‘অর্জন ও বিজয়োল্লাস’-এর বিজয়ী ডিএসওদের সম্মাননা প্রদান করল ‘নগদ’



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
‘অর্জন ও বিজয়োল্লাস’-এর বিজয়ী ডিএসওদের সম্মাননা প্রদান করল ‘নগদ’

‘অর্জন ও বিজয়োল্লাস’-এর বিজয়ী ডিএসওদের সম্মাননা প্রদান করল ‘নগদ’

  • Font increase
  • Font Decrease

উদ্যোক্তাদের সম্পৃক্ততা বৃদ্ধির মাধ্যমে টেকসই প্রবৃদ্ধি বাড়াতে চালু হওয়া ‘অর্জন ও বিজয়োল্লাস’ ক্যাম্পেইনের সর্বোচ্চ লক্ষ্য অর্জনকারী সেরা ডিএসওদের (ডিসট্রিবিউটর সেলস অফিসার) সম্মাননা প্রদান করেছে ‘নগদ’।

এ উপলক্ষ্যে সম্প্রতি রাজধানীর একটি পাঁচ তারকা হোটেলে জমকালো অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ডাক বিভাগের মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস ‘নগদ’। পুরো দেশে ছড়িয়ে থাকা ডিএসও এবং উদ্যোক্তাদের ‘নগদ’-এর সেবা বিস্তারের জন্য অনুপ্রাণিত করার মাধ্যমে তৃণমূল পর্যায়ে পিছিয়ে থাকা জনগোষ্ঠীকে আর্থিক অন্তর্ভুক্তিতে নিয়ে আসাই ছিল ক্যাম্পাইনটির মূল লক্ষ্য। 

বিশেষ এই অনুষ্ঠানে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের মোট ২৮ জন সেরা ডিএসও-কে পুরস্কৃত করে ‘নগদ’। এর মাধ্যমে দেশের এমএফএস ইন্ডাস্ট্রিতে ডিএসওদের জন্য সর্বপ্রথম ভিন্নধর্মী এমন জমকালো আয়োজন করেছে ‘নগদ’।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ‘নগদ’ লিমিটেড-এর প্রতিষ্ঠাতা ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর এ মিশুক, ‘নগদ’-এর নির্বাহী পরিচালকদের মধ্যে নিয়াজ মোর্শেদ এলিট, মো. সাফায়েত আলম, মারুফুল ইসলাম ঝলক এবং মোহাম্মদ আমিনুল হক। এ সময় ‘নগদ’-এর অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে অসাধারণ কর্মনৈপূণ্যের জন্য ২৮ জন সেরা ডিএসওর হাতে সম্মাননা পুরস্কার, ক্রেস্ট ও সার্টিফিকেট তুলে দেন ‘নগদ’-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর এ মিশুক।

দিনব্যাপী এই অনুষ্ঠানের অংশ হিসেবে মূল অনুষ্ঠানের আগে ‘নগদ’-এর প্রধান কার্যালয়ে ডিএসওদের জন্য মধ্যাহ্নভোজ ও মতবিনিময় অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ‘নগদ’-এর প্রধান বিক্রয় কর্মকর্তা ডিএসওদের ‘নগদ’ কার্যালয়ে স্বাগত জানান এবং অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন।

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে চালু হয় ‘অর্জন ও বিজয়োল্লাস’ ক্যাম্পেইনটি। প্রায় দুই মাসব্যাপী এই ক্যাম্পেইনে সর্বোচ্চ অর্জনের ওপর ভিত্তি করে সেরা ২৮ জনকে নির্বাচিত করা হয় এবং তাদের অবদানের স্বীকৃতি দেওয়া হয়। এ ছাড়া ক্যাম্পেইন চলাকালীন প্রতি ১০ দিন পরপর ধারাবাহিকভাবে অঞ্চলভিত্তিক মোট ৭৫০ জন সেরা ডিএসও এবং প্রায় ৫ হাজারেরও বেশি সেরা উদ্যোক্তাদের ‘নগদ’-এর পক্ষ থেকে আকর্ষণীয় উপহার প্রদান করা হয়। তাদের মধ্য থেকে নির্বাচিত সেরা ২৮ জন ডিএসওদের নিয়ে আয়োজন করা হয় অনুষ্ঠানটি। 

