ছয় মাসের মধ্যে পুঁজিবাজার টেকসই হবে: বিএসইসি চেয়ারম্যান



সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
বিএসইসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম

বিএসইসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম

  • Font increase
  • Font Decrease

আগামী ছয় মাসের মধ্যে পুঁজিবাজার টেকসই হবে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘বিএসইসি ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগের নিরাপত্তা দেবে। অনেক দুষ্টু শক্তি পুঁজিবাজার নিয়ে নানা সময় খেলা করেছে। তবে খেলার সময় শেষ হয়ে আসছে।’

বৃহস্পতিবার (২৪ ডিসেম্বর) আগারগাঁওয়ে বিএসইসি’র কার্যালয়ে আয়োজিত এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ‘রোল অব ক্যাপিটাল মার্কেট ইন কিপিং ইকোনোমি ভাইব্রেন্ট ডিউরিং কোভিড-১৯ প্যানডেমিক’ শীর্ষক ওই সেমিনারের আয়োজন করে প্রকাশিতব্য নতুন দৈনিক ‘বাণিজ্য প্রতিদিন’। অনুষ্ঠানে দৈনিকটির অনলাইন ভার্সনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়।

সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন- বিএসইসির কমিশনার ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ ও কমিশনার প্রফেসর ড. মো. মিজানুর রহমান। অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন কমিশনের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. রেজাউল করিম। আরও উপস্থিত ছিলেন বিডি ফাইন্যান্সের চেয়ারম্যান ও আনোয়ার গ্রুপের এমডি মানোয়ার হোসাইন, বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমবিএ) প্রেসিডেন্ট মো. ছায়েদুর রহমান, ক্যাপিটাল মার্কেট জার্নালিস্ট ফোরামের (সিএমজেএফ) সভাপতি হাসান ইমাম রুবেল ও সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন।

অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম বলেন, ‘বাজার ডিমান্ড-সাপ্লাই (চাহিদা-যোগান) এর উপর নির্ভর করে ওঠানামা করবে। ওঠানামা হবে সাসটেইনেবল (টেকসই)। এর মধ্যে কোনও দুষ্টু শক্তি এসে যাতে ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের নিঃস্ব করে যেতে না পারে সেটা আমরা খেয়াল রাখছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন অব বাংলাদেশসহ (আইসিবি) আমাদের সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে যাতে ঠিকভাবে রোল প্লে করতে পারে সেদিকেও আমরা খেয়াল রাখছি। আমরা আইপিও অনুমোদন দিব। কারণ আইপিওর মাধ্যমে বড় বড় ব্যবসায়ীরা তাদের ব্যবসার জন্য দীর্ঘমেয়াদী অর্থায়নের ব্যবস্থা করতে পারবেন।’

অনুষ্ঠানে কমিশনার প্রফেসর ড. মো. মিজানুর রহমান বলেন, ‘আমরা পুঁজিবাজারের স্থিতিশীলতা চাই। এ জন্য মিডিয়ার বড় একটি ভূমিকা রয়েছে। বাজারের স্বচ্ছতা ও গতিশীলতা নিশ্চিতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। উন্নয়নশীল বিশ্ব তাদের উন্নয়নে গণমাধ্যমের উপর ভরসা করে।’