প্রাইম ব্যাংকের ২৭তম বার্ষিক সাধারণ সভা



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
প্রাইম ব্যাংকের ২৭তম বার্ষিক সাধারণ সভা

প্রাইম ব্যাংকের ২৭তম বার্ষিক সাধারণ সভা

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রাইম ব্যাংক লিমিটেডের ২৭তম বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১২ মে) বেলা ১১টায় ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে এ এজিএম অনুষ্ঠিত হয়।

২৯৩ জন শেয়ারহোল্ডার, পরিচালনা পর্ষদের সদস্যবৃন্দ, স্বতন্ত্র বিশ্লেষক, নিরীক্ষক, পর্যবেক্ষক এবং ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উক্ত বার্ষিক সাধারণ সভায় উপস্থিত ছিলেন।

প্রাইম ব্যাংক লিমিটেডের চেয়ারম্যান তানজিল চৌধুরী সভায় সভাপতিত্ব করেন। অন্যান্যের মধ্যে নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান জাইম আহমেদ, অডিট কমিটির চেয়ারম্যান আনোয়ার উদ্দিন চৌধুরী, রিক্স ম্যানেজমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান ড. শরীফ এম.এন.ইউ ভূইঁয়া, সাবেক চেয়ারম্যান আজম জে চৌধুরী এবং ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হাসান ও. রশীদ সভায় উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ারহোল্ডারবৃন্দ ২০২১ সালের জন্য ১৭.৫০% নগদ লভ্যাংশ, একই সাথে পরিচালকবৃন্দের প্রতিবেদন, নিরীক্ষিত আর্থিক বিবরণ, পরিচালকবৃন্দের নিয়োগ ও পুনর্নিয়োগ, বিধিবদ্ধ নিয়ম অনুযায়ী নিরীক্ষক এবং কমপ্লায়েন্স নিরীক্ষক নিয়োগ অনুমোদন করেন।

২০২২-২৩ অর্থবছরের মুদ্রানীতি ঘোষণা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
২০২২-২৩ অর্থবছরের মুদ্রানীতি ঘোষণা

২০২২-২৩ অর্থবছরের মুদ্রানীতি ঘোষণা

  • Font increase
  • Font Decrease

বেসরকারি খাতে ১৪ দশমিক ১০ শতাংশ ঋণ বাড়ানোর প্রক্ষেপণ করে ২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য সতর্কতামূলক মুদ্রানীতি ঘোষণা করা হয়েছে। আগের অর্থবছরে এই লক্ষ্যমাত্রা ১৪ দশমিক ৮০ শতাংশ থাকায় নতুন মুদ্রানীতিতে এই ঋণ প্রবৃদ্ধি শূন্য দশমিক ৭০ শতাংশ কম ধরা হয়েছে। এ মুদ্রানীতি কিছুটা সংকোচনমুখী।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) বিকেলে মুদ্রানীতি ঘোষণা করেন গভর্নর ফজলে কবির। বর্তমান গভর্নর ফজলে কবিরের এটাই শেষ মুদ্রানীতি ঘোষণা। আগামী ৩ জুলাই তার মেয়াদ শেষ হবে।

মুদ্রানীতি ঘোষণাকালে ফজলে কবির বলেছেন, ‘বৈশ্বিক ও অভ্যন্তরীণ অর্থনীতির সর্বশেষ পরিস্থিতি এবং সম্প্রতি সংঘটিত দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের বন্যার অর্থনৈতিক প্রভাব পর্যালোচনা করে প্রতীয়মান হয় যে, ২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য মুদ্রানীতির মূল চ্যালেঞ্জ হবে টাকার অভ্যন্তরীণ ও বাহ্যিক মান অর্থাৎ মূল্যস্ফীতি ও বিনিময় হারকে স্থিতিশীল রাখা। একই সঙ্গে, কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে চলমান অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার কার্যক্রমে সমর্থন অব্যাহত রাখাও আসন্ন মুদ্রানীতির জন্য অপরিহার্য বলে বিবেচিত হয়েছে। সে বিবেচনায় মূল্যস্ফীতি ও টাকার বিনিময় হারের ঊর্ধ্বমুখী চাপকে নিয়ন্ত্রণে রেখে কাঙ্ক্ষিত জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জনে সহায়তা করার নিমিত্তে ২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য সতর্কতামূলক মুদ্রানীতি ভঙ্গি অনুসরণ করা হয়েছে, যা কিছুটা সংকোচনমুখী। সে আলোকে পুরো অর্থবছরের জন্য অর্থ ও ঋণ কর্মসূচি প্রণয়ন করা হয়েছে।’

