বাবাকে খুন করে ৯৯৯ ফোন ছেলের

উপজেলা করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, শ্রীপুর (গাজীপুর)
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

গাজীপুরের শ্রীপুরে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে বাবা আব্দুল ওয়াদুদ ওরফে বাবুল মাস্টারকে (৫৫) খুন করেছে ছেলে ইমরান হাশমি রাতুল (২৫)। খুন করার পর ৯৯৯ কল দিয়ে পুলিশকে জানায় রাতুল নিজেই।

সোমবার (২১ অক্টোবর) রাতে উপজেলার গোসিংগা ইউনিয়নের লতিফপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত আব্দুল ওয়াদুদ ওরফে বাবুল মাস্টার একই গ্রামের মৃত আব্দুল রশিদ মাস্টারের ছেলে এবং পার্শ্ববর্তী কাপাসিয়া উপজেলার তরগাঁও কোহিনুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের গণিত বিষয়ের শিক্ষক ছিলেন। বাবুল মাস্টার ডান পায়ে কৃত্রিম পা লাগিয়ে চলাচল করতেন। শিক্ষকতার পাশাপাশি লতিফপুর এলাকার তোতা মার্কেটে ফার্মেসির ব্যবসা করতেন তিনি।

এ ঘটনায় অভিযুক্ত ছেলে ইমরান হাশমি রাতুলকে আটক করেছে পুলিশ। রাতুল রাজধানীর উত্তরার ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির ইংরেজি বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী।

গোসিংগা ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড সদস্য খোরশেদ আলম (রফিক প্রধান) জানান, রাতুল অত্যন্ত ভদ্র ও মেধাবী একজন ছেলে। পড়ালেখার প্রতি তার গভীর মনোযোগ ছিল। অতিরিক্ত পড়াশোনার চাপে মাঝে মধ্যে মানসিক সমস্যায় ভুগতো সে। মাথা খারাপ হলে রাগান্বিত ও অনেক সময় ঝিম মেরে বসে থাকত। সোমবার রাতে তার এই সমস্যার কারণে এ ঘটনা ঘটতে পারে বলেও ধারণা করেন তিনি।

স্বজনদের বরাত দিয়ে শ্রীপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) হাবিবুর রহমান জানান, কলেজের জন্য টাকা চাওয়া নিয়ে বাবা ছেলের মধ্যে গতরাতে কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে ঘরে থাকা লোহার রড দিয়ে বাবার মাথায় আঘাত করে ছেলে। এতে বাবা গুরুতর আহত হয়। পরে ছেলে ৯৯৯ কল দিয়ে এ সংবাদ পুলিশকে দিলে তাকে উদ্ধার করে শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল হাসপাতালে পাঠিয়েছে।

শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লিয়াকত আলী জানান, বাবাকে খুন করার ঘটনায় ছেলে রাতুলকে আটক করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

আপনার মতামত লিখুন :