নাসিরনগর হানাদার মুক্ত দিবস আজ

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া
মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি ফলক/ছবি: বার্তা২৪.কম

মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি ফলক/ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলা পাক হানাদার মুক্ত দিবস ৭ ডিসেম্বর। ১৯৭১ সালের এই দিনে বাংলার দামাল ছেলেরা পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে পরাজিত করে নাসিরনগর উপজেলাকে শত্রুমুক্ত করেন। জয় বাংলা শ্লোগান দিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের লাল-সবুজ পতাকা উত্তোলন করে মুক্তিবাহিনীরা।

১৯৭১ সালের ১৫ নভেম্বর পাক হানাদার বাহিনী নাসিরনগর উপজেলায় তাদের বিপুল সংখ্যক সৈন্য ও দেশীয় দোসর, রাজাকার, আলবদর ও আলসামস বাহিনীর সহযোগিতায় গ্রামবাসীর উপর চালায় নিষ্ঠুর অত্যাচার ও নির্যাতন। উপজেলার ফুলপুর, নুরপুর, কুলিকুন্ডা, সিংহগ্রাম ও তিলপাড়া গ্রামের বাসিন্দাদের ঘরে অগ্নিসংযোগ ও লুটপাট করে। পাকবাহিনীর অমানবিক নির্যাতনে বহুলোক নিহত ও আহত হয়। মুক্তিযোদ্ধা ও সংগ্রামী জনতা পাক-বাহিনীর বিরুদ্ধে দীর্ঘ ৯ মাস লড়াই করে ৭ ডিসেম্বর থানা অভ্যন্তরে (পুলিশ স্টেশন) স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে নাসিরনগরকে পাক-হানাদার মুক্ত করেন।

মুক্তিযুদ্ধে যে সকল বীর সেনা আত্মাহুতি দিয়েছিলেন তাদের স্মৃতি ধরে রাখার জন্য দীর্ঘ ৪৭ বছর অতিবাহিত হওয়ার পর নাসিরনগরে মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি ফলক নির্মিত হয়। ২০০৮ সালের ২৬ মার্চ উপজেলা পরিষদ চত্বরে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতি ফলকের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করা হয়। তার দীর্ঘদিন পর প্রয়াত মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ মন্ত্রী এডভোকেট মোহাম্মদ ছায়েদুল হক-এর সহযোগিতায় প্রায় ১৮ লাখ টাকা ব্যয়ে স্মৃতিসৌধটির নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়। 

আপনার মতামত লিখুন :