উল্লেখ্য, জাতীয় বাজেট বক্তৃতার তথ্য অনুযায়ী, ২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য সরকারের কাঙ্ক্ষিত জিডিপি প্রবৃদ্ধি ও মূল্যস্ফীতির লক্ষ্যমাত্রাগুলো হলো যথাক্রমে ৭.৫ ও ৫.৬ শতাংশ। এ লক্ষ্য ঠিক রেখে নতুন মুদ্রানীতি ঘোষণা করা হয়েছে।

পুরো ২০২২-২৩ অর্থবছরে বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধির প্রক্ষেপণ করা হয়েছে ১৪ দশমিক ১০ শতাংশ। আগের মুদ্রানীতিতে লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৪ দশমিক ৮০ শতাংশ। আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত বেসরকারি ঋণের প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য রাখা হয়েছে ১৩ শতাংশ ৬০ শতাংশ। চলতি জুন পর্যন্ত বেসরকারি খাতে ঋণের প্রবৃদ্ধি হয়েছে মাত্র ১৩ দশমিক ১০ শতাংশ।

ঘোষিত নতুন মুদ্রানীতিতে সরকারের লক্ষ্যমাত্রার আলোকে ঋণ গ্রহণের প্রবৃদ্ধি ৩৬ দশমিক ৩ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়েছে। মোট অভ্যন্তরীণ ঋণের প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছে ১৮ দশমিক ২০ শতাংশ।

মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ ও কাঙ্ক্ষিত প্রবৃদ্ধি অর্জনের মধ্যে ভারসাম্য রাখতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক মুদ্রানীতি প্রণয়ন ও প্রকাশ করে। দেশের আর্থিক ব্যবস্থাপনায় মুদ্রানীতি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এর মাধ্যমে অভ্যন্তরীণ ঋণ, মুদ্রা সরবরাহ, অভ্যন্তরীণ সম্পদ, বৈদেশিক সম্পদ কতটুকু বাড়বে বা কমবে, তার পরিকল্পনা তুলে ধরা হয়।

;

চট্রগ্রামের খুলশীতে স্বপ্নর ২২৪তম আউটলেট



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
চট্রগ্রামের খুলশীতে স্বপ্নর ২২৪তম আউটলেট

চট্রগ্রামের খুলশীতে স্বপ্নর ২২৪তম আউটলেট

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের অন্যতম রিটেইল চেইন শপ স্বপ্ন’র নতুন আউটলেট এখন চট্টগ্রাম শহরের খুলশীতে।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) সকাল ১১ টায় খুলশীর জাকির হোসেন রোডে (হলি ক্রিসেন্ট হাসপাতালের বিপরীতে) নতুন এই আউটলেটের উদ্বোধন করা হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন স্বপ্নর অপারেশনস ডিরেক্টর আবু নাসের, স্বপ্নর রিটেইল এক্সপানশন ডিরেক্টর সামসুদ্দোহা শিমুল, স্বপ্ন’র হেড অব বিজনেস (প্রোটিন অ্যান্ড পেরিশেবলস) মো. মাহাদী ফয়সাল, স্বপ্ন’র হেড অব বিজনেস মো: ইকবাল হোসেন, চট্রগ্রামের এরিয়া ম্যানেজার সাইফুর রব তারেকসহ অনেক।

‘স্বপ্ন’র নির্বাহী পরিচালক সাব্বির হাসান নাসির বলেন, স্বপ্ন এখন দেশের ৪০টি জেলায়। চট্টগ্রামে আমাদের সেবার পরিসর আরো বিস্তৃত হবে । খুলশীতে অনেকদিন ধরেই আমরা স্বপ্নের একটি বড় আউটলেট করার পরিকল্পনা করছিলাম। আশা করছি, স্বাস্থ্যসম্মত এবং নিরাপদ পরিবেশে এখানের সব গ্রাহক স্বপ্ন’তে নিয়মিত বাজার করবেন।


স্বপ্নর অপারেশনস ডিরেক্টর আবু নাসের বলেন, গ্রাহকের চাহিদা ও সন্তুষ্টিকে সবসময় অগ্রাধিকার দেয় 'স্বপ্ন'। আশা করছি, এখানের সব গ্রাহক আমাদের এই নতুন আউটলেটটি পছন্দ করবেন।

স্বপ্নর রিটেইল এক্সপানশন  ডিরেক্টর  সামসুদ্দোহা শিমুল বলেন, স্বপ্নর ২২৪তম আউটলেট এটি।  চট্টগ্রামের মানুষদের জন্য আমাদের নতুন এই আউটলেটটিতে দৈনন্দিন জীবনের প্রয়োজনীয় সব কিছু আমরা রাখার চেষ্টা করেছি।

নতুন আউটলেটের ঠিকানা:  জাকির হোসেন রোড (হলি ফ্যামিলির বিপরীতে), উত্তর খুলশী, চট্রগ্রাম।