সম্মাননাপ্রাপ্ত ২৮ জন বিজয়ীদের মধ্যে রয়েছেন, ঢাকা উত্তরের মো. সাব্বির আহমেদ, ফয়েজ আহমেদ, মো. মাহমুদুল হাসান, ঢাকা দক্ষিণের মোহাম্মাদ শান্ত, মো. রাশেদুল ইসলাম, আকরাম হোসেন, চট্টগ্রামের মো. সাদমান, জীব সাধন চাকমা, মো. রায়হান, খুলনার আসলাম হোসেন, মো. মিরাজুল ইসলাম, মো. রানা হামিদ, বরিশালের মো. এনায়েত, জনাব জহিরুল, মীর হৃদয় আলী, সিলেটের সোহেল মিয়া, বগুড়ার রাজন কুমার দাস রনি, পারভেজ আহমেদ, মো. গোলাম মোস্তফা কুমিল্লার মমিন মিয়া, মো. ইয়াসিন আরাফাত, আরিফ হোসেন ময়মনসিংহের মো. সুজা, জিহাদ হাসান সানি, আতাউর রহমান শান্ত, রংপুরের শ্রী শুভ রায়, মো. রায়হানুল হক এবং তাপস চন্দ্র রায়। 

অনুষ্ঠানে ‘নগদ’-এর প্রতিষ্ঠাতা ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর এ মিশুক বলেন, ‘মাত্র ৩ বছরেই ‘নগদ’ সাড়ে ৬ কোটি গ্রাহক অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে এবং এই সাফল্যের পেছনে যাদের অবদান সবচেয়ে বেশি তারা হলেন আমাদের তৃণমূল পর্যায়ের কর্মীরা। তাদের নিরলস প্রচেষ্টার জন্যই নগদ আজকে দেশসেরা এমএফএস সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। আজকে এই অনুষ্ঠানে তাঁদের অবদানের স্বীকৃতি দিতে পেরে আমি গর্বিত।’

সেরা ২৮ জন বিজয়ীদের পুরস্কৃত করার পাশাপাশি জমকালো এই অনুষ্ঠানে বিশেষ নৈশভোজ, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ‘নগদ’।

বিদ্যুৎ বিভ্রাটে দুঃখ প্রকাশ করেছে বিদ্যুৎ বিভাগ



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

জাতীয় গ্রিডের ইস্টার্ন অঞ্চলে (ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, কুমিল্লা, ময়মনসিংহ) অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে বিদ্যুৎ বিভ্রাট হয়েছে। অনাকাঙ্ক্ষিত বিদ্যুৎ বিভ্রাটের জন্য বিদ্যুৎ বিভাগ আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করছে।

অতিদ্রুত সময়ের মধ্যে বিদ্যুৎ পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে বিদ্যুৎ বিভাগ ও সংশ্লিষ্টরা কাজ করছে। উক্ত সময় দেশের উত্তর অঞ্চল (রাজশাহী, রংপুর) ও দক্ষিণ অঞ্চলের (খুলনা, বরিশাল) বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক ছিল।

দুপুর ২টা ৩৬ মিনিটে আশুগঞ্জ-সিরাজগঞ্জ ২৩০ কেভি সঞ্চালন লাইন চালুর মাধ্যমে ক্রমান্বয়ে ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, কুমিল্লা, ময়মনসিংহ অঞ্চলে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু করা হয়। রাত ৯টায় সিস্টেম জেনারেশন ৮,৪৩১ মে,ও. এবং ক্রমান্বয়ে জেনারেশন বৃদ্ধি করে অত্যন্ত সতর্কতার সাথে বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করার কাজ চলমান আছে।

জাতীয় গ্রিডের পূর্বাঞ্চলের বৃহৎ জেনারেশন কেন্দ্র সমূহ (ঘোড়াশাল, আশুগঞ্জ, মেঘনাঘাট, হরিপুর, সিদ্ধিরগঞ্জ ইত্যাদি) চালু করে ধীরে ধীরে সিস্টেম স্বাভাবিক করা হচ্ছে। ঢাকায় ২৩০০ মেগাওয়াটের বিপরীতে রাত ৯টা ৪০ মিনিটে ১৭৫০ সরবরাহ করা হচ্ছে। ঢাকায় বিকেল ৫টা ১৫ মিনিটের দিকে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু করা হয়েছে।

বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণ উদঘাটনের জন্য পিজিসিবির নির্বাহী পরিচালক (পিএন্ডডি) ইয়াকুব ইলাহী চৌধুরীর নেতৃত্বে ৬ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। বিদ্যুৎ বিভাগের পক্ষ থেকেও আরও দুটি কমিটি গঠন করা হবে।

বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ সম্মানিত গ্রাহকদের একটু ধর্য্য ধরার জন্য অনুরোধ করে বলেছেন, পাওয়ার গ্রিড, বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড এবং সংশ্লিষ্ট দফতরের ইঞ্জিনিয়ার ও টেকনিশিয়ানরা অক্লান্ত শ্রম দিচ্ছেন, দ্রুতই বিদ্যুৎ সরবরাহ সম্পূর্ণ স্বাভাবিক হবে। সম্মানিত গ্রাহকদের সাময়িক এই অসুবিধার জন্য তিনি এসময় আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, আমরা সবসময় গ্রাহকদের পাশেই থাকবো।

;

স্বাভাবিক হচ্ছে বিদ্যুৎ সরবরাহ



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
স্বাভাবিক হচ্ছে বিদ্যুৎ সরবরাহ

স্বাভাবিক হচ্ছে বিদ্যুৎ সরবরাহ

  • Font increase
  • Font Decrease

জাতীয় গ্রিডে বিপর্যয়ের প্রায় সাড়ে তিন ঘণ্টা পর রাজধানীর কিছু এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে।

এদিকে রাতের মধ্যে সার্বিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

ঢাকা ইলেকট্রিক সাপ্লাই কোম্পানি লিমিটেডের (ডেসকো) ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাওসার আমির আলী জানান, বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে রাজধানীর এয়ারপোর্ট ও উত্তরা এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু হয়েছে। আশা করছি, রাতের মধ্যে সার্বিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে।

অন্যদিকে ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির (ডিপিডিসি) ব্যবস্থাপনা পরিচালক বিকাশ দেওয়ান জানান, সিদ্ধিরগঞ্জ, কল্যাণপুর, মানিকনগরে বিদ্যুৎ সরবরাহ চালু হয়েছে। অন্যান্য এলাকায় দ্রুত চালু হবে।

এদিকে পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশ (পিজিসিবি) আশা প্রকাশ করেছে, রাতের মধ্যেই বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হবে। শুরুতে জরুরি স্থাপনায় বিদ্যুৎ সরবরাহে প্রাধান্য দেওয়া হচ্ছে। এরই মধ্যে টঙ্গি, ঘোড়াশালসহ কয়েকটি জায়গার পাওয়ার প্ল্যান্ট চালু হয়েছে।

এর আগে, আশুগঞ্জে গ্রিডে ত্রুটির কারণে জাতীয় গ্রিডে বিপর্যয় (ট্রিপ) ঘটেছে। এতে করে হঠাৎ করেই রাজধানী ঢাকা, চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ ও কুমিল্লাসহ বিভিন্ন জেলায় বিদ্যুৎ বিপর্যয় ঘটেছে। দুপুর ২টা ৫ মিনিটে ট্রিপ করে। পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি লিমিটেড (পিজিসিবি) সূত্রে এই তথ্য জানা যায়।

পিজিসিবির নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, গ্রিড ট্রিপ করেছে। কাজ চলছে। কতক্ষণ এমন পরিস্থিতি চলবে বলা যাচ্ছে না।

;

‘সন্ধ্যায় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হবে’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
‘সন্ধ্যায় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হবে’

‘সন্ধ্যায় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হবে’

  • Font increase
  • Font Decrease

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেছেন, সন্ধ্যার মধ্যেই সারা দেশে বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হবে।

মঙ্গলবার (৪ অক্টোবর) এ তথ্য জানিয়েছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী।

নসরুল হামিদ জানান, জাতীয় গ্রিডে বিপর্যয়ের কারণে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। সন্ধ্যার মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাগুলোতে সরবরাহ স্বাভাবিক হওয়ার প্রত্যাশা করছি। বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হতে আরও দুই থেকে তিন ঘণ্টা সময় লাগবে।

এদিকে পরিস্থিতি স্বাভাবিক পর্যায়ে নিয়ে আসার জন্য কাজ করছে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলো।

