্বের কাতারে নাম লেখাবে বাংলাদেশ— এই আমাদের প্রত্যাশা।

লেখক: উপাচার্য, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়; জামালপুর।

;