স্বপ্ন’র নতুন আউটলেট এখন কচুয়ার রহিমানগর বাজারে



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
স্বপ্ন’র নতুন আউটলেট এখন কচুয়ার রহিমানগর বাজারে

স্বপ্ন’র নতুন আউটলেট এখন কচুয়ার রহিমানগর বাজারে

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের অন্যতম রিটেইল চেইন শপ স্বপ্ন’র নতুন আউটলেট এখন ইলিশের বাড়ি চাঁদপুর জেলার কচুয়া উপজেলার রহিমানগর বাজারে। 

বুধবার (১৭ই আগস্ট) বিকাল ৪টায় নতুন এই আউটলেটের উদ্বোধন করা হয় ।

এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ শাহজাহান শিশির, কচুয়া থানার ওসি মোঃ মহিউদ্দীন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হাজী আব্দুল মান্নান, স্বপ্ন'র রিজিওনাল হেড অফ অপারেশনস আবদুল্লাহ আল মাহবুব, রিজিওনাল সেলস ম্যানেজার রিয়াজ উদ্দিন, স্বপ্নের আউটলেট ম্যানেজার মিঠুন, রহিমানগর আউটলেট ফ্র্যাঞ্চাইজি মাহবুবুল আলম ও মাসুদ মান্নানসহ আরো স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তবর্গ।

স্বপ্নর নির্বাহী পরিচালক সাব্বির হাসান নাসির বলেন, ‘স্বপ্ন এখন দেশের ৪০টি জেলায়। রহিমানগর স্বপ্ন আউটলেটটি আমাদের সেবার পরিসরকে আরও বিস্তৃত করবে। আশা করছি, স্বাস্থ্যসম্মত এবং নিরাপদ পরিবেশে এখানের সব গ্রাহক স্বপ্নতে নিয়মিত বাজার করবেন।

স্বপ্ন'র অপারেশনস ডিরেক্টর আবু নাসের জানান, নতুন এই আউটলেটে থাকছে মাসব্যাপী নানা অফার এবং হোম ডেলিভারি সেবা।

নতুন আউটলেটের ঠিকানা: রহিমানগর মেইন রোড শাহজালাল শপিং কমপ্লেক্স সংলগ্ন। রহিমানগর নতুন এই আউটলেটে হোম ডেলিভারির জন্য যোগাযোগের নম্বর: ০১৮৪৩-৩৯৯৩২৩

সয়াবিন তেলের দাম কমল লিটারে ১৪ টাকা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশে বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম লিটারে ১৪ টাকা কমছে। নতুন দাম কার্যকর হবে মঙ্গলবার (৪ অক্টোবর) থেকে।

নতুন দাম অনুযায়ী, এক লিটারের বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম দাঁড়াবে ১৭৮ টাকা। বর্তমানে যা বিক্রি হচ্ছে ১৯২ টাকায়।

সোমবার (৩ অক্টোবর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সয়াবিন তেলের দাম কমানোর কথা জানায় বাংলাদেশ ভেজিটেবল ওয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যাকচার্শ অ্যাসোসিয়েশন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রতি লিটার সয়াবিন তেলে ১৪ টাকা কমিয়ে নতুন দামে বিক্রি হবে মঙ্গলবার থেকে। এখন থেকে ১৭৮ টাকাই মিলবে বোতলজাত এক লিটার সয়াবিন।

ব্যবসায়ীদের সংগঠনটি জানায়, নতুন দরে মঙ্গলবার (৪ অক্টোবর) থেকে বাজারে সয়াবিন তেল বিক্রি হবে।

;

‘নগদ’র মাধ্যমে মোবাইল রিচার্জে সর্বোচ্চ ১০০০ টাকা পর্যন্ত ক্যাশব্যাক



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
‘নগদ’র মাধ্যমে মোবাইল রিচার্জে সর্বোচ্চ ১০০০ টাকা পর্যন্ত ক্যাশব্যাক