এর আগে, আশুগঞ্জে গ্রিডে ত্রুটির কারণে জাতীয় গ্রিডে বিপর্যয় (ট্রিপ) ঘটেছে। এতে করে হঠাৎ করেই রাজধানী ঢাকা, চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ ও কুমিল্লাসহ বিভিন্ন জেলায় বিদ্যুৎ বিপর্যয় ঘটেছে। দুপুর ২টা ৫ মিনিটে ট্রিপ করে। পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি লিমিটেড (পিজিসিবি) সূত্রে এই তথ্য জানা যায়।

পিজিসিবির নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, গ্রিড ট্রিপ করেছে। কাজ চলছে। কতক্ষণ এমন পরিস্থিতি চলবে বলা যাচ্ছে না।

;

চট্টগ্রামের আসকার দীঘির পাড়ে ইসলামী ব্যাংকের শাখা উদ্বোধন



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
চট্টগ্রামের আসকার দীঘির পাড়ে ইসলামী ব্যাংকের শাখা উদ্বোধন

চট্টগ্রামের আসকার দীঘির পাড়ে ইসলামী ব্যাংকের শাখা উদ্বোধন

  • Font increase
  • Font Decrease

চট্টগ্রামের আসকার দীঘির পাড়ে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড-এর ৩৮৮তম শাখা ৪ অক্টোবর ২০২২, মঙ্গলবার উদ্বোধন করা হয়েছে। ব্যাংকের রিস্ক ম্যানেজমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) ইঞ্জিনিয়ার আবদুল মতিন প্রধান অতিথি হিসেবে এ শাখা উদ্বোধন করেন। ব্যাংকের ম্যানেজিং ডাইরেক্টর ও সিইও মুহাম্মদ মুনিরুল মওলার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ব্যাংকের ডেপুটি ম্যানেজিং ডাইরেক্টর মুহাম্মদ শাব্বির, সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট মোঃ মাকসুদুর রহমান ও মিফতাহ উদ্দিন। স্বাগত বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম সাউথ জোন প্রধান মিয়া মোহাঃ বরকত উল্লাহ এবং ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন আসকার দিঘীর পাড় শাখাপ্রধান কাজী মোঃ আলমগীর। গ্রাহক ও শুভানুধ্যায়ীদের পক্ষ থেকে বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন, কাউন্সিলর শৈবাল দাস সুমন ও আনজুমান আরা, চট্টগ্রাম কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ সুচারু বিকাশ বড়–য়া, প্রিন্সিপাল আ.ন.ম দেলোয়ার হোসাইন আল-কাদরী ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ইফতেখারুল আলম। এ সময় ব্যাংকের সিনিয়র অ্যাসিস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট এ এম শহীদুল এমরানসহ নির্বাহী-কর্মকর্তা, গ্রাহক, শুভানুধ্যায়ী এবং বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

মেজর জেনারেল (অব.) ইঞ্জিনিয়ার আবদুল মতিন প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, ইসলামী ব্যাংক বর্তমান সময়ের জন্য অন্যতম রোল মডেল। দেশের প্রান্তিক পর্যায় থেকে সর্বত্র ছড়িয়ে আছে ইসলামী ব্যাংকের সেবা। তথ্যপ্রযুক্তির এই সময়ে মানুষকে আধুনিক ব্যাংকিংয়ের সাথে যুক্ত করেছে ইসলামী ব্যাংক। চট্টগ্রামে আরো বেশি শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপন, উন্নত রেমিট্যান্স সেবা প্রদান ও জীবনমান উন্নয়নে বিনিয়োগের মাধ্যমে অর্থনীতিকে পরিবর্তন করতে ইসলামী ব্যাংক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা সভাপতির বক্তব্যে বলেন, দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে ইসলামী ব্যাংক অগ্রণী ভূমিকা রেখে চলেছে। বর্তমানে দেশের ব্যাংকিং খাতের সকল সূচকে ইসলামী ব্যাংক এগিয়ে। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে আধুনিক ব্যাংকিং সেবা মানুষের দোড়ঁগোড়ায় পৌঁছে দিতে ইসলামী ব্যাংক বদ্ধপরিকর। তিনি বলেন, বাংলাদেশের অর্জিত রেমিট্যান্সের প্রায় এক-তৃতীয়াংশ এককভাবে ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে আসে। এছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছে এ ব্যাংক। আধুনিক ব্যাংকিং সেবা গ্রহণ করে নিজেদের উন্নয়নের পাশাপাশি সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার কাজে অংশ নিতে তিনি সকলকে আহবান জানান।

;