এই আউটলেটেও থাকছে মাসব্যাপী নানা অফার এবং হোম ডেলিভারি সেবা। খুলশীর নতুন এই আউটলেটে হোম ডেলিভারির জন্য যোগাযোগের নম্বর- ০১৮৪৭-২৬৫০৩৫ ।

;

‘জ্বালানি সনদে স্বাক্ষর রাষ্ট্রকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলবে’



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্র মিলনায়তনে ক্যাব আয়োজিত সংলাপ

বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্র মিলনায়তনে ক্যাব আয়োজিত সংলাপ

  • Font increase
  • Font Decrease

জ্বালানি সনদ চুক্তি কোনভাবেই জনগণের স্বার্থ রক্ষা করে না। এতে জ্বালানি রূপান্তর নীতি বাধাগ্রস্ত হবে, রাষ্ট্র ঝুঁকির মধ্যে পড়বে।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্র মিলনায়তনে ক্যাব আয়োজিত গণমাধ্যমের সঙ্গে সংলাপে এমন অভিমত উঠে এসেছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালের অধ্যাপক ড. তানজীমউদ্দিন খান বলেন, জ্বালানি সনদ চুক্তির মূল উদ্যোক্তা ছিল নেদারল্যান্ডস। তারাই এখন বের হয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। তবে বের হয়ে যাওয়া খুব সহজসাধ্য নয় তাই একে জংলী সনদ বলা হয়। ১৯৯১ সালে ডাবলিনে এক সভায় ডাচ প্রধানমন্ত্রী এনার্জি কমিউনিটি গড়ার প্রস্তাব দেন। ওই প্রস্তাবের হাত ধরে ইউরোপীয় জ্বালানি সনদ চূড়ান্ত হয়। চুক্তিটি ১৯৯৮ সাল থেকে কার্যকর হয়।

সনদে স্বদেশি বিদেশি বাছ-বিচার না করে সবাইকে সুরক্ষা দেওয়া কথা বলা হয়েছে। বাংলাদেশ ২০১৫ সালে এনার্জি চার্টারে স্বাক্ষর করে এখন পর্যবেক্ষক হিসেবে রয়েছে। ২০১৮ সালে আন্তর্জাতিক নবায়নযোগ্য সম্মেলনে বাংলাদেশ চুক্তি স্বাক্ষরের বিষয়ে নিশ্চিত করেছে, শিগগিরই চুক্তি করার পথে রয়েছে। ধারা ৫, ১১ ও ১৪ অনুযায়ী লোকাল কোনো পণ্য ব্যবহারে বাধ্য করতে পারবে না। জনবলও নিতে বাধ্য করা যাবে না।

ভোক্তার জন্য জ্বালানি মূল্য কমালে বিনিয়োগকারী যদি ক্ষতিগ্রস্ত হয়, তাতে মামলা করতে পারবে। এই সনদে সই করলে বিদেশি কোম্পানি বিনা বাঁধায় তাদের পুঁজি, মুনাফা ফেরত নিয়ে যেতে পারবে। সবচেয়ে বিপদজনক হচ্ছে, বিনিয়োগ সংক্রান্ত দ্বন্দ্ব নিরসনে অতি ব্যয়বহুল আন্তর্জাতিক সালিসের দ্বারস্থ হতে বাধ্য করা হয়েছে। অন্যান্য আইনের মতো প্রাথমিক ধাপে স্বাগতিক রাষ্ট্রের আদালতে যাওয়ার বাধ্যবাধকতা নেই। এই সনদ স্বাগতিক দেশের জন্য একটি অসম ও ভারসম্যহীন অবস্থায় সৃষ্টি করা হয়েছে।

সূচনা বক্তব্য রাখেন ক্যাবের সভাপতি গোলাম রহমান। তিনি বলেন, শরীরে রক্ত প্রবাহ ঠিক না থাকলে যেমন শরীর অচল হয়ে পড়ে। অর্থনীতির জন্য জ্বালানিও তেমনি। আমাদের দেশে এখন পর্যন্ত মূল্যস্ফীতি কিছু নিয়ন্ত্রণে রয়েছে জ্বালানির মূল্য কিছুটা স্থিতিশীল রয়েছে। যেসব দেশে স্বয়ংক্রিয়ভাবে জ্বালানির দাম উঠানামা করে তাদের মূল্যস্ফীতি অনেক বেশি। আমেরিকা তার উপযুক্ত উদাহরণ। মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য জ্বালানির দাম জনগণের নাগালে রাখতে হবে।