‘নগদ’র মাধ্যমে মোবাইল রিচার্জে সর্বোচ্চ ১০০০ টাকা পর্যন্ত ক্যাশব্যাক

  • Font increase
  • Font Decrease

মোবাইল রিচার্জে দেশের সবচেয়ে আকর্ষণীয় ও নজরকাড়া ক্যাশব্যাক নিয়ে এসেছে মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস ‘নগদ’। এখন থেকে ‘নগদ’-এর নতুন যেকোনো ফুলপ্রোফাইল গ্রাহক মোবাইল রিচার্জে মাসভিত্তিক সর্বোচ্চ ১০০০ টাকা পর্যন্ত ক্যাশব্যাক পাবেন।

একজন নতুন নিবন্ধিত ‘নগদ’ গ্রাহক প্রথম মাসে নিজ নম্বরে যেকোনো পরিমাণ রিচার্জের ওপর ২০ শতাংশ ক্যাশব্যাক বা সর্বোচ্চ ৩০০ টাকা পর্যন্ত ক্যাশব্যাক পাবেন। দ্বিতীয় মাসে নিজ নম্বরে যেকোনো পরিমাণ রিচার্জের ওপর ২০ শতাংশ ক্যাশব্যাক বা সর্বোচ্চ ৩০০ টাকা পর্যন্ত ক্যাশব্যাক পাবেন। তৃতীয় মাসে নিজ নম্বরে যেকোনো পরিমাণ রিচার্জের ওপর ২০ শতাংশ হারে সর্বোচ্চ ৪০০ টাকা পর্যন্ত ক্যাশব্যাক পাবেন। এভাবে একজন গ্রাহক যতবার রিচার্জ করবেন, ততবার ক্যাশব্যাক পাবেন, তবে যার সর্বোচ্চ সীমা ১০০০ টাকা।

এ ছাড়া এখন থেকে ‘নগদ’ অ্যাপের মাধ্যমে ‘নগদ’ অ্যাকাউন্ট খুললে থাকছে নিশ্চিত ২৫ টাকা বোনাস। ‘নগদ’ অ্যাকাউন্ট খোলার পর প্রথম লগ ইন-এ এই টাকা পাওয়া যাবে। 

সবগুলো অফার উপভোগ করতে অবশ্যই গ্রাহকে পিন সেট করে ‘নগদ’ অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে এবং ফুল প্রোফাইলে থেকে নির্ধারিত ক্যাশব্যাক উপভোগ করতে হবে।

এই ক্যাম্পেইনটি ০৩ অক্টোবর ২০২২ থেকে পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত কার্যকর থাকবে। এই ক্যাম্পেইনের অধীনে সব শর্তাবলী পূরণ করে প্রতিটি মোবাইল রিচার্জ করার পরবর্তী এক কর্মদিবসের মধ্যে ক্যাশব্যাক পাওয়া যাবে ‘নগদ’ অ্যাকাউন্টে।     

ক্যাম্পেইন এর সব শর্ত পূরণ করার পরেও যদি একজন গ্রাহক ক্যাশব্যাক না পান, তাহলে ‘নগদ’ হটলাইন নম্বর ১৬১৬৭ অথবা ০৯৬০৯৬১৬১৬৭ নম্বর-এ যোগাযোগ করে সমস্যার সমাধান করতে পারবেন।

নতুন এই ক্যাম্পেইনের বিষয়ে ‘নগদ’-এর চিফ কমার্সিয়াল অফিসার সাদাত আদনান আহমেদ বলেন, ‘আমরা মানুষের কষ্টার্জিত অর্থের কিছুটা সাশ্রয় দিতে সবসময় কাজ করছি। যার অংশ হিসেবে মোবাইল রিচার্জে দারুণ এই ক্যাশব্যাক ক্যাম্পেইনটি চালু করেছি। এখন দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির কারণে মানুষ অনেকটা চাপে আছে, আশা করছি প্রতিদিনের যোগাযোগের মাধ্যম হিসেবে মোবাইল রিচার্জে তারা একটু হলেও সাশ্রয় পাবেন এবং ডাক বিভাগের সেবা ‘নগদ’-এর সাথেই থাকবেন।’

;

প্রফেসর নজরুল রেমোটোলজি ফাউন্ডেশনকে অ্যাম্বুলেন্স দিল সাউথইস্ট ব্যাংক



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেড কর্পোরেট সামাজিক দায়বদ্ধতা কর্মসূচীর আওতায় প্রফেসর নজরুল রেমোটোলজি ফাউন্ডেশন এন্ড রিসার্চকে একটি অ্যাম্বুলেন্স প্রদান করেছে।

সাউথইস্ট ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম.কামাল হোসেন প্রফেসর নজরুল রেমোটোলজি ফাউন্ডেশন এন্ড রিসার্চ এর চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডাক্তার মোঃ নজরুল ইসলাম এর নিকট অ্যাম্বুলেন্সটি হস্তান্তর করেন।

এছাড়াও উক্ত অনুষ্ঠানে উভয় প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। সাউথইস্ট ব্যাংকের সামাজিক দায়বদ্ধতা কর্মসূচীর আওতায় প্রদানকৃত এই অ্যাম্বুলেন্স’টি রোগীদের অসুস্থতাকালীন সময়ে জরুরীভাবে হাসপাতালে স্থানান্তরে সাহায্য করবে।

 

 

;

বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ডের সম্পূরক চুক্তি সম্পন্ন



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ, পেট্রোবাংলা ও শেভরন বাংলাদেশের মধ্যে ত্রিপক্ষীয় সম্পূরক চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে।

রোববার (২ অক্টোবর) রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোঁনারগাও হোটেলে চুক্তিগুলো স্বাক্ষর হয়।

জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের পক্ষে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের উপসচিব মোছা. মোর্শেদা ফেরদৌস, পেট্রোবাংলার পক্ষে পেট্রোবাংলার সচিব (ঊর্ধ্বতন মহাব্যবস্থাপক) রুচিরা ইসলাম, শেভরনের পক্ষে শেভরন, বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট এরিক এম ওয়াকার চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।

অনুষ্ঠানে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) ড. মো. হেলাল উদ্দিন, এনডিসি ও পেট্রোবাংলা‘র চেয়ারম্যান নাজমুল আহসান গেস্ট অব অনার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। উপস্থিত ছিলেন পেট্রোবাংলার পরিচালক (পিএসসি) প্রকৌশলী মো. শাহীনুর ইসলাম, শেভরন বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট এরিক এম ওয়াকার এবং করপোরেট অ্যাফেয়ার্স ডিরেক্টর মুহাম্মদ ইমরুল কবির সরকারসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।

উল্লেখ্য, শেভরনের বিবিয়ানা ফিল্ডের নতুর এলাকায় কূপ খনন করবে। এক সময় যে এলাকাগুলো শেভরনের আওতাধীন ছিল, কিন্তু তারা এগুলোর স্বত্বত্যাগ করেছিলেন। বর্তমানে বিবিয়ানায় শেভরনের কূপ সংখ্যা ২৬। শেভরন নতুন এলাকাতে ২০২৩ সালে ২৭ নম্বর উন্নয়ন কূপ খনন শুরু করবে। পরবর্তীতে ২৮ নম্বর কূপ খননের পরিকল্পনাও রয়েছে শেভরনের। এতে করে বাংলাদেশের সবচেয়ে বৃহৎ গ্যাস ফিল্ডটির মজুদ ও উত্তোলন বৃদ্ধির আশা করা হচ্ছে। বিবিয়ানায় প্রায় ১.২২ টিসিএফ অবশিষ্ট গ্যাস মজুদ রয়েছে। আমেরিকান কোম্পানি শেভরন দৈনিক উৎপাদন করছে ১২৩৭ এমএমসিএফ।

;