ক্যাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি ড. এম শামসুল আলম বলেন, প্রশাসনিক কর্তৃপক্ষের অবৈধ ও এখতিয়ার বর্হিভূত কর্তৃত্ব, রেগুলেটরি সংস্থার নিষ্ক্রিয়তা ও অদক্ষতা, সুশাসনের সংকট এবং উপেক্ষিত জ্বালানি অধিকার ও পরিবেশ সংরক্ষণ এবং জ্বালানি জাস্টিস এমন অবস্থা বাংলাদেশে জনবান্ধন জ্বালানি উন্নয়নে বড় বাঁধা।

সাশ্রয়ী মূল্যে জ্বালানি সরবরাহের দায়িত্ব বিইআরসির। কিন্তু তারা আইন যথাযথভাবে পালন করছে না। তারা লুন্ঠনমূলক ব্যয় অনুমোদন দিচ্ছে। ভোক্তাদের স্বার্থ সংরক্ষণের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে তেমন কোন উদ্যোগ দৃশ্যমান নয়। এমনকি সামাজিকভাবেও তেমন কোন আন্দোলন দেখা যাচ্ছে না।

এদেশে নবায়নযোগ্য জ্বালানির নামে নিম্নমানের জিনিসের ব্যবসা হচ্ছে। রাজস্থানে যে সৌর বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হচ্ছে, সেখানে ৩ টাকার কম খরচ পড়ছে।

;

‘চিনি শিল্পকে একটি লাভজনক শিল্পে পরিণত করতে হবে’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
চিনি শিল্পকে একটি লাভজনক শিল্পে পরিণত করতে হবে: শিল্প প্রতিমন্ত্রী

চিনি শিল্পকে একটি লাভজনক শিল্পে পরিণত করতে হবে: শিল্প প্রতিমন্ত্রী

  • Font increase
  • Font Decrease

শিল্প প্রতিমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা কামাল আহমেদ মজুমদার এমপি বলেছেন, চিনি শিল্প একটি সম্ভাবনাময় শিল্প, তাই আখ চাষ ও চিনি উৎপাদনে আধুনিক প্রযুক্তি ও উপকরণ ব্যবহারের মাধ্যমে চিনি শিল্পকে একটি লাভজনক শিল্পে পরিণত করতে হবে।

বুধবার ( ২৯ জুন) দুপুরে রাজধানীর মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকায় চিনিশিল্প ভবনে আয়োজিত বাংলাদেশ চিনিশিল্প কর্পোরেশন শ্রমিক-কর্মচারী ফেডারেশনের নবনির্বাচিত কার্যকরী সংসদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন।

শিল্প প্রতিমন্ত্রী সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী, স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে গভীর শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করে বলেন, বঙ্গবন্ধু শুধু একটি স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্রই প্রতিষ্ঠা করেননি, তিনি একটি উন্নত-সমৃদ্ধ শিল্পোন্নত রাষ্ট্র গঠনের লক্ষ্যে দেশে বিভিন্ন ধরণের শিল্প-কলকারখানা স্থাপনের মাধ্যমে শিল্পায়নের বিকাশেও গূরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন। তার‌ পদাঙ্ক অনুসরণ করেই একটি শিল্পসমৃদ্ধ উন্নত দেশ বিনির্মাণে শিল্প মন্ত্রণালয় নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

কামাল আহমেদ মজুমদার এমপি বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বেই উন্নয়নের মহাসড়কে অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ এবং একসময়ের তথাকথিত তলাবিহীন ঝুড়ির দেশই এখন বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল।

তিনি বলেন, সময়ের চাহিদায় উচ্চ ফলনশীল আখ চাষের পাশাপাশি বিভিন্ন ধরণের মৌসুমী ও অর্থনৈতিক ফসল‌ ফলাতে হবে। চিনিকলগুলো থেকে উৎপাদিত উপজাত পণ্যের যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।

শিল্প প্রতিমন্ত্রী বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প কর্পোরেশনের ঐতিহ্যবাহী সংগঠন বাংলাদেশ চিনিশিল্প করপোরেশন শ্রমিক-কর্মচারী ফেডারেশনের নবনির্বাচিত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ ২৩ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কার্যকরী সংসদের নেতৃবৃন্দকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জ্ঞাপন করে সবাইকে আন্তরিকতার সাথে দায়িত্ব ও কর্তব্য পালনের আহ্বান জানান।

বাংলাদেশ চিনিশিল্প কর্পোরেশন শ্রমিক-কর্মচারী ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মোঃ রায়হানুল হকের সঞ্চালনায় এবং ফেডারেশনের সভাপতি মোঃ মাসুদুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে বিশেষ অতিথি হিসেবে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের শ্রম ও জনশক্তি বিষয়ক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ হাবিবুর রহমান সিরাজ এবং বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশন-বিএসএফআইসি এর চেয়ারম্যান মোঃ আরিফুর রহমান অপু উপস্থিত ছিলেন।

;